রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ০৯:০৭ ঘণ্টা

ঢাবি অধ্যাপক ড. মুফতি মুহাম্মদ গোলাম রব্বানীর বিশেষ সাক্ষাৎকার

Share Button

ঢাবি অধ্যাপক ড. মুফতি মুহাম্মদ গোলাম রব্বানীর বিশেষ সাক্ষাৎকার

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের অধ্যাপক ড. মুফতি মুহাম্মদ গোলাম রব্বানী। লেখক, গবেষক, চিন্তাবিদ। তিনি বাংলাদেশের তিন শিক্ষা ব্যবস্থাতেই লেখাপড়া করে উচ্চ ডিগ্রি অর্জন করেছেন। লেখালেখি ও সম্পাদনার ক্ষেত্রেও তিনি অগ্রগামী। তার গবেষণামূলক একাধিক বই বাজারে রয়েছে।

তার পড়ালেখা, গড়ে উঠা, লেখালেখি, সম্পাদনা, কর্মস্থল, ভ্রমণ ও বিভিন্ন অভিজ্ঞতা নিয়ে অন্তরঙ্গ কথা হয় বিশিষ্ট লেখক লাবীব আব্দুল্লাহর সাথে।

ড. মুফতি মুহাম্মদ গোলাম রব্বানীর বিশেষ সাক্ষাৎকারটির অংশ বিশেষ ‘অনুসন্ধান’ এর সৌজন্যে পাঠকদের জন্য প্রকাশ করা হলো।

লাবীব আব্দুল্লাহ: বাংলাদেশে সাধারণত মুফতিরা ডক্টর হয় না। আর ডক্টররা মুফতি হয় না। আপনার শিক্ষার মাঝে কীভাবে সমন্বয় করেছেন?

ড. গোলাম রব্বানী: মানুষের ফাউন্ডেশনটা প্রথমে মজবুত হওয়া উচিত। ফাউন্ডেশন মজবুত হওয়ার পর আমি সেখানে সুন্দরভাবে ডিজাইন করতে পারবো। যদি ফাউন্ডেশন মজবুত না হয় তাহলে ডিজাইন যতই সুন্দর করি, তা বেশি দিন টিকবে না। যে কোনো মুহূর্তে ধ্বসে পড়তে পারে। আমার অভিভাবক যারা ছিলেন, তারা চিন্তা করেছেন, আমাকে আগে ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত করবেন। সেজন্য প্রথমে মাদরাসায় ভর্তি করিয়েছেন। ছোটবেলা থেকেই মাদরাসায় পড়ার সুযোগ পেয়েছি।

যখন যেখানে পড়েছি, ভালোভাবে পড়ার চেষ্টা করেছি। আলহামদুলিল্লাহ। শুরুতে মাদরাসা শিক্ষা শেষ করে পরে সাধারণ শিক্ষা শুরু করেছি। দীর্ঘ সময় সাধারণ শিক্ষায় সময় দিয়েছি। মাদরাসায় দাওরা শেষ হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। আমার পিএইচ.ডি শেষ হয়েছে ২০১১ সালে।

লাবীব আব্দুল্লাহ: আপনি দেশের তিন ধারার সবগুলোতেই পড়েছেন। কওমী থেকে আলিয়া, আলিয়া থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। শিক্ষার ব্যাপারে আপনার প্লান কী ছিলো?

ড. গোলাম রব্বানী: সত্যিকার অর্থে আমি বলবো, আমার বাবা একজন আলিম ছিলেন। আমার সব ভাইয়েরা স্কুল-কলেজে লেখাপড়া করেছেন। আমার ব্যাপারে আমার আব্বা ও ভাইদের ইচ্ছে ছিলো, আমাকে আলেম বানাবেন। আমাকে মাদরাসায় ভর্তি করালেন। মাদরাসায় পড়ালেখাকালীন সময়েই আমাকে আলিয়া থেকে পরীক্ষা দেয়ার জন্য অনেকেই উদ্বুদ্ধ করতেন। একজন হলেন মহিউদ্দীন খান সাহেবের ছোট ভাই সালাউদ্দীন খান সাহেব। উনি আমার ভগ্নিপতিও হন।

প্রথমে আমার পরীক্ষা দেয়ার ইচ্ছে ছিলো না। পরবর্তীতে পরীক্ষাটা দিয়েই ফেললাম। মিশকাতের বছর দাখিল, দাওরায়ে হাদীসের পর আলিম পরীক্ষা দেয়া হলো। আলিমের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেলাম। যথারীতি নিয়মিত ক্লাস করে বিএ অনার্স, এমএ, এমফিল, পিএইচ.ডি শেষ করা হয়।

লাবীব আব্দুল্লাহ: আপনি দারুল উলূম নদওয়াতেও লেখাপড়া করেছেন। সেখানে কীভাবে গিয়েছিলেন এবং কোন স্মৃতি?

ড. গোলাম রব্বানী: নদওয়াতে যাওয়ার ব্যাপারে আমাকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন, আমার প্রিয় শায়েখ আব্দুর রহমান হাফেজ্জী হুজুর। তিনি একবার বারিধারার মাহফিলে এসেছিলেন। আমি হুজুরের সাথে দেখা করলাম। তিনি আমাকে বললেন, তুমি এখন কী করছো? আমি তখন দাওরার পরীক্ষা দিয়েছি। ফলাফল তখনও হয়নি । আমি বললাম, কিছুই করছি না। হুজুর বললেন, মুহাম্মাদ (হাফেজ্জী হুজুরের বড় সাহেবজাদা) তো নদওয়ায় যাচ্ছে। তুমিও নদওয়ায় যাও।
আমি বললাম, আমার তো কোন প্রস্তুতি নেই। হুজুর বললেন, দুই রাকআত সালাতুল হাজত পড়ে দুআ করো। এরপর আমি সালাতুল হাজত পড়ে দুআ করলাম। বাড়িতে জানালাম। আলিমের পরীক্ষার জন্য ফরম ফিলাপের টাকা ছিল হাতে। সে টাকা দিয়ে পাসপোর্ট করলাম। এরপর বাকি কাজ আল্লাহর রহমতে ব্যবস্থা হয়ে গেল।

সেখানে যাওয়ার পর মুহতামিম রাবে হাসান সাহেবের সাথে দেখা করলাম। আমাদের পরীক্ষা নিলেন। লিখিত ও মৌখিক। প্রথমবারেই টিকে গেলাম। দুই বছর উলিয়া আদব (এমএ সমমান) পড়া হলো। আল্লাহর অশেষ রহমতে কোর্স শেষ করার সুযোগ হয়।

লাবীব আব্দুল্লাহ:  ঢাকা ভার্সিটিতে লেখাপড়া সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?

ড. গোলাম রব্বানী: যখন মাখযান লেখাপড়া করি তখন এক ভদ্রলোক আমাকে বলেছিল, আমি ঢাকা ভার্সিটিতে পড়বো কিনা? তখন থেকেই আমি ঢাকা ভার্সিটিতে পড়ার স্বপ্ন দেখতাম। এখন যে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছি, সেই স্বপ্নও তখন থেকেই দেখা শুরু। তখন মনে হয়, ক্লাস সিক্স-সেভেন পর্যায়ে পড়ি।

আলিম পরীক্ষায় রেজাল্ট বের হওয়ার পর যে স্বপ্নটা আমি দেখেছিলাম, সেটা ছিলো এ রকম; আমাদের কওমী অঙ্গনের লোকজন ঢাকা ভার্সিটিসহ সামরিক দায়িত্বে, প্রশাসনিক ক্ষেত্রে, সর্বস্তরেই থাকতে হবে। এ বিষয়ে আমি উদ্বুদ্ধ হয়েছিলাম খতীবে আজম সিদ্দিক আহমদ সাহেব রহ. এর বক্তৃতা থেকে।

তাঁর বক্তৃতার উদ্দেশ্য ছিলো, আমাদের লোক যেন সব জায়গায় থাকে। সে হিসেবে আলিয়া মাদরাসায় পড়লাম। পড়ার উদ্দেশ্য এই না যে, শুধু পড়লাম, কিছু করলাম না। এ রকম না। উদ্দেশ্য ছিলো, কিছু একটা করা। ভালো জায়গায় যাওয়া। ভালো পরিবেশ গড়ে তোলা। সে জন্য আমার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো জায়গায় যাওয়ার প্রয়োজন ছিল। আমি চেষ্টা করলাম। আল্লাহর রহমতে চান্স পেলাম।

সেখানে ভর্তি হওয়ার পেছনে একটা কথা বলে রাখি, সেটা হলো- অনেকেই চিন্তা করে, একটা ভালো সাবজেক্ট পড়বো। আনকমন সাবজেক্ট পড়বো। আমার বড় ভাই আমাকে এ ব্যাপারে একটা কথা বলেছিলেন, তুমি এমন একটা সাবজেক্ট নেয়ার চেষ্টা করবে, যে সাবজেক্টে তুমি ভালো করতে পারবে। তোমার খুব পছন্দ যেটা। যেহেতু আমি কওমী মাদরাসায় পড়ালেখা করেছি। তাই আরবী ও উর্দু আমার জন্য সহজ ছিলো। আমি চেষ্টা করলাম। শেষ পর্যন্ত আমার উর্দু পড়ার সুযোগ হলো। উর্দু বিভাগে ভর্তি হলাম। অনার্স কমপ্লিট হলো। ফাস্টক্লাস ফাস্ট হওয়ার সুযোগ হলো। এরপর মাস্টার্স সম্পন্ন করলাম। এখানেও ফাস্টক্লাস ফাস্ট হওয়ার সুযোগ হলো। গোল্ড মেডেল দেয়া হলো।

এরপর চিন্তা করলাম, লেখাপড়া বন্ধ করবো না। এমফিল করলাম। পিএইচ.ডি করলাম।

লাবীব আব্দুল্লাহ: ঢাকা ভার্সিটিতে কোন শিক্ষকের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন?

গোলাম রববানী: ডক্টর মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ। সর্বমহলেই উনি খুব সম্মানিত ব্যক্তি ছিলেন। তিনি ৩৪-৩৬টি বই লেখেছেন। যারা গবেষণা করেন, তাদের জন্য তার নিদের্শনা হলো, “গবেষক যা বাস্তব তাই লেখবে। সেখানে রঙ লাগানো, নিজের পক্ষ থেকে কিছু বাড়ানোর কোন স্বাধীনতা গবেষকের নেই।” আমরা গল্প-উপন্যাসে রঙ লাগাতে পারি, বাড়াতে-কমাতে পারি। কিন্তু গবেষণাপত্রে এ সুযোগ নেই।

লাবীব আব্দুল্লাহ: আপনি যে সমস্ত প্রতিষ্ঠানে পড়েছেন, সে সম্পর্কে সংক্ষিপ্তভাবে জানতে চাই?

ড. গোলাম রব্বানী: আমার লেখাপড়া শুরু ময়মনসিংহের জামিয়া আশরাফিয়াতে ১৯৭৯/৮০ সালে। তখন মাখযান প্রতিষ্ঠিত হয়নি। মাখযান প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ১৯৮৩ সালে সেখানে হিফজে ভর্তি হই। তা অসমাপত রেখেই ১৯৮৪ সালে ৫ম শ্রেণীতে ভর্তি হই। মিশকাত পর্যন্ত সেখানেই পড়া হয়। ১৯৯২ সালে দাখিল পরীক্ষার পর মিশকাতের বছরই মাখযান ছাড়তে হয়। কুরবানীর পর ঢাকার বারিধারার জামিয়া মাদানিয়ায় ভর্তি হয়ে মিশকাত শেষ করি।

দাওরা হাদীস শেষ করি জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়াতে। তখন শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক সাহেব রহ., মুফতী মানসুরুল হক সাহেব, হিফজুর রহমান সাহেব, নুমান আহমদ সাহেব, সবাই রাহমানিয়াতেই ছিলেন।

এছাড়াও তা‘মীরুল মিল্লাত, ঢাকা আলিয়া, নদওয়াতুল উলামা ও ঢাকা ভার্সিটিতে পড়েছি।

লাবীব আব্দুল্লাহ: আপনি ছাত্রজীবন থেকে বহু পুরস্কার পেয়ে আসছেন। ছাত্রজীবনের পুরস্কার পাওয়ার কোন স্মৃতি?

ড. গোলাম রব্বানী: আলহামদুলিল্লাহ! আমি সেই ছোটবেলা থেকেই বিভিন্ন কারণে পরিবারের পক্ষ থেকে পুরস্কার পেতাম। মাখযানুল উলূমেও ফাস্ট হওয়ার কারণে পুরস্কার পেয়েছি। মাখযান থেকে বারিধারায় যাওয়ার পর সেখান থেকেও ফাস্ট হওয়ার কারণে পুরস্কার পেয়েছি। রাহমানিয়া থেকেও পেয়েছি। ঢাকা ভার্সিটিতে ভালো রেজাল্টের কারণে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে গোল্ড মেডেল পেয়েছিলাম।

অনুলিখন: মুজীব রহমান

এই সংবাদটি 1,212 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com