সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০৪:০৭ ঘণ্টা

সিলেট সিটিতে একজন ক্যারিশম্যাটিক নেতা চাঁদপুরের ডা. মোয়াজ্জেম

Share Button

সিলেট সিটিতে একজন ক্যারিশম্যাটিক নেতা চাঁদপুরের  ডা. মোয়াজ্জেম

সিলেট রিপোর্ট:
সিলেটকে সন্ত্রাস, দুর্নীতি, মাদকমুক্ত ও শহরের যানজট নিরসনে আগামী সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর পীর সাহেব চরমোনাই মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী প্রফেসর ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খান-এর বর্ণাঢ্য জীবনবৃত্তান্ত।
জন্মঃ তিনি ১৯৫২ সালের ৩০ জুন চাঁদপুর জেলার চাঁদপুর থানার মাইশাশী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।
তার পিতা হাজী ডা. দুর্লভ খান এবং মাতা নাজমা বেগম। তার পিতা ছিলেন পেশায় একজন ডাক্তার, সমাজসেবক ও এলাকার সম্মানী ব্যক্তিত্ব।
বর্তমান ঠিকানাঃ ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন সাহেব ১৯৭০ সাল থেকে সিলেটে অবস্থান করছেন। দীর্ঘ ৪৮ বছরে সিলেটে তিনি অনেক সুনাম কুড়িয়েছেন। তার খ্যাতি সিলেট সহ পুরো বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। সিলেট শহরে তার নিজস্ব বাসভবনে তিনি বসবাস করছেন।
পরিবারঃ মোয়াজ্জেম হোসেন খানরা তিন ভাই ও দুই বোন। তন্মধ্যে তিনি সবার ছোট। এছাড়া ও তিনি ৫ সন্তানের জনক। তাঁর তিন ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছেন।
শিক্ষা জীবনঃ ডা. মোয়াজ্জেম সাহেব প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন তাঁর মাতা-পিতার কাছে। উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার জন্য উনি চাঁদপুর হাই স্কুলে ভর্তি হয়ে কৃতিত্বের সাথে মেট্রিক পাশ করেন। মেট্রিক পাশ করে চাঁদপুর সরকারী কলেজ থেকে ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। অতঃপর উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি ১৯৭০ সালে সিলেটে আসেন এবং সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন। ওসমানী মেডিকেল কলেজ থেকে সুনামের সাথে এম.বি.বি.এস ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি.এফ.এম সাইন্স অব টেকনোলজি কমপ্লিট করেন।
কর্মজীবনঃ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ থেকে এম.বি.বি.এস পাশ করার পর তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে চতুর্দিকে। তার যোগ্যতায় ১৯৭৮ সালে ওসমানী মেডিকল কলেজ হাসপাতালে মেডিকেল অফিসারের দায়িত্বে নিয়োগ হোন। এরপর কিছুদিন কুমিল্লা’র নবীনগরে, কয়েকমাস সিলেটের জৈন্তাপুর থানায় এবং এক বছর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় মেডিকেল অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি তার জীবনের প্রায় অধিকাংশ সময় ওসমানী মেডিকেলে কাটিয়ে ২০০৫ সালে নিজ ইচ্ছায় রিটায়ার্ড গ্রহণ করেন। এছাড়াও তিনি ঢাকা আল কারীম জেনারেল হসপিটালের পরিচালকের দায়িত্ব পালন সহ বিভিন্ন সময়ে চিকিৎসার মাধ্যমে মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন।
বর্তমানে সিলেট নর্থ ইষ্ট মেডিকেল কলেজে ফরেনসিক বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।
বাই’আত গ্রহণঃ খান সাহেব তার বর্ণাঢ্য জীবনের প্রাথমিক সময় ভিন্ন একটি সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। ১৯৯৫ সালে পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে, বিশ্বের তৃতীয় মুসলিম জমায়েত বরিশাল কীর্তনখোলা নদীর তীরবর্তী চরমোনাই মাহফিলে শায়খ ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর হাতে বাই’আত গ্রহণ করেন।
সাংগঠনিক জীবনঃ সাংগঠনিক দক্ষতা ও বিচক্ষণতায় প্রফেসর সাহেব এক অনন্য ব্যক্তিত্ব। যোগ্য নেতৃত্ব ও বলিষ্ঠ বুদ্ধিমত্তায় তিনি হাজার হাজার কর্মীদের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। ১৯৯৫ সালে মরহুম পীর সাহেব চরমোনাই রহ. এর হাতে বাই’আত গ্রহণ করার পর তিনি যতটুকু রুহানিয়াত এর ময়দানে কাজ করছেন, ঠিক ততটুকু জিহাদের জন্য ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সাথে সক্রিয় থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ১৯৯৬ সালে সংগঠনের দায়িত্ব গ্রহণ করে রাজনীতির ময়দানে সরব হয়ে উঠেন। জুলুম নির্যাতন সব কিছুকে উপেক্ষা করে আজ তিনি সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ে এসেছেন। দক্ষতা, বিচক্ষণতা, ন্যায় ও সততার আজকের প্রফেসর ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খান।
দায়িত্ব পালনঃ তিনি সময়ে সময়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০৩ সালে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন। চারবছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করে ২০০৮ সালে সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়কারীর দায়িত্ব প্রদান করা হয়। বর্তমানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সেন্ট্রাল মেম্বার এবং সিলেট বিভাগীয় জিম্মাদারের দায়িত্ব পালন করছেন।
সিলেট সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে প্রফেসর ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খান সাহেব শিক্ষা-দীক্ষা ও নৈতিক চরিত্রে সর্বাধিক এগিয়ে রয়েছেন। মেয়র প্রার্থী হিসেবে তিনি সিলেট সিটিতে একজন ক্যারিশম্যাটিক নেতা হিসেবে আবির্ভূত হবেন বলে তাঁর সহকর্মীদের বিশ্বাস।

এই সংবাদটি 1,675 বার পড়া হয়েছে