Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | ত্যাগ-তিতিক্ষা ব্যতিত কেউ আল্লাহর প্রিয় বান্দা হতে পারে না: আল্লামা মুফতী জসিমুদ্দীন
শনিবার, ১৪ জুলা ২০১৮ ০৬:০৭ ঘণ্টা

ত্যাগ-তিতিক্ষা ব্যতিত কেউ আল্লাহর প্রিয় বান্দা হতে পারে না: আল্লামা মুফতী জসিমুদ্দীন

Share Button

ত্যাগ-তিতিক্ষা ব্যতিত কেউ আল্লাহর প্রিয় বান্দা হতে পারে না: আল্লামা মুফতী জসিমুদ্দীন

জুবায়ের ফরিদ,হাটহারী প্রতিনিধি: দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার বড় মসজিদে বিশেষ ইসলাহী নসীহত পেশ করেন হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহাদ্দিস, মুফাস্সির, আল্লামা মুফতী জসিমুদ্দীন হাফিজাহুল্লাহ। আল্লাহ তা’আলার বরত্ব, মহত্ত্ব, প্রশংসা ও রাসূল সাঃ এর প্রতি দুরুদ ইত্যাদি পাঠের পর হযরত তার বয়ানে বলেন, জীবনের সর্বক্ষেত্রে রাসূল সাঃ এর সূন্নতের অনূসরণ করতে হবে। নিজেকে আল্লাহর মুখলিস বান্দা হিসেবে গড়ে তুলতে রাসূলের সূন্নতের কোনো বিকল্প নেই। আপনি যখন সুন্নাহর উপর আমলের প্রচেষ্টা চালাবেন শয়তান তখন বিভিন্ন উপায়ে আপনাকে বাধা প্রদান করবে। সকল বাধা বিপত্তির অবসান ঘটিয়ে আপনাকে রাসুল সাঃ এর সূন্নাহর উপর জমে (অটল) থাকতে হবে। শিরক-বিদআত আল্লাহর কাছে পরিত্যাজ্য। তাওহীদ ও সুন্নাহ গ্রহণযোগ্য। তাওহীদের উপর অটল থাকতে হবে। আল্লাহকে পেতে সুন্নাহর মাধ্যমে রাসূলের অনূস্বরণ করতে হবে। রাসূলের সুন্নাহ হলো আল্লাহকে পাওয়ার মাধ্যম। সাহাবায়ে কেরামগণ সুন্নাতের পাবন্দ ছিলেন। সুন্নাহর অনূস্বরণের ক্ষেত্রে রাজদরবারের রীতিনীতিও তাদের কাছে ছিল তূচ্ছ। রাজদরবারের লালগালিচা আর সম্মানের অন্যসব পাত্র ছিল তাদের পদতলে। সাহাবায়ে কেরামের জীবনেতিহাসে যার প্রমাণ ভুরি ভুরি। স্বল্প-সময়ে সংক্ষিপ্তাকারে একজন সাহাবীর ঘটনা উল্লেখ করছি- রাসূল সাঃ এর একজন সাহাবী। অতিথি হিসেবে আগমন করলেন বাদশাহ রুস্তমের রাজপ্রাসাদে। অতিথির আপ্যায়নে রুস্তমের পক্ষ থেকে খাবারের আয়োজন করা হলো। অতিথির সামনে তৈরী খাবার রাখা হলো। অতিথি সাহাবী ও অন্যান্য সভাসদগণ খেতে শুরু করলেন। অতিথি সাহাবী পড়ে যাওয়া খাবার খুটে খুটে খেলেন। খাবার প্লেট চেটেপুটে খেলেন। সভাসদগণ নিন্দনীয় ভঙ্গিতে অতিথি সাহাবীকে লক্ষ্য করে বললো, হে অতিথি! আপনি খাবার খুটে ও চেটে খেয়ে বাদশাহ রুস্তমের সম্মানহানি করেছেন। সভাসদগণের প্রতুত্তরে অতিথি সাহাবী বললেন, কার সম্মানের কি হলো তা আমি দেখবো না। আমার রাসূলের সুন্নতের অনূস্বরণে আমি সবকিছু বিসর্জন দিতে প্রস্তুত। এছাড়া মুফতী সাহেব হুজুর দাঃবাঃ নামাজের প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন এবং সহিহ মানহাজের সাথে দাওয়াত ও তাবলীগের কাজ করার আহবান জানান। অধিক সময় বুযুর্গদের সূহবতে কাটানোর প্রতি জোর তাকীদ করেন। আল্লাহ হুযুরের বয়ানের উপর সবাইকে আমল করার তাওফীক দান করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 1,120 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com