মঙ্গলবার, ১০ জুলা ২০১৮ ১২:০৭ ঘণ্টা

স্পষ্ট হচ্ছে ২০ দলীয় জোটে ভাঙ্গন !

Share Button

স্পষ্ট হচ্ছে ২০ দলীয় জোটে ভাঙ্গন !

সিলেট রিপোর্ট:
বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরীক দলগুলোর মধ্যকার বিভক্তি আরও স্পষ্ট হয়ে উঠছে। সোমবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে দিনব্যাপী প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন হলেও সেখানে বিএনপি জোটের শরীক কয়েকটি দলের শীর্ষ নেতাদের দেখা যায়নি। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।
এদিকে সিলেট সিটি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর প্রতিপক্ষ হিসেবে জামায়াতও প্রার্থী দিয়েছে। সিলেট সিটি নির্বাচনে জামায়ত-বিএনপির বিরোধ বলতে গেলে প্রকাশ্যই রুপ নিলো। এর জের জাতীয় ভাবে পড়তে পারে এমন আভাস পাওয়া যাচ্ছে। জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্মমহাসচিব সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী সিলেট রিপোর্টকে জানান, সিলেট সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটি ও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সুনজর কামনা করছি। যেহেতু ২০ দলীয় প্রার্থী হিসেবে সাবেক জনপ্রিয় ও বর্তমানে পাশ করার ( কারচুপী না হলে )শতভাগ প্রত্যয়ী জনাব আরিফুল হক চৌধুরীর কথা বলা হচ্ছে। অথচ খোদ বিএনপির পরিচিত মুখ আরেকজন প্রার্থী নিজেকে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জানান দিয়ে বিভ্রান্তির জন্ম দিয়েছেন। অপরদিকে জোটের আরেক শরীক দলের ক্লিন ইমেজের প্রার্থী (এডভোকেট এহসানুণ মাহবুব জুবায়ের) সর্বশক্তি নিয়ে এখনও মাঠ সরগরম রেখেছেন। যতদূর জানি, তাদের শক্তি জানান দেবার উদ্দেশ্যে লড়ছেন– ছাড় দেবার কোন আলামত পরিলক্ষিত হচ্ছেনা , সেহেতু আমার দু’ টি কথা।
প্রথম কথা হলো, জোটের সর্বশেষ বৈঠকে আমি যুক্তরাজ্য সফরে থাকায় অনুপস্থিত ছিলাম। তাই বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোটের হাইকমান্ডের কাছে আমার প্রশ্ন, গাজীপুর সহ নিকট অতীতের নির্বাচনগুলোতে ভোটচুরির মহোৎসব দেখার পরেও আবার নির্বাচনে আমাদের প্রার্থী ঘোষণা করা তাদের আগেকার নির্বাচনগুলোকে বৈধতা দেবার নামান্তর নয়কি?

প্রতীকী অনশন কর্মসূচি নিয়ে বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেন, ‘বিএনপি অগোছালোভাবে কর্মসূচি পালন করেছে। তাদের আমন্ত্রণ প্রক্রিয়া সম্মানজনক ছিল না, তাই কর্মসূচিতে যাওয়ার আগ্রহ ছিল না।’  ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি বলেন, ‘খুব স্বল্প সময়ের নোটিশের কারণে কর্মসূচিতে উপস্থিত হতে পারিনি। আমার অন্য একটা প্রোগ্রাম ছিল।’

ন্যাপ মহাসচিবের বক্তব্যের বিষয়ে গাণি বলেন, ‘উনি ওনার ক্ষোভের জায়গা থেকে বলতেই পারেন।’ বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে সেভাবে রাজনৈতিক আন্দোলন গড়ে তোলা হয়নি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।কর্মসূচিতে না যাওয়া প্রসঙ্গে ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এনডিপি) চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা বলেন, ‘দলের নিবন্ধনের বিষয়ে হাইকোর্টে কাজ ছিল, তাই যেতে পারিনি। আমাদের এক সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবকে যেতে বলেছিলাম।’বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম শারীরিক অসুস্থতার কারণে কর্মসূচিতে আসতে পারেননি বলে অনশন মঞ্চ থেকে জানানো হয়।

কল্যাণ পার্টির দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব আল আমিন ভূইয়া রিপন  বলেন, ‘ চেয়ারম্যান অসুস্থ এবং মহাসচিবের এক স্বজন মারা যাওয়ার কারণে উনারা কর্মসূচিতে যেতে পারেননি।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান ড. অলি আহমদও কর্মসূচিতে যাননি। তবে তার দলের মহাসচিব ড. রেদওয়ান আহমেদ কর্মসূচিতে বক্তব্য দিয়েছেন। সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদৎ হোসেন সেলিমও ছিলেন।

রেদওয়ান আহমেদ তার বক্তব্যে বলেন, ‘বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট এখনও ঐক্যবদ্ধ আছে। নির্বাচনে যাওয়ার ব্যাপারে কেউ যদি কোনো বক্তব্য দিয়ে থাকেন, সেটি তার ব্যক্তিগত বক্তব্য। তার সঙ্গে এলডিপির কোনো সম্পর্ক নেই।’পিপলস লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাহবুব হোসেন বলেন, ‘বিএনপি এবং ২০ দলীয় জোটকে বাইরে রেখে আরেকটি পাতানো নির্বাচন করার জন্যই খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি রাখা হয়েছে। কিন্তু সরকারের এই উদ্দেশ্য সফল হবে না। নির্বাচনের আগেই তাকে মুক্তি দিতে হবে।’

বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আহমেদ বলেন, ‘ আমরা বিপ্লবে বিশ্বাস করি। আমরা মওলানা ভাসানীর অনুসারী। ভাসানী আমাদের শিখিয়েছে বলপ্রয়োগ করে ক্ষমতা কেড়ে নিতে হয়। খালেদা জিয়া আমাদের শিখিয়েছেন লড়াই করে দাবি আদায় করতে হয়। আমরা লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনব।’

বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থকেও কর্মসূচিতে দেখা যায়নি। তবে দলটির মহাসচিব আব্দুল মতিন সউদ কমসূচিতে অংশ নিয়ে বক্তব্যে বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। বিএনপির নেতৃত্বে আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি। ভবিষ্যতে বিএনপির যে কোনো কর্মসূচিতে সক্রিয় থাকব। ’জামায়াতের নায়েবে আমীর অধ্যাপক মজিবর রহমান খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার কথা বলেন।

 

এই সংবাদটি 1,072 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com