রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ০৫:০৭ ঘণ্টা

সরে দাঁড়াবো না–বিএনপির বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী সেলিম

Share Button

সরে দাঁড়াবো না–বিএনপির বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী সেলিম

সিলেট রিপোর্ট: বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ এনে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে চুড়ান্ত লড়াইয়ে থাকছেন দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী ও নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম। দলীয় বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন ফোরামে তাকে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছিলেন গত কয়েকদিন ধরে। এতে অনেকেই আশাবাদী হলেও সেলিম এই বার প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়ে জানিয়ে দিলেন তার অভিপ্রায়। রোববার (৮ জুলাই) নগরীর দরগা গেইটস্থ হোটেল হলিসাইডে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বিএনপির এই নেতা।

আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন আগামী সোমবার (৯ জুলাই)। এর আগের দিন রোববার সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সিলেট সিটি নির্বাচনে দলটির বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম।

তিনি বলেন, আমি কোনো চাপের কাছেই নতি স্বীকার করবো না। আর সরে দাঁড়ানোর প্রশ্নই ওঠে না। আমার ওপর যত বড়ই শাস্তি আসুক না কেন আমিই শেষ ব্যক্তি যেখান থেকে আমি কখনোই সরে দাঁড়াবো না। আগামীকালের সংবাদ সম্মেলনে তা আরও স্পষ্ট হয়ে যাবে। আমি মাঠে আছি। মাঠেই থাকবো।

বদরুজ্জামান সেলিম বলেন, আমি প্রার্থী হওয়ার পর বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্য থেকে প্রচুর সাড়া পাচ্ছি। অনেকে হয়তো সরাসরি আমার পক্ষে নামতে পারছেন না। কিন্তু তারা আমার পক্ষে রয়েছেন। ভোটের দিন তার প্রমাণ পাওয়া যাবে।

নাগরিক কমিটির ব্যানারে সিসিক নির্বাচনে সতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম আরো বলেন, হযরত শাহজালা (র.), হযরত শাহ পরান (র.) ও ৩৬০ আউলিয়ার পুণ্যভূমিতে বর্তমান সরকার তাদের চিরাচরিত পন্থায় নির্বাচন না করে এ পবিত্র ভূমিতে Free & Fair নির্বাচনের ব্যবস্থা করলে দেশের বিভিন্ন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ার নজির রয়েছে। আর সকল ফয়সালার মালিক যেহেতু রাব্বুল আলামিন মহান আল্লাহ, তাই এ পবিত্র ভূমিতে নতুন ইতিহাসের সূচনা হবে সেটাও বিচিত্র নয়। তিনি বলেন, দীর্ঘ ৩৯ বৎসরের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার আলোকে সিলেট নগরীকে আধ্যাত্মিক প্রবাসী অধ্যূষিত একটি তিলোত্তমা নগরী হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যাশা করছি। আমি আমার নির্বাচনী ইসতেহারে এ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা আমার তুলে ধরবো।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে নিজের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে সেলিম বলেন, ১৯৭৮ সালে শহীদ জিয়ার আদর্শে গড়া সংগঠন জাগদলের সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে আমার হাতে খড়ি। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সিলেট জেলা সভাপতিসহ সংগঠনের বিভিন্ন পদে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে বর্তমানে আমি ২০১৬ সালে নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের গোপন ভোটের মাধ্যমে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হই। তিনি তৃণমূল বিএনপির নেতাকর্মীদের ভালবাসাকে তার জীবনের পাথেয় মনে করেন। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি বর্তমান সরকারের বৈরী আচরণের তীব্র নিন্দা এবং অতিদ্রুত দেশনেত্রী বেগম জিয়াকে মুক্তির দাবি করেন।

সিসিকের সদ্য সাবেক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সম্পর্কে নেতিবাচক বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বিএনপির এই নেতা বলেন, আরিফুল হক চৌধুরী সরকারী এম.সি কলেজে অধ্যায়নের সময় আমার সাথে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে আরিফ-সেলিম পরিষদের ভিপি প্রার্থী ছিলেন। একজন ছাত্র এস.এস.সি পাস না করলে কলেজে ভর্তি হতে পারে না। অথচ তিনি তার হলফ নামায় শিক্ষাগত যোগ্যতা ‌‌”স্বশিক্ষিত” লিখে তথ্য গোপন করেছেন।
সেলিম বলেন, এতবড় একটি তথ্য গোপন করেও তিনি বর্তমান সরকারের কোনো কোনো মহলের আর্শীবাদে নমিনেশন বাছাই কালে পার পেয়ে যান। অথচ তথ্য গোপন করার অপরাধে তার নমিনেশন বাতিল হওয়ার কথা বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

তৃণমূল নেতাকর্মীদের কাছে নিজের গ্রহণযোগ্যতার উদাহরণ টানতে গিয়ে বদরুজ্জামান সেলিম বলেন, সম্প্রতি আরিফুল হক চৌধুরীর সমর্থনে মহানগর বিএনপির সভা আহবান করলেও মাত্র ৪৭ জন নেতা সভায় উপস্থিত হয়েছিলেন অথচ নগরীর ২৭টি ওয়ার্ড ও মহানগর কমিটি মিলে নেতা হবে প্রায় ৫শত। এতে প্রমান হয় মহানগর ও ওয়ার্ড পর্যায়ে নেতাকর্মীরা আমার সমর্থনে রয়েছেন এবং আরিফুল হক চৌধুরীকে প্রত্যাখান করেছেন।

দীর্ঘ ২৫ মিনিটের বক্তব্য উপস্থাপনের পর সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন বদরুজ্জামান সেলিম। সর্বশেষ তিনি আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের সমর্থন আদায় করতে না পারলেও প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবেন না। নগরবাসীর সহযোগিতায় তিনি এক নতুন ইতিহাস গড়বেন বলেও আশা প্রকাশ করেন।

এই সংবাদটি 1,051 বার পড়া হয়েছে