সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০১:০৭ ঘণ্টা

যেভাবে উদ্ধার হচ্ছে কিশোর দল

Share Button

যেভাবে উদ্ধার হচ্ছে কিশোর দল

প্রথমে আশঙ্কা করা হয়েছিল, কয়েক মাস পর্যন্ত লেগে যেতে পারে; কিন্তু হাজারের বেশি দক্ষ মানুষের সার্বক্ষণিক তৎপরতায় মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই উদ্ধার অভিযান দেখা গেল। থাইল্যান্ডের থাম লুয়াং গুহা থেকে গতকাল রবিবার ‘ডি-ডে’ নামের বিশেষ অভিযানে আটকা পড়া অন্তত চার কিশোরকে উদ্ধার করা হয়েছে। কীভাবে তাদের উদ্ধার করা হলো?উদ্ধারের বহু বিকল্পের মধ্যে শীর্ষে ছিল দুটি- এক. ডুবুরিদের সঙ্গে ডুবসাঁতার দিয়ে প্রবেশমুখ হয়ে বের করে আনা। দুই. মাটি কেটে কূপ তৈরি করে হেলিকপ্টারে করে উদ্ধার। প্রথমটাই অনুসরণ করা হয়েছে।

২৩ জুন গুহায় অভিযানে গিয়ে আটকা পড়ে ১২ খুদে ফুটবলার ও তাদের সহকারী কোচ। ২ জুলাই তাদের জীবিত সন্ধান পাওয়া যায়। প্রবল বৃষ্টিতে গুহা প্লাবিত হতে থাকলে তারা প্রবেশমুখ থেকে চার কিলোমিটার দূরে আশ্রয় নেয়। প্রশিক্ষিত ডুবুরিদেরও এমনকি ওই জায়গা গিয়ে ফিরে আসতে ১১ ঘণ্টা সময় লাগবে। সংকীর্ণ পথ আর অক্সিজেনের ঘাটতি বড় ঝুঁকি। শুক্রবার অক্সিজেনের অভাবে এক ডুবুরি মারাও যান। কিন্তু আরও বৃষ্টি বাড়তে পারে, এই শঙ্কায় রবিবার জোর উদ্ধার তৎপরতা শুরু হয়।উদ্ধার প্রক্রিয়াটা বেশ মিশ্র। হাঁটা, আরোহণ, ডুবসাঁতার- সবই আবার ঘুটঘুটে অন্ধকারে। তবে গুহামুখ থেকে আশ্রয়স্থল পর্যন্ত একটা পথনির্দেশক দড়ি বেঁধে হয়।কিশোরদের পরানো হয় মুখোশ। প্রত্যেকের সঙ্গে দুজন করে প্রশিক্ষিত ডুবসাঁতারু। ডুবুরিরাই কিশোরদের অক্সিজেন ট্যাংক বহন করেন। দড়ি দিয়ে ডুবুরির সঙ্গে কিশোরকে আটকে দেওয়া হয়। ভয়ঙ্কর ঝুঁকি উদ্ধারপথের মাঝামাঝি। সেখানে গুহার প্রকোষ্ঠ এতই সংকীর্ণ যে, ডুবুরিকে তার পিঠে থাকা অক্সিজেন ট্যাংক খুলে তার পর চলতে হয়।এর পর চেম্বার তিনে থাকা বেজক্যাম্পে কিছুটা বিশ্রাম নিয়ে হেঁটে প্রবেশমুখ দিয়ে বেরিয়ে আসে তারা। তাদের সেখান থেকে সরাসরি চিয়াং রাই শহরে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এই সংবাদটি 1,084 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com