শনিবার, ০৭ জুলা ২০১৮ ০৬:০৭ ঘণ্টা

‘আমার কোথায় কোথায় ধরছে, শুনতে ইচ্ছে করতেছে?’

Share Button

‘আমার কোথায় কোথায় ধরছে, শুনতে ইচ্ছে করতেছে?’

ডেস্ক রিপোর্ট: কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ঘোষিত পতাকা মিছিলে অংশ নিতে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে আসা বহু ছাত্রী ‘ছাত্রলীগের’ নেতাকর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন। তার মধ্যে মরিয়ম মান্নান নামের একজনের ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। সেই ছাত্রী নিজের ওপর হওয়া নিপীড়নের কথা জানিয়েছেন সাংবাদিকদের। এর একপর্যায়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি।

৫ জুলাই, বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা নিরাপদ ক্যাম্পাসের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করার পর রোকেয়া হলের সামনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নিজের ক্ষোভের কথা জানান মরিয়ম।

এর আগে ২ জুলাই, সোমবার বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে শিক্ষার্থীরা একত্রিত হলে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। ওইদিন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হয় একাধিক নারী শিক্ষার্থী

সংবাদ সম্মেলনে মরিয়ম নিজের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি কোটা সংস্কার আন্দোলনে, একটি যৌক্তিক আন্দোলনে আসছি। একজন মানুষ হিসেবে আমার কিছু অধিকার আছে। এখানে আসার অধিকার আমার আছে। বেঁচে থাকার অধিকার আছে।

আমাকে পুলিশ ধরে নাই। আমার যদি অন্যায় হয় আমাকে কোর্টে চালান করে দিক। আমি সেখানে কথা বলব। বাইরের ছেলেপেলে আমাকে কেন ধরল? আমার গায়ে কেন টাচ করল? এগুলো শুনতে ইচ্ছে করতেছে আপনাদের? দেখেন নাই?

আমাকে নারীবাদীরা ফোন দিয়েছে, সাংবাদিকরা ফোন দিয়েছে। তারা বলেছে, “তোমার সাথে আছি আমরা”। আরেকজন কল দিছে, সে বলছে, “তুমি বলবা, একজনকে মারছিল। তুমি তাকে বাঁচাতে গেছো, তারপর তোমাকে লাঞ্ছিত করছে’’। আরে বাবা, আমি তো আসছিই এ মানুষগুলোর কাছে। কেন আমি মিথ্যা বলব? আমাকে ছেলে-পেলে যখন ধরল, ধরার পরে আমাকে থানায় নিয়ে গেল। থানায় নিয়ে আমাকে বলবে না, কেন আমাকে আটক করা হলো?’

মারধর করা হচ্ছে এমন বেশ কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ফাইল ছবি
মরিয়মকে মারধরের বেশ কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ফাইল ছবি

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করে আসা শিক্ষার্থীদের ওপর ৩০ জুন ও ১ জুলাই ‘ছাত্রলীগের’ হামলার প্রতিবাদে ২ জুলাই পতাকা মিছিল আহ্বান করেছিল বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। কর্মসূচি পালন করতে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে উপস্থিত হয় শিক্ষার্থীরা। সে সময় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসানসহ বেশ কয়েকজনের ওপর হামলা চালায় ‘ছাত্রলীগের’ নেতাকর্মীরা।

ওই হামলা থেকে ফারুক হাসানকে বাঁচাতে গিয়ে ‘ছাত্রলীগ’ নেতাকর্মীদের হাতে নিপীড়নের শিকার হয়েছেন মরিয়ম। তিনি বলেন, ‘যাদের তুলে নেওয়া হয়েছে, তাদের জন্য আন্দোলনে যোগ দিতে আমি এসেছিলাম। আসার কিছুক্ষণ পরে যে ভাইটাকে মেরেছে, ফারুক ভাই (যুগ্ম আহ্বায়ক); তাকে আমি কখনো দেখি নাই। তার সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো পরিচয় ছিল না।

আমি আসছিলাম মানুষ হিসেবে। কিছু মানুষকে কুকুরের মতো মেরে ফেলছে! আমি কেন? যেকোনো মানুষ যদি দেখে একটা মানুষকে রাস্তায় ফেলে কুকুরের মতো মারতেছে, তাকে সেভ করবে। আমিও তাই করেছিলাম। ভিড়ের মধ্যে তাকে বাঁচাতে গিয়েছিলাম।’

পতাকা মিছিলের আগে এক পুরুষ ও আরেক নারী শিক্ষার্থীকে মারধরের বেশ কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। তাতে দেখা যায়, একজন যুবক ও নারীকে রিকশা থেকে টেনে নামানো হচ্ছে, যাকে ঘিরে রয়েছে বেশ কয়েকজন যুবক। তারা কেউ ওই নারীর হাত, কেউ ব্যাগ, জামা ধরে টানছেন। নানাভাবে যৌন নিপীড়ন করছেন।

সে সম্পর্কে মরিয়ম বলেন, ‘এরপর আমার সাথে কী ঘটেছিল, তা আপনারা সবাই দেখেছেন। এরপরও যদি আপনাদের বিবেকবোধ না জাগে, তবে কী বলব যে, আমাকে কোথায় কোথায় ধরছে?

আপনাদের শুনতে ইচ্ছে করতেছে, আমাকে কোথায় কোথায় ধরছে? আমাকে কীভাবে কী করছে? সবাই আমাকে ফোন দিচ্ছে, তোমাকে কী করছে! এখন আমি লাইভে যাব? লাইভে যেয়ে বলব, আমাকে কী করছে? কেমন করে ধরছে? আমি কান্না করব আর সবাই আমাকে সিমপ্যাথি (সহানুভূতি) দেখাবে?’

৩০ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর ও অন্যদের ওপর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালান। যদিও ছাত্রলীগ হামলার বিষয়টি অস্বীকার করেছে।

১ জুলাই, রবিবার দুপুর ১২টার দিকে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অন্যতম নেতা মুহাম্মদ রাশেদ খাঁনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে আন্দোলন করছে শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের দাবি, পুরোপুরি বাতিল নয়, কোটা ব্যবস্থা সংস্কার করে ১০ থেকে ১৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে হবে।

বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে প্রচলিত ব্যবস্থায় ৫৬ শতাংশ আসনে কোটায় নিয়োগ দেওয়া হয়ে থাকে। এর মধ্যে ৩০ শতাংশ রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা কোটা। ১০ শতাংশ নারীদের জন্য, জেলাভিত্তিক ১০ শতাংশ, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বরাদ্ধ রয়েছে ১ শতাংশ কোটা।

…….”
https://www.youtube.com/watch…

এই সংবাদটি 1,029 বার পড়া হয়েছে