সোমবার, ২১ মে ২০১৮ ১১:০৫ ঘণ্টা

এক রাতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৫

Share Button

এক রাতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৫

ডেস্ক রিপোর্ট:
দেশের ৫ জেলায় এক রাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ৫জন নিহত হয়েছে। তাদের মধ্যে চারজন মাদক চোরাকারবারি, একজন ডাকাত ও একজন ছিনতাইকারী বলে দাবি করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এর আগে র‌্যাবের মাদকবিরোধী সাঁড়াশি অভিযানে গত দুই দিনে তিন জেলায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ছয়জন নিহত হয়েছে। যারা সবাই মাদক বিক্রিতে জড়িত বলে দাবি করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীটি। এছাড়া গত শনিবার পুলিশ ও র‌্যাবের সাথে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে যশোর ও ময়মনসিংহের নান্দাইলে ৪জন নিহত হয়। গত শনিবার দিবাগত রাতেও বরিশাল, ময়মনসিংহ, দিনাজপুর, টাঙ্গাইল, ফেনীতে পুলিশের সঙ্গে ৫টি বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এতে ৫জন নিহত হয়েছে।
ছাগলনাইয়া (ফেনী) উপজেলা সংবাদাতা জানান, ছাগলনাইয়ায় পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে আলমগীর হোসেন (৩২) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। পুলিশ জানায় সে উপজেলার চিহ্নিত ইয়াবার ডিলার। শনিবার দিনগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার পাঠাননগর ইউনিয়নের পশ্চিম পাঠান নগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাত ১টার দিকে ওই এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময়ে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ী আলমগীর তার দল পুলিশকে লক্ষ্য গুলি ছোড়ে, পুলিশও আত্ম রক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে গেলে পুলিশ আলমগীরকে আহত অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে। পরে ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এসময় পুলিশ একটি বন্দুক ৩ রাউন্ড গুলি, ১›শ বোতল ফেন্সিডিল ও ১ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করে। সে উপজেলার চিহ্নিত ইয়াবার ডিলার ও ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী। সে পাঠান নগর ইউনিয়নের পূর্ব পাঠান গড় এলাকার আবদুস সালাম ভূইঁয়ার ছেলে।
মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, মির্জাপুরে পুলিশ ও ছিনতাইকারীর মধ্যে কথিত বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় এক ছিনতাইকারী নিহত হয়েছে। পুলিশ সূত্র জানান, শনিবার রাতে মির্জাপুর পৌর এলাকার কুতুব বাজার ব্রিজের ঢালে ছিনতাইকারীরা যানবাহন থামিয়ে একের পর এক এক গাড়ীতে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটাচ্ছে। এ খবর পেয়ে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পোষ্টকামুরী চরপাড়ায় কর্তব্যরত টহল পুলিশ রাত আনুমানিক সোয়া দুইটার দিকে ওই স্থানে পৌঁছালে চার ছিনতাইকারী দেশীয় ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে পুলিশ দলের উপর হামলা চালায়। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে দুই রাউন্ড শর্টগানের ফাঁকাগুলি ছুড়ে। এতে ইমন নামে এক ছিনতাইকারী গুলিবিদ্ধ হয়। আহত অবস্থায় তাকে কুমুদিনী হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় টহল পুলিশের এসআই মনিরুজ্জামান মুন্সী ও এসআই আলী আজম আহত হন। নিহত ইমনের বাড়ি মির্জাপুর পৌর এলাকার পোষ্টকামুরী পূর্বপাড়া গ্রামে। ইমনের বিরুদ্ধে মির্জাপুর থানায় ছিনতাই ও ডাকাতির প্রস্তুতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে মির্জাপুর থানা ওসি এ কে এম মিজানুল হক জানিয়েছেন।
ময়মনসিংহ ব্যুরো জানায়, ময়মনসিংহে পুলিশের কথিত বন্দুকযুদ্ধে বিপ্লব নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। শনিবার দিবাগত রাতে শহরের চরপাড়া এলাকায় গনশার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি, বিপ্লব নগরীর শীর্ষ সন্ত্রাসী ও চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। সে ১০/১২টি মামলার আসামি। গত রোববার ভোরে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মো. আশিকুর রহমান জানান, রমজান মাসে নগরীতে মাদক ছড়িয়ে দিতে মাদকের চালান ভাগাভাগি করছিলেন বিপ্লব ও তাঁর সহযোগীরা। খবর পেয়ে রাত সোয়া ২টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল চরপাড়া গনশার মোড়ে অভিযানে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। এতে বিপ্লব গুলিবিদ্ধ হলেও অন্য মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যান। পরে আহত বিপ্লবকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগে বিপ্লবের মৃতদেহ তল্লাশি করে ২০০ গ্রাম হেরোইন, ২০০টি ইয়াবা, তিনটি গুলির খোসা ও দুটি ছুরি উদ্ধার করা হয়। ওসি আরো জানান, বন্দুকযুদ্ধের সময় পুলিশ কনস্টেবল রাশেদুল ও কাওছার আহত হয়েছে। তাদেরকে ময়মনসিংহ পুলিশ লাইন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
বরিশাল ব্যুরো জানায়, বরিশাল মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আবুল কাশেম (৪০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। পুলিশের দাবী, আবুল কাশেম আন্তঃজেলা ডাকাত দলের নেতৃত্ব দিত। এমনকি সে যে বাড়িতে ডাকাতি করত সে বাড়ির নারীদের ধর্ষণ করতো। নিহত আবুল কাশেমের বাড়ি বরিশালেরই মেহেদিগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর গ্রামে। শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার শায়েস্তাবাদ সেতুর ঢালে বটতলা এলাকায় ডিবি পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে কাশেম নিহত হয়। এসময় ডাকত দলের গুলিতে ডিবি পুলিশের উপÑপরিদর্শক দেলোয়ার হোসেন ও তিন কনস্টবল আহত হয়েছে বলে পুলিশ দাবী করেছে। নগর ডিবি পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. নাসির মল্লিক জানান, ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি পাইপগান, একটি রামদা, আট রাউন্ড গুলির কার্তুজ উদ্ধার করেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, দিনাজপুরের বিরলে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী গালকাটা বাবু (৪৫) নিহত হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে বিরল উপজেলার সরদারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বিরল থানার ওসি আব্দুল মজিদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিরল উপজেলার সরদারপাড়ায় এলাকায় অভিযানে চালায় পুলিশ। এ সময় ৭-৮ জন মাদক ব্যবসায়ীর একটি দল পুলিশের ওপর গুলি চালায়। পরে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালালে মাদক ব্যবসায়ী গালকাটা বাবু নিহত হয়। এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্যও আহত হয়।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com