সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ০৮:০৮ ঘণ্টা

নগরবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত রায়, নতুন মেয়রকে অভিনন্দন

Share Button

নগরবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত রায়, নতুন মেয়রকে অভিনন্দন

বাংলার আধ্যাত্মতিক রাজধানী খ্যাত সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নতুন মেয়রকে অভিনন্দন। নগরবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত রায়ে আবারও নির্বাচিত হয়েছেন আরিফুল হক চৌধুরী। তাদেরই সুখ দুঃখ, হাসি কান্না আর অভাব অভিযোগের অংশীদার হলেন, নবনির্বাচিত মেয়র আগামী পাঁচ বছরের জন্য। শতবর্ষের ঐতিহ্যে লালিত সিলেট পৌরসভা সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হওয়ার পর এবার অনুষ্ঠিত হলো চতুর্থ নির্বাচন। হযরত শাহজালাল (রহ.) ও শাহপরাণ (রহ.) এর পুণ্য স্মৃতিধন্য সিলেট নগরীর বাসিন্দারা একটি আদর্শনগরী গড়ে তোলার দৃপ্ত বাসনা বুকে নিয়ে বেছে নিয়েছেন নতুন মেয়রকে। প্রতিবারই তারা একই প্রত্যাশা নিয়ে নির্বাচনে ভোট দেন এবং নির্বাচিত মেয়রের হাতে তুলে দেন তাদের ভাগ্যোন্নয়নের চাবি। তাদের সেই ভাগ্যের উন্নয়ন কতোটুকু হয়েছে, কিংবা আদৌ হয়েছে কি-না সেটা বলবেন নগরবাসী। তবে আমাদের প্রত্যাশা হচ্ছে নগরীর উন্নয়ন প্রক্রিয়ার চলমান ধারা আরও দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাবে।
অপরূপ সৌন্দর্য্যে ঘেরা দু’টি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ এই সিলেট। স্বাধীনতা পরবর্তীকালে এটি ছিলো মাত্র পাঁচ ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত একটি পৌরসভা। তখন ছিলো এটি জেলা শহর। বর্তমানে সিলেট বিভাগীয় শহর এবং এটি পৌরসভা থেকে সিটি কর্পোরেশনে উন্নীত হয়েছে ২০০২ সালে। দিনে দিনে বাড়ছে এর জনসংখ্যা; বেড়েছে আয়তনও। ভবন-অট্টালিকাও বাড়ছে। মহানগরীকে প্রকৃত অর্থে ছিমছাম পরিচ্ছন্ন, সুন্দর করে গড়ে তোলার গুরু দায়িত্ব যতোটুকু নগরবাসীর, তার চেয়ে বেশি নগরবাসীর ভোটে নির্বাচিত গণপ্রতিনিধিদের। এই প্রেক্ষাপটে নবনির্বাচিত মেয়র এবং কাউন্সিলরবৃন্দের কাছে জনপ্রত্যাশা কী, সেটা বলাই বাহুল্য। আমাদের জাতীয় রাজনীতিতে একটি অতি পরিচিত দৃশ্য হচ্ছে, নির্বাচনের আগে দেয়া। প্রতিশ্রুতি নির্বাচন শেষে ভুলে যাওয়া। সিলেট সিটি কর্পোরেশনেও যে অতীতে প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতির বরখেলাপ ঘটেনি, এমন নয়। তবে আমরা চাই এই প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের সংস্কৃতির অবসান হোক।
সুরমা নদীর দু’কূল জুড়ে গড়ে ওঠা অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর শ্রীভূমি সিলেট মহানগরীতে হাজারো সমস্যা বিরাজ করছে। সবারই প্রত্যাশা সুন্দর, পরিচ্ছন্ন পরিবেশ, শান্তিপূর্ণ নির্বিঘœ জীবনযাপন। তারা চায় সুপরিসর মসৃণ যোগাযোগ ব্যবস্থা আর যানজট, সন্ত্রাস, জলাবদ্ধতামুক্ত নগরী। তারা চায় সুষ্ঠু পানীয়জলের ব্যবস্থা। চায় সর্বত্র দুর্নীতির মূলোৎপাটন। এক কথায় একটি আদর্শ নগরীর স্বপ্ন লালন করে চলেছে নগরবাসী দীর্ঘদিন ধরে। সিটি কর্পোরেশনের জনপ্রতিনিধিদের ওপর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেয়া হলো আবারও। আর এই গুরু দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনে সফল হবেন তারা, এটাই সর্বান্তকরণে প্রত্যাশা করছি নগরবাসীর সঙ্গে সঙ্গে আমরাও। নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরগণ যেহেতু নগরবাসীর ভোটেই নির্বাচিত হয়েছেন; তাই নগরবাসীর আশা আকাক্সক্ষা বাস্তবায়নের কাজেই অতিবাহিত করা উচিত তাদের আগামী পাঁচ বছর।

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com