বুধবার, ১১ জুলা ২০১৮ ০৩:০৭ ঘণ্টা

সিলেটে আরিফের থাপ্পড়ের জবাব দিতে চায় জামায়াত?

Share Button

সিলেটে আরিফের থাপ্পড়ের জবাব দিতে চায় জামায়াত?

নোমান বিন আরমান: সিলেটে জামায়াতের প্রার্থী দেওয়াকে খুব ইঙ্গিতপূর্ণ মনে হচ্ছে। এটা সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপি জোট থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার একটু স্পষ্ট আভাস।
বিবেচ্য হলো, জোটের বাইরে গিয়ে জামায়াত আসলে কার লাভ করবে? নির্বাচনের ফল তাদের পক্ষে তো যাবে না, বিএনপির পক্ষে আসার সম্ভাবনাও এখন ক্ষীণ।
‘জিতে’ গেলে ফেসবুকের একদিনের হা-হুতাশ ছাড়া কিচ্ছু হয় না, আওয়ামী লিগ এটা ভালো করেই বুঝে। তাই খুলনা, গাজীপুরের চেয়ে ভিন্ন ফল এখানে আশা করা অর্থহীন।
তবে সিলেটে ‘জোর’ করে জেতার চেষ্টা আওয়ামী লিগকে হয়তো করতে হবে না। ‘স্বাভাবিক’ নির্বাচনেও উৎড়ে যেতে পারেন বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। ইসলামি আন্দোলনের ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন, জামায়াতের এহসানুল মাহবুব জুবায়ের এবং বিএনপির বিদ্রোহী ও বহিষ্কৃত বদরুজ্জামান সেলিম যেসব ভোট টানবেন ওইসব ভোট আরিফকে পেছাবে ও কামরানকে সহজে এগিয়ে দেবে।
একারণে সিলেটের এবারের নির্বাচনে জুবায়ের ও সেলিমকে ডামি প্রার্থী মনে হচ্ছে। তারা নৌকাকে ভাসাতে ও ধানকে ডুবানোর কাজেই লাগবেন।
সিলেটে দলের পরিচয় ছাড়াও আরিফ ও কামরানের ভালো অবস্থান রয়েছে। জনতুষ্টির জন্য কামরান প্রায় প্রবাদতুল্য। তবে টানা উনিশ বছর চেয়ারে থেকে কী উন্নয়ন তিনি করেছেন সেই প্রশ্ন রয়েছে। বিপরীতে পাঁচ বছরের মেয়াদের ২৯ মাস কারাগারে কাটিয়ে এসেও চোখে পড়ার মত (আওয়ামী লিগের ভাষায়ে লোক দেখানো) উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শুরু ও সম্পন্ন করেছেন আরিফ।
দেশের অন্য সিটিতেও বিএনপির বাইরে জামায়াত তাদের মেয়র প্রার্থী দিতে চেয়েছিলো। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনোটিতেই দেয়নি। সিলেটে কেনো এমন অনড় অবস্থানে গেলো জামায়াত। নানা সমীকরণ, কারণ-উপকরণ, বিচার-বিশ্লেষণ চলছে। কোনোটিই আসলে একক কারণ নয়। তবে, সিলেটে প্রার্থী দেওয়া আরিফকে একটা ‘জবাব’ও হতে পারে জামায়াতের। কী সেই জবাব?
এর উত্তর পেতে ফিরে যেতে হবে ২০১৭ সালের জুলাইয়ে। নগরের চৌহাট্টা-নয়াসড়ক সম্প্রসারণের কাজ চলছিলো তখন। মিরবক্সটুলায় সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল তাদের অংশে সম্প্রসারণে বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলো বলে অভিযোগ। এই হাসপাতালটি জামায়াত নিয়ন্ত্রিত। খবর পেয়ে মেয়র অরিফ হাসপাতালে ছুটে যান। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তার তর্কাকর্তি শুরু হয়। এসময় আরিফ হাসপাতালের এক পরিচালককে চড়-থাপ্পড় মারেন বলে অভিযোগ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে সিলেটে তোলপাড় শুরু হয় তখন। এ ঘটনায় মামলা করার হুমকি দিলেও পিছিয়ে যায় হাসপাতাল।
একছর পর এই জুলাইয়ে হচ্ছে সিটি নির্বাচন। জামায়াত তাদের প্রার্থীতে অনড় হয়ে কি তবে সেই চড়ের জবাব দিচ্ছে আরিফকে?

(প্রতিবেদনটি নোমান বিন আরমানের ফেসবুক থেকে সংগৃহিত)

এই সংবাদটি 4,571 বার পড়া হয়েছে