মঙ্গলবার, ২৯ মে ২০১৮ ১১:০৫ ঘণ্টা

সিটি ভোটে প্রচারের সুযোগ স্থানীয় এমপির জন্য নয়

Share Button

সিটি ভোটে প্রচারের সুযোগ স্থানীয় এমপির জন্য নয়

ডেস্ক রিপোর্ট :

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের প্রচার চালানোর সুযোগ দেয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা স্থানীয় সংসদ সদস্যদের জন্য প্রযোজ্য নয়। অর্থাৎ যে এলাকায় ভোট হচ্ছে সেই এলাকার সংসদ সদস্যদেরকে আগের মতোই প্রচারের বাইরে থাকতে হচ্ছে।

কেবল অন্য এলাকা থেকে সংসদ সদস্যরা প্রচারে নামতে পারবেন। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য ওই এলাকার ভোটার হলে তিনি ভোট দিতে পারবেন আগের মতোই।

মঙ্গলবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।

সিইসি বলেন, ‘বর্তমানে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হয়। আর সংবিধানের ৩৬ এবং ৩৮ ধারায় বলা আছে ফ্রিডম অফ মুভমেন্ট, ফ্রিডম অফ এসিমবিলিটি। একজন জনপ্রতিনিধি কোন মিটিংয়ে যেতে পারবে না, কোন ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। এটা আমদের কাছে সঠিক মনে হয়নি।’

‘সবচেয়ে বড় কারণ হলো যে সংসদ সদস্যদের সরকারি অফিস নেই। যেমন: মেয়র, হুইপদের দপ্তর আছে। তাদের কমিটমেন্ট আছে সে রকম। সংসদ সদস্যদের তা নেই তাই তারা যে নেগেটিভ প্রভাব ফেলবে সে রকম সুযোগ নেই।’

‘এই সমস্ত কারণ বিবেচনা করে সংসদ সদস্যদের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া।’

এক প্রশ্নে সিইসি বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো পৌরসভায় ভোটেও সংসদ সদস্যদের প্রচারের সুযোগ করে দেয়ার পক্ষে তারা। তার এ জন্য আলাদা বিধি তৈরি করতে হবে।

বর্তমান আইন অনুযায়ী স্থানীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের প্রচারে নামার সুযোগ নেই। কিন্তু একে বৈষম্যমূলক মনে করে আওয়ামী লীগ। তাদের মতে, তাদের কেন্দ্রীয় নেতাদের একটি বড় অংশই সংসদ সদস্য। তারা প্রচারে নামতে পারেন না। কিন্তু বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা সংসদ সদস্য না হওয়ায় তারা প্রচারে যেতে পারেন। এতে তাদের প্রার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছেন।

আর গত ১২ এপ্রিল ক্ষমতাসীন দলের প্রস্তাব আমলে নিয়ে ২৪ মে নির্বাচন কমিশন সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিধিমালা সংশোধনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আইন মন্ত্রণালয়ে এই সিদ্ধান্ত পাঠানো হয়েছে। তবে এখনও এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি।

নির্বাচন কমিশন এই সিদ্ধান্ত নেয়ার পর বিএনপি তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। তাদের দাবি, নির্বাচন কমিশন সরকারের কথায় চলছে।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেনও মনে করেন, এই সিদ্ধান্ত সঠিক হয়নি। কারণ, সংসদ সদস্যরা ক্ষমতাধর। তারা প্রচারে নামলে ভোটে প্রভাব ফেলতে পারেন।

তবে সিইসি বলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্যরা যেহেতু প্রচারে অংশ নিতে পারবেন না, কাজেই এই আশঙ্কা থাকছে না।

‘যে সকল পৌরসভা বা সিটি নির্বাচনে নির্বাচন হবে ওই এলাকার যে এমপি তিনি এর সুযোগ পাবে না। অন্য এলাকার এমপিরা প্রচারণায় যেতে পারবে। তবে তারা ভোটার হলে ভোট দিতে পারবেন।’

এটা আপনাদের নিজেদের উপলদ্ধি না সরকারি দলের চাওয়া এ প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, আওয়ামী লীগ একটা দল। তাদের একটা প্রতিনিধি আমদেরকে প্রস্তাব দিয়েছে। তখন আমরা চিন্তা করে দেখলাম এটা করা যেতে পারে।’

এ সময় নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘স্থানীয় এমপির কিছু প্রভাব বিস্তার করার মতো ক্ষমতা রয়েছে। তার হাতে ত্রাণ রয়েছে, অনুদান রযেছে। কিছু প্রতিষ্ঠানের প্রধানও তিনি থাকেন।’

‘ওনার একটা ইনফ্লুয়েন্স রয়েছে। সেটা যেন প্রভাবিত করতে না পারে তার জন্য এই প্রস্তাবিত সুপারিশমালা আমরা বলতে চেয়েছি। লোকাল এমপি এলাকায় যেতে পারবেন। ভোট দিতে পারবেন। কিন্তু প্রচারণা চালাতে পারবেন না।’

৩০ জুলাই বরিশাল, সিলেট ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনে ভোটকে সামনে রেখে সংসদ সদস্যদের প্রচারের সুযোগ থাকছে কি না –এমন প্রশ্নে সিইসি বলেন, ‘এটা নির্ভর করছে ১৩ জুনের আগে এটা আইন আকারে আসবে কি না তার উপর।’

সিটি নির্বাচন আচরণবিধি সংশোধনের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের আপত্তির বিষয়ে জানতে চাইলে সিইসি বলেন, ‘উনি বলেছেন, আমরা তার বিরোধিতা করছি।’

বিএনপির বিরোধিতা

সিইসির সংবাদ সম্মেলন শেষে বিএনপির প্রতিনিধি দল সিইসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

পরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘আমরা সিটি নির্বাচনে এমপিদের প্রচারণা চালানোর বিপক্ষে। এটা আমরা ইসিকে জানিয়েছি আজ।’

‘তার বলেছে, আপনারা জিতে আসলে তো এটা আপনাদের পক্ষেই যাবে। আমরা বলেছি আমাদের পক্ষে গেলেও চাই না।’

‘এমপিরা প্রচারণা চালালে লেবেল প্লেইং ফিল্ড থাকবে না। আমরা এটা আমাদের আপত্তির কথা বলেছি।’

এক প্রশ্নে বিএনপি নেতা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন আমাদের বলেছে, কোন কিছু না জানিয়ে করার চেয়ে জানিয়ে করা ভালো।’

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে