সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০২:০৭ ঘণ্টা

যায় দিন ভাল! আসে দিন খারাপ!

Share Button

যায় দিন ভাল! আসে দিন খারাপ!

 

আমেরিকা(আটলান্টা) থেকে ইঞ্জিনিয়ার বশির উদ্দীন আহমেদ:: মসজিদের প্রবেশ মূখে দেখা প্রিয় নাতী বড়লেখা গল্লাসাঙ্গন নিবাসী আটলান্টা প্রবাসী নাসিরুদ্দীনের সাথে। জিজ্ঞাসা করলাম নাতী নির্ধারিত ইমামের দীর্ঘ অনুপস্থিতিতে একেক দিন একেক ইমাম বয়ান খুতবাহ তরজমা তাফসীর ইত্যাদি পেশ করছেন, নামাজ পরিচালনা করছেন, তোমার কেমন লাগছে? সরাসরি উত্তর না দিয়ে নাতী বললো, উনার এলাকায় এক স্বচ্ছল ব্যবসায়ী ছিলেন, তিনি ১৩ খানা বিবাহ করেছেন! এক দিন নাতী তাকে জিজ্ঞাসা করলেন, দাদা ১৩ জনের মধ্যে কোন দাদী সব চেয়ে ভাল! উত্তরে দাদা বল্লেনঃ পয়লা দাদী! অর্থাৎ প্রথমা স্ত্রী! আমার সুপরিচিতা এক রমণীর ৩য় বিবাহের পর জিজ্ঞাসা করলামঃ কোন জামাই ভালা? উত্তর- ১লা জন!
উপমহাদেশে যখন বৃটিশ শাসন শোষন চলে তখন অনেকেই নাকি বলেছেন আমাদের মোগল শাসনই ভাল ছিলঃ আয়ূবের সামরিক শাসনের যাতাকলে পিষ্ট হয়ে অনেককেই বলতে শুনেছি ‘তার চেয়ে বৃটিশ বহুত ভাল ছিল’। অর্থাৎ যায় দিন ভাল ,যে চলে যায় সেই ভাল থাকে। দিন দিন কেবল খারাপের দিকের যাচ্ছে! সাম্প্রতিক সরকারি মদদপোস্টদের হাতূড়ী চালান দেখে অনেকেই বলে ফেলেছেন তার চেয়ে আয়ূব খানের “এন এস এফ” (ন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফেডারেশন) নামক ছাত্র নামধারী লাঠীয়াল বাহিনী অনেক মানবিক ছিল। তারা হাতূড়ী চালান দিয়ে কারো হাড়্গুড় ভেঙ্গে দেয়নি! ইতি পূর্বে এক শ্রেণীর ছাত্র নামধারী লাঠীয়ালদের হাতে ছিল খুর-রামদা!! রগ কাটা যন্ত্র! এখন কালের পরিক্রমায় সেটা হাতূড়ী বাটাল! আগামীতে হয়তো আসবে করাত বা হান্ড হ্যাক সো!
আগেকার দিনে রাজনীতিবিদরা র্দূবৃত্ত পোষতেন,আর এখন দূর্বৃত্তরা নিজেরাই রাজনীতিবিদ! আগে তারা চুরি করতেন কোটি কোটি টাকা! কিছু কাল পূর্বে সেটা ছিল শত কোটি! বিগত দু’তিন শাসনামলে তা’ হাজার কোটি পেরিয়ে বর্তমানে মাত্রা লক্ষ কোটিতে গিয়ে ঠেকেছে!
আগে এসব কাজে লজ্জা বোধ ছিল এখন সেটা গর্ব্ বোধে গিয়ে দাঁড়িয়েছে! আগে লোকজন দূর্নীতিবাজদের ঘৃণাভরে এড়িয়ে চলত, এখন সমীহ করে ভয় পায়! প্রায় শতভাগ রানীতিবিদ “লেছ দ্যান অনেস্ট” এর ছত্র ছায়ায় প্রশাসন ও ব্যবসা বাণিজ্যও তথৈবচ!
এখন কেউ কেউ বলা শুরু করেছেন ‘এর চেয়ে সৈরাচার অনেক ভাল ছিল’। অপর দিকে ক্ষমতাহীন জোট তলে তলে করতাল বাজাচ্ছেন! আমাদের বুঝাতে চাচ্ছেন তারা দুধে ধুয়া তুলসি পাতা ছিলেন! কিসের আশায়, কিসের নেশায় এরা এত বেপরোয়া হৃদয়হীন হিংস্র তা’ অনুমান করা কোন সুকঠিন বিষয় নয়! অচিরেই তারা ফেনী ,নারায়ণগঞ্জ লক্ষীপুরের সন্ত্রাসিদের মত পুরস্কৃত হবেন,এমপি মন্ত্রী হবেন, সংসদে বসবেন! অভাগা জাতিকে নীতিবাক্য শোনাবেন! সবাই হাত তালি দিবে, আনন্দে বগল বাজাবে! বর্তমান রাজনীতিতে এদের চাহিদা/ডিমান্ড আকাশ চূম্বী! তাহলে এই অসহনীয় অস্বাস্থ্যকর পূতিগন্ধময় পরিস্থিতি ,পরিবেশ থেকে উত্তরণের উপায় কি? এটা সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণিত যে নৌকার বিকল্প ধানের শিষ নয়। আর ধানের শীষের বিকল্প নৌকা নয়! ঘুরে ফিরে এই দুই ধারা একটি কল্যাণমূলক রাস্ট্র উপহার দিতে প্রায় ব্যর্থ হয়েছেন! আর গণতন্ত্রের বিকল্প ও গণতন্ত্র! অন্য কোন তন্ত্র বা মন্ত্র নয়! তাহলে উপায় !! ? হ্যাঁ, উপায় তো আছেই! ‘হোয়ার দেয়ার ইজ এ ওয়াল দেয়ার ইজ এ গেইট’! কেবমাত্র, একমাত্র এবং শুধুমাত্র ভোটারগণই পারেন এই অবস্থার অবসান ঘটাতে! তারা যদি মার্কা ভূলে প্রার্থী দেখে সৎ নিষ্ঠাবান, দেশপ্রেমিক ( যাদের অন্তরে আল্লাহ আখিরাতের ভয় আছে) দেখে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। দ্বিতীয়তঃ শৃংখলা বাহিনীতে রিফোর্ম, বিন্যাস তথা সংস্কার সাধন জরুরী! তারা যেন সরকারে লাঠিয়াল বাহিনীতে পরিণত না হয়ে জনগণকে ভোটাধিকার প্রয়োগে সহযোগিতা করেন! এক্ষেত্রে এই বাহিনীর মানসিকতা পরিবর্তন জরুরী। তাদেরকে বুঝতে হবে তারা সরকারের বাহিনী নয় জনগনের বাহিনী! ভোটার আর শৃংখলা বাহিনী মিলে দেশ ও জাতীকে এই অসহনীয় অবস্থা থেকে মূক্তি দিতে পারেন! দেশের শৃংখলা বাহিনীতে পূণর্বিন্যাশ ওয়াক্তে জরুর! তৃতীয় স্তম্ভটি হচ্ছে বিচার বিভাগ! দেশের চরম অরাজক পরিস্থিতিতে এই বিভাগ নীরব দর্শকের ভূমিকায় অবতীর্ণ! এমনকি সরকারকে কারণ দর্শানোর রুলনিশী জারী করার সৎসাহস পর্যন্ত এরা হারিয়ে ফেলেছেন! মানুষ ন্যায় বিচারের জন্য প্রধান বিচারপতি নয় বরং প্রধান মন্ত্রীর দৃস্টি আকর্ষনে আহাজারি করছে!বিচার বিভাগের নির্লিপ্ততায় আমি যুগপৎ বিস্মিত মর্মাহত ও সর্বপরি বিচলিত! মোটামোটি রাস্ট্রযন্ত্রের এই তিন স্তম্ভঃ ভোটার তথা জনগণ, শৃংখলা বাহিনী ও বিচার বিভাগ যদি তাদের উপর ন্যাস্ত গুরু দ্বায়ীত্ব (আমানত) নিস্টার সহিত পালন করতে পারেন তাহলে পরিস্থিতি কিছুটা হলেও ধীরে ধীরে উন্নতির দিকে যেতে বাধ্য! আর আমানতের খেয়ানত হচ্ছে মূনাফেক্বের প্রধান লক্ষণ আর শাস্তি হচ্ছে সর্ব নিম্ন জাহান্নাম! ন্যায় বিচার ভিত্তিক কল্যাণমূলক রাস্ট্র কায়েমে এর কোন বিকল্প আপাতত দেখিনা! আজও সে আশায় বাধি খেলাঘর বেদনার বালুচরে! স্বাধীনতার অর্ধদশক একটি কল্যাণ্মূলক ন্যায় বিচার ভিত্তিক রাস্ট্র কায়েমে যথেষ্ট নয় কি! আমাদের সমসাময়িক স্বাধীনতা অর্জনকারী দেশগুলি ইতোমধ্যেই বহুদূর এগিয়ে গেছে! অমা আ’লাইনা ইল্লাল বালাগ’!

এই সংবাদটি 1,024 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com