সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ১০:০৮ ঘণ্টা

কওমী ফোরামের সেমিনার অনুষ্ঠিত

Share Button

কওমী ফোরামের সেমিনার অনুষ্ঠিত

সিলেট রিপোর্ট:
ইসলাম ও দেশ বিরোধি সকল ষড়যন্ত্রের মোকাবেলায় কওমী মাদরাসা অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করছে উল্লেখ করে কওমী ফোরাম এর নেতৃবৃন্দ বলেছেন, নৈতিক অবক্ষয়ের এই যুগে দেশের উন্নয়ন, সমৃদ্ধি ও নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে কওমী শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই।
নৈতিক মূল্যবোধের অভাবে আজ অবাধে সমাজের সর্বত্র ঘুষের সয়লাব, দুর্নীতি ধারণ করেছে মহামারীর রূপ। এসব নির্মূলে সরকার, প্রশাসন কাজ করছে৷ কিন্তু অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে না। মহামারির মতো নারী নির্যাতন, সন্ত্রাস, দিন দিন বেড়েই চলছে। এসব থেকে উত্তরণে ইসলামী ও নৈতিক শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। আর সেই শিক্ষাটাই কওমী মাদরাসায় দেওয়া হয়।
আজ বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে কওমী ফোরাম এর উদ্যোগে আয়োজিত ‘একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কওমী মাদরাসা ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনারে তারা এসব কথা বলেন।
নেতৃবৃন্দ বলেন, আদর্শ রাষ্ট্র নির্মাণ, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, সামাজিক নিরাপত্তা, নারীর সম্মান, জীবনের নিশ্চয়তা, শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য রক্ষার চ্যালেঞ্জ উত্তরণে কওমী ধারার শিক্ষা বিশাল ভূমিকা রাখছে। এ শিক্ষার সুফলকে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে পৌঁছে দিতে রাষ্ট্র এবং সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসার আহবান জানান সেমিনারের বক্তাগণ।
তারা আরো বলেন, নিঃস্বার্থ, নির্লোভ ও নির্ভেজাল জীবনদৃষ্টির মূল্যবোধ নিয়ে কওমী শিক্ষার্থীরা বেড়ে ওঠে। অনুসন্ধানী ও বিশ্লেষণের দৃষ্টি দিয়ে বিচার করুন, দেখবেন দেশ ও সমাজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি ওই মাদরাসাপড়ুয়াকে দিয়ে করানো সম্ভব।
মনে রাখতে হবে, শিক্ষিত, যোগ্য, প্রতিভাবান নাগরিকদের সমাজ ও রাষ্ট্রের সেবায় নিবেদিত হওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করলে ওই সমাজ প্রভূত কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হয়।
কওমী মাদরাসা ছাত্রদেরকে কুরআন-হাদিসের আলোকে জ্ঞান প্রদানের মাধ্যমে ত্যাগী, পরোপকারী, সমাজসেবক, অধিক ভোগ-বিলাসে নিরুৎসাহী এবং স্বল্প উপার্জনে সন্তুষ্ট থেকে জীবনযাপনে অভ্যস্ত করে তোলে। এখানে দুনিয়াবিমুখতা, কষ্ট, সবর, শোকর, আত্মীয়তার বন্ধন, ন্যায়পরায়ণতা, মমত্ববোধ, উত্তম আখলাক-চরিত্রের বিষয়গুলোই শিক্ষা দেওয়া হয়। এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যারা জড়িত তারা চাঁদাবাজী, টেন্ডারবাজি, ভূমি দখল, হল দখল, দুর্নীতি, মিথ্যা, প্রতারণা, ব্যভিচার, অপকর্ম, চুরি-ডাকাতি, খুন-রাহাজানী, অপসংস্কৃতি ইত্যাদির সঙ্গে কোনো রকমের সম্পর্ক রাখে না। এমনকি থানাগুলোতেও সন্ত্রাসীদের তালিকায় কোনো কওমী মাদরাসার শিক্ষক বা ছাত্রের নাম পাওয়া যায় না। দেশপ্রেমিক ঈমানদার খাঁটি মানুষ তৈরির কারখানাই হলো কওমী মাদরাসা।
মাওলানা মামুনুল হক এর সভাপতিত্বে ও মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী, প্রবন্ধ পাঠ করেন মুফতি এনায়েতুল্লাহ।
বক্তব্য রাখেন আল্লামা আশরাফ আলী, মাওলানা মাহফুযুল হক, মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম, মাওলানা মুজিবুর রহমান পেশওয়ারী, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী, মাওলানা হাসান জামিল, মাওলানা রুহুল আমিন সাদী, মুফতি মুর্তজা হাসান ফয়েজী, মুফতি মোস্তফা কামাল, মাওলানা গাজী ইয়াকুব, মুফতি ফখরুল ইসলাম, মাওলানা তোফায়েল গাজালি, মুফতী শামসুদ্দোহা আশরাফী, মাওলানা এহসানুল হক, মুফতি রেজওয়ান রফিকী, মাওলানা আব্দুল খালেক শরিয়তপুরী, মাওলানা আবুল হাসানাত জালালী, মাওলানা ফজলুর রহমান, মাওলানা সোহায়েল আহমদ, মাওলানা আশরাফ মাহদী প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,064 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com