রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ১১:০৭ ঘণ্টা

সংর্বধনা বর্জনের ঘোষণা ছাত্র জমিয়ত সভাপতির

Share Button

সংর্বধনা বর্জনের ঘোষণা ছাত্র জমিয়ত সভাপতির

সিলেট রিপোর্ট: ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী থেকে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি নির্বাচিত হলেন মাওলানা সাইফুর রহমান। গত ৫ জুলাই ২০১৮ অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে তাকে এপদে পদায়ন করা হয়। এর আগে তিনি সদ্যপ্রয়াত কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক হাফেজ ওমর ফারুকের ইন্তেকালের পরে শুন্যপদে ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। তিনি এর আগে ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ও সিলেট জেলা শাখার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।
তিনি ছাত্র জীবন থেকেই জমিয়তের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। তার গ্রামের বাড়ী সিলেটের গোলাপগঞ্জের পশ্চিম আমুড়া ইউনিয়নের উপর ঘাগুয়া গ্রামে। ১৯৮৩ সালের ২০ মার্চ তার জন্ম। দ্বীনি শিক্ষার অধম্য স্পৃহা নিয়ে ভর্তি হন সিলেটের ঐতিহ্যবাহি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান “জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুরে।ইবতেদায়ী ১ম থেকে দাওরায় হাদিস (মাস্টার্স) পর্যন্ত সেখানে সমাপন করেন।অত:পর বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ দ্বীনী বিশ্ববিদ্যালয় দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারিতে তাফসির বিভাগে সুনামের সাথে অধ্যয়ন করেন।তিনি শুরু থেকেই ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন।ঘাগুয়া আঞ্চলিক শাখা থেকে তাঁর ছাত্র রাজনীতি সূচনা। ছাত্র জমিয়ত জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরার মুহাম্মদপুর শাখার সদস্য থেকে সর্বোচ্চ সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৫ সালের আল্লামা মুহিউদ্দীন খান আহুত ঐতিহাসিক লংমার্চে জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর শাখা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। সেক্ষেত্রে সাধারন সম্পাদক হিসাবে মাওলানা সাইফুর রহমানের ভূমিকা ছিল অতুলনীয়।এসময় তিনি বিয়ানিবাজার উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সদস্য ছিলেন। পরে গোলাপগঞ্জ উপজেলার গুরুদায়িত্ব আদায় করেন।এদিকে হাটহাজারি মাদরাসায় পড়াকালিন তিনি হাটহাজারি উপজেলার সাংগঠনিক সম্পাদক এবং চট্রগ্রাম জেলা ছাত্র জমিয়তের সহ সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব অত্যন্ত সাহসীকতার সাথে পালন করেন। অতঃপর সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের ২ বারের নির্বাচিত সভাপতির দায়িত্ব অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে পালন করে যাচ্ছেন।
এদিকে কেন্দ্রীয় ছাত্র জমিয়তের প্রথমে সদস্য এরপর আন্তর্জাতিক সম্পাদক বর্তমান টার্মে সহ সভাপতি সর্বশেষ কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক মুফতি ওমর ফারুকের ইন্তেকাল হওয়ায় গত ১৪ জুলাই কেন্দ্রীয় আমেলার বৈঠকে ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়। তিনি ছাত্র জমিয়তের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত আছেন। তন্মধ্যে উকাব ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের সম্মানিত চেয়ারম্যান, ঘাগুয়া ইসলামি পাঠাগারের সভাপতি, ঘাগুয়া প্রাথমিক সরকারি স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি, বর্তমানে দাঁতা সদস্য উল্লেখযোগ্য। তাছাড়া বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাথেও সম্পৃক্ত আছেন। তিনি সাংগঠনিক দায়িত্বপালনে সকলের সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করেছেন। একই সাথে তিনি প্রচলিত সংর্বধনা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। গতকাল তার ফেসবুক আইডি থেকে এ ঘোষণা দেন। সাইফুর রহমান তার অনুভূতি পেশ করতে গিয়ে উল্লেখ করেন:
আকাবির ও আসলাফের রেখে যাওয়া আমানত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের অঙ্গসংগঠন ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে আমি অধমের কাধে সভাপতির দায়িত্ব ন্যস্ত করা হয়েছে। আমার অযোগ্যতা ও অদক্ষতা সত্ত্বেও মুরব্বিদের নির্দেশ পালনার্থে দায়িত্বটি আমাকে নিতে হচ্ছে। কাউন্সিলের পর হতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কর্মীরা আমাকে সংবর্ধনা দেয়ার জন্যে যোগাযোগ করছেন। আমি সকলের আন্তরিকতা ও ভালবাসার শুকরিয়া আদায় করছি। তবে সকলের অবগতির জন্যে জানাচ্ছি- দায়িত্বকে আমি সেরেফ দায়িত্বই মনে করি, এটাকে কোনো কৃতিত্ব বা অর্জন বলে মনে করি না। সুতরাং সকলের প্রতি অনুরোধ- সংবর্ধনার এই সংস্কৃতি বর্জন করুন। এর পরিবর্তে সুপরামর্শ, সহযোগিতা ও দোয়া দিয়ে আমাকে সাহায্য করুন। ধন্যবাদ।

এই সংবাদটি 1,090 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com