Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | তাবলীগ জামাত : সিলেটে ইজতেমার সেকাল-একাল
বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসে ২০১৬ ১১:১২ ঘণ্টা

তাবলীগ জামাত : সিলেটে ইজতেমার সেকাল-একাল

Share Button

তাবলীগ জামাত : সিলেটে ইজতেমার সেকাল-একাল

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: তাবলীগ জামাত একটি ইসলাম ধর্মভিত্তিক অরাজনৈতিক সংগঠন যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানুষকে আল্লাহর পথে ডাকা।  সাধারণত মানুষকে আখিরাত, ঈমান, আমল-এর কথা বলে দ্বীনের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়। প্রথমে তিনদিন এর পর যথাক্রমে সাতদিন ও চল্লিশদিন-এর জন্য আল্লাহর রাস্তায় দাওয়াত-এর কাজে উদ্বুদ্ধ করা হয়ে থাকে। তাবলীগ জামাত-এর মুল ভিত্তি হিসেবে ধরা হয় ৬টি উসুল বা মূলনীতিকে। এগুলো হলো: কালিমা, নামায, ইল্ম ও যিকির, একরামুল মুসলিমিন বা মুসলমানদের সহায়তা করা, সহিহ নিয়ত বা বিশুদ্ধ মনোবাঞ্ছা, এবং তাবলীগ বা ইসলামের দাওয়াত।
উৎপত্তি : ইসলাম আল্লাহর মনোনীত একমাত্র পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থা। সারা পৃথিবীর মানুষের কাছে ইসলামের বাণী পৌঁছে দেয়ার জন্য আল্লাহ পৃথিবীতে অসংখ্য নবী ও রাসূল প্রেরণ করেছিলেন। কিন্তু যেহেতু মুহাম্মদ(সাঃ) আল্লাহর শেষ বাণীবাহক, তাঁর পরে আর কোনো নবী বা রাসূল আসবেন না, তাই মুহাম্মদ(সাঃ) বিদায় হজ্জ্বের ভাষণে মুসলমানদেরকে ইসলামের দাওয়াত দেয়ার দায়িত্বটি দিয়ে যান উম্মতের উপর। এবিষয়ে পবিত্র কুরআনে উল্লেখ আছে:  তোমরাই শ্রেষ্ঠ উম্মত, মানুষের(কল্যাণের) জন্য তোমাদেরকে বের করা  হয়েছে। তোমরা মানুষকে সৎ কাজের আদেশ করবে এবং অসৎকাজ থেকে নিষেধ করবে।” (সূরা আল-ইমরান, আয়াত-১১০)
তার চেয়ে ভাল কথা আর কি হতে পারে, যে মানুযকে আল্লাহর দিকে ডাকে, নিজে নেক আমল করে আর বলে যে, আমি সাধারণ মুসলমানদের মধ্য হতে একজন। (সূরা হা মীম সিজদা আয়াত-৩৩)
প্রচলিত তাবলীগ জামাতের প্রবর্তক:
ইসলামের প্রাথমিক যুগে মুহাম্মদ(সাঃ)এর ইন্তেকালের পর তাঁর আদর্শস্নাত সাহাবী, তাবেয়ী ও তাবে-তাবেীয় গণের মাধ্যমে ইসলামী জীবন বিধান প্রচার ও প্রসারের কার্যক্রম আরো বিস্তৃতি লাভ করে।  কিন্তু মুসলিম শাসকদের ক্ষমতা বিলুপ্তির পর ইসলামী প্রচার কার্যক্রমে ভাটা পড়তে থাকে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য মুসলিম মনীষীদের প্রচেষ্টাও অব্যাহত ছিল। এমনই পরিস্থিতিতে মাওলানা মুহাম্মাদ ইলিয়াস (র) ভারতের দিল্লীতে তাবলীগ জামাতের সূচনা করেন । এবং তাঁর নিরলস প্রচেষ্টার ফলে তাবলীগ জামাত একটি বহুল প্রচারিত আন্দোলনে রূপ নেয়। সারা বিশ্বে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছে দেওয়ার তাবলীগ জামাতের অন্যতম উদ্দেশ্য। মাওলানা মুহাম্মাদ ইলিয়াস (র) এর পিতার নাম মাওলানা ইসমাইল (র)।  জন্মস্থান : ভারতবর্ষের উত্তর প্রদেশের মুযাফ্ফর নগর জেলার অন্তর্গত কান্ধলা নামক শহরে ১৩০৩ হিজরিতে জন্মগ্রহন করেন। তার শৈশবকাল নিজ নানার বাড়ি কান্ধলায় এবং নিজ পিতা হযরত মাওলানা ইসমাইল সাহেব রহ এর সান্নিধ্যে দিল্লীর নিজামুদ্দীনে অতিবাহিত করেন। তখন তার পুরো পরিবার কান্ধলায় অবস্থান করছিলো। পরিবারের নারী-পুরুষ সকল সদস্যবৃন্দের মধ্যে ঈর্ষনীয় ধর্মপরায়নতা ছিল। সদাসর্বদাই তারা অধিক পরিমাণে কুরআন তিলাওয়াত ও যিকিরে মশগুল থাকতেন। পারিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী শৈশবেই কুরআন হিফয সম্পন্ন করেন। তিনি ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ায় গভীর মনযোগী ছিলেন। প্রতি দিনের সব পরা শেষ করে বাকি সময় যিকির ও অন্যান্য অযিফায় কাটিয়ে দিতেন। শেষ রাত্রে নিয়মিত তাহাজ্জুদ, নামাজ, যিকির, দুআ ও রোনাজারি-আহাজারিতে নিমগ্ন থাকতেন। শাইখুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান দেওবন্দী (র) এর কাছে হাদীস পড়ার জন্য ১৩২৬ হিজরীতে দারুল উলুম দেওবন্দে ভর্তি হন এবং শাইখুল হিন্দ রহঃ এর কাছে বুখারী শরীফ ও তিরমিযী শরীফ পরেন। হজরত রশিদ আহমাদ গাঙ্গুহী (র) তাকে বাইয়াত করান। শিক্ষাজীবন সমাপ্তের পর ১৩২৮ হিজরিতে মাওলানা ইলয়াস (র.) সাহারানপুর মাযাহিরুল উলুম মাদ্রাসার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ১৩৩০ হিজরি মোতাবেক ১৭ এপ্রিল ১৯১২ সালে তিনি মামা মৌলভী রওফুল হাসান সাহেবের কন্যাকে বিবাহ করেন। ১৩৩৩ হিজরিতে হজ্ব পালনের জন্য তিনি মক্কা শরীফ গমন করেন। মেঝ ভাই ও বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর তিনি ভক্ত ও অনুরক্তদের অনুরোধে বস্তি নিযামুদ্দিনে অবস্থিত মসজিদ ও মাদ্রাসার সার্বিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন। আর ১৯২০ সালে তিনি ভারতের মেওয়াত অঞ্চল থেকে তাবলীগী দাওয়াতের সূচনা করেন। এটি দিল্লীর দক্ষিণাঞ্চলে অবস্থিত। প্রাচীনকালে এই অঞ্চলটি ছিল ‘মেও’ জনগোষ্ঠীর আবাসভূমি। বর্তমানে গোরগাঁও, আলাওয়ার, ভরতপুর ও মথুরার কিছু অংশ নিয়ে মেওয়াত এলাকা বিস্তৃত। এমন একটি এলাকা থেকেই তাবলীগ জামাতের বিস্ময়কর সূচনা। ১৩৪৪ হিজরিতে দ্বিতীয় হজ্ব থেকে ফিরে এসে তিনি দাওয়াতের ধারা বদলিয়ে গাশত শুরু করলেন। তারপর তাবলীগ জামাতের বিকাশের কথা অনেকেরই জানা। জীবনের শেষ দিকে মাওলানা ইলয়াস (র.) ইলম ও ফিকিরের প্রতি তাকিদ ও তারগীব দিতে লাগলেন। যারা অশিক্ষিত, তাদের প্রতি বেশি দরদ দেখালেন। যাকাত আদায় করা ও তা আল্লাহর রাস্তায় খরচ করার ওপর জোর দিলেন।
আল্লামা রশিদ আহমদ গাঙ্গুহী রহঃ এর ইন্তেকালের পর শায়খুল হিন্দ রহঃ এর পরামর্শে খলীল আহমদ সাহরানপুরী (র)
এর সাথে ইসলাহী সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করেন এবং তার বিশেষ তত্ত্বাবধানে আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা সাধন করেন ও খেলাফত লাভ করেন। ১৯৪৪ সালের ১২ জুলাই মৃত্যুর একদিন আগে তিনি জিজ্ঞেস করলেন, কাল কি বৃহস্পতিবার? বলা হলো ‘জ্বি হ্যাঁ।’ তিনি বললেন, আমার কাপড়-চোপড় দেখে নাও কোনো নাপাকি আছে কিনা। নেই শুনে খুশি হলেন। ভোররাতে ফজরের আযানের কিছুক্ষণ আগে তিনি ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
বিশ্ব ইজতেমা :
‘তাবলীগ’ অনুসারীদের একটি বৃহত্তম সমাবেশ বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমা। তাবলীগ আরবী শব্দ, বালাগ শব্দ থেকে আগত। যার শাব্দিক অর্থ পৌঁছানো, প্রচার করা, প্রসার করা, বয়ান করা, চেষ্টা করা, দান করা ইত্যাদি। পরিভাষায় একজনের অর্জিত জ্ঞান বা শিক্ষা নিজ ইচ্ছা ও চেষ্টার মাধ্যমে অন্যের কাছে পৌঁছানোকে তাবলীগ বলে। তাবলীগ আদর্শ যিনি পৌঁছেন, তাকে মুবাল্লিগ বলে। বিশ্বনবী (স) এ প্রেক্ষিতে বলেছেন, ‘আমার পক্ষ হতে একটিমাত্র বাণী হলেও তা অন্যের কাছে পৌঁছে দাও।’
প্রায় পঞ্চাশ বছর যাবত্ টঙ্গিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা। ইতোপূর্বে ঢাকার কাকরাইল মসজিদ ও সংলগ্ন রমনা উদ্যানের একাংশে অনুষ্ঠিত হতো এ সমাবেশ। ইজতেমার ইতিহাস তালাশ করলে জানা যায়, বাংলাদেশে ইজতেমা অনুষ্ঠানের প্রায় ৩/৪ যুগ পূর্বে ভারতের সাহরানপুর এলাকায় এ মহতী কাজের গোড়াপত্তন ঘটে। বর্তমান ধারায় এ তাবলীগী কার্যক্রম প্রতিষ্ঠা করেন মাওলানা ইলয়াস (রহ)। ১৯২০ সালে তিনি প্রচলিত তাবলীগ আন্দোলন শুরু করেন।
তাবলীগ জামায়াতের সদর দফতর দিল্লীতে থাকা সত্বেও এর বার্ষিক সমাবেশের জন্য বাংলাদেশকে বেছে নেয়া হয়।
ভারতের মুম্বাই ও ভূপালে এবং হালে পাকিস্তানের রায় বেন্ডে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হলেও জনসমাগমের বিচারে টঙ্গির বিশ্ব ইজতেমাই বড় এবং বিশ্ব দরবারে বিশ্ব ইজতেমা বলতে বাংলাদেশের টঙ্গিতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমাকেই বুঝায়।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, মোজাহেদে আজম আল্লামা শামছুল হক ফরিদপুরী (রহ.) ও হযরত মাওলানা আবদুল আজিজ (রহ.)-এর মাধ্যমে ১৯৪৪ সালে বাংলাদেশে তাবলীগের কাজ শুরু হয়। হযরত মাওলানা আবদুল আজিজ (রহ.)-এর প্রথম আমির ছিলেন। বার্ষিক ইজতেমার প্রয়োজন অনুভব করে হযরত মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভী (রহ.) মুরব্বীদের নিয়ে পরামর্শ করেন। বৈঠকে বাংলাদেশের নাম বেরিয়ে আসে। তাবলীগ জামাতের সদর দফতর দিল্লীতে থাকা সত্ত্বেও এর বার্ষিক সমাবেশের জন্য বাংলাদেশকে বেছে নেয়া হয়। আর সেই থেকেই বিশ্ব ভ্রাতৃত্ব ও ঐক্যের প্রতীক মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ সমাবেশ ও মহাসম্মেলন বিশ্ব ইজতেমা বাংলাদেশে এসে নয়া দিগন্তে পৌঁছে। বিশ্ব ইজতেমাকে উপলক্ষে করে যে লক্ষ লক্ষ ধর্মপ্রাণ মুসলমানের সমাগম ঘটে তা হঠাৎ করে হয়নি। নিবেদিত প্রাণ তাবলীগ অনুসারীদের নিরলস প্রচেষ্টায় বিশ্ব ইজতেমা আজকের রূপ লাভ করেছে।
তাবলীগের কার্যক্রম এখন বিশ্বের সর্বত্র। আগেই বলা হয়েছে যে, ১৯৪৪ সালে বাংলাদেশে তাবলীগ কার্যক্রম শুরু হয়। তারপর ১৯৪৬ সলে বিশ্ব ইজতেমা সর্বপ্রথম অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশের তাবলীগের মারকাজ কাকরাইল মসজিদে (রমনা পার্কের পাশে অবস্থিত একটি মসজিদ)। পরে ১৯৪৮ সালে চট্টগ্রাম হাজী ক্যাম্পে ইজতেমা শুরু হয়। এরপর ১৯৫৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে, তারপর ১৯৬৫ সালে টঙ্গির পাগারে এবং সর্বশেষ ১৯৬৬ সালে টঙ্গির ভবেরপাড়া তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ব ইজতেমা সেই থেকে এ পর্যন্ত সেখানেই ১৬০ একর জায়গায় তাবলীগের সর্ববৃহৎ ইজতেমা বা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ২২ কিলোমিটার উত্তরে তুরাগ নদীর তীরে প্রতিবছর তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। সুদীর্ঘ সাড়ে তিন যুগ ধরে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে নিয়মিত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে । ২০১১ সাল থেকে এক সাথে এতো ধর্মপ্রাণ মানুষের সঙ্কুলান না হওয়ায় দু’ পর্বে ইজতেমা চলার সিদ্ধান্ত হয়। যখন বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতের প্রচেষ্টা শুরু হয়, তখন এর নাম ছিলো শুধুই ইজতেমা। যা অনুষ্ঠিত হতো ঢাকার কাকরাইল মসজিদে। পরবর্তীতে ১৯৫৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে, তারপর ১৯৬৫ সালে টঙ্গীর পাগারে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। তখন থেকে ধীরে ধীরে এগুতে এগুতেই আজকের টঙ্গীতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমা। যে ইজতেমায় অংশগ্রহণ করে বিশ্বের প্রায় একশটি রাষ্ট্রের তাবলীগ প্রতিনিধিরা। শিল্পনগরী টঙ্গীতে ইজতেমাকে স্থানান্তরিত করা হয় ১৯৬৬ সালে। আর সে বছর থেকেই তাবলীগ জামাতের এই মহাসম্মেলন ‘বিশ্ব ইজতেমা’ নামে খ্যাতি অর্জন করে। মুসলমানদের সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য আর ঐক্যের প্রেরণার অভাবনীয় নজির বিশ্ব ইজতেমায়ও দেখা যায়। সত্যিই তা মুসলিম ঐক্যের এক অপূর্ব মিলনমেলা। পুণ্যভূমি মক্কা-মদীনার পর তুরাগ নদীর তীরে অবস্থিত টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা পরিচিতি লাভ করে বিশ্ব মুসলিমের দ্বিতীয় বৃহত্তম মিলনকেন্দ্র হিসেবে।
যতটুকু জানা যায়, ইজতেমা নিয়ন্ত্রণকারী তাবলীগ জামাতের কোনো সংবিধান নেই। অলিখিত সংবিধানও নেই। লিখিত আইন, বিধিবিধান ও উপবিধি কিছুই নেই। তারপরও এ আন্দোলন মুসলিম বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এবং সুশৃঙ্খল আন্দোলন। তাবলীগ জামাতের একটি কেন্দ্রীয় কমিটি আছে। এটিকে বলা হয় মজলিসে শুরা। এ কেন্দ্রীয় কমিটির কোনো আনুষ্ঠানিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় না। ২১ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি ছাড়াও বহু ব্যক্তি এ কমিটির মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করে থাকেন। তাবলীগে যারা অপেক্ষাকৃত বেশি অবদান রেখেছেন, তারাই এ কমিটির আলোচনায় কথাবার্তা বলেন। তবে কে কতো বেশি অবদান রেখেছেন, তা’ নির্ধারণেরও মাপকাঠি নেই। তাবলীগ আন্দোলনে ক্ষমতা বা পদমর্যাদার কোনো প্রতিযোগিতা নেই, প্রতিদ্বন্দ্বিতা নেই।  তাবলীগ আন্দোলন ও বিশ্ব ইজতেমার কোনো প্রেস রিলিজ, প্রকাশনা, প্রচার শাখা নেই। বিশ্ব ইজতেমা কোন্ তারিখে অনুষ্ঠিত হবে, তা’ উল্লেখ করে কোনো প্রেস বিজ্ঞপ্তি ইস্যু করা হয় না। কোনো লিফলেট-পোস্টার ছাপানো হয় না। তবুও লাখ লাখ মানুষ নির্দিষ্ট সময়ের আগে বিশ্ব ইজতেমায় সমবেত হন। ইজতেমা ময়দানে লাখো জনতার উদ্দেশ্যে কে বক্তব্য রাখছেন, তার নাম ঘোষণা করা হয় না। এ ক্ষেত্রে তাবলীগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ “কে বলছেন সে দিকে তাকিও না, কী বলেছে সেদিকে লক্ষ্য করো” হাদিসকেই ফলো করে থাকেন।
বিশ্ব ইজতেমা মানুষের মধ্যে ব্যাপক ধর্মীয় উত্সাহ-উদ্দীপনা ও আবেগ তৈরি করে। আধ্যাত্মিক প্রেরণার উন্মেষ ঘটায়। বিশেষ করে তিনদিনব্যাপী (উভয় পর্বে) ইজতেমার শেষ দিনের মোনাজাতে অংশ নেয়ার জন্যে যেভাবে মানুষ পাগলের মতো ছুটে যায়, তা’ সত্যিই যে একটি প্রচন্ড ইসলামী আবেগ ও চেতনার বহিঃপ্রকাশ তা’ অস্বীকার করার জো নেই। এতে কেউ শরীক হতে না পারলে নিজেকে বঞ্চিত মনে করে। বিশ্ব ইজতেমার শেষ দিন কার্যত টঙ্গীকেন্দ্রিক জাতীয় উত্সবে পরিণত হয়। এর প্রভাব এতোটুকু গড়ায় যে, দেশের প্রেসিডেন্ট, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতাসহ বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ কমপক্ষে একবার সেখানে বিশেষত মুনাজাতের দিন হাজিরা দিতে যান।
সিলেটে ইজতেমা :
দীর্ঘ দুই যগেরও বেশী সময় পরে তাবলীগ জামাতের সিলেট জেলা ইজতেমা চলতি (২০১৬) ডিসেম্বর মাসের  ২৯, ৩০ ও ৩১ তারিখ শুরু হচ্ছে। দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ১ নম্বর মোল্লারগাঁও ইউনিয়নের সুসামগঞ্জ-তেমুখি বাইপাস সড়কের পাশের মাঠে সিলেট জেলা ইজতেমার সবধরনের আয়োজন সম্পন্ন ।  ইজতেমা নিয়ে প্রতিটি মসজিদে তাবলীগ জামাতের সিলেট জেলার সকল হালকার ৩ চিল্লার সাথী সহ নতুন ও পুরাতন সাথীগন এই ইজতেমার দাওয়াত তথা প্রচারনার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। সিলেটের মারকাজ মসজিদ খোজার খলার মরুব্বীগন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সিলেটে অনুষ্ঠিতব্য ইজতেমায় বয়ান করবেন ভারতের দিল্লি ও ঢাকার কাকরাইল মসজিদের তাবলীগ জামাতের মরুব্বীগন। বিশ্ব ইজতেমায় যারা বয়ান করেন তারাই সিলেটের এই ইজতেমায় বয়ান করবেন বলে জানাগেছে। এছাড়াও বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মুসল্লিগন আসবেন।  সিলেটের জনগন তুলনা মুলক বেশী ধর্মপ্রাণ হওয়ায় এবং পর্যকটক বা ভ্রমণ পিপাসু লোকজনের কাছে ভ্রমণের জন্য কাঙ্খিত এই সিলেট এসব কারণে এবাবেরর ইজতেমায় বেশী মুসল্লীর উপস্থিতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
যতটুকু জানাগেছে, শাহজালাল, শাহপরানের উত্তর সুরীরা টঙ্গির তুরাগ তীরের পরিবর্তে এবার তাদের মিলন মেলা সুরামা নদীর তীরেই অনুষ্ঠিত হবে। সিলেটে ৩২ বছর পর শুরু হচ্ছে ইজতেমা। মুসল্লিদের কলরব আর ‘আমিন’ ‘আল্লাহুম্মা আমিন’ ধ্বনিতে এবার মুখরিত হবে আধ্যাত্মিক রাজধানী  সিলেট। এ ইজতেমায় জেলার অন্তত ১২ লাখ মুসল্লির সমাগম ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
সরেজমিনে ইজতেমার মাঠে গেলে জানা গেল, ৬শ’ কেদার (প্রায় ২০০ একর) জমির উপর সিলেট জেলার ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ধর্মপ্রাণ মানুষের যাতে কোনো কষ্ট না হয়, সেজন্য প্যান্ডেল দিয়ে সাজানো হচ্ছে বিশাল মাঠ। ওই মাঠে ১১টি খিত্তা থাকবে।  এ ছাড়া মাঠের দক্ষিণ পাশে ৫ থেকে ৬ হাজার মুসল্লির যাতে এক সাথে ওজু করতে পারেন, সেজন্য থাকছে বিশাল ওজুখানা। এই ওজুখানা ছাড়াও আরো ৩৫ থেকে ৪০টি ছোট ওজু খানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মাঠের একপাশে অন্তত ২ হাজার শৌচাগার থাকবে; ৫টি গভীর নলকূপসহ প্রায় ১২ থেকে ১৫টি নলকূপ বসানোর ব্যবস্থা রয়েছে। সিলেটের জেলা প্রশাসক জানান, ইজতেমার জন্য আমরা সার্বিক সহযোগিতা করছি। নলকূপ বসানো, বিদ্যুতের ব্যবস্থা, রাস্তা করা এবং রাস্তার উন্নয়নসহ প্রায় অধিকাংশ কাজে জেলা প্রশাসন সহযোগিতা করছে। মুসল্লিরা যাতে সুন্দরভাবে ইজতেমায় অংশ নিতে পারেন, সেজন্য পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন সার্বিক দিকে দৃষ্টি রাখছে।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বলেন, ইতোমধ্যে দুটি গভীর নলকূপ দেওয়া হয়েছে। পানির ব্যবস্থা করে দেয়া হবে। লাইট দেওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতা থাকবে।

তবলীগ জামাতের একাধিক কর্মী জানান, জানুয়ারি মাসের প্রথম দিকে টঙ্গীর তুরাগ নদীর পারে দু’ধাপে ৩২টি জেলার বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। তুরাগ তীরের এক সপ্তাহ আগে সিলেটের ইজতেমা হওয়ায় অন্তত ১০ থেকে ১২ লাখ মুসল্লির সমাগম ঘটবে বলে আশা করা হচ্ছে। সিলেটের ইজতেমায় বিপুল সংখ্যক বিদেশি মুসল্লিরও সমাগম ঘটবে জানিয়ে তাঁরা বলেন, আল্লাহর নামে কোনো কাজ শুরু করলে তা আটকে থাকে না। এর কারণ হচ্ছে, সিলেটের তাবলীগের মুরুব্বিরা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ৩ দিনের ইজতেমা হবে। এজন্য কোনো সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক কিংবা কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব কাউকে দেয়া হয়নি। কোনো টাকার ব্যবস্থা ছাড়াই ইজতেমার মাঠের কাজ শুরু হয়। আল্লাহর নামের জন্য এবং দ্বীনের কাজে সওয়াবের আশায় সাধারণ মানুষ, দিনমজুর, গাড়ী চালক, রিক্সা ড্রাইভার, বিভিন্ন মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন,মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক, সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সকলেই সহযোগিতা করছেন। যে যে ভাবে পারছেন স্বেচ্ছায় সামর্থ অনুযায়ী সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। কোনো শ্রমিক টাকায় আনা হয়নি। মানুষ নিজ উদ্যোগে শ্রম দিয়ে ইজতেমার মাঠ মুসল্লিদের জন্য তৈরী করে দিচ্ছেন। সকলেই কাজ করছেন বিনা পারিশ্রমিকে। কেউ কেউ বাঁশ দিয়ে সহযোগিতা করছেন। আবার কেউ কেউ বাঁশ বাধাঁর সরঞ্জাম দিয়ে সহযোগীতা করছেন। অনেকে আবার স্বেচ্ছা শ্রম দিয়ে সহযোগীতা করছেন। সিলেটের জেলা প্রশাসন, সিটি কর্পোরেশন এবং রাজনৈতিক নেতারাও বিভিন্ন কাজ করিয়ে দিয়ে আল্লাহর নামের কাজে শামিল হচ্ছেন।
ইজতেমার মাঠের কাজ পরিদর্শন করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ প্রমুখ। আশফাক আহমদ জানান, প্রশাসনের সাথে বৈঠক হয়েছে। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তায় বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। তিনি বলেন, সবশ্রেণি-পেশার মানুষ সিলেটের ইজতেমা সফল করতে এগিয়ে এসেছেন। সদর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে মুসল্লিদের পানি দেয়া হবে, ইতোমধ্যে গভীর নলকূপ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, রোলার দিয়ে মাঠের মাঠি সমান করা হচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে আশফাক আহমদ বলেন, আল্লাহর নামের কাজে আল্লাহর মেহেরবাণী সবচেয়ে বেশি থাকে। গত কয়েকদিন আগে এ মাঠের মাঠি একেবারেই নরম ছিল। এখন পুরো শক্ত হয়ে গেছে। তাবলীগ জামাতের আমীর আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ‘আল্লাহর মেহেরবাণীতে সব কাজ চলছে। তিনি বলেন, তিন দিন ইজতেমা চলবে। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ হবে আখেরি মুনাজাত। ইজতেমা শেষে অনেক মুসল্লি আল্লাহর রাস্তায় সময় কাঠাতে চিল্লায় যাবেন। তিনি বলেন, বিদেশি মেহমানদের প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখার চেষ্টা করা হবে। তাঁদের জন্য আলাদা প্যান্ডেল করে তাঁবু দিয়ে ইবাদত করার সুযোগ করে দেয়া হবে। যারা মাঠে থাকতে অসুবিধা মনে মনে করবেন, তাঁদেরকে পার্শ্ববর্তী মসজিদে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়া হবে। ইজতেমার আয়োজনের মূল কারণ হচ্ছে, আল্লাহর পথে সময় দেয়া, রাসূল (স.) এর দেয়া নির্দেশ মোতাবেক পথ চলা ও অনুসরণ করে দিনের দাওয়াত রাসূল (স.) এর উম্মতদের কাছে পৌছে দেয়া। তিনি বলেন, সিলেটের ইজতেমা সফল করতে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ অর্থ ও শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। আল্লাহ সবাইকে কবুল করুন এই দুআ সব সময় করি।
তাবলীগের অপর এক মুরুব্বি সৈয়দ ইব্রাহিম জানান, ৩২ বছর পর সিলেটে ইজতেমা হচ্ছে। এর আগে আগে ১৯৬৫ ও ১৯৮৪ সালে সিলেট জেলার সুরমা নদীর দক্ষিণ তীর সংলগ্ন টেকনিক্যাল মাঠে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। প্রথমবার আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ইউসূফ জি (রহ:) এবং দ্বিতীয়বার আখেরী মোনাজাত করেন মাওলানা এনামুল হাসান (রহ:)। তিনি বলেন শেষবার ৮৪ সালে পলিটেকনিক মাঠে জেলা পর্যায়ে একটি ইজতেমা হয়েছিল। এবার ৩২ বছর পর সিলেটের ইজতেমা সফল করতে সবাই এগিয়ে এসেছেন। শীর্ষ মুরুব্বিদের নতুন সিদ্ধান্তে চলতি বছরের বিশ্ব ইজতেমায় দেশের যে ৩২টি জেলা বাদ পড়ে, ২০১৮ সালে অনুষ্ঠেয় বিশ্ব ইজতেমার দুই পর্বে সেই ৩২ জেলার তবলীগ জামাত সদস্যরা অংশ নেবেন।

কোন খিত্তায় কারা :
সিলেট ইজতেমা মাঠের মানচিত্রে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কোন খিত্তায় কোন কোন এলাকার মানুষ অংশ নিতে হবে। মুসল্লীদের সুবিধার্থে ও পাঠকদের জন্য বিষয়টি তুলে ধরলো। মাঠের পশ্চিমদিকে ১ নম্বর খিত্তাতে রয়েছে মিম্বর। এই খিত্তায় কানাইঘাট উপজেলা ও খাদিমপাড়া ইউনিয়নের এলাকার মুসল্লীরা অংশ নিবেন।
২ নম্বর খিত্তাতে গোয়াইনঘাট উপজেলা ও সিলাম ইউনিয়নের মুসল্লীরা অংশ নিবেন।

৩ নম্বর খিত্তাতে জৈন্তাপুর উপজেলা ও হাটখোলা ইউনিয়নের মুসল্লীরা অংশ নিতে হবে।

৪ নম্বর খিত্তাতে অংশ নিতে হবে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ও জালালাবাদ ইউনিয়নের মুসল্লীরা।

৫ নম্বর খিত্তাতে থাকবেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা এবং টুকেরবাজার ও কান্দিগাঁও ইউনিয়নের মুসল্লীবৃন্দ।

৬ নম্বর খিত্তাতে থাকবেন বালাগঞ্জ উপজেলা ও জালালপুর ইউনিয়নের সাথীরা।

৭ নম্বর খিত্তা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বিশ্বনাথ উপজেলা ও মোগলগাঁও ইউনিয়নের সাথীদের জন্য।

৮ নম্বর খিত্তাতে থাকবে ওসমানীনগর উপজেলা ও দাউদপুর ইউনিয়নের মুসল্লীবৃন্দ।

৯ নম্বর খিত্তাতে থাকবে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ও খাদিমনগর ইউনিয়নের মুসল্লীবৃন্দ।

১০ নম্বর খিত্তাতে থাকবেন বিয়ানীবাজার উপজেলা এবং লালাবাজার ও তেতলি ইউনিয়নের মুসল্লীবৃন্দ।

১১ নম্বর খিত্তাতে থাকবেন জকিগঞ্জ উপজেলা ও মোগালাবাজার ইউনিয়নের মুসল্লীবৃন্দ।

লেখক : সম্পাদক-সিলেট রিপোর্ট ডটকম। মোবাইল ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,296 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com