বুধবার, ১১ জুলা ২০১৮ ০৫:০৭ ঘণ্টা

সারাদেশে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৫

Share Button

সারাদেশে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৫

ডেস্ক রিপোর্ট:

দেশের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিনগত রাতে এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে কুষ্টিয়ায় দুইজন এবং নাটোর, লক্ষ্মীপুর ও ঢাকার কেরানীগঞ্জে একজন করে মোট পাঁচজনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ার মিরপুরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ফুটু ওরফে মোন্না (৩৫) ও রাসেল আহম্মেদ (৩০) নামে দুই জন নিহত হয়েছেন। তারা মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন বলে দাবি করেছে র‍্যাব। এ ঘটনায় দুই র‌্যাব সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য জব্দ করেছে।

বুধবার (১১ জুলাই) ভোর রাতে উপজেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনন্দ বাজার বালুচর সংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত ফুটু ওরফে মোন্না সদর উপজেলার রাজারহাট মোড় এলাকার মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে এবং রাসেল আহম্মেদ একই এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে।

র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মোহাইমিনুল জানান, ‘মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একদল বিক্রেতা মিরপুর উপজেলার কূর্শা ইউনিয়নের আনন্দ বাজার বালুচর সংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে অবস্থান করছিল। এমন সংবাদ পেয়ে র‌্যাব-১২, সিপিসি-১, কুষ্টিয়া ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক বিক্রেতারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে অন্যরা পালিয়ে যায়। এসময় দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তাদের উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।’

তিনি জানান, আহত র‌্যাব সদস্যদের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে দুটি পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি ও বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও ফেনসিডিল জব্দ করা হয়েছে। র‌্যাব তাদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

কেরানীগঞ্জ

ঢাকার কেরানীগঞ্জের দেওশুর এলাকায় ডিবি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নুর হোসেন (৩৬) ওরফে নুরা নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় ছয় পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলেও জানানো হয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ ডিবি পুলিশের ওসি মো. শাহজামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহত নুর হোসেন কেরানীগঞ্জের শীর্ষ তালিকাভুক্ত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে ঢাকা জেলায় ডাকাতি, খুন ও মাদকের ২১টি মামলাসহ দেশের বিভিন্ন থানায়ও একাধিক মামলা রয়েছে।

ডিবি পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নুরাকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেওয়া তথ্য মতে অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য উদ্ধারের জন্য গভীর রাতে নুর হোসেনকে সাথে নিয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার দেওশুর এলাকায় মনির হাজীর বালুর মাঠে অভিযানে যায় পুলিশ। এসময় নুর হোসেনের সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করতে থাকে। এতে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে শটগান থেকে ১০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে। সন্ত্রাসীদের সঙ্গে পুলিশের গুলি বিনিময়কালে নুর হোসেন পালানোর চেষ্টা করে ও গুলিবিদ্ধ হয়। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশের সহায়তায় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনায় ছয় পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।

নিহত নুর হোসেন নুরার বাবার নাম মো. নুর ইসলাম। তার বাড়ি কেরানীগঞ্জ মডেল থানার জিয়ানগর এলাকায়।

নাটোর

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বাহিমালী এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত হয়েছেন। তার নাম ওসমান আলী (৩২)। তিনি মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন বলে দাবি করেছে র‍্যাব। এসময় র‌্যাবের দুই সদস্যও আহত হন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ জুলাই) রাতে এই ঘটনা ঘটে। ওসমান একই উপজেলার গুরুমশৈল গ্রামের বাসিন্দা।

নাটোর র‌্যাব অফিসের কোম্পানি কমান্ডার শিবলী মোস্তফা বলেন, ‘মঙ্গলবার রাত ১১.৪০ মিনিটের দিকে নাটোর র‌্যাব অফিসের একদল সদস্য নিয়মিত টহলের অংশ হিসেবে বাহিমালী এলাকা দিয়ে যাচ্ছিল। এসময় পাশের ভাটুপাড়া রাস্তায় কিছু মানুষের উপস্থিতি ও টর্চের আলো দেখা যায়। র‌্যাব সদস্যরা সেদিকে যেতে থাকলে তারা অতর্কিতে গুলি চালায়। এসময় উভয়পক্ষে প্রায় ৫ মিনিট গুলি বিনিময়ের পর একজন গুলিবিদ্ধ হয় ও অন্যরা পালিয়ে যায়। আহত মাদক ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় আহত দুই র‌্যাব সদস্যকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।’

শিবলী মোস্তফা দাবি করেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, ৪টি গুলিভর্তি একটি ম্যাগাজিন, ১টি গুলির খোসা, ৪১০ গ্রাম হেরোইন ছাড়াও ১ হাজার ৪১০ টাকা, ১টি চার্জার ও ২টি গ্যাস লাইট, সিগারেটের প্যাকেট ২টি ও ৭ টি স্যান্ডেল পাওয়া গেছে।

এক প্রশ্নের জবাবে শিবলী মোস্তফা জানান, নিহত ওসমান জেলার অন্যতম শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় মাদক ও চাঁদাবাজীসহ মোট ৫টি মামলা রয়েছে।

লক্ষ্মীপুর

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মো. সোহেল রানা ওরফে সুরাইয়া সোহেল নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। রায়পুর-চাঁদপুর সড়কের সিংয়েরপুলে বুধবার ভোররাতে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এসময় দুই পুলিশ কর্মকর্তাও আহত হন। রায়পুর থানার ওসি আজিজুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, তিন রাউন্ড গুলি, ছয় রাউন্ড গুলির খোসা ও তিনশ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত সোহেল দেনায়েতপুর গ্রামের মৃত আবদুল মুনাফের ছেলে। তার বিরুদ্ধে রায়পুর ও চাঁদপুরের হাইমচরসহ অন্যান্য থানায় অস্ত্র, মাদক, ডাকাতি, চাঁদাবাজি, নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন অপরাধে ২২টি মামলা রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

ওসি আজিজুর রহমান বলেন, ‘মঙ্গলবার (১০ জুলাই) বিকালে লক্ষ্মীপুরের ঝুমুর সিনেমা হল এলাকা থেকে পুলিশের তালিকাভুক্ত ২২ মামলার পলাতক আসামি সোহেল রানাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার তথ্য অনুযায়ী রাত ৩টায় রায়পুর-চাঁদপুর সড়কের সিংয়ের পুল এলাকার একটি পরিত্যক্ত ঘরে ইয়াবা উদ্ধারে যায় পুলিশ। তখন সোহেলের সহযোগীরা তাকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় সোহেল পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে তার সহযোগীদের গুলিতে আহত হয়। পুলিশ গুলিবিদ্ধ সোহেলকে রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

ওসি জানান, বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় এসআই মোতাহার ও এসআই গোলাম মোস্তফা আহত হন। তাদের রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।-খবর বাংলা ট্রিবিউন

এই সংবাদটি 1,068 বার পড়া হয়েছে