শনিবার, ০৭ জুলা ২০১৮ ০৭:০৭ ঘণ্টা

১৫ লাখের বেশি ব্যয় করতে পারবেন না মেয়র প্রার্থীরা

Share Button

১৫ লাখের বেশি ব্যয় করতে পারবেন না মেয়র প্রার্থীরা

ডেস্ক রিপোর্ট: আসন্ন সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে প্রচার প্রচারণা বাবদ মেয়র প্রার্থী ও কাউন্সিলর প্রার্থীদেরকে নির্বাচনী ব্যয় ধার্য করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এক্ষেত্রে মেয়র প্রার্থীরদেরকে সর্বোচ্চ ১৫ লাখ ও কাউন্সিলর প্রার্থীদেরকে প্রতি ১৫ হাজার ভোটারের বিপরীতে নির্বাচনী ব্যয় বাবদ ১ লাখ টাকা ধার্য করে দেয়া হয়েছে।

এদিকে কাউন্সিলরদের ক্ষেত্রে প্রতি ১৫ হাজার ভোটারের বিপরীতে ১ লাখ টাকা করে ব্যয় ধার্য করা হলেও এর মধ্যে রয়েছে চারটি আলাদা স্তর।এগুলো হলো: সিসিকের ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে মাত্র পাঁচটি ওয়ার্ডে ২ লাখ টাকা করে ব্যয় করতে পারবেন প্রার্থীরা। ওয়ার্ডগুলো- ৫, ৭,৮, ৯ ও ১০।

এছাড়া বাকি ওয়ার্ডের প্রার্থীরা ১ লাখ টাকা করে নির্বাচনী ব্যয় করতে পারবেন।এরমধ্যে ভোটার ১৫ হাজার পর্যন্ত ১ লাখ, ১৫ হাজার ১ থেকে ভোটার সংখ্যা ৩০ হাজার পর্যন্ত ২ লাখ টাকা, ৩০ হাজার ১ থেকে ৫০ হাজার পর্যন্ত ৪ লাখ এবং ৫০ হাজারের তদূর্ধ্ব ভোটারের ক্ষেত্রে ৬ লাখ টাকা ব্যয় করতে পারবেন কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

অবশ্য এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশনের বেধে দেওয়া খরচের সীমানা ছাড়িয়ে গেছেন প্রার্থীরা। সিসিক নির্বাচনকে সামনে রেখে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা এরইমধ্যে বিলবোর্ড, পোস্টার, লিফলেট ছাপাসহ প্রচার-প্রচারণায় লাখ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন।বিশেষ করে তফসিল ঘোষণার পর ঈদুল ফিতরে ভোটারদের কাছে টানতে বিপুল অঙ্কের টাকা ব্যয় করেছেন এসব প্রার্থীরা।

তাছাড়া নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর থেকে আচরণ-বিধি লঙ্ঘন করেও প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন মেয়র, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীরা। কর্মী বাহিনী খাটাতে গিয়ে তাদের পেছনে ও যানবাহন ব্যবহার করে ব্যয় করছেন বিপুল পরিমাণ অর্থ।

সিলেট সিটি করপোরেশনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এমদাদুল হক বলেন, মেয়র প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ১৫ লাখ টাকা নির্বাচনী ব্যয় নির্ধারণ করা আছে। এছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ভোটের হিসাবে ৪ ক্যাটাগরিতে নির্বাচনী ব্যয় নির্ধারণ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। প্রার্থীর ব্যয় সীমা এর মধ্যেই রাখতে হবে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তার মো. আলীমুজ্জামান বলেন, প্রার্থীদের ক্ষেত্রে ব্যয় নির্ধারণ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী খরচ এর মধ্যেই রাখতে হবে। নির্বাচনের পর প্রার্থীরা যে ব্যয়ের হিসাব জমা দেবেন, তা তদারকি করবে নির্বাচনী ব্যয় মনিটরিং কমিটি।প্রসঙ্গত, সিসিকের ২৭টি ওয়ার্ডে ১৩৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে ৩০ জুলাই।

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com