শুক্রবার, ০৮ জুন ২০১৮ ১২:০৬ ঘণ্টা

গরিবের পকেট কাটার বাজেট, বিএনপি নেতাদের প্রতিক্রিয়া

Share Button

গরিবের পকেট কাটার বাজেট, বিএনপি নেতাদের প্রতিক্রিয়া

ডেস্ক রিপোর্ট:  বাজেট ঘোষণার পর এখনো পর্যন্ত বিএনপির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। ২০১৮-১৯ সালের বাজেট বিষয়ে বিএনপির বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা বলছেন, এবারের বাজেট জাতীয় নির্বাচনমুখী বাজেট।

এই বাজেট বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না। লোক দেখানো এবং ভোটার আকর্ষণই এই বাজেটের মূল লক্ষ্য।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ সালের বাজেট ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়। গত অর্থবছরে চার লাখ ২৬৬ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছিল।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, আজকে বাজেট দেয়া হচ্ছে ৪ লক্ষ ৬৪ হাজার কোটি টাকা। যেটা গত বছরের চেয়ে ৬০ হাজার কোটি টাকা বেশি। নির্বাচনী বছরে এই বাজেটকে আপনারা কিভাবে দেখছেন? আমি বাজেট সম্বন্ধে এখানে বিস্তারিত বলতে চাই না। বাজেট আগে পেশ করা হোক। বাজেটের উপরে আমরা প্রয়োজনে রি-এ্যাকশন দেব। তার চুলচেরা বিশ্লেষণ আমরা করবো। আমি শুধু এইটুকু সংক্ষেপে বলতে চাই। আজকে যে সরকার বাজেট দিচ্ছে। সেই সরকারের বাজেট দেয়ার কোনো এখতিয়ার নাই। বাজেট দেয়ার নামে তারা জনগণের ট্যাক্সের টাকা লুটপাট করছে।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) দুপুরে ঢাকা মহানগর উত্তরের নতুন ঘোষিত বিভিন্ন থানা কমিটির নেতৃবৃন্দ শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

মঈন খান বলেন, ১০০ কোটি টাকা প্রজেক্টকে তারা ১০০০ হাজার কোটি টাকার মেগা প্রজেক্ট বানিয়ে সেখান থেকে তারা লুটপাট করছে। বাজেটের আকার দিয়ে কিছু বোঝা যায় না। বাজেটের আকার বাজেটের মান সম্বন্ধে কিছু বলে না। বাজেটের মান অত্যন্ত নিম্ন। আপনারা দেখেছেন যে, ঢাকা শহরে যে সব বড় বড় প্রজেক্ট নেয়া হয়েছে। এমনকি পদ্মা সেতু প্রজেক্ট প্রথম শুরু হয়েছিল মাত্র সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা দিয়ে। সেই প্রজেক্ট আজ ৩৫ হাজার কোটি টাকায় পরিণত হয়েছে। আমরা বলেছি এই প্রজেক্ট শেষ হতে হতে পদ্মা সেতুর বাজেট ৫০ হাজার কোটি টাকা হলেও আমরা অবাক হব না। এতেই প্রমাণিত হয় যে বাজেটের কোয়ালিটি কি। বাজেট ফুলে ফেপে বড় হয়েছে। এটা বাজেটের জন্য গৌরবময় কোনো বিষয় নয়। সাইজ দিয়ে কোনো বাজেটের কোয়ালিটি নির্ধারিত হয় না। আমি স্পষ্ট ভাষায় বলে দিতে চাই, এই বাজেট জনগণকে শোষণ করছে। এই বাজেট একটি ভুয়া বাজেট। এই বাজেট দিয়ে কখনো বাংলাদেশের মানুষের কল্যাণ হবে না।

তিনি বলেন, আপনারা আমার সঙ্গে চলুন, গ্রামে-গঞ্জে চলুন। প্রতিটি রাস্তা, হাট, বাজার, স্কুল, কলেজ তার অবস্থা আপনারা পর্যবেক্ষণ করুন। আপনারা বলছেন আমাদের সময় বাজেটের পরিমাণ ছিল মাত্র ৬০ হাজার কোটি টাকা। আজকে ৪ লক্ষ ৬০ হাজার কোটি টাকা হয়েছে। আমি প্রশ্ন করব ৪ লক্ষ হাজার কোটি টাকা কার পকেটে যাচ্ছে? আজকে এই সরকারের কার্যক্রমের কারণে জনগণ এই প্রশ্ন করতে পারে না। ইনশাআল্লাহ আগামীতে যদি একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। তার মাধ্যমে যদি একটি জবাবদিহিমূলক সরকার আসে। সেই সময় একটি জবাবদিহিমূলক পার্লামেন্ট যদি আমরা সৃষ্টি করতে পারি সেখানে প্রশ্নগুলো তুলব। সরকারের প্রত্যেকটি কর্মকাণ্ডের জবাবদিহিতা করতে হবে। জনগণের পকেট কেটে যে টাকা নেয়া হচ্ছে সেই টাকা কার পকেটে যাচ্ছে, এটা সরকারকে জবাবদিহিতা করতে হবে।

বাজেট বিষয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এই বাজেট বাস্তবসম্মত নয়। এটি ভোটের বাজেট। জনগণকে ধোঁকা দিয়ে, প্রত্যাশা দিয়ে একটি বড় বাজেট করেছে। সরকার গত বছরের বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারেনি। ব্যাপক কাটছাঁট করেছে। গত বছরের সংশোধিত বাজেটে যে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছিল, সেই লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব হয়নি। এবার আরও ৬৪ হাজার কোটি টাকা বেশি, এই লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব না।

এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এই অর্থ বছরে কোন এমন কারণ আছে যে, সরকারের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য পূরণ হবে? এটি বিশাল অঙ্কের ঘাটতি বাজেট। এই বাজেটে ঘাটতি ১ লাখ ২৫ হাজার ২৯২ কোটি টাকা। যেখানে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা উন্নয়ন বাজেট, সেখানে ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি—এই ঘাটতি পূরণের জন্য সরকার দেশের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নেবে, বিদেশ থেকে ঋণ নেবে। তাতে ঋণের বোঝা আরও বেড়ে যাবে। এমনিতেই বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো দেউলিয়া। সেখানে সরকারকে যদি ঋণ দিতে হয়, তাহলে ব্যাংকগুলো বিনিয়োগ, ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ঋণ দিতে পারবে না।

বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য নয় দাবি করে বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, বিনিয়োগ কম হবে, আমদানি-রপ্তানি কম হবে—এ কারণে এই বাজেট লোক দেখানো এবং ভোট আকর্ষণের বাজেট। এই বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য নয়। গত বাজেট বাস্তবায়নের মান দেখে এবার সহজে এটা বোঝা যায়, সরকার এই বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারবে না। রাজস্ব আদায় করতে পারবে না। সংখ্যা বেশি, বিশাল বাজেট—এ কারণে নির্বাচনের বছরে ভোট আকর্ষণের বাজেট দেওয়া হয়েছে।

মাহবুবুর রহমানমাহবুবুর রহমানবাজেটের বিষয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, এই বাজেটে বেশ ভালো-ভালো কথা আছে। প্রতিশ্রুতি আছে। কিন্তু এটা বাস্তবায়ন কতটুকু সম্ভব, তা নিয়ে সন্দেহ আছে। তিনি বলেন, সশস্ত্র বাহিনী খাতে বরাদ্দ যথেষ্ট মনে হয়নি। কারণ সশস্ত্র বাহিনী এখন বড় হয়ে গেছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য সশস্ত্র বাহিনীর জন্য বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন ছিল। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই বাজেটকে ঢাউস বাজেট বলাই যায়। এই বাজেটের মূল উদ্দেশ্য নির্বাচন। এই বাজেট বাস্তবায়ন করা কতটুকু সম্ভব হবে, আমি জানি না। সামনে নির্বাচন রেখে এই বাজেট দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘সরকার বাজেট থেকে কত টাকা চুরি করবে, সেটা তো দেয়নি। সরকার কত টাকা আত্মসাৎ করবে, কত টাকা খাবে, কত টাকা কে কীভাবে পকেটস্থ করবে—সেটা বলেনি।’ তিনি বলেন, গরিবের পকেট কাটবে আর নিজেদের পকেট ভরবে, এই বাজেটের উদ্দেশ্য এটাই।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে