সোমবার, ১৩ ফেব্রু ২০১৭ ১২:০২ ঘণ্টা

একুশে পদক পেলেন সিলেটের ২জন

Share Button

একুশে পদক পেলেন সিলেটের ২জন

ডেস্ক রিপোর্ট:
এবছর বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় দেশের ১৭ জন গুণী ব্যক্তিকে একুশে পদক প্রদান করা হয়েছে। রবিবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ঘোষিত বিজ্ঞপ্তিতে তাদের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। পদক প্রাপ্তদের মধ্যে এবছর দুইজন সিলেটি স্থান পেয়েছেন। তারা হচ্ছেন- সঙ্গীতে অবদান রাখা সুষমা দাস এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্যাটাগরিতে ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে একুশে পদক গ্রহণ করবেন তারা।
একুশে পদক বাংলাদেশের একটি জাতীয় ও সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার। বায়ান্নের ভাষা আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে ১৯৭৬ সালে এই পদক চালু করে সরকার। প্রতি বছর সাহিত্যিক, শিল্পী, শিক্ষাবিদ, ভাষাসৈনিক, ভাষাবিদ, গবেষক, সাংবাদিক, অর্থনীতিবিদ, দারিদ্র্য বিমোচনে অবদানকারী, সামাজিক ব্যক্তিত্ব ও প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় পর্যায়ে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এ পুরস্কার দেওয়া হয়।
বাউল শিল্পী সুষমা দাস। একানব্বই বছরে পা রেখেছেন। গ্রামের বাড়ি বাউল শাহ আব্দুল করিমের স্মৃতিবিজড়িত সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলায়। করিমের জন্মভূমি উজান ধলের পার্শ্ববর্তী পেরুয়া গ্রামের ওই নারীর গান শুনে কেদেছিলেন সংস্কৃতি মন্ত্রীসহ হাজারো দর্শক। গত বছর সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত উৎসবে প্রথমদিন সুষমা দাসের বাউল গান শোনেন সংস্কৃতিমন্ত্রী। এরপর আবেগ ধরে রাখতে পারেননি তিনি।  ভালো লাগার অনুভূতি প্রকাশ করেন অকপটে। এবছর সঙ্গীতে বিশেষ অবদানের জন্য একুশে পদক দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, জামিলুর রেজা চৌধুরী বাংলাদেশের খ্যাতনামা প্রকৌশলী, গবেষক, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, তথ্যপ্রযুক্তিবিদ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা। তিনি বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের উপাচার্য পদে কর্মরত। ১৯৪২ সালের ১৫ নভেম্বর সিলেট শহরে জন্মগ্রহণ করেন ৷ তাঁর বাবা প্রকৌশলী আবিদ রেজা চৌধুরী এবং মা হায়াতুন নেছা চৌধুরী ৷

ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর শৈশবকাল বিচিত্র অভিজ্ঞতায় পরিপূর্ণ ৷ বাবার চাকরির সুবাদে দেশের বিভিন্ন জায়গায় তাঁর শৈশবকাল কেটেছে ৷ তিন বছর বয়সে সিলেট ছেড়ে পরিবারের সঙ্গে চলে যান আসামের জোড়হাটে ৷ ১৯৪৭ সালের আগস্টে আবার সিলেটে ফিরে আসেন ৷

এরপর তাঁর বাবা বদলি হয়ে ময়মনসিংহে চলে যান। সেন্ট গ্রেগরিজ স্কুল থেকে তিনি ১৯৫৭ সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেন ৷ এরপর ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৫৯ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন ৷ এরপর ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য তিনি ভর্তি হন আহসানউল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে (বর্তমানে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়) ৷ ১৯৬৩ সালে তিনি প্রথম বিভাগে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি এবছর একুশে পদক পেয়েছেন।

তারা দুজন ছাড়াো এ বছর যারা একুশে পদক পেয়েছেন তারা হলেন, ভাষা সৈনিক অধ্যাপক ড. শরিফা খাতুন (ভাষা আন্দোলন), জুলহাস উদ্দিন আহমেদ (সঙ্গীত), ওস্তাদ আজিজুল ইসলাম (সঙ্গীত), তানভীর মোকাম্মেল (চলচ্চিত্র), সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদ (ভাস্কর্য), সারা যাকের (নাটক), আবুল মোমেন ও স্বদেশ রায় (সাংবাদিকতা), সৈয়দ আকরম হোসেন (গবেষণা), প্রফেসর ইমেরিটাস ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন (শিক্ষা), অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান (সমাজসেবা), কবি ওমর আলী ( ভাষা ও সাহিত্য মরণোত্তর), সুকুমার বড়ুয়া (ভাষা ও সাহিত্য), শামীম আরা নীপা (নৃত্য) এবং রহমতউল্লাহ আল মাহমুদ সেলিম (সঙ্গীত)। –

এই সংবাদটি 1,071 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com