শনিবার, ০৩ ডিসে ২০১৬ ০৭:১২ ঘণ্টা

মজিদপুর প্রতিভা এডুকেশন ট্রাষ্টের ৫ম শিক্ষা বৃত্তি পরীক্ষা সম্পন্ন

Share Button

মজিদপুর প্রতিভা এডুকেশন ট্রাষ্টের ৫ম শিক্ষা বৃত্তি পরীক্ষা সম্পন্ন

15320425_1758151774506502_1830471214_nকামরুল ইসলাম মাহি :

জগন্নাথপুর উপজেলার শিক্ষা ও সাংস্কৃতিকমুলক সংগঠন মজিদপুর প্রতিভা এডুকেশন ট্রাষ্টের ৫ম শিক্ষা বৃত্তি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯ টায় ১৪নং মজিদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষা অনুষ্টিত হয়। এতে উপজেলার ১৭টি প্রতিষ্ঠান (স্কুল, মাদরাসার ৫ম শ্রেণীর) অর্থশতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। সকালে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্টিত পরীক্ষায় হল সুপারের দ্রায়ীত্ব পালন করেন ১৪নং মজিদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকা নিলা খানম, হল পরিদর্শক ছিলেন ট্রাষ্টের সাধারণ সম্পাদক রিজু আহমেদ, বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষিকা পিয়াংকা রাণী দেব।

পরীক্ষা শুরুর পৃর্বমুহুতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ট্রাষ্টের সভাপতি হাফিজ ক্বারী সাজ্জাদুর রহমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি এমদাদুর রহমান সুমন, বিদ্যালয় মেনেজিং সহ-সভাপতি সিরাজ মিয়া, সমাজসেবক আব্দুল মান্নান, কাছা মিয়া, আব্দুল করিম, আরজু মিয়া, সাবেক সভাপতি তাজুদ মিয়া, ট্রাষ্টের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান, সহ-সাংগঠনিক রাজু আহমেদ, অর্থ সম্পাদক অজয় চন্দ্র, প্রচার সম্পাদক সৈয়দ আহমদ, ধর্ম সম্পাদক রাজেল আহমদ, সদস্য রিয়াজ আহমেদ মাহিন, মারজুম আহমদ রাজ, রুবেল আহমদ প্রমুখ।

পরবর্তীতে আনুষ্টানিকভাবে বৃত্তি পরীক্ষার ফলাফল ও বৃত্তি প্রধান হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিভা এডুকেশন ট্রাষ্টের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক কামরুল ইসলাম মাহি।

এই সংবাদটি 1,021 বার পড়া হয়েছে

পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত।  পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন।  ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে।  পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন।  ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন
পরমানু শক্তিধর দেশ পকিস্তান বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ইসলামি দেশগুলোর সেনাবাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। সৌদি আরবের উদ্যোগে মুসলিম সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর সেনাদের এই প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।বাংলাদেশও এই জোটের অন্তর্ভুক্ত। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এসব দেশের সামরিক বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করবে দেশটি। জাতীয় নিরাপত্তা নীতির মতো বিষয়গুলোতেও সহায়তা দেবে পাকিস্তান। সামরিক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলার পরই এ বিষয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেবেন। ইসলামি সামরিক জোটের ভূমিকা নিয়ে ইতোমধ্যে বিস্তারিত কথা বলেছে পাকিস্তান ও সৌদি আরব। সম্প্রতি জোটকে এগিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধও করেছে সৌদি প্রশাসন। এখানে পাক প্রশাসনের ভূমিকাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই ভ্রাতৃপ্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয়েছে। কূটনৈতিক পর্যায়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতেও কাজ করেছে পাকিস্তান। দেশটি এক্ষেত্রে তার ভূমিকা অব্যাহত রেখেছে। সৌদি আরবের পক্ষ থেকেও বলা হয়েছে, যেকোনো সংকটপূর্ণ সময়ে তারা পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াবে। পবিত্র কাবা শরিফসহ সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সব সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়েছে পাক প্রশাসন। ইসলামি সামরিক জোটভুক্ত দেশগুলোর নিরাপত্তা দিতে সমন্বিত একটি নীতি প্রণয়নের ব্যাপারেও একমত দুই দেশ। স্থল, নৌ ও আকাশ- সবক্ষেত্রে এই নীতি প্রণয়ন করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটি। সূত্র: দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন