শুক্রবার, ০৮ জুন ২০১৮ ০১:০৬ ঘণ্টা

গ্রাম আদালত সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে ‘গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা

Share Button

গ্রাম আদালত সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে ‘গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের গ্রামীণ জনগণ বিশেষ করে নারী, দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে গ্রাম আদালত সম্পর্কে ব্যাপক জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে ‘গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা গতকাল ৬ জুন বুধবার বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ সরকার, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এবং ইউএনডিপি এর আর্থিক সহায়তায় পরিচালিত বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্প এর সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক, টিভি চ্যানেল এবং অনলাইন পত্রিকার ৪০ জন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।
স্থানীয় সরকার সিলেটের উপ পরিচালক দেবজিৎ সিন্হা সভাপতির বক্তব্যে বলেন, গত জুলাই ২০১৭ থেকে ফেব্রুয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত সিলেটের প্রকল্পভুক্ত ৬টি উপজেলার ৫০টি ইউনিয়নে ৯০২টি মামলা দায়ের হয়েছে যার মধ্যে ৪৯০টি মামলা (৫৪%) নিষ্পত্তি হয়েছে, এর মধ্যে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হয়েছে ৩৭৭টি মামলার (৭৭%) এবং ক্ষতিপূরণ বাবদ ৩১,৮০,০০০ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিগণকে আদায় করে দেয়া সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও জমি উদ্ধার হয়েছে ৩৬৩ শতাংশ যার আনুমানিক মূল্য ১৮,৭০,২০০ টাকা। তিনি গ্রাম আদালতের সেবাসমূহের ওপর মানুষের আস্থা বৃদ্ধি এবং এর বিচারিক সুবিধার কথা সিলেট জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিত গ্রামীণ জনগণ বিশেষত নারীদের মধ্যে পৌঁছে দেয়ার জন্য গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিলেট জেলা তথ্য অফিসের উপ-পরিচালক জুলিয়া যেসমিন মিলি বলেন, দরিদ্র ও প্রান্তিক এলাকার জনগণ যাতে গ্রাম আদালতের মাধ্যমে কম সময়ে ও কম খরচে তাদের বিরোধ নিষ্পত্তি করতে পারে এ জন্য গণমাধ্যমকে ফিচার, ও সাফল্যের গল্প প্রচারসহ বিভিন্ন ইতিবাচক সংবাদ প্রচারে ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, গ্রাম আদালতে আবেদনকারী, প্রতিবাদী, সাক্ষীসহ অন্যান্যরা সবাই পরিচিত থাকে, তাই এখানে জবাবদিহিতা বজায় থাকে, যার ফলে সহজে জনগণের কাছে গ্রাম আদালতের সেবা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়। তিনি জেলা তথ্য অফিসের উঠান বৈঠক সহ বিবিধ কর্মকা-ের মাধ্যমে গ্রাম আদালত সম্পর্কে ব্যাপকভাবে প্রচার করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।
সিলেটের উর্ধ্বতন সহকারী পুলিশ সুপার মতিয়ার রহমান বলেন, সিলেটে সাধারণত জমি সংক্রান্ত ছোটো খাটো বিরোধ থেকেই বড় ধরনের সহিংসতা তৈরি হয়, যা গ্রাম আদালতের মাধ্যমে সহজেই নিষ্পত্তি করা যায়। তিনি উল্লেখ করেন, দরিদ্র ও প্রান্তিক এলাকার জনগণ বিশেষ করে নারীদের পক্ষে জেলা আদালতে এসে বিচার চাওয়া বিভিন্ন কারণে সম্ভব হয়ে ওঠে না, একইভাবে এটি অত্যন্ত ব্যয় ও সময় সাপেক্ষ বিষয়। এছাড়াও পুলিশ প্রসাশন যাতে গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন মামলায় অধিক মনোযোগ দিতে পারে এ জন্য থানাও নিয়মিত ছোটো খাটো মামলা নিষ্পত্তি করতে জনগণকে গ্রাম আদালতে যেতে উৎসাহ প্রদান করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
বালাগঞ্জের বোয়ালজুড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনহার মিয়া জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হলে গ্রাম আদালতে সেবা গ্রহণের ব্যাপারে জনগণের আস্থা বৃদ্ধি পাবে। নিয়মিত উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কারণে তার ইউনিয়নে গ্রাম আদালতের সেবাসমূহ সম্পর্কে মানুষের আগ্রহ বাড়ছে উল্লেখ করে তিনি এ ব্যাপারে আরো বেশি প্রচার করা ও জনগণকে উৎসাহ দেয়ার জন্য অনুষ্ঠানে উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের আহ্বান জানান।
সিলেট প্রেস ক্লাব সভাপতি ইকরামুল কবির বলেন, গণমাধ্যম কর্মীগণ গ্রাম আদালতের বিভিন্ন সাফল্য সম্পর্কে তথ্য প্রচার করবে। এর পাশাপাশি তিনি জেলা তথ্য অফিসকে ব্যাপকভাবে প্রচার করার সুপারিশ করেন।
সিলেট জেলা প্রেস ক্লাব সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম বলেন, গ্রাম আদালত চলাকালীন সময়ে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের পরিদর্শনের ব্যবস্থা করা এবং সাংবাদিকদের জন্য এ ব্যাপারে একটি প্রশিক্ষণের আয়োজন করার পরামর্শ প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন যুগান্তর সিলেট ব্যুরো ইনচার্জ সংগ্রাম সিংহ, যমুনা টিভির সিলেটের ব্যুরো ইনচাজ মাহবুবুর রহমান রিপন, ইমজার সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দেবু, কোম্পানীগঞ্জের গ্রাম আদালতের উপকারভোগী আজিমা বেগম, ইউএনডিপি-এর পক্ষে কমিউনিকেশন ও আউটরিচ স্পেশালিস্ট অর্পনা ঘোষ, বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ প্রকল্প (২য় পর্যায়), ইউএনডিপি, সিলেটের ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর খন্দকার রবিউল আউয়াল নাসিম প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com