Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | বাড়বে বৃষ্টি ও বজ্রপাত,সারা দেশে ৩০ জনের মৃত্যু
বৃহস্পতিবার, ১০ মে ২০১৮ ১০:০৫ ঘণ্টা

বাড়বে বৃষ্টি ও বজ্রপাত,সারা দেশে ৩০ জনের মৃত্যু

Share Button

বাড়বে বৃষ্টি ও বজ্রপাত,সারা দেশে ৩০ জনের মৃত্যু

সিলেট রিপোর্ট: গতকাল বুধবার সারা দেশে প্রায় ৩০ জন মারা গেছে বজ্রপাতে। এবার এখন পর্যন্ত বজ্রপাতে প্রাণহানি ঘটেছে শতাধিক মানুষের।  আবহাওয়াবিদরা বলছেন, আগামী শনিবারের (১২ মে) পর আরও বাড়তে পারে বৃষ্টি ও বজ্রপাত।

কালবৈশাখীর সময় বিশেষ করে এপ্রিল ও মে মাসে বৃষ্টি ও বজ্রপাত একটি স্বাভাবিক ঘটনা। তবে বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবার বজ্রপাতের প্রবণতা ও তাতে প্রাণহানির ঘটনা অনেক বেশি। আবহাওয়াবিদরা একে অস্বাভাবিক হিসেবে দেখছেন। তারা বলছেন, অন্যান্য বছর কালবৈশাখীর মেঘ উৎপন্ন হতো বাংলাদেশ থেকে ১৫০ থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে। কিন্তু এ বছর কালবৈশাখীর মেঘ  তৈরি হচ্ছে বাংলাদেশের ভেতরে। আর এ কারণে এ বছর বজ্রপাতের পরিমাণ বেশি মনে হচ্ছে।

আবহাওয়া বিশেষ করে অস্বাভাবিক বজ্রপাতের ঘটনা নিয়ে বুধবার ঢাকাটাইমসের সঙ্গে কথা হয় আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ, আবদুল হান্নান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক মো. শহিদুল ইসলামের সঙ্গে। তারা সবাই এবারের বজ্রপাতের আধিক্যকে ব্যতিক্রমী বলছেন।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘এ বছর বজ্রপাতের ঘটনা অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে। কালবৈশাখীর মেঘগুলো রাজশাহীর ওই দিকে তৈরি হচ্ছে এবং তা সেন্ট্রাল পয়েন্ট দিয়ে যাচ্ছে। এজন্য ঢাকায় বজ্রপাত বেশি মনে হচ্ছে।’

বজলুর রশিদ বলেন, ‘বজ্রপাতের কাউন্টিং ছিল না। তবে স্বাভাবিক পর্যবেক্ষণে এই পরিমাণ বেশিই মনে হচ্ছে। কাল-পরশু প্রবণতা কম থাকলেও ১২ মের পর বৃষ্টি ও বজ্রপাতের প্রবণতা আরও বাড়তে পারে ‘

অতীতের তুলনায় এখন বজ্রপাতের ইভেন্ট বেড়ে গেছে বলে মনে করেন আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, একটি সিস্টেম গড়ে ওঠার পর শেষ পর্য ন্ত সেটাকে একটি ইভেন্ট বলা হয়। এ বছর এখন পর্যন্ত ২০টির মতো ইভেন্ট হয়েছে, সেটা অস্বাভাবিক। ৩০ মার্চ থেকে এখন পর‌্যন্ত ধারাবাহিকভাবে এটি হয়ে যাচ্ছে। পরপর তিন-চার দিনও হয়েছে, সংখ্যাটাও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এ বছর বেশির ভাগ সিস্টেম ডেভেলপ হয়েছে দেশের উত্তর পশ্চিমে এবং তা দেশের মধ্যাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চলে শেষ হয়েছে জানিয়ে আবহাওয়াবিদ মান্নান বলেন,  ‘অন্যান্য বছর এখানে এমনটি হতো না। বাংলাদেশ থেকে ১৫০-২০০ কিলোমিটার দূরে ভারতে সিস্টেম ডেভেলপ হতো এবং তা রংপুর, দিনাজপুরের দিকে শেষ হয়ে যেত।’

মান্নান বলেন, ‘এবার ব্যতিক্রম মনে হচ্ছে। এবার উৎপন্ন হয়েছে বাংলাদেশে এবং বিস্তৃত হয়েছে পূর্বাঞ্চল পর্যন্ত। এ জন্য ঢাকায় এবার বজ্রপাত বেশি মনে হচ্ছে।

 

এ আবহাওয়াবিদ বলেন, এ বছর বজ্রপাতের শব্দও তুলনামূলক বেশি, সেটাও ব্যতিক্রম।  এর প্রধান কারণ হিসেবে তিনি বলেন, বায়ুমণ্ডলের নিম্নস্তরে জলীয় বাষ্পের জোগান বেশি। এ কারণে চার্জ বেশি হচ্ছে, তাতে বজ্রপাতের শব্দ জোরালো  হচ্ছে।

আগামী পাঁচ-ছয় দিন দেশের রংপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, সিলেট, ঢাকা, কুমিল্লাসহ দেশের পূর্বাঞ্চলে বজ্রপাত ও বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বেশি থাকবে বরে জানান মান্নান।  তবে অন্য অঞ্চলগুলোতে এ প্রবণতা একটু কম থাকবে।

বজ্রপাত বাড়ার পেছনে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কিছুটা থাকতে পারে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক মো. শহিদুল ইসলাম।

 

হবিগঞ্জ, মাধবপুর ও নবীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জে পৃথক বজ্রপাতে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন- নবীগঞ্জ উপজেলার বৈলাকপুর গ্রামের হরিচরণ পালের ছেলে নারায়ণ পাল, পানিউমদা ঘুঙ্গিয়া জুড়ি হাওরের সুজন মোড়া (৪০), আমড়াখাই গ্রামের হাবিব উল্লার ছেলে আবু তালিব, মাধবপুর উপজেলার পিয়াইম গ্রামের রামচরণ সরকারের ছেলে জহরলাল সরকার, লাখাই উপজেলার তেঘরিয়া গ্রামের জাহেদ মিয়ার ছেলে চকি মিয়া, সুনামগঞ্জের ধাইপুর গ্রামের বসন্ত দাসের ছেলে স্বপন দাস ও সিরাজগঞ্জের নওসের মিয়ার ছেলে জয়নাল মিয়া। এছাড়া বজ্রপাতে আহত হয়েছেন ৪ জন।
স্থানীয়রা জানান, সকাল ১১টায় বানিয়াচংয়ের মাকালকান্দি হাওরে প্রতিদিনের মতো কাজ করছিলেন ধানকাটা শ্রমিকরা। এসময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই সুনামগঞ্জের স্বপন দাস মারা যান। প্রায় একই সময়ে বানিয়াচংয়ের মাইচ্ছার বিল হাওড়ে বজ্রপাতে নিহত হন সিরাজগঞ্জের জয়নাল মিয়া। এসময় আহত হন অন্য ৪ ধানকাটা শ্রমিক। আহতদের বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এদিকে লাখাই উপজেলার তেঘরিয়া হাওরে ধান কাটার সময় বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন চকি মিয়া। গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এছাড়া নবীগঞ্জ উপজেলায় পৃথক স্থানে বজ্রপাতে তিন কৃষক নিহত হয়েছেন। করগাঁও ও বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নের স্থানীয় হাওরে ধান কাটতে গেলে নারায়ণ পাল ও আবু তালিব বজ্রপাতের শিকার হন। পরে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে হাওরে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে সুজন মোড়া (২৭) নামে এক চা শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বিকেল ৫টায় হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। সুজন মোড়া চুনারুঘাট উপজেলার জোয়ালভাঙ্গা চা বাগানের কানাই মোড়ার ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বূধবার দুপুরে অন্যান্য সহকর্মীর সঙ্গে নবীগঞ্জের একটি হাওরে ধান কাটতে যান সুজন মোড়া। এসময় বজ্রপাত হলে গুরুতর আহত হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল ৫টায় তার মৃত্যু হয়।
নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. বেনু ভূষণ দাশ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। নবীগঞ্জ থানার ওসি এস এম আতাউর রহমান বজ্রপাতে মৃত্যুর সত্যতা স্বীকার করেছেন।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীর তানোর উপজেলায় বজ্রপাতে তিনজন নিহত হয়েছেন। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার দুবইল ও বাতাসপুর গ্রামের এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুইজন। নিহতরা হলেন- বাতাসপুর গ্রামের কৃষক আনসার আলী (৩০), দুবইল পূর্বপাড়ার কিশোর সোহাগ আলী (১৬) ও চকরতিরামপুরের এলিনা মুরমু (৩৫)। আহতরা হলেন- বাতাসপুর গ্রামের আনন্দ সাহা (৩২) ও লিটন চন্দ্র সাহা (৩০)।
উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির উপ-সহকারী প্রকৌশলী এনামুল হক জানান, সকালে বৃষ্টির সময় বজ্রপাত হয়। এ সময় মাঠে ধান কাটাতে গিয়ে উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়নের বাতাসপুর গ্রামের লোকমান আলীর ছেলে আনসার আলী বজ্রপাতে মারা যান। আহত হন একই গ্রামের অনিল সাহার ছেলে আনন্দ শাহা ও হিরেন সাহার ছেলে লিটল শাহা।
অপরদিকে, প্রায় একই সময় উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়নের দুবইল গ্রামের পূর্বপাড়ার সামসুদ্দীনের ছেলে সোহাগ আলী (১৬) মাঠে গভীর নলকুপে কাজ করছিল। এসময় বজ্রপাতে ঘটনা স্থলে মারা যায় সে। আর ধান কাটার সময় বজ্রপাতে মারা যান এলিনা মুরমু।
তানোর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা শওকাত আলী বলেন, বজ্রপাতে তিনজন মারা গেছেন। খবর পেয়ে উপজেলা সহকারী (ভূমি) কর্মকর্তাকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে পাঠানো হয়। নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারের জন্য ২০ হাজার টাকা ও ৩০ কেজি করে চাল সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
তানোর থানার ওসি রেজাউল ইসলাম জানান, লাশ স্বজনরা নিয়ে গেছেন।
ফুলছড়ি (গাইবন্ধা) প্রতিনিধি জানান, গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় বজ্রপাতে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে উপজেলার উদাখালি ইউনিয়নের পূর্ব ছালুয়া গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মহর আলী (৩৫)  উপজেলার উড়িয়া ইউনিয়নের কাবিলপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদ মিয়ার ছেলে।
সুনামগঞ্জ ও ধর্মপাশা প্রতিনিধি জানান, সুনামগঞ্জের হাওরে পৃথক বজ্রপাতের ঘটনায় দুই কৃষক নিহত হয়েছেন। বুধবার দুপুরে জেলার শাল্লা উপজেলার কালিয়াকুটা ও ধর্মপাশা উপজেলার কাইল্যানি হাওরে এই ঘটনা ঘটে।
শাল্লা উপজেলার কালীকুটা হাওরে নিহত হয়েছেন কৃষক আলমগীর হোসেন (২৩)। তিনি উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর (যুক্তি মিয়া) ছেলে। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে কালিয়াকুটা হাওর থেকে বাড়িতে আসার সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন।
এদিকে ধর্মপাশায় বজ্রপাতে জুয়েল মিয়া (১৮) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। জুয়েল মিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের দুর্বাকান্দা গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার কাইল্যানি হাওরে এ ঘটনা ঘটে।
জুয়েল মিয়া কাইল্যানি হাওরে ধান কাটছিলেন। এসময় আকস্মিক বজ্রপাত হলে জুয়েল মিয়া গুরুতর আহত হন। তার সঙ্গে থাকা শ্রমিকরা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করে।
অপরদিকে একই সময়ে ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের বাহুটিয়াকান্দা গ্রামে বজ্রপাতে দিলহজ (২৪) নামের এক কৃষক ধান মাড়াইয়ের সময় আহত হয়েছে। দিলহজ বাহুটিয়াকান্দা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।
সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাবিবুল্লাহ জুয়েল বলেন, ‘পৃথক ব্রজপাতের ঘটনায় ২ জন নিহত ও একজন আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।’
কিশোরগঞ্জ অফিস জানায়, কিশোরগঞ্জের নিকলী ও পাকুন্দিয়া উপজেলায় বজ্রপাতে দুইজন নিহত হয়েছেন। তারা হলেন- নিকলী উপজেলার ছাতিরচর ইউনিয়নের পরিষদপাড়া গ্রামের শাহ জালাল (২৪) ও পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদের আশুতিয়া গ্রামে দিপালী রানী বর্মণ (৩৫)।
সুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হামিদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, শাহ জালাল হাওরের জমি থেকে ইঞ্জিন চালিত ট্রলি দিয়ে ধান আনার সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান। আর রান্না ঘরে কাজ করার সময় বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন দিপালী। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
জামালপুর প্রতিনিধি জানান, জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় বজ্রপাতে মো. হাবিবুর রহমান (৪৭) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি মৌলভীর চরের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে। বুধবার উপজেলার চর আমখাওয়া ইউনিয়নের মৌলভীর চরে এ ঘটনা ঘটে বলে নিহতের স্বজন শহীদুল হক জানান।
তিনি বলেন, হাবিবুর কৃষিশ্রমিকদের সঙ্গে বাড়ির কাছেই ধান কাটতে যান। হঠাৎ বজ্রবৃষ্টি শুরু হলে তিনি ধানকাটা বাদ দিয়ে বাড়ির দিকে রওনা হন। পথে বজ্রপাত হলে তিনি সংজ্ঞা হারান। স্থানীয়রা তাকে প্রথমে সানন্দবাড়ি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এবং পরে পার্শ্ববর্তী কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
ময়মনসিংহ ব্যুরো জানায়, ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় বজ্রপাতে আলাল উদ্দিন (৬০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। এ সময় মুক্তাগাছায় আটজন আহত হন। বুধবার দুপুরে উপজেলার চর নীলক্ষীয়ায় বজ্রপাতে আলা উদ্দিন মারা যান নিশ্চিত করেছেন ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম।
তিনি বলেন, বাড়ি থেকে বের হয়ে আলাল উদ্দিন গরু আনতে যাচ্ছিলেন। এসময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি জানান, জলঢাকায় বজ্রপাতে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- আসমা বেওয়া (৫০) ও নুর আমিন (৪৫)। বুধবার সকালে তাদের মৃত্যু হয়।
জলঢাকা থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান জানান, উপজেলার বালাগ্রাম ইউনিয়নের ঢুকঢুকি শালনগ্রাম গ্রামের মৃত ইসলাম উদ্দিনের স্ত্রী আসমা বেওয়া বাড়ির বারান্দায় বসে থাকলে হঠাৎ বজ্রপাতে তার মৃত্যু হয়। অন্যদিকে একই ঘটনায় কাঠালী ইউনিয়নের উত্তর দেশীবাই গ্রামের মৃত ছফর উদ্দিনের ছেলে নুর আমিন ঘরের বারান্দা থেকে ধান আনতে গেলে মৃত্যু হয়।
মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, দৌলতপুর উপজেলায় বুধবার বজ্রপাতে এক শিশুশিক্ষার্থীসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ১২ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে ১০ শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
বজ্রপাতে নিহতরা হলেন- উপজেলার বাচামারা ইউনিয়নের হাসাদিয়া গ্রামের কৃষক ইয়াকুব আলী শেখ (৪৮) এবং উপজেলার কলিয়া ইউনিয়নের তালুকনগর গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে সাইফুল ইসলাম ওরফে অন্তর (১২)। সে স্থানীয় তালুকনগর উচ্চবিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ছিল।
আহত শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা জানান, বেলা দেড়টার দিকে তালুকনগর উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাওয়ার জন্য (টিফিনের) ছুটি দেওয়া হয়। এ সময় বৃষ্টি না হলেও আকাশ মেঘাচ্ছন্ন ছিল। বেলা পৌনে ২টার দিকে বিদ্যালয়টির আঙিনায় মাঠের এক পাশে দোকানদারের কাছ থেকে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী চানাচুর ও বিস্কুট কিনে খাচ্ছিল। এ সময় আকস্মিক বিকট শব্দে বজ্রপাত হলে ১৩ শিক্ষার্থী আহত হয়। এর মধ্যে মুমূর্ষ অবস্থায় সাইফুল ইসলামকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় আহত শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১০ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুর রহমান।
এ দিকে সকালে দৌলতপুরের বাচামারা ইউনিয়নের হাসাদিয়া গ্রামে বজ্রপাতে কৃষক ইয়াকুব আলী শেখ নিহত হয়েছেন।
বাচামারা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ জানান, সকালে হাসাদিয়া গ্রামে বাড়ির পাশে ধানখেতে আগাছা পরিষ্কার করছিলেন। সকাল ৯টার দিকে বজ্রপাতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, সিরাজগঞ্জের কাজিপুর বজ্রপাতে সমতুল্লাহ (৫০) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছেন। এছাড়াও শাকিল মিয়া (১৫) নামে এক স্কুলছাত্র আহত হয়েছে। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়নের পানাগাড়ি চরে ও সকাল ১১টার দিকে খাস রাজবাড়ি চরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সমতুল্লাহ পানাগাড়ি গ্রামের বাসিন্দা ও আহত শাকিল খাস রাজবাড়ি গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে।
কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, পানাগাড়ি চরে নিজের ক্ষেতে কাজ করছিলেন কৃষক সমতুল্লাহ। এ সময় বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হওয়ায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি। অপরদিকে সকাল ১১টার দিকে খাসরাজবাড়ি হাইস্কুলে যাওয়ার পথে বজ্রপাতে ঝলসে যায় স্কুলছাত্র শাকিল। তাকে উদ্ধার করে কাজিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, সোনারগাঁয়ের জামপুরের তিলাবো গ্রামে বজ্রপাতে কুলফী আক্তার (৮) নামে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কুলফী বাছাবো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণির ছাত্রী।
এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের তিলাবো গ্রামের শাহ কামালের মেয়ে কুলফী আক্তার ও সহপাঠি নাইম, পরাগ বাড়ির পাশে খেলাধুলা করছিল। নাইম ও পরাগ বাড়িতে চলে যায়। পরে কুলফী আক্তার একা খেলা করে। এ সময় বজ্রপাতের ঘটনা ঘটলে কুলফী আক্তার আহত হয়। তাকে স্থানীয় নয়াপুর এলাকায় একটি ক্লিনিকে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন

এই সংবাদটি 1,048 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com