Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | নূর চৌধুরীকে ফেরাতে কানাডার আদালতে লড়বে সরকার
মঙ্গলবার, ১২ জুন ২০১৮ ০৭:০৬ ঘণ্টা

নূর চৌধুরীকে ফেরাতে কানাডার আদালতে লড়বে সরকার

Share Button

নূর চৌধুরীকে ফেরাতে কানাডার আদালতে লড়বে সরকার

ডেস্ক রিপোর্ট:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে দেশে ফেরাতে তার সরকার কানাডার আদালতে লড়বে। বঙ্গবন্ধুর পলাতক অন্য খুনিদেরও দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছেÑ যাদের মধ্যে রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে এবং রশিদ ও ডালিম পাকিস্তানে বসবাস করছেন। নূর চৌধুরীর বিষয়ে কানাডাপ্রবাসী বাংলাদেশিদের সহযোগিতা প্রত্যাশা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দ-প্রাপ্ত খুনিদের শাস্তি কার্যকর করতে চাই। কেননা তারা বাংলাদেশের জন্য অভিশাপ। এ সময় একাদশ সংসদ নির্বাচনে কোনো দল না এলেও যথাসময়ে নির্বাচন হবে বলে দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।
কানাডা সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত রবিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় টরন্টোতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনায় এসব কথা বলেন। মেট্রো কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত এই সংবর্ধনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আওয়ামী লীগ নেত্রী হাসিনা আক্তার জানু,অন্টারিও প্রদেশ
শাখা আওয়ামী লীগ নেতা আবদুস সালাম, ইরতাহাদ জুবেরী সেলিম, কানাডা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ মহমুদ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান প্রিন্স প্রমুখ বক্তব্য দেন।
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কানাডার মিয়ানমারবিষয়ক বিশেষ দূতকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরে কর্মরত বিদেশি ত্রাণকর্মীদের ভিসা-সমস্যা সমাধান করা হবে। বাসস।
বিশেষ দূত বব রে গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার হোটেল স্যুটে দেখা করতে গেলে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার সতর্কতার সঙ্গে বিষয়টি দেখাশোনা করছে। কারণ ট্যুরিস্ট ভিসায় বাংলাদেশে এসে অনেক বিদেশি রোহিঙ্গা শিবিরে কাজ করছে।
শেখ হাসিনা বলেন, ত্রাণকর্মীর বেশে বহু বিদেশির অনুপ্রবেশের ব্যাপারে সরকার শঙ্কিত, যা নারী ও শিশুপাচার, যৌন অপব্যবহার, সন্ত্রাস এবং অন্যান্য সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারি ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, বব রে প্রধানমন্ত্রীকে জানানÑ তিনি ২০১৭ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবির পরিদর্শনের ওপর একটি প্রতিবেদন তৈরি করছেন।
বব রে বলেন, পরিদর্শনকালে তিনি সহিংসতার কারণে মিয়ানমার  থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা মুসলমানদের দুর্দশা স্বচক্ষে দেখেছেন। তিনি বলেন, ১০ লাখ মানুষকে আশ্রয় দেওয়া একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি আরও বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে তারা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছেন।
এর আগে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে ১৯৭৫-পরবর্তী সরকারগুলোর অনিয়ম আর দুঃশাসনের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার না করে উল্টো বিচারের সব পথ বন্ধ করে দেওয়ার অপচেষ্টা করেছিল তৎকালীন সরকার। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার এবং যুদ্ধাপরাধী-স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ হওয়ায় বাংলাদেশের জনগণের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হতে শুরু করেছে।
আওয়ামী লীগ দেশের গণতন্ত্রকে সুসংহতকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেÑ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জিয়াউর রহমান তার তথাকথিত বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং কারফিউ গণতন্ত্রের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে কলুষিত করেছিল। বিএনপি গত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি এবং এটি ছিল তাদের নিজস্ব দলীয় সিদ্ধান্ত। কিন্তু জনগণ কেন তাদের ভুলের খেসারত দেবে, কেন তাদের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য তারা জ্যান্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করবে?
শেখ হাসিনা বলেন, তার সরকার ২০০৮ সালের নির্বাচনে দিনবদলের সনদ ঘোষণা করে তার বাস্তবায়ন শুরু করে। ২০১৪ সালে তার দলের লক্ষ্য ছিল উন্নয়ন অব্যাহত রাখা। এখন তার দল নতুন রূপকল্প নির্ধারণ করে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সাল নাগাদ দক্ষিণ এশিয়ার একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে কারাগারে সাজা ভোগ করা বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রসঙ্গ উঠে আসে। তিনি বলেন, দুর্নীতির দায়ে কেউ সাজা ভোগ করলে সরকারের কিছুই করার নেই। বিএনপি প্রমাণ করতে পারেনি, তাদের নেত্রী (খালেদা জিয়া) এতিমের টাকা চুরি করেননি। কোর্টে রায় হয়েছে, রায় অনুযায়ী তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখানে সরকারের কী আছে?
কানাডার প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে জি-সেভেন আউটরিচ সম্মেলনে যোগ দিতে গত শুক্রবার দুপুরে কোবেকে পৌঁছেন শেখ হাসিনা। সন্ধ্যায় জি-সেভেন আউটরিচ সম্মেলনে যোগ দিতে আসা নেতাদের সম্মানে কানাডার গভর্নর জেনারেলের দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেন তিনি। শনিবার বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার জি-সেভেন আউটরিচ সম্মেলনে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চার দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার জি-সেভেনের আউটরিচে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চার দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন। রবিবার কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে বৈঠক করেন। গতকাল সকালে কানাডার মিয়ানমারবিষয়ক দূত বব রে, কানাডার সাসকাচোয়ান প্রদেশের উপপ্রধানমন্ত্রী জেরেমি হ্যারিসন এবং কমার্শিয়াল কোঅপারেশন অব কানাডার প্রেসিডেন্ট মার্টিন জাবলোকি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। কানাডার স্থানীয় সময় গতকাল দুপুরে টরন্টো থেকে দেশের পথে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী। দুবাইয়ে যাত্রাবিরতি করে আজ মঙ্গলবার রাতে তার ঢাকা পৌঁছার কথা রয়েছে।

এই সংবাদটি 1,033 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com