শুক্রবার, ০১ জুন ২০১৮ ০৪:০৬ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন, অবশেষে এক পা আগাচ্ছে মিয়ানমার

Share Button

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন, অবশেষে এক পা আগাচ্ছে মিয়ানমার

ডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এর সঙ্গে চুক্তি করতে রাজি হয়েছে মিয়ানমার। বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে দেশটির সরকারের সঙ্গে দুই সংস্থার মতৈক্য হয়েছে বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে ইউএনএইচসিআর।

বিবৃতিতে বলা হয়, যেহেতু পরিস্থিতি এখনও রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় ফেরার জন্য সহায়ক নয়, তাই ওই অবস্থা পরিবর্তনের জন্য সরকারের উদ্যোগে সহযোগিতা করতে এই সমঝোতা স্বারক হলো প্রথম ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।

এর আগে গত এপ্রিলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করেছিল জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থাটি। বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ইউএনএইচসিআরের সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার দেড় মাসের মাথায় মিয়ানমারের সঙ্গে ত্রিপক্ষীয় এই সমঝোতা স্মারক সই হতে যাচ্ছে।

মিয়ানমার রাখাইন রাজ্যে বসবাসকরী রোহিঙ্গা মুসলিমদেরকে নাগরিক হিসেবে স্বীকার করে না। আশির দশক থেকেই নানা সময় রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনা অভিযান চালিয়েছে তারা। আর রোহিঙ্গারা প্রাণ বাঁচাতে ছুটে এসেছে বাংলাদেশে।

গত আগস্টের সেনা অভিযানের পর শুরু হয় সবচেয়ে বড় অনুপ্রবেশ। সব মিলিয়ে এখন কক্সাবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়ে আছে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা।

নির্যাতিত এই মানুষদের জন্য উদ্বিগ্ন প্রায় গোটা বিশ্ব। জাতিসংঘ থেকে শুরু করে বিশ্বের পরাশক্তিগুলো চাপ দিচ্ছে মিয়ানমারকে। বাংলাদেশ বিষয়টি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি মিয়ানমারের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছে আলোচনা।

মিয়ানমার তার মানুষদের ফিরিয়ে নেবে, এমন কথা দিয়ে সই হয়েছে একটি সমঝোতা স্মারক এবং একটি চুক্তি। কিন্তু টালবাহানার শেষ নেই দেশটির। ২০ জানুয়ারি যে প্রত্যাবাসন শুরুর কথা নিজেরাই জানিয়েছিল গণমাধ্যমে, সাড়ে চার মাস পরও সেটি শুরু করছে না মিয়ানমার। কবে শুরু হবে তারও কোনো ইয়ত্তা নেই।

এর মধ্যে ইউএনএইচসিআরের সঙ্গে চুক্তির এই প্রক্রিয়া এগিয়ে যাওয়াকে বড় অগ্রগতি হিসেবেই দেখা হচ্ছে। সংস্থাটির সহকারী হাই কমিশনার জর্জ ওকোথ-ওব্বো বলেন,  ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরার অধিকার রয়েছে। তাদের অধিকার রক্ষা ও নিরাপদ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার ওপর আমরা জোর দিয়েছি। মিয়ানমার সরকার এ বিষয়ে আমাদের সহযোগিতা করতে রাজি হয়েছে।’

মিয়ানমারের আগে ইউএনএইচসিআরের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তিতে সই করেন পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক ও জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থাটির হাইকমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি।

চু্ক্তি সই হওয়ার পর এ বিষয়ে বাংলাদেশের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন বিষয়ক কমিশনার আবুল কালাম বলেছিলেন, ‘চুক্তি অনুসারে ইউএনএইচসিআর রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের আয়োজন করবে। মিয়ানমারে নির্মম নিপীড়নের শিকার এই জনগোষ্ঠীর সদস্যরা স্বেচ্ছায় ফিরে যেতে সম্মত কি না, সেই মতামত নেবে, বিশ্রাম-শিবিরের রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিবহনসহ অন্যান্য বিষয় দেখভাল করবে।’

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের আগে ইউএনএইচসিআর তাদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা, সহায়তা ও তহবিল সংগ্রহের ব্যবস্থা করবে জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের ভেতরে দুটি বিশ্রাম-শিবিরের ব্যবস্থা করা হবে। রাখাইন রাজ্যে প্রত্যাবাসনের আগে সেখানে রোহিঙ্গারা স্বল্প সময়ের জন্য অবস্থান করতে পারবেন।

এর আগে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের সঙ্গে গত নভেম্বরে চুক্তি সই করে মিয়ানমার। চুক্তি অনুযায়ী যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরৎ নিতে চায় মিয়ানমার। এছাড়া চুক্তির আলোকে দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে ফিরিয়ে নেয়া শুরু করার কথা থাকলেও ছয় মাস পার হলেও সে প্রক্রিয়া এখনও শুরু করেনি মিয়ানমার।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের কাজ শুরু না করে এ বিষয়ে বাংলাদেশ সহযোগিতা করছে না বলে উল্টো অভিযোগ করে মিয়ানমার। এরপর বিভিন্নভাবে এ বিষয়ে কালক্ষেপণ করছে তারা।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা এবং এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কাজ করবে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা। বাংলাদেশ-মিয়ানমার এর মধ্যে তৃতীয় পক্ষ হিসেবে কাজ করবে জাতিসংঘের এ সংস্থাটি।

এই সংবাদটি 1,078 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com