রবিবার, ০৮ জুলা ২০১৮ ১১:০৭ ঘণ্টা

রক্তাক্ত কোটা আন্দোলন: হেরে যাবে কী বাংলাদেশ?

Share Button

রক্তাক্ত কোটা আন্দোলন: হেরে যাবে কী বাংলাদেশ?

মুহাম্মদ এহসানুল হক: দেশ এখন কোটা বাতিলের দাবিতে উত্তাল। কোটা বৈষম্যের শিকার চাকরি বঞ্চিত মেধাবী তরুণদের আন্দোলন দাবানলের মত ছড়িয়ে গেছে সমস্ত কলেজ-বিশ^দ্যালয়ে। ক্লাস-পরিক্ষার ব্যস্ততা আর চায়ের আড্ডার বদলে মিছিলে মিছিলে মুখরিত ক্যাম্পাস। ভাড়াটে লাঠিয়ালদের সাথে কোটা বিরোধিদের চলছে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। টানটান উত্তেজনা। ছাপিয়ে গেছে বিশ্বকাপের উম্মাদনা। ভিনদেশি ফুটবল তারকাদের বদলে তারুণ্যের হিরো এখন খাটি বাংলার তরুণ নূরু-রাশেদুল ও ফারূকেরা। জেল-জুলুম, মামলা-হামলা কিছুই তাদের দমাতে পারেনি। বুটের তলায় পিষ্ট করে নূরু-ফারুকদের কোন ক্ষতিই তারা করতে পারেনি, বরং এইচডি প্রিন্ট ভিডিওর কল্যাণে তাদের মুখোশটাই জাতির সামনে খসে পরেছে।

কোটা আন্দোলন এখন জাতীয় ইস্যু। সোশ্যাল মিডিয়ার বদৌলতে প্রতিনিয়ত আপডেট পৌঁছে যাচ্ছে দেশের আনাচে কানাচে। কোটার পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি, ছাত্রলীগের জঙ্গিসুলভ আচরণ এখন সবশ্রেণি ও পেশার মানুষের একমাত্র আলোচনার বিষয়। কোটা আন্দোলনের ঘটনা পরিক্রমায় এ পযর্ন্ত যা হলো সে ব্যাপারে আমাদেরও বক্তব্য আছে, আছে পর্যবেক্ষণ। আলেম উলামারা শুধু ধর্মীয় ব্যাপারে কথা বলবে ব্যাপারটা এমন নয়, জাতীর প্রতিটি ক্রান্তিলগ্নে ভূমিকা রাখতে হবে। যে কোন অন্যায়-অবিচারের বিপক্ষেই কথা বলতে হবে। চাই সেটা যারই পক্ষে বা বিপক্ষে যাক।

সাধারণ শিক্ষিত প্রতিটি ছাত্রের জন্য শিক্ষাজীবন শেষে চাকরি চরম ও পরম আরাধ্য একটি বিষয়। শিক্ষা অর্জনের প্রকৃত লক্ষ্য, উদ্দেশ্য যাই হোক না কেন আমাদের দেশের সাধারণ শিক্ষিত মানুষদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনের একমাত্র উদ্দেশ্য মানসম্মত সরকারি চাকরি লাভ করা। এটা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। কিন্তু সরকারি চাকরি লাভের ক্ষেত্রে পাহাড়সম বড় বাধা হয়ে দাঁড়ায় সরকারি চাকরি ব্যবস্থায় কোটা নামক এই অন্যায্য পদ্ধতি। কোটা পদ্ধতি এক সময়ে চালু করা হয়েছিল দেশের অনগ্রসর জনগোষ্ঠীকে একটু বেশি সুযোগ-সুবিধা দিয়ে অগ্রসর গোষ্ঠীতে পরিণত করার উদ্দেশ্যে। যাতে করে দেশে কোনো প্রকার বৈষম্যের সৃষ্টি না হয়। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে এই কোটাই এখন বৈষম্যের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মৌলিকভাবে কোটা কোন সমস্যা নয়। পৃথিবীর অনেক দেশেই কোটা আছে। তবে কোথাও এটা চিরস্থায়ী নয়। কোটা সাধারণত হয় ১০/১৫ বছরের সীমিত সময়ের জন্য। যেমন ভারতে ১৫ বছরের জন্য দলিত সম্প্রদায়ের কোটা এখন বিদ্যমান, যুক্তরাষ্ট্রে মোট ১০ বছর রেড ইন্ডিয়ানদের জন্য ২ শতাংশ কোটা বিদ্যমান ছিল। সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো দেশেই ১৫ শতাংশের ওপর কোটা বিদ্যমান নেই, কিন্তু ব্যতিক্রম শুধু আমাদের দেশে। সরকারি চাকরির ৫৬ শতাংশই কোটায় খেয়ে ফেলে। মুক্তিযোদ্ধা কোটায়-৩০, মহিলা-১০, জেলা-১০ ও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী-৫ শতাংশ রয়েছে। কোটা পুরোপুরি পূরণ না হলে ১ শতাংশ বরাদ্দ রাখা হয় প্রতিবন্ধীদের জন্য। শুধু তাই নয়, নন-ক্যাডার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর সরকারি চাকরির ক্ষেত্রেও কোটা পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে মেধাতালিকা থেকে ৩০ শতাংশ এবং বাকি ৭০ শতাংশ পূরণ করা হয় কোটা থেকে। মুক্তিযোদ্ধার ছেলে-মেয়ে ও নাতি-নাতনি, নারী, জেলা, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী (উপজাতি), প্রতিবন্ধী, আনসার ও ভিডিপি, পোষ্য, খেলোয়াড়, এলাকা ও বোনসহ ২৫৭ ধরনের কোটা রয়েছে। এ যেন এক তুঘলকি কা-।

এই কোটার কারণে কী সমস্যা হয় সেটা আরেকটু খোলাসা করে বলি। প্রতি বিসিএসে সাধারণ ক্যাডারে গড়ে ৫০০ জন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু প্রতিযোগিতায় অংশ নেন সাড়ে তিন লাখ পরীক্ষার্থী (চলতি বছরের হিসাবে)। কোটাপদ্ধতির কারণে কেউ যদি সাড়ে তিন লাখ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২২৬ তম হন, তাহলে তিনি চাকরি নাও পেতে পারেন। কারণ ৫০০ পদের মধ্যে মেধা কোটায় ২২৫ জনকে দেয়া হয়। কাজেই ২২৬তম হয়ে তিনি চাকরি পাবেন না। কিন্তু কোটা থাকলে কেউ সাত হাজারতম হয়েও চাকরি পেতে পারেন। এটা কোন গালগল্প নয়, বিগত দশ বছরের বিসিএস নিয়োগ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, মেধাতালিকায় ২০০-৩০০ এর মধ্যে থাকা সত্ত্বেও অনেক মেধাবী পরিক্ষার্থী ক্যাডার পাননি। কিন্তু ২০০০, ৩০০০ বা তদূর্ধ্ব তালিকায় থেকেও শুধুমাত্র কোটার জোরে অনেক কম মেধাবীরা চাকুরি জুটিয়ে ফেলেছেন। ৫০-৫২% মার্কস নিয়ে উত্তীর্ণ এইসব কোটায় চাকুরি প্রাপ্তদের কারণে ৬০-৮০% মার্কস প্রাপ্ত মেধাবীরা বেকার বসে আছে। ২২০ তম হয়েও অনেকের বিসিএস জোটে না অথচ ৫৬৩২তম হয়েও মুক্তিযোদ্ধা কোটায় অন্য একজন এএসপি হয়ে বসে আছে। এটাই হলো মূল সমস্যা।

এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্ধ ৩০ শতাংশ কোটা নিয়ে। কোটা বিরোধী আন্দোলনকারিরা সরাসরি এর বিরুদ্ধে কথা না বললেও সবচেয়ে বড় সমস্যা এখানেই। আমাদের দেশ স্বাধীন হয়েছে ৪৮ বছর। প্রায় অর্ধশতক পরও এদেশের সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয় মুক্তিযোদ্ধা তালিকা। মুক্তিযোদ্ধা তালিকা এখনো চূড়ান্ত করা যায়নি। এক একটি সরকার আসে, তার তাদের মতো করে তালিকা করে। আগের সরকারের তালিকাকে বাতিল করে। তালিকা নির্মাণ এখনো চলছে, হয়তো অনন্তকাল ধরে চলতে থাকবে। ৪৮ বছর ধরে যে তালিকা চূড়ান্ত করা যায় না, সেই তালিকার যথার্থতা ও উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে।

তালিকা দিনদিন লম্বা হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধার সংজ্ঞা পরিবর্তন হচ্ছে, বয়স কমতে কমতে ১৩ বছরে নামানো হয়েছে। তালিকায় অনেক ভুয়া লোক ঢুকে যাচ্ছে। এর কারণ তো আর কিছু নয়, ওই বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্তির প্রত্যাশা। তালিকাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা হলে প্রতিমাসে বসে বসে দশ হাজার টাকা করে ভাতা পাওয়া যাবে, সরকারি চাকরিতে দুই বছর বেশি থাকা যাবে, সন্তান এমনকি নাতি-নাতনি পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ কোটা পাবে। তো, আর কী চাই! পৃথিবীতে আর কোন দেশে, আর কোন জনগোষ্ঠী এরকম বংশানুক্রমিক সুযোগ-সুবিধা পায় বলে জানা নেই। কিন্তু যুক্তি থাক বা না থাক, সেটা বাংলাদেশে চালু আছে।

মুক্তিযোদ্ধাদের ছেলে মেয়ে নাতি পুতিদের ৩০ শতাংশ কোটা ও অন্যান্য ৫৬ শতাংশ কোটার কাছে যখন মেধা হেরে যায়, বারবার কাছাকাছি গিয়েও মেধাবী ছাত্ররা যখন চাকরি বঞ্চিত হয়, যখন দেখে তাদের স্বপ্ন পূরণের পথে এই কোটা জগদ্দল পাথরের মত বসে আছে তখন তাদের মধ্যে স্বাভাবিকভাবেই কোটার বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এই ক্ষোভ থেকেই গত ১৭ই ফেব্রুয়ারী শুরু হয়েছিল কোটা বিরোধী আন্দোলন। ধারাবাহিক আন্দোলনের পর পুঞ্জিভূত এই ক্ষোভের চূড়ান্ত বিষ্ফোরণ ঘটেছিল গত ৮ই এপ্রিল। অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়। দাবানলের মত ছড়িয়ে পড়েছিল সারা দেশের কলেজ-বিশ^বিদ্যালয়ে। বিরোধীদল বিহীন আরাম আয়েশে চলতে থাকা সরকারের মসনদে তখন কাপন ধরিয়ে দেয় কোটা বিরোধী আন্দোলন।

বিচক্ষণ প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদের নার্ভ বুঝতে দেরি করেননি। তিনি বুঝতে সক্ষম হন এখনই তাদের থামানো না গেলে সব কিছু নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যাবে। তাই তিনি কালবিলম্ব না করে কৌশলি পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ১১ এপ্রিল সংসদে স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেন, যখন কেউই কোটাপদ্ধতি চায় না, তখন এটা রাখার আর কোনো দরকার নেই। কোটাপদ্ধতি বাতিল, কোটা থাকলেই সংস্কারের প্রশ্ন আসবে। এখন সংস্কার করলে আগামীতে আরেক দল আবারো সংস্কারের কথা বলবে। তাই কোটা থাকলেই ঝামেলা। সুতরাং কোনো কোটারই দরকার নেই। (বাংলাদেশ প্রতিদিন, ১২ এপ্রিল, ২০১৮)।

বোদ্ধমহল প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার মাজেজা কিছুটা অনুমান করতে পারলেও আনন্দে ভেসে যায় ছাত্রজনতা। তারা প্রধানমন্ত্রীকে মাদার অব এডুকেশন ঘোষণা দিয়ে বসে। বিজয় মিছিল করে সেদিন ছাত্রলীগও কোটা আন্দোলনে অবদান রাখার দাবি করেছিল। শুধু সংসদের ঘোষণাই নয়, আরও একাধিক বার তিনি মৌখিকভাবে ঘোষণা দেন। কিন্তু তিনি প্রজ্ঞাপন জারির ব্যবস্থা করেননি। প্রজ্ঞাপনের জন্য বারবার দাবি তুললেও সরকার কর্ণপাত করেনি। দীর্ঘ আড়াই মাস কোন খবর নেই। আজ কাল করে করে সময় ক্ষেপন চলছেই।

এরই প্রেক্ষিতে ৩০ই জুন কোটা বিরোধী আন্দোলনের প্লাটফর্ম সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জাতীয় গ্রন্থাগারের সামনে সাংবাদিক সম্মেলন আহবান করা হয়। সম্মেলন শুরু করার আগেই তাদের উপর হামলে পরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মিরা। শত শত ক্যামেরার সামনে নিমর্মভাবে রক্তাক্ত করা হয় যুগ্ম আহবায়ক নূরুল হক নূরুকে। শিক্ষকের পা জড়িয়ে ধরেও রেহাই পায়নি নূরু। এর দুদিন পর শহিদ মিনারে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে আবারও হামলা করা হয়। ফারূককে তুলে নিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পিজি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা মুফতি হুজাইফাকে রিকশা থেকে টেনে হেচড়ে নামিয়ে নিমর্মভাবে তারা মারধোর করে। শাহবাগ মোড়ে যাকে মনে হয়েছে, তাকে মারধর করে পুলিশের হাতে দিয়েছে ছাত্রলীগ। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে, চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে। যাদেরকে ক্ষত-বিক্ষত করেছে, তাদের নামেই মামলা দিয়েছে এবং পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে গ্রেপ্তার করেছে, রিমান্ডে নিয়েছে। যারা পিটিয়ে ক্ষতবিক্ষত করল- তুলে নিয়ে গেল, কুপিয়ে-পিটিয়ে রক্তাক্ত করল, নারী নিপীড়ন করল, ধর্ষণ-গুমের হুমকি দিল, তারা সম্পূর্ণ নিরাপদ থেকে গেল। কারণ তারা ছাত্রলীগ।

ছাত্রনেতাদের পিটিয়ে পদদলিত করে পুলিশের হাতে তুলে দিচ্ছে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগ হামলা করতে আসলে সরে যাচ্ছে পুলিশ। প্রকাশ্যে চাপাতি দিয়ে কোপাচ্ছে। হাতুরি দিয়ে থেতলে দিচ্ছে। এসব কি ওরা উপর মহলের আদেশ ছাড়াই করছে? কখনোই হতে পারে না। এটা সরাসরি প্রতারণা মূলক আচরণ। এক দিকে কোটা বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে। অপর দিকে আন্দোলনকারিদের পেছনে ছাত্রলীগকে লেলিয়ে দিয়েছে। রাষ্ট্রের সবোর্চ্চ পর্যায় থেকে এ ধরনের আচরণ কখনোই কাম্য নয়।

একজন ছাত্রী দশ বারোজন দ্বারা পাশবিক নিপীড়নের শিকার হলেন শহীদ মিনারের মত জায়গায়। সবার সামনে, ক্যামেরার সামনে। ওড়না টেনে নেওয়া হলো। কিল-ঘুষি-লাথি এবং একজন ছাত্রীকে যত রকমের নির্যাতন সম্ভব, সবই করা হলো। নারী শিক্ষার্থীর আর্তনাদ শহীদ মিনারের আকাশে বাতাসে প্রকম্পিত করলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কান পর্যন্ত তা পৌঁছায়নি। প্রক্টর বলে দিলেন তিনি কিছু জানেন না।

বাংলাদেশে নারী আছেন, নারী নেত্রী আছেন। নারী নির্যাতন নিয়ে তাদের কোনো বক্তব্য নেই। বাংলাদেশে ‘মানবতা’ আছে, তবে গরিব নুরু বা রাশেদদের জন্যে মানবতা নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, গরিবের সন্তান লাথি-ঘুষিতে মুমূর্ষু হয়ে ঢাকা মেডিকেলের বারান্দায় পড়ে থেকেছেন। জনগণের টাকায় চলা হাসপাতালে চিকিৎসা পাননি। বেসরকারি আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে এসেছেন, মাঝ রাতে বের করে দেওয়া হয়েছে পুলিশের ভয়ে। শিক্ষক-নাগরিক সমাজ, বুদ্ধিজীবীরা নীরব, নিশ্চুপ। তারা হয়ত তখন আর্জেন্টিনার পরাজয় আর ব্রাজিলের বিজয়ের কারণ কষে বিশ্লেষণ করছেন!

কোথায় কোন মাদরাসা শিক্ষক নারীশিক্ষা নিয়ে কটূক্তি করেছেন কিংবা ওয়াজে কী বলেছেন তখন তাদের বিবৃতির ঝড় বয়ে যায়। নারীর মর্যাদা আর অধিকার প্রতিষ্ঠায় শহীদ মিনার কাঁপিয়ে তোলা হয়। অথচ রাজধানীতে প্রকাশ্যে ছাত্রীদের পিটিয়ে, টানাহেঁচড়া করার পরও তারা কোন প্রতিবাদ করার প্রয়োজন বোধ করছেন না। আজকে শাহরিয়ার কবির, মুনতাসির মামুন ও জাফর ইকবালদের কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না। সব গর্তে লুকিয়েছে। হেফাজত বা আহমদ শফির কিছু পেলে, ইসলামের উপর আক্রমন করার কোন সুযোগ এলে বিবেক বিক্রি করার এসব দালালদের আবারও স্বমূর্তিতে দেখা যাবে এতে কোন সন্দেহ নেই।

আমরা মনে করি কোটার বিপক্ষে এখন জাতীয় ঐক্যমত সৃষ্টি হয়ে গেছে। ৫৬ শতাংশ কোটা কোনভাবেই থাকতে পারে না। এর সংস্কার প্রয়োজন। ছাত্রদের দাবি অবশ্যই যৌক্তিক। ছাত্রলীগের এই জঙ্গিপনার ছবি, অডিও-ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে আজ মানুষের হাতে হাতে। কোটা বিরোধী আন্দোলনের ছাত্রজনতার উপর যে নিমর্ম অত্যাচার করা হলো এর মাশুল কোন একদিন দিতে হবে।

কোটা এখন সরকারের জন্য প্রেস্টিজ ইস্যু। কোটা আগের মত রাখতেও পারছে না। আবার ছাত্রদের চাহিদা মত বাতিলও করতে পারছে না। তবে পরিস্থিতি আর যাই হোক শেষ পযর্ন্ত জয় সরকারেরই হবে। কারণ এই ছাত্র আন্দোলন চূড়ান্ত লক্ষ্য পযর্ন্ত নিয়ে যাওয়ার মত রাজনৈতিক শক্তি আজকে মাঠে নেই।

সর্বশেষ যে কথাটি বলতে চাই। যারা এতদিন সরকারের হাজারো সমালোচনামূলক কাজ দেখেও না দেখার ভান করেছেন। সামান্য সুযোগ সুবিধার জন্য সরকারকে নিরব সমর্থন দিয়ে গেছেন। বা সুবিধা বহাল থাকায় এখন নিশ্চুপ আছেন, সরকারের এমন দানবীয় শক্তিতে পরিণত করার পিছনে তাদের সকলেরই দায় আছে। যে সমাজ নিমার্ণ করতে আপনারা সহযোগিতা করেছেন কেউ ভাল থাকতে পারবেন না। বিচ্ছিন্নভাবে ভালো থাকা যায় না। বিপদ আজকে হয়তো অন্যের ঘরে, কিন্তু একদিন আপনার দরজায়ও কড়া নাড়তে পারে। সেদিনের জন্য প্রস্তুত থাকুন।

লেখক: সহকারী সম্পাদক, মাসিক রাহমানী পয়গাম।

এই সংবাদটি 1,263 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com