সোমবার, ০৬ আগ ২০১৮ ০৪:০৮ ঘণ্টা

ইমরানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া ঠেকাতে চায় বিরোধীরা

Share Button

ইমরানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া ঠেকাতে চায় বিরোধীরা

ডেস্ক রিপোর্ট: পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে ভোট কারচুপির অভিযোগ তোলা দলগুলোর জোট অল পার্টিস কনফারেন্স (এপিসি) বলছে, তারা পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী পদে নিজেদের প্রার্থী দেবে এবং সবাই মিলে তাকে সমর্থন দেবে, যাতে সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান দেশটির প্রধানমন্ত্রী না হতে পারেন।

দেশটির প্রধান দুটি দল পিএমএল-এন ও পিপিপির অভিযোগ হচ্ছে, গত ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে ইমরানের দল পিটিআইকে সহযোগিতা করেছে শক্তিশালী পাক সেনাবাহিনী।

কারাবন্দী সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ এবং প্রয়াত সাবেক প্রেসিডেন্ট বেনজির ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টিসহ আরো বেশ কয়েকটি ছোট ছোট দলের সমন্বয়ে গঠিত ওই জোট বৃহস্পতিবার এমন ঘোষণা দিয়েছে।

তবে, বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, ইমরানের জোটকে চ্যালেঞ্জ করার মতো শক্তি (সমর্থন) বিরোধীরা অর্জন করতে পারবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।
নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন পেয়ে সরকার গঠন করতে যাচ্ছে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)। আগামী ১৩ আগস্ট খানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার কথা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, নির্বাচনে পিটিআই ১১৬ আসন পেয়েছে। আর সরকার গঠন করতে হলে ১৩৭ আসন দরকার। বাকি আসনগুলো পিটিআই সতন্ত্র ও অন্যান্য ছোট দলগুলো থেকে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। সরকার গঠনে প্রয়োজনীয় সমর্থন পাওয়া গেছে বলেও জানিয়েছে পিটিআই।

কিন্তু প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দল দুটি বেশ কিছু ছোট দল নিয়ে পার্লামেন্টে ইমরানের বিপক্ষে ভোট দেওয়ার কথা জানায় বৃহস্পতিবার। প্রধানমন্ত্রী পদে তারা নিজস্ব প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছে এপিসি। নির্বাচনে পিএমএল-এন ৬৪টি এবং পিপিপি ৪৩টি আসন পেয়েছে। এ ছাড়া এপিসির অন্তর্ভুক্ত অন্যতম দল মুত্তাহিদা মজলিস-ই-আমল ১৩টি আসন পেয়েছে।
গতকাল সংবাদ সম্মেলনে ওই ঘোষণায় পিএমএল-এন দলীয় নেত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব বলেন, ‘এটি এমন একটি জোট যা কারচুপির নির্বাচনের বিরুদ্ধে এবং এখানকার প্রত্যেকটি দল নির্বাচনে লেভেল প্লেইং পায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে।’

তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, খানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া ঠেকানোর মতো সমর্থন আদায় করতে পারবে না বিরোধী পক্ষ। অবশ্য এই জোটের ফলে পিটিআই নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের ক্ষমতা অনেক কমে যাবে। পার্লামেন্টে কোনো বিল পাস করা তাদের জন্য অত্যন্ত কঠিন হবে।
এদিকে, পাকিস্তানি গণমাধ্যম ডন ও জিও নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার ছিল এপিসির দ্বিতীয় বৈঠক। কিন্তু গতকালও তারা বড় ধরনের কোনো সিদ্ধান্তের ব্যাপারে একমত হতে পারেনি।

এর আগে গত ২৭ জুলাই মুত্তাহিদা মজলিস-ই-আমল দলের আহ্বানে প্রথম অল পার্টি কনফারেন্সের আহ্বান করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিল না পিপিপির কোনো প্রতিনিধি।
অন্যদিকে, ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পিএমএল-এন দলীয় নেতা নওয়াজ শরিফ আদিয়ালা জেল থেকে পাঠানো এক বার্তায় দলের নেতাকর্মীদের প্রতিবাদ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন। ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে সেনাবাহিনী হস্তক্ষেপ করেছে বলে তারও অভিযোগ।

এই সংবাদটি 1,019 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com