শুক্রবার, ০৮ জুন ২০১৮ ১১:০৬ ঘণ্টা

শিয়ালজানির ব্লক ধসের দায় কার?

Share Button

শিয়ালজানির ব্লক ধসের দায় কার?

মহসিন মিয়া, নেত্রকোনা::  নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শিয়ালজানি খালের ব্লক বসিয়ে মেরামতের কাজে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।তবে এ দুর্নীতির দায় নেবে কে? কারণ ব্লক বসানো কাজের সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে, কাজে কোনো দুর্নীতি হয়নি। ক্রুটিও ছিল না।
স্থানীয় সুধীজনেরা বলছেন, ব্লক বসানোর কাছে দুর্নীতি করা হয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রী দেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও পাউবো কর্তৃপক্ষ বলছেন, প্রকল্প এলাকায় স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে রাখায় কিছু জায়গায় যথাযথ স্লুপ করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে এ সমস্যা হয়েছে।
নেত্রকোনা পাউবো সূত্রে জানা যায়, সর্বশেষ দুটি অর্থ বছরে পাউবোর মাধ্যমে এ প্রকল্পের জন্য অর্থ বরাদ্দ হয়েছে ১৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা। এতে বাস্তবায়ন হচ্ছে মোহনগঞ্জের গরুহাট্রা থেকে মাইলোড়া ব্রিজ পর্যন্ত শিয়ালজানি খালের দু’পাশের চার হাজার মিটার (সাড়ে বারো হাজার ফুট) এলাকার কাজ।
এ কাজের উল্লেখ্যযোগ্য অংশের মধ্যে রয়েছে সিসি ব্লক ও ব্লকের জয়েনিং দিয়ে শক্তভাবে খালটিকে মুড়িয়ে দেয়া। কাজটি বাস্তবায়নের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে তিনটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে।

নেত্রকোনা পাউবো’র সহকারী প্রকৌশলী এ প্রকল্পের তদারকি কর্মকর্তা রহিদুল হোসেন খান দাবি করেন, প্রকল্প নির্মাণে সিসি ব্লক তৈরি করা হয়েছে ২০ থেকে ৪০ মিলি মিটার ভলিয়মের সিঙ্গেলস পাথর দিয়ে। ব্লকে প্রতি ৬ সিএফটি সিঙ্গেলস পাথরের সঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে ৩ সিএফটি বালি ও ১ সিএফটি সিমেন্ট।

তিনি জানান, প্রকল্পে ব্লক স্থাপনের পূর্বে ব্লকের নীচে দেয়া হয়েছে ৪ ইঞ্চি পুরো সুরকি। এখানকার ওয়াকওয়েতে (পায়ে হাটার রাস্তা) ব্যবহার করা হয়েছে পিডাব্লিউডি’র অনুমোদিত টাইলস। এসব কাজের গুণগত মান নিশ্চিত করা হয়েছে বুয়েট থেকে আনা অভিজ্ঞদের দিয়ে।

মোহনগঞ্জ পৌর শহরের বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগ নেতা প্রণয় সরকার লিটু জানান, শিয়ালজানি খালের ওই প্রকল্পে সবচেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করা হয়েছে ব্লক নির্মাণে। এ ব্লকে যে ধরনের সিঙ্গেলস পাথর ব্যবহারের কথা তা না করে অনেক ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে মোটা বালি মিশ্রিত নিম্নমানের খুবই ছোট ও কম দামি সিঙ্গেলস পাথর।

তিনি জানান, ব্লকের নীচে দেয়া হয়েছে এক থেকে দেড় ইঞ্চি পরিমাণ পুরো দুর্বল ইটের সুরকি। এখানে যে টাইলস বসানো হয়েছে তার রঙ উঠে যাচ্ছে বসানোর এক মাসের মধ্যেই। আবার কিছু অংশে টাইলস ভেঙেও যাচ্ছে।

স্থানীয় সমাজকর্মী ও লেখক এখলাসুর রহমান বলেন, শিয়ালজানি খালকে ক্রমান্বয়ে গ্রাস করছিল অবৈধ দখলদাররা। এটি পুনদ্ধার ও সৌন্দর্য্য বর্ধনে সিসি ব্লক দিয়ে খাল মুড়িয়ে দেয়া প্রকল্পে যে অর্থ বরাদ্দ এসেছে তা প্রয়োগে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে।

মোহনগঞ্জ বাজারের জুয়েলারি ব্যবসায়ী ও বণিক সমিতির নেতা দীপক বণিক জানান, ওই প্রকল্পের নির্মাণ কাজে রয়েছে ব্যাপক অনিয়ম। বিশেষ করে মোহনগঞ্জ বাজারের পরাগ মার্কেটের উল্টো পাশের দিকে প্রকল্পের প্রায় ২৫ ফুট এলাকাজুড়ে হয়েছে খুবই নিম্নমানের কাজ। এ এলাকাটিতে ছিল আবর্জনার ভাগাড়। ময়লাযুক্ত ও কর্দমাক্ত এ স্থানটির মাটিকে শক্ত (কম্পেকশন) না করেই এখানে বসানো হয়েছে ব্লক। এ ব্লক এবং ব্লকের জয়েনিংয়ে ছিল অত্যন্ত নিম্নমানের দুর্বল কাজ। তাই এ স্থানটি ভেঙে ধসে গেছে নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই।

এ ব্যাপারে প্রকল্প নির্মাণ কাজের ঠিকাদার ফখর উদ্দীন বাচ্চু বলেন, পাউবো কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতো এখানে কাজ করা হয়েছে। এখন খালের কিছু অংশের সিসি ব্লক ধসে গেছে।

তিনি বলেন, ব্লক পুনরায় স্থাপনের জন্য যে অর্থ ব্যয় হবে তা আমাকেই দিতে হচ্ছে। কাজে আমার কোনো দোষ না থাকলেও আপাতত বলির পাঠা হতে হলো আমাকেই।

নেত্রকোনা পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, এ কাজে যুক্ত প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ইচ্ছে করে কোনো অনিয়ম হয়নি। তবে প্রকল্পে ধরা স্লুপ অনুযায়ী কিছু জায়গায় যথাযথ স্লুপ করা সম্ভব হয়নি। কয়েকজন জবরদখলকারী প্রকল্প স্থান দখল করে রাখার কারণে এ সমস্যা হয়েছে। কিছু স্থানে ঠিক মতো স্লুপ করতে না পারায় ওই জায়গার বাঁধটি একটু দুর্বল ছিল।

তিনি জানান, তাছাড়া এ জায়গাটিতে একটি বিশালাকৃতির সেপটিক ট্যাংক ছিল। এক পর্যায়ে এটির লিকেজ হয়ে পানি ধাক্কা দেয়ায় এবং এ স্থানটি দিয়ে তিনটি টিউবওয়েলের পানি নিষ্কাশন হওয়ায় প্রকল্পের সামান্য অংশে ব্লক ধসেছে। এখন ঠিকাদারকে বলা হয়েছে ব্লক স্থাপনের কাজটি পুনরায় করে দেয়ার জন্য। কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সমস্ত দায় দায়িত্ব ঠিকাদারকেই নিতে হবে।

এখানকার কাজ চলতি জুন মাসের মধ্যে প্রকল্প মেয়াদ শেষ হবার আগেই শেষ করা হবে। প্রকল্পের ৮৫ ভাগ কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট বরাদ্দের অর্ধেক টাকা ঠিকাদারদের বিল দেয়া হয়েছে বলেও জানান ওই প্রকৌশলী।

এ প্রকল্পের ধসে যাওয়া স্থান পরিদর্শন করে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম জানান, কাজে পরিকল্পনায় কিছু ক্রুটি ছিল। তা দ্রুত সারাতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

পাউবো’র মহাপরিচালক মাহাফুজুর রহমান জানান, সময় অল্প থাকার কারণে কাজ শেষ করতে একটু তাড়াহুড়া ছিল। সেজন্য প্রকল্পের ধসে যাওয়া অংশটিতে নজর হয়ত কিছুটা কম পড়েছিল।

তবে তিনি দাবি করেন, পরিকল্পনায় ক্রুটি নেই।

সুত্র-পরির্বতন

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে