মঙ্গলবার, ১৭ জুলা ২০১৮ ০২:০৭ ঘণ্টা

মুফতি আবদুল মালেকের সাদ বিরোধী ফতোয়ার পাল্টা বিবৃতি!

Share Button

মুফতি  আবদুল মালেকের সাদ বিরোধী ফতোয়ার পাল্টা বিবৃতি!

সিলেট রিপোর্ট, অনুসন্ধানী প্রতিবেদন: সরকারের অনুগত আলেম হিসেবে পরিচিত শোলাকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ সম্পাদিত মাসিক পাথেয় পত্রিকার অনলাইন সংস্করণের এক প্রতিবেদনে দেশের র্শীষ আলেম মাওলানা আব্দুল মালেক (দা:বা:) এর বিরুদ্ধে বিষোদগারের অভিযোগ উঠেছে। মাওলানা আব্দুল মালেকের মে একজন সর্বজন স্বীকৃত ইসলামী চিন্তাবিদকে ”পাকিস্তানপন্থী” আখ্যায়িত করে সামাজিক ভাবে তাকে হেয় করা হয়েছে বলে অনেকেই এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
অনুসন্ধানে জানাগেছে, ১৭ জুলাই ”দেওবন্দ ও আকাবিরে দেওবন্দের বিরুদ্ধে ফতোয়া দিলেন মাওলানা আব্দুল মালেক” এই শিরুনামের প্রতিবেদনটি সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য হুবহু এখানে তুলে ধরা হলো:

পাথেয় রিপোর্ট : ফতোয়া ইসলামের একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ঐক্য, শান্তি, মীমাংসা ও মানবজীবনের নানা সমস্যার সমাধানে কোরআন, হাদীস, সিয়ার ও আসার মন্থন করে উম্মাহর উলামায়ে কেরাম ফতোয়া প্রদান করে থাকেন। কিন্তু এই ফতোয়া যে কখনো কখনো ব্যাক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করা ও উম্মাহর মাঝে অনৈক্য, বিভেদ আর বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার গভীর ষড়যন্ত্রের উদ্দেশ্যে হয়ে থাকে তা আজ জাতি প্রত্যক্ষ করলো।
দিল্লীর মাওলানা সা’দ কান্ধলবীর ব্যাপারে এমনই এক ‘উস্কানিমূলক’ ফতোয়া ছুড়ে দিয়ে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করলেন পাকিস্তানি চিন্তাধারার বাহক ও পাকিস্তানি চিন্তাধারা বাস্তবায়নের স্বপ্নে বিভোর আলেম মাওলানা আব্দুল মালেক।
দারুলউলুম দেওবন্দ যেখানে এমন কোন কথা না বলে মীমাংসার চেষ্টা করে যাচ্ছে, সেখানে ‘দেওবন্দী চিন্তাধারার বিপরীতে গিয়ে’ ধৃষ্টতাপূর্ণ এমন আচরণে কোটি কোটি মুসলমানের মনে আঘাত দিলেন পাকিস্তানপন্থী এই আলেম। এর দ্বারা তিনি মূলত দারুল উলুম দেওবন্দ ও আকাবিরে দেওবন্দকেই প্রকারান্তরে অস্বীকার করলেন।
বৃটিশ সাম্রাজ্যবাদীদের অন্যতম প্রধান একটি কূটচাল ছিলো, উলামায়ে দেওবন্দ থেকে মুসলিম জনসাধারণকে বিচ্ছিন্ন করা। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে যার চূড়ান্ত সফলতা তারা পেয়েছিল। উলামায়ে দেওবন্দ বৃটিশ বেনিয়াদের এদেশ থেকে বিতাড়িত করলেও আজ দেখা যাচ্ছে একই এজেন্ডা নিয়ে পাকিস্তানপন্থী অনেকে দেওবন্দের উপর অনাস্থা তৈরীর অপচেষ্টা চালাচ্ছেন, এই তথাকথিত ফতোয়াটি ছিলো এমনই একটি ঘৃণিত পদক্ষেপ।
ধর্মীয় কোন বিষয় বা ফতোয়ার ক্ষেত্রে যেমন পৃথীবীর মানুষ দারুলউলুম দেওবন্দের কাছে প্রত্যাবর্তন করে ঠিক তেমনিভাবে দাওয়াত ও তাবলীগের ক্ষেত্রেও তারা দিল্লীর নিযামুদ্দীনকেই অনুসরণ করে। যে কারো কথায় মানুষ বিভ্রান্ত হবে না। দেওবন্দের নামের আড়ালে এই বাংলায় পাকিস্তানি চিন্তাধারা বাস্তবায়নের স্বপ্নে বিভোর এমন কারো উদ্দেশ্য বাংলার আওয়াম ও উলামায়েকেরাম সফল হতে দিবে না ইনশাআল্লাহ।
উল্লেখ্য, কাযিউল কুযাত ইমাম আবু ইউসুফ আলাইহির রহমাহ এর উসূল অনুযায়ী এটি কোন ফতোয়ার কাতারেই পড়ে না বরং এটি তার ব্যক্তিগত অভিমত বৈ কিছুই নয়।
আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত আমাদেরকে সত্য বুঝার ও সত্যের উপর অটল থাকার তাওফিক দান করুন। আমীন।
জনস্বার্থে-
লাজনাতুল ফতোয়া
মুফতি ফয়জুল্লাহ আমান
মুফতি মুমতাযুল হক
মুফতি আব্দুস সালাম
মুফতি মাহমুদ
মুফতি তাওফিক আবীর
মুফতি ইকরামুল হক
মুফতি হুসাইন আহমাদ
মুফতি নাইমুল ইসলাম
মুফতি শেখ মুহাম্মাদ
মুফতি কাউসার
মুফতি আশিক মুহাম্মদ
মুফতি আফফান
মুফতি নিযামুল ইসলাম
মুফতি নূরুদ্দীন জামালি
এছাড়াও অসংখ্য আলেম ও মুফতী এ বিষয়ে একাত্মতা পোষণ করে তাদের অভিমত ব্যক্ত করেছেন।
(http://www.patheo24.com/islam/article/17/07/2018/দেওবন্দ-ও-আকাবীরে-দেওবন্/)

 

এর আগে  ”মাওলানা সাদ_সাহেবের অনুসরণ_করা_জায়েয_নয় ‘বলে ফতোয়া দেন মুফতি -মাওলানা আবদুল মালেক।

বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় গবেষক আলেমে দ্বীন, আরব-আজমের সুপরিচিত হাদীস শাস্ত্র গবেষক মাওলানা আবদুল মালেক সাহেব সম্প্রতি আরব ভাইদের উদ্দেশে একটি সংক্ষিপ্ত ওয়াদাহাতি বয়ান দিয়েছেন। সে বয়ানে তিনি বলেছেন, “সাদ সাহেব তার বয়ান ও আলোচনার মাঝে এমন নিত্যনতুন উদ্ভট বিষয় নিয়ে আসছেন, যা আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআর মানহাজ, জমহুর উলামা, মুফাসসিরিন, ফুকাহা ও মুহাদ্দিসিনের মানহাজের পরিপন্থী। যার পরিপ্রেক্ষিতে শরিয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা তার অনুসরণ-আনুগত্য জায়েয মনে করি না। তার বিকৃতি ও বিভ্রান্তির তালিকা এতোটাই দীর্ঘ যে, এখন সেগুলো বলে শেষ করা যাবে না।”
হযরতের বয়ানের লিংক কমেন্টের ঘরে পাবেন।
সবার সুবিধার্থে হযরতের বয়ানের আরবি ও বাংলা অনুবাদ এখানে উপস্থাপন করছি।
السلام عليكم ورحمة الله وبركاته
أنا العبد الضعيف محمد عبد المالك، أمين شؤون التعليم بمركز الدعوة الإسلامية داكا، ورئيس التخصص في علوم الحديث الشريف.
أنا اقدّم إلى حضراتِكم كلمة ابتغاء مرضاة الله سبحانه وتعالى. تلك الكلمة تتعلق بأمر الدعوة والتبليغ، كما تعرفون الأحوال في العالم كله، فكلمة موجزة إلى حضراتكم أن أهل العلم في شبه القارة الهندية أعرف بأحوال ما حدث في “نظام الدين” وأقوال الشيخ سعد الكاندهلوي، فجمهور العلماء والفضلاء والفقهاء في الدين الناصحون للأمة متفقون في هذا الأمر أن الشيخ سعد خرج عن المنهاج والمسلك الذي سلك عليه أكابر التبليغ كالشيخ إلياس رحمه الله تعالى والشيخ يوسف رحمه الله تعالى والشيخ إنعام الحسن رحمه الله تعالى، فهو في خطاباته وبياناته يأتي بأمور محدثة خارجة عن منهج أهل السنة والجماعة وعن مسلك جمهور العلماء من المفسرين والفقهاء والمحدثين. فبناءً على هذا نحن من الناحية الشرعية لا نرى جائزا ان يُّقلّد و يُّتبع، و في ذكر انحرافاته طول لا يسعه الآن، إنما هو نقدم في اللقاء بعدا، إنما فصّلت الأمور في مكاتيب الأكابر كالشيخ إبراهيم والشيخ أحمد لات والشيخ يعقوب، وغيرهم، لعلها تُرجمت إليكم إن شاء الله تعالى.
فالكلمة الأخيرة هي أن نكون مع الأكابر الذين هم على منهاج الشيوخ الثلاثة، الذي هو منهج أهل السنة والجماعة، ومنهج السيرة الطيبة ومنهج الصحابة، ولا نتبع من شذّ، فإن الوعيد الشديد على من شذّ، هذه هي الكلمة الأخيرة.
فنرجو دعواتكم وندعو لكم إن شاء الله تعالى، وآخر دعوانا أن الحمد لله رب العالمين، والصلوة والسلام على سيد المرسلين وعلى آله وأصحابه أجمعين، السَّلام عليكم ورحمة الله وبركاته.
“আস সালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।
আমি অধম বান্দা মুহাম্মদ আবদুল মালিক। শিক্ষাসচিব ও বিভাগীয় প্রধান. তাখাসসুস ফি উলূমিল হাদিস, মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া, ঢাকা।
আমি একমাত্র আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার সন্তুষ্টি চেয়ে আপনাদের সমীপে কিছু কথা নিবেদন করব। কথাগুলো দাওয়াত ও তাবলীগ সম্পর্কে। পুরো পৃথিবীর হালত সম্পর্কে আপনারা অবহিত আছেন। আপনাদের সমীপে সংক্ষিপ্ত কথা হলো, নিযামুদ্দিন মারকাযে সম্প্রতি যেসব কাণ্ড ঘটেছে এবং শায়খ সাদ কান্ধলভি যেসব কথা বলছেন, সেগুলো সম্পর্কে ভারতীয় উপমহাদেশের উলামায়ে কেরাম সম্যক অবগত।
জমহুর উলামায়ে কেরাম, দ্বীনের ফুকাহায়ে কেরাম ও গুণীজন- যারা উম্মতের কল্যাণকামী- তারা সবাই এ কথার ওপর একমত যে, শায়খ সাদ সেই মানহাজ ও মাসলাক থেকে বের হয়ে গেছেন, যেই মাসলাকের ওপর তাবলীগের মুরুব্বিগণ, যথা শায়খ ইলয়াস রহ. শায়খ ইউসুফ রহ. ও শায়খ ইনআমুল হাসান রহ. আজীবন চলেছেন। সাদ সাহেব তার বয়ান ও আলোচনার মাঝে প্রতিনিয়ত এমন নিত্যনতুন উদ্ভট বিষয় নিয়ে আসছেন, যা আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআর মানহাজ, জমহুর উলামা, মুফাসসিরিন, ফুকাহা ও মুহাদ্দিসিনের মানহাজের পরিপন্থী। যার পরিপ্রেক্ষিতে শরিয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা তার অনুসরণ-আনুগত্য জায়েয মনে করি না। তার বিকৃতি ও বিভ্রান্তির তালিকা এতোটাই দীর্ঘ যে, এখন সেগুলো বলে শেষ করা যাবে না। পরবর্তী সাক্ষাতে আমি তা আপনাদের সামনে উপস্থাপন করব। শায়খ ইবরাহিম, শায়খ আহমদ লাট ও শায়খ ইবরাহিমসহ প্রমুখ আকাবিরগণ তাদের চিঠিপত্রে সেই বিষয়গুলো সবিস্তারে আলোচনা করেছেন। আল্লাহ চাহেন তো সম্ভবত সেগুলোর অনুবাদ আপনাদের কাছে পৌঁছে যাবে।
আমার সর্বশেষ কথা হলো, আমরা আমাদের সেসব আকাবির ও মুরুব্বিদের সঙ্গে থাকব, যারা পূর্বের তিন হযরতজির মানহাজের ওপর থাকবেন। এই মানহাজই হলো আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাআর মানহাজ। এটাই সীরাতুর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মানহাজ। এটাই সাহাবায়ে কেরামের মানহাজ। আমরা এমন ব্যক্তির অনুসরণ করব না, যিনি জমহুর উম্মত থেকে বিচ্ছিন্ন। কেননা যারা বিচ্ছিন্ন হবে, তাদের ব্যাপারে সাংঘাতিক শাস্তির ঘোষণা রয়েছে। এটাই আমার সর্বশেষ কথা।
আশা করি, আপনারা আমাদের জন্যে দুআ করবেন। ইনশাআল্লাহ, আমরাও আপনাদের জন্যে দুআ করব।
আমার সর্বশেষ আহবান হলো, সকল প্রশংসা সকল জাহানের রব আল্লাহর জন্যে। দরুদ ও সালাম বর্ষিত হোক নবীকুলসর্দার মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও তাঁর পরিবার ও তাঁর সকল সঙ্গীদের ওপর। আস সালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু”
সুত্রঃ–
#মুফতি_সামছুদ্দুহা_প্রিন্সিপাল ও প্রাধান মুফতি
রওজাতুল উলুম ঢাকা।

…..

বরেন্য আলেম মুফতি আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ শব্দ প্রয়োগ করায় অনেকেই ফেসবুকে ক্ষোভ, বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। এখানে কয়েকটি স্ট্যাটাস দেয়া হলো:

Sharif Muhammad লিখেছেন,
”বাংলাদেশের দ্বীন ও ইলম চর্চার এক বরেণ্য মানুষ মাওলানা মুহাম্মাদ আবদুল মালেক ছাহেব। তাকে নিয়ে একটি মুখচেনা অঙ্গন যে ধৃষ্টতাপূর্ণ শব্দমালা উচ্চারণ করেছে, এর উৎস কোথায়?

এতবড় দুঃসাহস এরা পেল কোন কেন্দ্র থেকে, জানতে মন চায়!

‘পাকিস্তানি চিন্তাধারার বাহক ও পাকিস্তানি চিন্তাধারা বাস্তবায়নের স্বপ্নে বিভোর’ ওরা কাকে বললো? কে এই ইঁচড়েপাকা বেয়াদবদের লুঙ্গি খুলে রাস্তায় নামিয়ে দিয়েছে?
শাহবাগে গিয়ে উদোম হওয়া এই নষ্ট চক্রের হাতে দেশ ও জাতির সম্ভ্রম ধ্বংসের
খেলা কতদিন চলবে?

মাওলানা মুহাম্মাদ আবদুল মালেক ছাহেব সম্পর্কে ওরা বলেছে, ‘দেওবন্দী চিন্তাধারার বিপরীতে
গিয়ে ধৃষ্টতাপূর্ণ এমন আচরণে কোটি কোটি মুসলমানের মনে আঘাত দিলেন পাকিস্তানপন্থী এই আলেম।’

বন্ধুরা, এদের মুখ চিনুন। এদের পিঠ চিনুন। সামনের ও পেছনের এদের গোঁড়া চিনুন।
এরা যদি আমাদের অঙ্গনের হয়, আমাদের অঙ্গনটা তাহলে কী?

(না, কোনো লিঙ্ক হবে না, লিঙ্কের শেয়ার হবে না। শাহবাগের patheo -র কোনো
মার্কেটিংকরবেন না।)

 

ইকবাল হাসান জাহিদ লিখেছেন,

ঢাকায় একটা গ্রুপ তৈরি হোক, যারা জনাব ফরিদ মাসউদ সাহেবকে তাঁর প্রতিষ্ঠানের বেয়াদবদের সম্পর্কে তাঁকে সতর্ক করে দেবেন। আশা করি তিনি বিষয়টা আমলে নেবেন। করণ সবকিছুর পরে তিনি একজন বরেণ্য আলেম। যারা এই ধৃষ্টতা যারা দেখিয়েছে তাদেরকে মুফতি আব্দুল মালিক সাহেবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করাবেন।
এই উদ্যোগ ঢাকায় অবস্থানরত কিছু তরুণ আলেম নিতে পারেন। কারণ এই যে দুঃসময় আমাদের দিকে অজগর সাপের মতো ধেয়ে আসছে আগামীতে আমাদের ঘরে থেকে খেয়ে পরে যেসকল তালেবে ইলমরা জ্ঞান অর্জন করবে সেই তারা ঘরে বসে বসেই ওলামায়ে কেরামের ভুলভাল ব্যাখা তুলে ধরে জাতিকে বিভ্রান্ত করতে শুরু করবে।
আমাদের কিছু সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা হাতে নিয়ে কাজ করতে হবে। যেখানেই কওমী মাদরাসায় তালেবে ইলমরা বেয়াদবীপূর্ণ আচরণ করবে সেখানেই খুব শক্ত হাতে এদের বেয়াদবীকে দমন করতে হবে। ঢাকায় অসংখ্য ওলামায়ে কেরাম ও তরুণ আলেমসমাজ আছেন।
আজ একজন মুহাক্কিক আলেমকে নিয়ে কুরুচীপূর্ণ রিপোর্ট প্রসব করেছে। আপনি হয়তো দূর থেকে বিষয়টাকে নিজের থেকে সরিয়ে দিয়ে চোখ বন্ধ করে হজম করার চেষ্টা করছেন। আগামীকাল আপনার ঘর থেকে জন্ম নেবে ঠিক এরচেয়েও জঘণ্য মানসিকতার তালবে ইলম। ঘটনা হচ্ছে সময় খুবই খারাপ। তাই পথভ্রষ্ট হওয়ার আগে এদের লাগাম টেনে ধরাই উত্তম।  কেউকি এই উদ্যোগটা নেবেন?

 

Ruhul Amin Nagory

মাওলানা আব্দুল মালেক বাংলাদেশের একজন অন্যতম শ্রেষ্ঠ চিন্তুক আলেম, ফকিহ। হক্কানী উলামায়ে কেরামের ভাষ্যকার। তিনি সম্প্রতি যে ফতোয়া দিয়েছেন-তা ঐতিহাসিক,যুগান্তকারী। তার ফতোয়ায় বিশ্বের ৯৫ ভাগ মুসলমানের হৃদয়ের আকুতিই প্রতিফলিত হয়েছে। অতএব, যে বা যারাই বরেন্য এই আলেমের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন তারা ফেতনা সৃষ্টিকারী।
আল্লাপাক আমাদের সকলকে ”র” এর এজেন্ট,বাদশা আকবরের দীনে এলাহীর মতো সকল বদ্বীনী থেকে হেফাজতে রাখুন।

 

একটি প্রশ্ন…
প্রশ্ন : মাওলানা আবদুল মালেক সাহেব কি আসলেই দারুল উলূম দেওবন্দ ও আকাবিরে দেওবন্দের বিপরীতে অবস্থান গ্রহণ করেছেন?

উত্তর : দারুল উলূম দেওবন্দ গত ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হি. সর্বপ্রথম প্রকাশ্যে নিযামুদ্দিন মারকাযের মাওলানা সাদ কান্ধলভির বিরুদ্ধে ৪ পাতার একটি ‘জরুরি ফতোয়া’ জারি করে। ফতোয়াটির লিংক আমি কমেন্টে দিচ্ছি।
সেই ওয়াদাহাতনামার সর্বশেষ পৃষ্ঠাটি আমরা আরেকবার পড়ে নিই। সেখানে লেখা আছে,

এ কারণে আমরা উপরের কথাগুলোর আলোকে মুসলিম উম্মাহ বিশেষত সাধারণ তাবলীগি ভাইদেরকে এ ব্যাপারে সতর্ক করা নিজেদের দ্বীনি দায়িত্ব মনে করছি যে, মৌলভি মুহাম্মদ সাদ সাহেব তার জ্ঞানস্বল্পতার কারণে নিজ মতাদর্শ ও চিন্তাধারার মাঝে, কুরআন-হাদিসের ব্যাখ্যাকালে আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাআর পথ থেকে ক্রমশ সরে যাচ্ছেন। যা নিঃসন্দেহে গুমরাহির পথ। কাজেই তার ওই কথাগুলোর ওপর নীরবতা অবলম্বন করা যেতে পারে না। কারণ, যদিও এটি বর্তমানে ব্যক্তিবিশেষের দৃষ্টিভঙ্গি মাত্র; কিন্তু বিষয়গুলো এখন জনসাধারণের মাঝে খুব দ্রূত ছড়িয়ে পড়ছে।
আমরা তাবলীগ জামাতের প্রভাবশালী, ভারসাম্যপূর্ণ মানসিকতার অধিকারী, বিচক্ষণ দায়িত্বশীলদেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যে, আকাবির রহ. কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত এই জামাতকে উম্মাহর মূল পথের ওপর ও পূর্ববর্তী আকাবির যিম্মাদারদের মতাদর্শ ও দৃষ্টিভঙ্গির ওপর প্রতিষ্ঠিত রাখার চেষ্টা করুন। মৌলভি মুহাম্মদ সাদ সাহেবের যেই বিভ্রান্তিকর দৃষ্টিভঙ্গি ও চিন্তাধারা ইতোমধ্যে জনসাধারণের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে, সেগুলোর সংশোধন করার পূর্ণ প্রয়াস চালিয়ে যান। যদি এগুলোর ওপর তাৎক্ষণিক বিধি-নিষেধ আরোপ না করা হয় তাহলে অদূর ভবিষ্যতে তাবলীগ জামাত সংশ্লিষ্ট উম্মাহর একটি বড় অংশ গুমরাহির শিকার হয়ে ভ্রান্ত ফেরকার আকৃতি ধারণ করার আশঙ্কা রয়েছে।
আমরা সবাই দুআ করছি যে, আল্লাহ তাআলা এই মুবারক জামাতকে রক্ষা করুন। আকাবির মনীষাদের পদ্ধতি মেনে ইখলাসের সঙ্গে তাবলীগ জামাতকে জীবন্ত-কর্মচঞ্চল রেখে মেহনতের ব্যাপক প্রচার-প্রসার করুন। আমিন। সুম্মা আমিন।

দারুল উলূম দেওবন্দ এই ঘোষণার পর নির্দিষ্ট বিরতিতে আরো দুবার জরুরি ঘোষণা দিয়ে পূর্বের এই ফতোয়ার ওপর অবস্থান অবিচল থাকার কথা পুনর্ব্যক্ত করেছে।

এই ফতোয়ায় দারুল উলূম দেওবন্দ পরিষ্কার জানিয়েছে,
১. মাওলানা সাদ সাহেবে আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাআর মূল পথ থেকে সরে গুমরাহির পথ ধরেছেন।
২. তার গুমরাহির ব্যাপারে নীরব থাকা যাবে না। নীরব থাকলে উম্মাহর একটি অংশ সাদ সাহেবের অনুগত হয়ে ভ্রান্ত ফেরকায় পরিণত হওয়ার আশংকা রয়েছে।
৩. সবার দায়িত্ব হলো, তার গুমরাহ বয়ানের পথ বন্ধ করে তার ওপর তাৎক্ষণিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা।
৪. সাদ সাহেবের যেই গুমরাহ কথাগুলো জনসাধারণের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে, সেগুলোর সংশোধন করার পূর্ণ চেষ্টা করা।
৫. আকাবির হযরতজি রহ. এর পদ্ধতিতে তাবলীগের মেহনত করা।

গত পরশু ভাইরাল হওয়া মাওলানা আবদুল মালেক সাহেবের অডিও ক্লিপে দারুর উলূম দেওবন্দের ফতোয়ার অবিকল প্রতিচ্ছবিই ফুটে ওঠেছে। সেখানে তিনি তার নিজস্ব অভিমত জানিয়ে বলেছেন যে, “আমরা সাদ সাহেবের আনুগত্য করা জায়েয মনে করি না। কারণ, তিনি দ্বীনের ক্ষেত্রে যেভাবে আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাআর বিপরীত নিত্যনতুন বয়ান বলে থাকেন। তদ্রূপ দাওয়াত ও তাবলীগের ক্ষেত্রে তিনি পূর্বের তিন হযরতজি রহ. এর মাসলাক ও মানহাজ থেকেও বিচ্যুত হয়েছেন।”

আমরা দেখতে পাই, মাওলানা আবদুল মালেক সাহেবের নিজস্ব মৌখিক অভিমতের মাঝে দারুল উলূম দেওবন্দের জরুরি ওয়াদাহাতনামার প্রতিচ্ছবিই ফুটে ওঠেছে। তিনি দারুল উলূম দেওবন্দ ও আকাবিরে দেওবন্দের বিপরীতে একটি কথাও বলেননি।

দুঃখজনক বিষয় হলো, গতকাল বাংলাদেশের জনবিচ্ছিন্ন একটি মহল মাওলানা আবদুল মালেক সাহেবের বিরুদ্ধে দেওবন্দিয়্যাতের বিরুদ্ধাচরণের অভিযোগ তুলে বিবৃতি দিয়েছে।
তাদের এই বিবৃতি সম্পর্কে আমি শুধু এতটুকুই বলব, এই মহলটির দুটি বৈশিষ্ট্য আমি বিগত দেড় যুগ ধরে দেখে আসছি-
১.
তারা প্রতিটি ইস্যুতে বাংলাদেশের সিংহভাগ উলামায়ে কেরামের বিপরীত অবস্থান নেবে। এ কসম খেয়েই তারা জন্মলগ্ন থেকে কাজ করে যাচ্ছে।
২.
প্রতিটি ইস্যুতে তারা এমন অবস্থান গ্রহণ করবে, যেই অবস্থানের কারণে এদেশের ইসলামবিরোধী শক্তি খুশি হবে।
গতকালকের বিবৃতি সেই দেড় যুগের ধারাবাহিকতা মাত্র।
এই গোষ্ঠী কখনই দারুল উলূম দেওবন্দের চেতনা ও আদর্শের বাহক নয়। তারা যে আলেমবিদ্বেষী ও ইসলামবিরোধী শক্তিরই তল্পিবাহক, এ কথা বাংলাদেশের কারো অজানা নয়।
তারই ধারাবাহিকতায় সেই মহল এখন নতুন ভ্রান্ত ফেরকার তল্পিবহনের কাজ শুরু করতে চলেছে, গতকালকের বিবৃতি জাতিকে সেই বার্তাই দিচ্ছে। হাদানাল্লাহ

এই সংবাদটি 3,408 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com