বৃহস্পতিবার, ০২ আগ ২০১৮ ০৫:০৮ ঘণ্টা

শোকাবহ আগস্টের মাসব্যাপী কর্মসূচি

Share Button

শোকাবহ আগস্টের মাসব্যাপী কর্মসূচি

ডেস্ক রিপোর্ট: শোকাবহ আগস্টে মাসব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। ১৯৭৫ সালের এ মাসেই বাঙালি হারিয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। পঁচাত্তরের পনেরই আগস্ট কালরাতে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেল এবং পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল। পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে যুবনেতা ও সাংবাদিক শেখ ফজলুল হক মণি, তার সহধর্মিণী আরজু মণি ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়স্বজন। প্রতিবারের মতো এবারো ১৫ই আগস্টকে সামনে রেখে আগস্টের প্রথম দিন থেকেই শুরু হয়েছে আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর মাসব্যাপী কর্মসূচি। এ উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনও বিস্তারিত কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।
শোকের মাসের প্রথম দিন মধ্যরাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথম প্রহরে আলোর মিছিলের মধ্য দিয়ে মাসব্যাপী কর্মসূচির সূচনা হয়। মিছিলটি ধানমন্ডি ৩২ নং সড়ক ধরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে গিয়ে শেষ হয়। স্বেচ্ছাসেবক লীগ এ আলোর মিছিলের আয়োজন করে। সকালে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। বঙ্গবন্ধু সমাজকল্যাণ পরিষদ আলোচনা সভার আয়োজন করে। বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘আমরা সূর্যমুখী’ শোকের মাসের প্রথম দিন বিকাল পাঁচটায় জাতীয় জাদুঘর সিনেপ্লেক্স মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন; গণমানুষের উন্নয়ন’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও আবৃত্তিতানুষ্ঠানের আয়োজন করে। স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকীতে শোকাবহ আগস্ট স্মরণে গতকাল সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে এক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। উপাচার্য জাতির জনকের জীবন, কর্ম ও আদর্শ থেকে শিক্ষা নিয়ে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার জন্য তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানান।
১৫ই আগস্ট বাঙালি জাতির সবচেয়ে কলঙ্কজনক দিন: মতিয়া চৌধুরী
এদিকে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী গতকাল সকালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন ও প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলার ওপর মাসব্যাপী এক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন। এসময় তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দীর্ঘ চব্বিশ বছর কঠোর সংগ্রাম ও আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ’৭১-এ দেশকে স্বাধীন করেছিলেন দেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য। তার এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার। তিনি যুবলীগ কর্মীদের বঙ্গবন্ধুর জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল ও উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ছাত্র জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির স্বাধীনতার জন্য আন্দোলনের মাধ্যমে মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি তাকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করে দেশকে আবারো পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল। কিন্তু খুনিরা তা করতে পারেনি। রাষ্ট্রনায়ক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় পদক্ষেপের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারকাজ সম্পন্ন হয়েছে। যুবলীগের উদ্যোগে আয়োজিত শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান মো. ওমর ফারুক চৌধুরী। মতিয়া চৌধুরী ফিতা কেটে জাতীয় চিত্রশালা ভবনের গ্যালারিতে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। প্রদর্শনীতে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম বিষয়ে প্রায় দেড়শ’ আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে। কৃষিমন্ত্রী বলেন, পনের আগস্ট বাঙালি জাতির জীবনে সবচেয়ে কলঙ্কজনক দিন। ওই কালরাত্রিতে বঙ্গবন্ধুর বাড়িসহ তিনটি বাড়িতে খুনিরা হামলা করে। যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, যুবলীগ এ দেশের প্রাচীন যুব সংগঠন। যুবকদের জীবনের বড় শক্তি হচ্ছে ত্যাগ, তিতিক্ষা ও সত্যবাদিতা। যুবলীগের সকল নেতাকর্মীকে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে সংগঠনকে এগিয়ে নিতে হবে। আমরা সারা দেশের লাখ লাখ যুবকের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করছি। প্রদর্শনীতে বঙ্গবন্ধুর কর্মজীবনের ১৯৪৮ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বিভিন্ন আন্দোলন, সংগ্রাম, পারিবারিক, বিদেশ সফর, দেশ পরিচালনার সময়, দেশ-বিদেশের বিভিন্ন নেতাদের সঙ্গে বৈঠক, মুক্তিযুদ্ধ, দলীয় বিভিন্ন নেতাসহ গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা প্রবাহের ওপর দেড়শ’ আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে। যে সব আলোকচিত্র শিল্পীর ছবি এতে স্থান পেয়েছে তারা হচ্ছেন- গোলাম মওলা, কামরুল হুদা, রশীদ তালুকদার, মোহাম্মদ আলম, লুৎফর রহমান, রাজন দেবনাথ, পাভেল রহনাম প্রমুখ। প্রদর্শনী আগামী ৩০শে আগস্ট পর্যন্ত চলবে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত সবার জন্য এই প্রদর্শনী উন্মুক্ত থাকবে।

এই সংবাদটি 1,020 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com