মঙ্গলবার, ১০ জুলা ২০১৮ ১২:০৭ ঘণ্টা

তিন বিষয়ে মুখ খুললেন সাবেক এমপি শাহীনূর পাশা চৌধুরী

Share Button

তিন বিষয়ে মুখ খুললেন সাবেক এমপি শাহীনূর পাশা চৌধুরী

সিলেট রিপোর্ট: ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্মমহাসচিব সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী র্দীঘ বৃটেন সফর শেষে দেশে ফিরে রাজনৈতিক বিষয়ে নিজ অবস্থান পরিস্কার করলেন। গতকাল ফেসবুকে তিনি একের ভিতর তিন শিরুনামে একটি পোষ্ট দিয়েছেন। রাজনৈতিক মহলে এই পোষ্টের তাৎপর্যবিবেচনায় সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো:

গত ৩ দিন আমি ফেবুতে সময় দিতে পারিনি। তাই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ ৩ টি বিষয় আপনাদের নজরে আনতে চাই। প্রথমটি সিটির একজন নাগরিক হিসেবে আমার ব্যক্তিগত মত। জমিয়তের বক্তব্য নয়।
১.
সিলেট সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটি ও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সুনজর কামনা করছি।
যেহেতু ২০ দলীয় প্রার্থী হিসেবে সাবেক জনপ্রিয় ও বর্তমানে পাশ করার ( কারচুপী না হলে )শতভাগ প্রত্যয়ী জনাব আরিফুল হক চৌধুরীর কথা বলা হচ্ছে। অথচ খোদ বিএনপির পরিচিত মুখ আরেকজন প্রার্থী নিজেকে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জানান দিয়ে বিভ্রান্তির জন্ম দিয়েছেন। অপরদিকে জোটের আরেক শরীক দলের ক্লিন ইমেজের প্রার্থী সর্বশক্তি নিয়ে এখনও মাঠ সরগরম রেখেছেন। যতদূর জানি, তাদের শক্তি জানান দেবার উদ্দেশ্যে লড়ছেন– ছাড় দেবার কোন আলামত পরিলক্ষিত হচ্ছেনা , সেহেতু আমার দু’ টি কথা।
প্রথম কথা হলো– জোটের সর্বশেষ বৈঠকে আমি যুক্তরাজ্য সফরে থাকায় অনুপস্থিত ছিলাম। তাই বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোটের হাইকমান্ডের কাছে আমার প্রশ্ন— গাজীপুর সহ নিকট অতীতের নির্বাচনগুলোতে ভোটচুরির মহোৎসব দেখার পরেও আবার নির্বাচনে আমাদের প্রার্থী ঘোষণা করা তাদের আগেকার নির্বাচনগুলোকে বৈধতা দেবার নামান্তর নয়কি?
দ্বিতীয়তঃ
যদিও জোটের মিটিং করে প্রার্থী ঘোষণা আসলো, তাহলে শরীক দলকে বুঝাতে আমরা ব্যর্থ হচ্ছি কেন? দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থে যদি আমাদের নির্বাচনী জোট হয়ে থাকে, তাহলে বুঝাপড়ার সময় কি এখন?
বিএনপিকে চুড়ান্ত সম্মান রেখে বলছি, নিজ দলের প্রার্থীকে বসাতে যদি এখনও অপারগ হন– অথচ নির্বাচনের সময় আর মাত্র ১৩ দিন বাকী, তাহলে শরীক দলকে কমপক্ষে ছাড় দিয়ে আমাদেরকে মাঠে নামতে দিন। যদিও সচেতন ভোটাররা মনে করে, শত কারচুপী হলেও উন্নয়নের রূপকার আরিফুল হক কে এবার আটকানো যাবেনা।
তাই সবিনয় অনুরুধ– কাল ক্ষেপন না করে ৪/৫ ঘন্টার মধ্যে ঢাকায় বসে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী চুড়ান্ত করুন।
এখানে ২ টি বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আসা প্রয়োজন আমি মনে করি।
১. জামায়াতে ইসলামীর দক্ষ প্রার্থী মিডিয়ায় বলেছেন– ” ইসলামী আন্দোলনে নিজ থেকে প্রার্থী হওয়া যায়না, শুরার সিদ্ধান্তের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শনে তিনি প্রার্থী– সংগত কারণেই জোটের বৃহত্তর স্বার্থে জামাতের হাই কমান্ডের প্রতি বৈঠক করে সম্মানজনক ফয়সালা আসুক।
২. নির্বাচনী মাঠে বিএনপির দায়িত্বশীল একজন নেতার একাত্তর টিভির সাক্ষাৎকারটি বেশ সমালোচিত হচ্ছে। তিনি বলেছেন— ” সিলেটে ইসলামী দলের ভোট আর কয়টি”! এই বক্তব্যটি মিটিং কল করে প্রত্যাহার করলে ফায়দা হবে বেশী।
—————————————-
২.
আওয়ার ইসলাম অনলাইনে ইসলামী আন্দোলনের বিগত ৩ টি সিটি নির্বাচনের ভোটের প্রাপ্তি নিয়ে আমার একটি সাক্ষাৎকারকে কেন্দ্র করে গত ২ দিন যাবত তোলপাড় হচ্ছে। যা আদৌ কাম্য নয়। আমি বলেছিলাম — যদি ষড়যন্ত্র বা কারচুপী মিশ্রিত ইলেকশন না হয়। তাহলে এই ভোট প্রাপ্তি একটি ইসলামী দলের জন্য প্রশংসনীয়। তবে ইশার আন্দোলনকে অনেকেই আতাতের রাজনীতি বলে থাকেন। সম্ভবত আমার বক্তব্যের প্রথম অংশটি ছাপা হয়নি। আর খন্ডাংশ দেখে ঐ দলের সমর্থক একজন সম্মানিত মুফাস্সিরে কুরআন সহ কিছু সংখ্যক হুজুগে কর্মী আমাকে ও আমার দলকে কটাক্ষ করে ফেবুতে বিভিন্ন অশোভনীয় ভাষা ব্যবহার করেছেন। তার জবাবে আমার ভক্তদের বিরাট একটি অংশ পাল্টা আঘাত করেছেন।
এবিষয়ে আমার বক্তব্য পরিস্কার। আমার বক্তব্যে কেউ কষ্ট পেয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টি কাম্য। আর আমার পক্ষে যারা কলম হাতে নিয়েছেন– আপনাদের উদ্দেশ্যে আমার অনুরুধ—
আপনাদের ” পাশা ভাইকে ” আপনারা চিনেন। আমি ক্ষমায় বিশ্বাসী। সবরের মাধ্যমে আল্লাহর কাছে বেশী বদলা প্রত্যাশী। আপনারা দয়া করে আমার পক্ষ নিয়ে কোন ভাইকে অথবা কোন দলকে আঘাত করে নিজের আখেরাতকে নষ্ট করবেন না।
—————————————-
৩.
গত ৭ জুলাই বাংলাদেশ প্রতিদিন সহ বেশ কয়েকটি অনলাইনে ” হেফাজতের ১৫ আসন চুড়ান্ত” শীর্ষক একটি ভোয়া নিউজ ভাইরাল হয়েছে।
যেখানে সমগ্র দেশে ১৫ জন প্রার্থীর মধ্যে আমার নামও উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে কোন ষড়যন্ত্রকারী হীন উদ্দেশ্যে তালিকায় ঢুকিয়ে দিয়েছে। এ বিষয়ে আমার বক্তব্য হলো—
যেহেতু এ বিষয়ে আমি অথবা আমার দল কিছুই জানেনা। সেহেতু এরকম হলুদ মিডিয়ার কারসাজিপূর্ণ মিথ্যা , বানোয়াট খবরের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এরকম নিউজের সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নেই।
পাশাপাশী বলতে চাই, হেফাজত তো সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক প্লাটফরম।
তাছাড়া হেফাজত নির্বাচন করতে গেলে মাত্র ১৫ আসন কেন? হেফাজতের শক্তি কি বিশ্ববাসী দেখেনি?
আমি সাফ বলতে চাই, হেফাজতকে কেউ নিজের স্বার্থে ব্যবহার করতে পারবেনা, যতদিন আল্লামা আহমদ শফী, আল্লামা বাবুনগরী এবং আল্লামা নূর হোসাইন ক্বাসিমী জীবিত থাকবেন। সুতরাং ভবিষ্যতেও এরকম ভিত্তিহীন ,বানোয়াট কোন নিউজে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত না হওয়ার বিনীত অনুরুধ রইলো।

এই সংবাদটি 1,067 বার পড়া হয়েছে