জনাব মাহমুদুর রহমান- জামায়াতে ইসলামী কখনোই ইসলাম নয়

প্রকাশিত: ৯:১৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৭

আরিফ রহমান:: আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমান জানিয়েছেন তিনি এই দুনিয়ার সবচাইতে নির্যাতিত মানুষ এবং তার ওপর নির্যাতনের একমাত্র কারণ নাকি- তিনি ইসলামের পক্ষের শক্তি।

হয়তো এতটুকু বললে খুব একটা আশঙ্কা করার মতন বিষয় ছিল না। কারণ কোন একজন মানুষ নিজেকে রাষ্ট্রপতি দাবি করলেই তিনি রাষ্ট্রপতি হয়ে যাবেন না একই ভাবে কেউ মুসলমান হবার কারণে তাকে নির্যাতনের হয়েছে এই কথা বললেই সেই উক্তি সত্য হয়ে যায় না। তবে এই বক্তব্য যখন মোটাদাগে মিডিয়ার আসে তখন বিষয়টা নিয়ে আলোচনা করা উচিত বইকি। যেই মাহমুদুর রহমান যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ সাজার দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনকে নাস্তিকদের আন্দোলন হিসেবে প্রচারের চেষ্টায় নিজেকে তৎপর রেখে দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলেছিলেন সেই একই মাহমুদুর রহমানের এহেন বক্তব্যকে আমরা আরেকবার শঙ্কিত হয়ে উঠছি।

মুসলমান হবার অপরাধে কেউ নিগৃহীত হয়েছে কিংবা নির্যাতিত হয়েছে এটা ৯২ শতাংশ মুসলমানের দেশে ভয়াবহ উক্তি। যেই দেশকে মসজিদের শহর বলা হয়, যেই দেশ থেকে অন্যতম বৃহৎ সংখ্যক মানুষ প্রতি বছর হজ্জব্রত পালন করতে, যেই দেশে এখনো ধর্মবিরোধী কার্যকলাপ আইন বিরুদ্ধ সেই দেশে হঠাৎ একজন মানুষ এসে যদি দাবি করে বসে যে ‘শুধু মুসলমান হবার অপরাধেই আমি নির্যাতিত’ তাহলে তাকে আর তার কাজকর্মকে পরীক্ষা করে দেখতেই হয়।

আর তার কর্মকাণ্ড পরীক্ষা করলে দেখা যায় এই লোকটি শাহবাগ আন্দোলনের শুরু থেকেই লাখো লাখো মানুষের আন্দোলনকে নাস্তিক্যবাদী আন্দোলন হিসেবে প্রচার করে আসছিলো। এই লোকটি নিজের প্রচারযন্ত্র ‘আমার দেশ’ পত্রিকা ব্যাবহার করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা সাধারণ মানুষের গণ আন্দোলনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করে, এবং তার এই চক্রান্তের পথ ধরে এই পত্রিকাটি শাহবাগের সাথে সম্পৃক্ত ব্লগারদের নাম পরিচয় লিস্ট আকারে প্রকাশ করে দেয় এবং পরবর্তীতে এই লিস্ট ধরে ধরেই ব্লগারদের হত্যা করা হতে থাকে।

২০১৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি আমার দেশ পত্রিকা শিরোনাম করে এই ভাষায়-

‘শাহবাগে ফ্যাসিবাদের পদধ্বনি: গৃহযুদ্ধের উস্কানি বক্তাদের গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার : আওয়ামী বুদ্ধিজীবীদের রণহুঙ্কার’। এ প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় শাহবাগ আন্দোলন নাকি আওয়ামী লীগ এবং বামদলগুলোর দখলে। এই প্রতিবেদনের ভেতর মিথ্যাচার করা হয়। ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের বক্তব্যে তুলে ধরে বলা হয়, ‘আমার জীবনে এত আনন্দের দিন আর কখনও আসেনি। যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে আজকের ২০১৩ সাল একাত্তর সালে রূপান্তরিত হয়েছে। শিবিরকে প্রতিহত করতে আমাদের রাস্তায় লাঠিসোটা নিয়ে নামতে হবে।’

অথচ সেই বক্তব্যের সরাসরি শ্রোতা হিসেবে নিঃসঙ্কচিত্তে সাক্ষ্য দিতে পারি মুহম্মদ জাফর ইকবাল সেদিন ‘শিবিরকে প্রতিহত করতে আমাদের রাস্তায় লাঠিসোটা নিয়ে নামতে হবে।’ এমন কোন কথা বলেননি। (আমার দেশ পত্রিকার ৯ ফেব্রুয়ারির কপি, তথ্য ও ছবি কৃতজ্ঞতাঃ শাহবাগ জার্নাল)

যাই হোক মাহমুদুর রহমান আর তার আমার দেশ পত্রিকা কেমন ভাবে এই দেশে সাম্প্রদায়িকতা উসকে দিয়েছিল দিনের পর দিন সেটা সচেতন পাঠক মাত্রই জানেন। আমি একটু সহজ করে বলি, ধরেন কোন একটি ঘটনায় অন্যায়ভাবে চারজন ব্যাক্তিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করলো, দেখা যাবে আমার দেশ শিরোনাম করবে এমন ভাষায়- ‘হিন্দু পুলিশের হাতে চার নিরীহ মুসল্লি গ্রেপ্তার’। আবার শাহবাগে ফিরে যাই। মশিউল আলম ২০১৩ সালে জুন মাসে ১১ প্রথম আলো পত্রিকায়- ‘আমার দেশ-এর ‘সাংবাদিকতা’ শিরোনামে একটি বিশ্লেষণী কলাম লেখেন। আমি সেই কলাম থেকে কিছু কিছু সাহায্য নিচ্ছি-

১) “..শাহবাগ আন্দোলনের উত্তাল পর্বে ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে ব্লগার রাজীব হায়দার খুন হওয়ার চার দিন পর ২০ ফেব্রুয়ারি পত্রিকাটির প্রথম পাতায় প্রধান প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিল: ‘ব্লগে নাস্তিকতার নামে কুৎসিত অসভ্যতা।’ ওই প্রতিবেদনের সঙ্গে ছাপা হয়েছে দুজন ব্লগারের ছবি ও নাম; কৌশলে তাঁদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে ‘নাস্তিক’ ও ‘ইসলামবিদ্বেষী’ হিসেবে। নাস্তিকতা ও ইসলামবিদ্বেষের অভিযোগে সদ্যই একজন ব্লগারকে খুন করা হয়েছে, এমন উত্তেজনাপূর্ণ পরিস্থিতিতে আরও দুজন ব্লগারের ছবি ও নাম প্রথম পাতায় প্রকাশ করে আমার দেশ আসলে কী চেয়েছিল? আরও কয়েকজন ব্লগারের নাম ‘নাস্তিক ও ইসলামবিদ্বেষী’ বিশেষণসহ ছাপা হয়েছে একাধিকবার। সদ্য নিহত ব্লগার রাজীবের মতো পরিণতি এই ব্লগারদেরও হোক—এ রকমই কি ছিল আমার দেশ-এর প্রচ্ছন্ন আহ্বান?”।

২) “২৫ ফেব্রুয়ারি ‘নাস্তিক ব্লগারদের ফাঁসি চাই’ সাধারণ শিরোনামে ‘অনলাইন পাঠকের ভাবনা’য় ছাপা হয়েছে একজন ব্লগারের সঙ্গে জনপ্রিয় লেখক মুহম্মদ জাফর ইকবালের ছবি। ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, ‘নাস্তিক ব্লগার (…)-এর সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে লেখক জাফর ইকবাল।’ কয়েকজন ব্লগারের ধর্ম অবমাননার সঙ্গে ওই লেখককে পরোক্ষভাবে জড়িয়ে এই ছবি ও এর উদ্দেশ্যপূর্ণ ক্যাপশন ছাপানোর মধ্য দিয়ে লেখকের ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকে মারাত্মক ঝুঁকির মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছে।”

৩) “আরেক জনপ্রিয় লেখক আনিসুল হকেরও ব্যক্তিগত নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন করেছে পত্রিকাটি। ২৮ মার্চ আনিসুল হকের ছবিসহ একটি প্রতিবেদন ছাপা হওয়ার পর আমার দেশ-এর অনলাইন সংস্করণে কিছু পাঠক লেখককে শারীরিকভাবে আক্রমণ করার উসকানি দিলে সেটা আবার মুদ্রণ সংস্করণে ছাপা হয়েছে। ব্যক্তির নিরাপত্তার জন্য ভয়ংকর হুমকি সৃষ্টিকারী এমন আচরণ শুধু সাংবাদিকতার নৈতিকতাবিরোধীই নয়, গুরুতর ফৌজদারি অপরাধও বটে।”

৪)  “ব্লগার রাজীব খুন হওয়ার তিন দিন পরই ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম পাতায় দুই কলামে রাজীবের ছবিসহ একটি লেখা ছাপা হয়েছে ‘ধর্মদ্রোহী নষ্ট তরুণের প্রতিকৃতি ব্লগার রাজীব’ শিরোনামে। সদ্য নিহত তরুণটির চরিত্র হননের মাধ্যমে তাঁর হত্যাকে জায়েজ বলে মত গঠনের চেষ্টা সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। তা ছাড়া ওই লেখায় রাজীবের সঙ্গে জড়িয়ে যে দুই নারীর নাম ছাপা হয়েছে, তাতে তাঁদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক সম্মানের হানি ঘটেছে। লেখাটির শুরু: ‘প্রচণ্ড ইসলামবিদ্বেষী ব্লগার রাজীবের হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে রয়েছে তার গার্লফ্রেন্ড…। …ছাড়াও আরেক প্রেমিকা…-এর সঙ্গে অবাধ মেলামেশার তথ্য পাওয়া গেছে…।’ এই নারীদের ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সংক্ষুব্ধ হওয়ার যথেষ্ট কারণ ঘটেছে ওই লেখাটিতে। তাঁরা পত্রিকাটির বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ চাইতে পারতেন।”

৫) “ব্লগার রাজীব খুন হওয়ার পর থেকে আমার দেশ শাহবাগ আন্দোলনকে ‘নাস্তিক ব্লগারদের তথাকথিত গণজাগরণ মঞ্চ’ হিসেবে প্রচার করেছে। ঢালাওভাবে শাহবাগের সব তরুণ-তরুণীকে ‘নাস্তিক ও ইসলামবিদ্বেষী’ বলতে চেয়েছে। ১৯ ফেব্রুয়ারি পত্রিকাটির এক সম্পাদকীয়তে লেখা হয়েছে, ‘থাবা বাবা গংদের ব্লগে চোখ বুলালে স্পষ্ট ধরা পড়ে যে আমাদের তরুণ প্রজন্মের একটা অংশ একেবারে পচে গেছে। শাহবাগ চত্বরে তাদের কথার তালে তালে তালি দিয়ে নৃত্যরতদের সংখ্যা দেখে বলা যায়, এই পচে যাওয়া তারুণ্যের অবয়ব একেবারে ক্ষুদ্র নয়। এরা শিক্ষিত, ইন্টারনেট ব্যবহারে অভ্যস্ত এবং অবশ্যই কোনো না কোনো বিবাহিত দম্পতির সন্তান।’ শেষ বাক্যের দ্বিতীয় অংশটির ইঙ্গিত শুধু ভব্যতাবর্জিত নয়, মারাত্মকভাবে উসকানিমূলকও বটে। উত্তপ্ত সময়ে এমন উসকানি ছিল অত্যন্ত বিপজ্জনক। একই সম্পাদকীয়তে আরও লেখা হয়েছে, ‘ইন্টারনেটের মাধ্যমে ফেসবুকে নিজস্ব ব্লগ বানিয়ে তারা যেসব কল্পনাতীত অশালীন শব্দ ও বাক্যের বিন্যাস ঘটিয়েছে, তা উদ্ধৃত করলে আমার দেশের সম্পাদকীয় পাতা অপবিত্র হওয়ার সমূহ আশঙ্কা আছে।’ মজার বিষয়, ওই দিনই পত্রিকাটির প্রথম পাতা ‘অপবিত্র’ করে ফেলা হয়েছে। অর্ধেক পাতাজুড়ে হেফাজতে ইসলামের নামে এক বিজ্ঞাপন ছাপা হয়েছে, যেখানে কয়েকজন ব্লগারের ওই সব লেখাসংবলিত ব্লগপোস্টের স্ক্রিনশট ছাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। তা ছাড়া কয়েকজন ব্লগারের এ রকম লেখালেখি ইন্টারনেট ঘেঁটে বের করে আমার দেশ যেসব প্রতিবেদন তৈরি করে প্রচার করেছে, সেসব প্রতিবেদনেও কোরআন, মহানবী (সা.) ও আল্লাহ সম্পর্কে মুদ্রণের অযোগ্য শব্দ ও বাক্য হুবহু উদ্ধৃত করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমে মানহানি, অপবাদ ইত্যাদির (লাইবেল) সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে মানহানিকর উক্তি, শব্দ বা ছবি হুবহু উদ্ধৃত বা পুনঃপ্রকাশ করা হলে আবারও মানহানি ঘটে, অপবাদের পুনঃপ্রচার ঘটে। সাধারণত এর উদ্দেশ্য হয় অসৎ, প্রতিহিংসামূলক। আমার দেশ দৃশ্যত এসব করেছে সমাজে অস্থিরতা বাড়ানো ও সহিংসতা সৃষ্টির লক্ষ্যে।”

মশিউল আলমের লেখাটি আমার দেশ পত্রিকা সেই সময়ে  কি ভয়াবহভাবে বিদ্বেষ ছরিয়েছিলো সেটা বুঝে উঠতে পাঠকদের অনেকটা সহায়তা করবে। সবশেষে সবচাইতে আলোচিত একটি খবরের দিকে দৃষ্টিপাত করতে চাই। সেই কাবা শরীফের গিলাফ পরিবর্তন সম্পর্কিত খবরটি আরেকবার ঝালিয়ে নেয়া যায়। আলোচ্য বছরে আমার দেশ পত্রিকায় ৬ ডিসেম্বর প্রকাশিত একটি রিপোর্ট দেখুন –

অথচ এমন কোন ঘটনাই সেদিন ঘটে নাই। কি ভয়াবহ একটা বিষয় কল্পনা করতে পারেন। খোঁজ করলে দেখা যায় ১৮ অক্টোবর ২০১২ তে প্রকাশিত কাবার গিলাফ পরানোর সময় তোলা ছবিটিকে একটি আরবি সাইট থেকে নিয়ে বাংলাদেশের রাজাকারদের বাঁচাতে মানববন্ধন নাম দেয়া হয় আমার দেশ পত্রিকায় –

কাবা শরীফের গিলাফ পরিবর্তনের মত একটি বড় ঘটনাকে সাইদী-নিজামীদের মত নরপশুদের মুক্তির দাবিতে করা মানব-বন্ধন হিসেবে প্রকাশ করে আমার দেশ যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে সহানুভূতি তৈরি করার প্রয়াস চালায়। (আমার দেশ পত্রিকার ছবি এবং মূল আরবি পত্রিকার ছবি ব্লগার দিগন্ত বাহারের ব্লগ পোস্ট থেকে সংগ্রহীত)।

উপরের সবগুলো ঘটনাকে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় আমার দেশ পত্রিকা কিংবা মাহমুদুর রহমান কখনোই ‘ইসলাম’ অনুসরণের কারণে নির্যাতিত হননি বরং ‘ইসলাম নিয়ে ব্যবসা’ কিংবা অন্য ভাবে বললে ‘জাময়াতে ইসলামী সম্পর্কে মিথ্যা অপপ্রচার’ করার অপরাধেই আইনের আওতায় এসেছিলেন। আজ মাহমুদুর রহমানকে স্মরণ করিয়ে দিতে হয় মাওলানা ভাসানীর কথা, তিনি বলেছিলেন-

নীল নদের পানি যেমন নীল নয়,
জামাতে ইসলাম মানেই ইসলাম নয়…”

কাবা শরিফের সম্মানিত খতিব’কে নিয়ে মিথ্যা খবর পরিবেশন করে, লক্ষ লক্ষ সাধারণ মানুষকে নাস্তিক তকমা দিয়ে, নিরপরাধ মানুষকে নাস্তিক সম্বোধন করে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়ে, সাম্প্রদায়িক সংবাদ পরিবেশন ইত্যাদি করে… মাহমুদুর রহমান কখনোই ইসলামের সেবা করেননি। এসব কর্মকাণ্ডের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই।

 

নিজের প্রকাশ্য অপরাধের জন্য বিচারাধীন আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক নিজের অপরাধকে ইসলামের সাথে গুলিয়ে ফেলে প্রকারান্তে ইসলামকেই পুনরায় অবমাননা করছেন। বিগত বছর খানেক ধরে উগ্রবাদী সংগঠনদের হাতে ব্লগার-লেখক-প্রকাশক হত্যা হচ্ছে, তবে কিছুদিন আমরা দেখেছি এমন ঘটনার সংখ্যা কমে এসেছে। দেশের ব্লগার-লেখক-প্রকাশক আর প্রগতিশীল আন্দোলনের সাথে জড়িত মানুষেরা যখন একটু সস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে তখন আবার আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদকের উস্কানিমূলক বক্তব্য আমাদের শঙ্কিত করে তুলছে। আজ এই জামায়াত-প্রেমী, ধর্ম ব্যবসায়ীটিকে চিনে নেয়া আমাদের একান্ত প্রয়োজন।

লেখক: অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট

-ঢাকাটাইমস

এই সংবাদটি 252 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com