বৃহস্পতিবার, ১০ মে ২০১৮ ০৯:০৫ ঘণ্টা

আসামির সঙ্গে ‘গোপন বৈঠক’, তুরিন আফরোজকে প্রত্যাহারের চিঠি

Share Button

আসামির সঙ্গে ‘গোপন বৈঠক’, তুরিন আফরোজকে প্রত্যাহারের চিঠি

ডেস্করিপোর্ট: আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর (রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী) ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার এক আসামির সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাকে ট্রাইব্যুনালের সকল মামলা পরিচালনা থেকে প্রত্যাহারের চিঠি দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে সকল মামলার ডকুমেন্ট প্রসিকিউশন অফিসে জমা দিতে বলা হয়েছে তুরিন আফরোজকে।

৮ মে, মঙ্গলবার তুরিন আফরোজকে অব্যাহতি দিয়ে চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপুর স্বাক্ষরিত চিঠি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে গোলাম আরিফ টিপু সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি কোনো পক্ষে কথা বলব না। তার (তুরিন আফরোজের) বিষয়ে যে অভিযোগ উঠেছে, সে বিষয়টি তদন্ত হওয়ার পর জানা যাবে।’

টিপুর স্বাক্ষর করা ওই চিঠিতে তুরিন আফরোজের উদ্দেশে বলা হয়, ‘আইসিটি বিডি মিস কেস নং- ১/২০১৮ এর প্রসিকিউটর হিসেবে আপনার দায়িত্ব পালন থেকে বিরত ও প্রত্যাহারের ধারাবাহিকতায় ৮ মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সকল মামলা থেকে বিরত ও প্রত্যাহারের আদেশসহ আপনার নিকট ট্রাইব্যুনালের বিভিন্ন মামলার সকল ডকুমেন্টস প্রসিকিউটর অফিসে জমা দেওয়ার আদেশ দেওয়া হলো।’

চিঠিটির অনুলিপি তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রেজিষ্ট্রার, প্রসিকিউর (প্রসাশন) জেয়াদ আল মালুম, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অফিস ও প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমনকে দেওয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ছবি: সংগৃহীতআন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ছবি: সংগৃহীত

তুরিন আফরোজকে দেওয়া চিঠিতে আরও বলা হয়, গত ২৮ মার্চ মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি মেজর মো. ওয়াহিদুল হক, তার স্ত্রী এবং অন্য একজন বয়স্ক ব্যক্তির সঙ্গে তুরিন আফরোজ গোপন বৈঠক করেন। আর ওই বৈঠকের ভিডিও ধারণ করা হয় ওয়াহিদুল হকের মোবাইলে। ধারণকৃত প্রায় পৌনে তিন ঘণ্টার রেকর্ড তদন্ত সংস্থার মাধ্যমে প্রসিকিউশন অফিসে জমা দেওয়া হয়।

চিঠিতে বলা হয়, তুরিন আফরোজের এমন কর্মকাণ্ডে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে। এ জন্য তার বিরুদ্ধে এই চিঠি দেওয়া হলো।

ইতোমধ্যে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা যদি সত্যি হয়, তবে মন্ত্রণালয় অবশ্যই পদক্ষেপ নিবে।

আমিতো আর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যাই না, বা তাদের মামলাও পরিচালনা করি না। কাজেই এ বিষয়ে আমার পক্ষে বলা সম্ভব না।’

এ বিষয়ে তদন্ত সংস্থার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা এম সানাউল হক বলেন, ‘এ ধরনের বিচারাধীন মামলার আসামির সঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষের কোনো আইনজীবী দেখা-সাক্ষাৎ করা নৈতিকতাবিরোধী।

যেহেতু বিষয়টি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে তদন্ত (অনুসন্ধান) করার জন্য, এখন তদন্তে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসুক।’

সানাউল হক বলেন, ‘আমরা চাই না, ট্রাইব্যুনালের মতো এত গুরুত্বপূর্ণ স্থানে এমন ইস্যু নিয়ে কোনো ধরনের বিতর্ক সৃষ্টি হোক। দীর্ঘ পরিশ্রমের মাধ্যমে সরকারের যে অর্জন এবং সাফলতা, তা ম্লান না হোক।’

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে