রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ০৯:০৭ ঘণ্টা

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ.: এক ক্ষণজন্মা মনীষী

Share Button

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ.: এক ক্ষণজন্মা মনীষী

মাহমুদ আবদুল্লাহ:

বিশ শতকের শেষ পাদে বিচিত্র কিছু ঐতিহাসিক কারণে ময়মনসিংহের উত্তরাঞ্চলের মুসলিম ও গারো সম্প্রদায়ের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক অবস্থান তখনও এমন, যাকে কোনো ক্রমেই অনুকূল বলা চলে না। ওই সময় গারো পাহাড়ের পাদদেশে ইসলামি শিক্ষা ও সভ্যতার ক্রমবিকাশে স্মরণীয় ব্যক্তি আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ.। তিনি ছিলেন সমকালীন ইসলামি পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন। ব্যক্তি জীবনে স্বহাস্যবদন, সহজ-সরল, উদার, নিরহংকারী, মিতব্যয়ী, বিনয় ও নম্রতায় এক অনন্য ব্যক্তিত্ব।

আশির দশকে এতদাঞ্চলে ইসলাম প্রচার ও শিক্ষা কার্যক্রমে ব্যাপক অবদান রেখে আজও স্মরণীয় আছেন।

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ. জন্মগ্রহণ করেন ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার পোড়াকান্দুলিয়া ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামে বাংলা ১৩৩৫ সনে। তাঁর বাবার নাম আব্দুল হাই মুন্সি। মায়ের নাম সদরজান বিনতে উদাব আলী মুন্সি।

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ.-এর শৈশব এবং বাল্যকাল অতিবাহিত হয় নিজ গ্রামে। তিনি লেখাপড়া শুরু করেন পার্শ্ববর্তী গোপিনপুর গ্রামের ফরায়েজ মুন্সি ও সুবেদ আলী মুন্সির নিকট। অতঃপর প্রথমে বাতিহালা এবং পরে বেতগাছিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পাশ করেন। পঞ্চম শ্রেণি শেষে কৃষ্ণপুর হাইস্কুলে ভর্তি হয়ে কিছুদিন পর ধর্মীয় শিক্ষা লাভের উদ্দেশ্যে পূর্বধলা কাপাসিয়া আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন।

কাপাসিয়া আলিয়া মাদরাসায় কিছুদিন পড়াশুনা করে উচ্চতর দীনি জ্ঞানার্জনের লক্ষ্যে দেশের প্রাচীনতম মাদরাসা ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী জামিয়া আরাবিয়া আশরাফুল উলুম বালিয়ায় ফার্সী পহেলীতে ভর্তি হন এবং জামাতে জালালাইন পর্যন্ত শিক্ষাগ্রহণ অব্যাহত রাখেন।

আল্লামা নূরুদ্দীন গহরপুরী রহ. তখন বালিয়া মাদরাসার শায়খুল হাদীস। তিনি ব্যক্তিগত কারণে হঠাৎ বালিয়া মাদরাসা থেকে সিলেটে চলে যান এবং নিজ বাড়িতে মাদরাসা চালু করেন। তখন আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ., আল্লামা গিয়াছ উদ্দিন শায়খে বালিয়া রহ. ও শেরপুরের মাওলানা আব্দুল বারী রহ. প্রিয় উস্তাদের সাথে সিলেটের গহরপুর চলে যান।

সেখানে আল্লামা নূরুদ্দীন গহরপুরী রহ.-এর কাছে দাওরায়ে হাদীস পর্যন্ত পাঠগ্রহণ শেষে সিলেট আঞ্চলিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ১৩৬৮ বাংলা সনে কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

দাওরায়ে হাদীসের পাঠ চুকিয়ে স্বীয় উস্তাদ আল্লামা নূরুদ্দীন গহরপুরী রহ.-এর নির্দেশে সিলেট জামিয়া হোসাইনিয়া গহরপুরের শিক্ষক হিসেবে কর্ম জীবনের সূচনা করেন। পুনরায় স্বীয় উস্তাদের আদেশক্রমে নিজ এলাকা ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার জরিপাপাড়া মাদরাসার মুহতামিম ও ঘোষগাঁও জামে মসজিদের দায়িতাবভার গ্রহণ করেন। এবং গারো পাহাড়ের পাদদেশে তালিম, তাবলিগ ও তাযকিয়ায়ে নফসের কাজে মনোনিবেশ করেন।

কয়েক বছর পর কিছুদিন তিনি হিরণপট্রি আলিয়া মাদরাসার শিক্ষক হিসেবেও কর্মরত ছিলেন।

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন দেশের প্রায় সব মাদরাসা বন্ধ থাকে। জরিপাপাড়া মাদরাসাও একই কারণে বন্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরও নানা গোলযোগের কারণে মাদরাসাটি পরিত্যাক্ত অবস্থায়ই থাকে।

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ. পর্ববর্তী সময়ে ঘোষগাঁও দারুস সুন্নাহ নামে নতুন একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। এবং পাশেই জামে মসজিদ ও ঈদগাহ স্থাপন করেন। এতে এলাকায় দীন প্রচার-প্রসারে নবদিগন্ত উন্মোচিত হয়। পরে এখানে মহিলা মাদরাসা শাখা ও এতিমখানাও প্রতিষ্ঠা করেন।

১৯৭২ সালে ধোবাউড়া কলসিন্দুর আইনুল উলুম মাদরাসার মুহতামিম পদে যোগদান করেন এবং দরসে বুখারীর ক্লাস চালু করেন। ফলে কংশের উত্তরে পাহাড়ের পাদদেশে তিনিই দরসে বুখারীর প্রতিষ্ঠা উপাধিতে ভূষিত হন।

১৯৭৫ সালে তিনি চলে আসেন নিজ হাতে গড়া ঘোষগাঁও দারুস সুন্নাহ মাদরাসায়। ইন্তিকালের আগ পর্যন্ত ঘোষগাঁও মারকাজ মসজিদের খতিব ও মাদরাসার মুহতামিমের দায়িত্ব যাথাযথভাবে পালেন করে যান।

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ. প্রচলিত কোনো রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না। তবে কোনো ইসলামি আন্দোলনের ডাক এলে তিনি সমর্থন ও সাড়া দিতেন। ময়মনসিংহ ও ধোবাউড়া উপজেলার বহু অরাজনৈতিক সংস্থা ও সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক, উপদেষ্টা, প্রতিষ্ঠাতা বা সভাপতি হিসেবে জড়িত ছিলেন।

তিনি তাযকিয়া বা আধ্যাত্মিকতায় আল্লামা নূরুদ্দীন গহরপুরী রহ. কর্তৃক খেলাফত প্রাপ্ত হন।

আল্লামা মিরাজ উদ্দিন রহ. দীনেন প্রতিটি শাখা-প্রশাখায় অসামান্য খেদমতের পশাপাশি কর্মব্যস্ত জীবনে যে কয়টি পুস্তিকা রচনা করেছেন:

১.নূর অজিফা।
২.বেহেশতী মানুষ।
৩.গুনাহ থেকে মুক্তির পথ।
৪.যিকরুল্লাহর প্রয়োজনীয়তা ও উপকারিতা প্রভৃতি।

২০১৩ সালের ১৪ আগস্ট বুধবার বাদ মাগরির হঠাৎ তিনি বুকে চাপ অনুভব করেন। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০১৩ সালের ১৬ আগস্ট শুক্রবার রাত ১টায় ক্ষণজন্মা এই মনীষী ‘আল্লাহ, আল্লাহ’ জপে নশ্বর এ পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে পরপারে পাড়ি জমান। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন।

ইন্তিকালের সময় তাঁর বয়স হয়ছিল ৭৫ বছর। তিনি ৫ পুত্র, ৩ কন্যা ও স্ত্রীসহ অগণিত ছাত্র, ভক্ত, মুরীদান ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। আমরা তাঁর আত্মার মাগফেরাত কমনা করি।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com