সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০১:০৭ ঘণ্টা

মাহাথিরের সঙ্গে দেখা করেছেন জাকির নায়েক

Share Button

মাহাথিরের সঙ্গে দেখা করেছেন জাকির নায়েক

ভারতের বিতর্কিত ধর্মপ্রচারক জাকির নায়েক মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সঙ্গে দেখা করেছেন। গতকাল রবিবার স্থানীয় গণমাধ্যম ফ্রি মালয়েশিয়া টুডে এ খবর দেয়।মালয়েশিয়া থেকে ইসলামিক বক্তা নায়েককে ভারতে প্রত্যর্পণ করা হবে না বলে মাহাথিরের ঘোষণার এক দিন পরই এ খবর পাওয়া গেল। নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী মাহাথির বলেছেন, তার দেশ নায়েককে স্থায়ী আবাসের সুযোগ দিয়েছে। তিনি যতক্ষণ পর্যন্ত কোনো ক্ষতির কারণ না হচ্ছেন, তাকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হবে না।  

ঢাকায় হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় দুই বছর আগে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) হামলা চালায়। হামলাকারীদের মধ্যে অন্তত একজন জাকির নায়েকের ‘বিদ্বেষমূলক ভাষণে অনুপ্রাণিত’ ছিলেন বলে অভিযোগ আছে।২০১৬ সালের জুলাই মাসেই ভারত থেকে পালিয়ে যান জাকির নায়েক। এর পর থেকেই মালয়েশিয়ার পুত্রজায়ায় থাকছেন তিনি।ফ্রি মালয়েশিয়া টুডে জানায়, শনিবার মাহাথিরের সঙ্গে দেখা করেছেন জাকির নায়েক। তবে তাদের মধ্যে ঠিক কী কথা হয়েছে, এ বিষয়ে সূত্র কোনো তথ্য দিতে পারেনি ওই গণমাধ্যমকে। এটাই দুজনের মধ্যে প্রথম সাক্ষাৎ কিনা, তা-ও স্পষ্ট নয়।গত বছর ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা এনআইএ জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে। অভিযোগপত্রে বলা হয়, বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের মাধ্যমে নায়েক ভারতে বিভিন্ন ধর্মের বিশ্বাসীদের মধ্যে শত্রুতা ও ঘৃণা ছড়িয়েছেন। কিন্তু ৫২ বছর বয়সী এই ধর্মগুরু এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। চলতি সপ্তাহে খবর প্রকাশিত হয়, মালয়েশিয়া থেকে ভারতে ফিরছেন জাকির নায়েক। কিন্তু তিনি বলেন, এটা গুজব, পুরোপুরি ভিত্তিহীন ও অসত্য কথা। তিনি মনে করেন, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বিচার থেকে আমি এখনো নিরাপদ নই। এ কারণে ভারতে ফেরার কোনো পরিকল্পনা আমার নেই।’ তার আইনজীবী জানিয়েছেন, জাকির নায়েক বলেছেন, যখন মনে হবে সরকার সৎ, যখন ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করা যাবে, তখন অবশ্যই আমি নিজ দেশে ফিরে যাব।সম্প্রতি ফেসবুকে জাকির নায়েক ভারতীয় গণমাধ্যমের সমালোচনাও করেছেন। তিনি বলেন, এসব গণমাধ্যম তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটাচ্ছে। তিনি ‘ভুয়া খবর’ পরিবেশন না করার আহ্বানও জানিয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,216 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com