সোমবার, ০৪ জুন ২০১৮ ০৮:০৬ ঘণ্টা

যুবতীর ঠোঁটে প্রেসিডেন্টের ঠোঁট

Share Button

যুবতীর ঠোঁটে প্রেসিডেন্টের ঠোঁট

ডেস্ক রিপোর্ট:   দক্ষিণ কোরিয়ায় সরাসরি সম্প্রচারে মঞ্চে হঠাৎ এক যুবতীকে জড়িয়ে ধরলেন ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতের্তে। সরাসরি ওই যুবতীর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে চুমু খেয়েছেন। এ নিয়ে ফিলিপাইন তো পরের কথা সারা দুনিয়ায় তোলপাড় হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়ায় কাজ করেন ওই যুবতী ফিলিপিনো। সেখানে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছিলেন দুতের্তে। এক পর্যায়ে তিনি ওই যুবতীকে মঞ্চে ডেকে নেন।

এরপর ওই যুবতীর কাছে চুমু প্রত্যাশা করেন। তাকে কনভিন্সড করেন যাতে তিনি প্রেসিডেন্টকে চুমু দেন। ব্যস রাজি হয়ে যান ওই যুবতী। তিনি প্রেসিডেন্ট দুতের্তের ঠোঁটে চুমু দিয়ে দেন। প্রেসিডেন্টও কম যান না। তিনিও সমান জবাব দেন। ওই যুবতীর হাত ধরে রাখতে দেখা যায় প্রেসিডেন্টকে। তার মধ্যে তখন অন্য রকম এক অন্তরঙ্গতা কাজ করছিল। মঞ্চে এমন দৃশ্য দেখে উপস্থিত জনতা চিৎকার করে ওঠেন। তাদের বেশির ভাগই ছিলেন ফিলিপাইনের শ্রমিক বা খেটে খাওয়া মানুষ। তবে প্রেসিডেন্টের এমন কর্মকান্ডের কড়া সমালোচনা করেছে ফিলিপাইনের মানবাধিকার বিষয়ক গ্রুপ গ্যাব্রিয়েলা। তারা প্রেসিডেন্ট দুতের্তেকে বহুগামী প্রেসিডেন্ট হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তবে নারীদের প্রতি প্রেসিডেন্ট দুতের্তে এবারই যে এমনটা প্রথম করলেন তা নয়। এর আগেও নারীদের প্রতি তার আপত্তিকর আচরণের অভিযোগ আছে। নারীদের নিয়ে প্রকাশ্যে অনেক আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন দুতের্তে। সর্বশেষ ঘটনাটি তিনি ঘটিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে সেখারে কর্মরত ফিলিপিনো কর্মীদের সঙ্গে আলোচনাকালে। এরই এক পর্যায়ে ফিলিপাইনের দু’জন নারীকে মঞ্চে আহ্বান করা হয়। বলা হয়, প্রেসিডেন্টের হাত থেকে বিনামূল্যে একটি করে বই সংগ্রহ করতে। একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট দুতের্তের পাশে দাঁড়িয়ে তারকা খ্যাতি নিতে আহ্বান করা হয়। প্রথমে একজন যুবতী উঠে যান। এ সময় প্রেসিডেন্ট তাকে জড়িয়ে ধরে আলিঙ্গন করেন। তার চিবুকে চুমু দেন। এরপর দ্বিতীয় যুবতীকে সরাসরি তার ঠোঁটের ওপর চুমু দেন। এতে ভীষণ ক্ষেপেছে মানবাধিকার বিষয়ক গ্রুপ গ্যাব্রিয়েলা। তারা বলেছেন, বাস্তব রাজনীতি থেকে অনেকটা নিচে নেমে গেছেন দুতের্তে। তার জনপ্রিয়তা ভয়াবহভাবে কমে গেছে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, ট্যাক্স রিফর্ম ফর এক্সেলারেশন অ্যান্ড ইনক্লুসন আইন, ভয়াবহ দুর্নীতির ফলে তার শাসন এখন অনেকটা ক্ষয়ে গেছে। তিনি সেই চিত্রকে ঢাকার জন্য এমন বিনোদন উপহার দিচ্ছেন। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ফিলিপাইনে নির্বাচন হয়। তখন তিনি এক প্রচারণা র‌্যালিতে ১৯৮৯ সালে ডাভাওতে অস্ট্রেলিয়ান মিশনারির একজন নারীকে ধর্ষণ ও হত্যা নিয়ে কথা বলেন। ওই সময়ে তিনি ওই শহরের মেয়র ছিলেন। দুতের্তে তখন বলেছিলেন ওই নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছিল এ জন্য আমি খুব ক্ষিপ্ত হয়েছিলাম। এটা হলো একটি বিষয়। ওই নারী খুবই সুন্দরী ছিলেন। এক্ষেত্রে মেয়রেরই প্রথম সুবিধা নেয়া উচিত ছিল। কি সর্বনাশটাই না হয়ে গেছে। এমন আপত্তিকর মন্তব্যের জন্য দুতের্তের অফিস থেকে পরে ক্ষমা চাওয়া হয়। এ বছরের শুরুর দিকে তিনি আরো এক উত্তেজনা সৃষ্টিকারী এবং ভাষায় প্রকাশের অনুপযুক্ত একটি মন্তব্য করে বসেন। ফিলিপাইনের সেনা সদস্যদেরকে তিনি বলেন, নারী কমিউনিস্ট বিদ্রোহীদের শরীরের বিশেষ একটি অঙ্গে গুলি করা উচিত সেনাদের। দুতের্তের এমন সব মন্তব্যে সামাজিক মিডিয়ায় তীব্র সমালোচনা ওঠে। আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণ চলতে থাকে। তবে ফিলিপাইন থেকে বিবিসির সাংবাদিক হাওয়ার্ড জনসন বলছেন, প্রেসিডেন্ট দুতের্তের বিরুদ্ধে বহুগামিতার অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও ফিলিপাইনে ও দেশের বাইরে ওভারসিস ফিলিপিনো ওয়ার্কার্সদের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়। ওভারসিস ফিলিপিনো ওয়ার্কার্স থেকে বলা হয়েছে, দুতের্তে ফিলিপাইনের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরেন এবং শক্তিশালী প্রকল্প নিয়ে কাজ করেন। পিতৃত্বের মতো একজন ব্যক্তি যিনি দেশের দেখাশোনা করেন। জন হাওয়ার্ড সম্প্রতি বৃটেন সফরে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি ফিলিপাইনের একজন নার্সের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ওই নার্স তাকে বলেছেন, তারা মনে করেন তাদের প্রেসিডেন্ট দুতের্তেকে নিয়ে পশ্চিমা মিডিয়াগুলো পক্ষপাতী রিপোর্ট করছে। তাকে নিয়ে যথাযথ রিপোর্ট করা হয় না।

এই সংবাদটি 1,082 বার পড়া হয়েছে