বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮ ০৩:০৫ ঘণ্টা

শায়খের পায়ে গুলির ক্ষতচিহ্ন এবং আমার আবেগের গল্প

Share Button

শায়খের পায়ে গুলির ক্ষতচিহ্ন এবং আমার আবেগের গল্প

শিহাবুদ্দীন আহমদ,সিলেট রিপোর্ট: : তিনি তখন উম্মুল মাদারিস হাটহাজারিতে অধ্যয়নরত। তখন পাকিস্তান আমল।চলছে লৌহমানব খ্যাত ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খানের শাসনকাল।আইয়ুব খান তৎকালীন মুসলিম কমিউনিটির জন্য Muslim family law নামে একটি আইন প্রণয়ন করে। যা ছিলো ইসলামী মূল্যবোধের সাথে সাংঘর্ষিক। তবে উভয় পাকিস্তানের মুসলিম জনতা এই আইনকে প্রত্যাখ্যান করে।শুরু হয় প্রতিবাদ,বিক্ষোভ। সেদিন হাটহাজারী এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ছিলো। মাদরাসা থেকে রাজনৈতিক আন্দোলনে যোগদান সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ হওয়ায় মিছিলে অংশগ্রহনের কোন সুযোগ ছিলোনা। কিন্তু তাতে কি হবে। সেদিনের টগবগে ঈমানদ্বীপ্ত তরুণটি ঘরে বসে থাকতে পারেননি। কৌশলে বেড়িয়ে আসেন মাদরাসা থেকে। যোগদেন বিক্ষোভ মিছিলে। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।কিন্তু তখনই ঘটে যায় ভয়ংকর ঘটনা। হঠাৎ মিছিলের উপর সরকারের পেটোয়া বাহিনী গুলি বর্ষন শুরু করে।মুহুর্মুহু গুলির আওয়াজে চারিদিক প্রকম্পিত হয়ে ওঠে।এমন সময় একটি গুলি তার বুক বরাবর আসে।তিনি আত্মরক্ষাকার তাগিদে সর্বশক্তি দিয়ে লাফ দেন।ফলে গুলিটি তার হাটুর নিম্নাংশে বিদ্ধ হয়। উপস্থিত জনতা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে ধীরে ধীরে তিনি সুস্থ হয়ে উঠেন। আজও শায়খের পায়ে সেই গুলির ক্ষতচিহ্ন বিদ্যমান। অনেকটা ছোটখাটো গর্তের ন্যায়। অধম যখনই হযরতের পা টিপে দিতাম তখন ওই অংশটা বারবার আলতোভাবে স্পর্শ করতাম। এক অদ্ভুত ভালো লাগা কাজ করতো।কখনও ঈমানী উজ্জীবিত হতাম। হতাম সংগ্রামী চেতনায় উদ্দীপিত। আপনি কি জানেন কে সেই জন? বলছি । তিনিই হলেই মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন দা.বা.। বৃহত্তর সিলেটের আলেমসমাজে বরিত বিদগ্ধজন। আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগড়। দেশের সীমানা পেরিয়ে বিদেশেও তার ব্যাপক পরিচিতি আছে। তিনি আজ এক বিশাল মহীরুহ। আকাবিরে আছলাফের ঐতিহ্যবাহী কাফেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহসভাপতি ও সিলেট জেলা সভাপতি। হেফাজতে ইসলামের সাধারণ সম্পাদক এবং আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম এর সভাপতি তিনি। মানুষ গড়ার সফল এই কারিগড়ের একটি ঈমান জাগানিয়া ঘটনা তুলে ধরলাম।  আল্লাহ পাক এই মহান ব্যক্তিকে নেক হায়াত দান করুন। আমাদের উপর তার ছায়াকে দীর্ঘায়িত করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 1,158 বার পড়া হয়েছে