সিলেটসহ দেশব্যাপী জনভোগান্তি চরমে,ধর্মঘট অব্যাহত

প্রকাশিত: ১১:১৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১, ২০১৭

ডেস্ক রিপোর্ট:
দুই চালকের দণ্ডের প্রতিবাদে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। এতে সারাদেশের সড়কপথের যোগাযোগব্যবস্থা অচল হয়ে পড়েছে। স্থবির হয়ে পড়েছে পুরো দেশ। রাজধানীর গাবতলীতে রাতভর পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শ্রমিকরা এখনো গাবতলীর রাস্তায় বিক্ষোভ করছে। তবে পুলিশি অভিযানে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েছে।

পরিবহন ধর্মঘটের কারণে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগব্যবস্থা বন্ধ রয়েছে। বাস-ট্রাকসহ কোনো গণপরিবহন চলছে না। এমনকি সিএনজি অটোরিকশা চলাচলেও বাধা দিচ্ছে শ্রমিকরা। প্রাইভেট গাড়ি, মোটরসাইকল আর রিকশা ছাড়া রাজধানীতে সবধরনের যানচলাচল বন্ধ রয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এই ধর্মঘটের কারণে জনভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে। সাধারণ যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। এক স্থান থেকে আরেক স্থানে যাওয়ার পরিবহনব্যবস্থা বন্ধ থাকায় স্থবির হয়ে পড়েছে দেশের যোগাযোগব্যবস্থা। এতে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে দেশ।

বুধবার সকালে রাজধানীতে গণপরিবহন না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে অফিসগামী যাত্রীদের। রাস্তায় কোনো পরিবহন না পেয়ে কেউ পায়ে হেঁটে, কেউ রিকশা-ভ্যানে করে অফিসের দিকে রওয়ানা করেছেন।

এদিকে গাবতলীতে রাতভর পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে চার পুলিশসহ বেশ কয়েকজন শ্রমিক আহত হয়েছেন। শ্রমিকেরা পুলিশের একটি রেকার, সার্জেন্টের মোটরসাইকেল ও পুলিশ বক্সে আগুন দিয়েছে। কয়েকটি যানবাহন ও সংবাদ কর্মীদের ক্যামেরা ভাঙচুর ও মারধরের ঘটনাও ঘটেছে।

পুলিশ জানায়, রাত আটটার দিকে গাবতলী বাস টার্মিনালের সামনের সড়ক দিয়ে যান চলাচলে বাধা দেয় আন্দোলনকারীরা। এ সময় তারা কিছু গাড়িও ভাঙচুর করে। পুলিশ বাধা দিলে তারা সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে। গাবতলী বালুর মাঠের পাশের পুলিশ বক্স ও একটি রেকারে আগুন ধরিয়ে দেয় আন্দোলনকারীরা। পরে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে রাত ১১টার দিকে বিপুলসংখ্যক র‌্যাব সদস্য পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কঠোর অবস্থান নেয়। রাতভর থেমে থেমে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

বুধবার ভোর থেকে শ্রমিকরা গাবতলীর রাস্তায় বিক্ষোভ করছে। শ্রমিকদের রাস্তা থেকে সরাতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা পুলিশের দিকে ইট-পাটকেল ছুড়ে মারছে। সাংবাদিকদের ওপরও তারা ক্ষুব্ধ। কোনো সাংবাদিক দেখলেই হামলা করছে।

সম্প্রতি তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এক বাসচালকের আজীবন কারাদণ্ড দেয় মানিকগঞ্জের একটি আদালত। এর প্রতিবাদে দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় পরিবহন ধর্মঘট শুরু করে শ্রমিকরা। এরই মধ্যে সাভারে এক নারীকে বাসচাপায় নিহতের ঘটনায় আরেক চালককে মৃত্যুদণ্ড দেয় ঢাকার একটি আদালত। দুই চালকের দণ্ডকে কেন্দ্র করে সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন।

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, চালকদের সাজা দেয়ার বিষয়টি আদালতের বিষয়। এ ব্যাপারে শ্রমিকরা সংক্ষুব্ধ হলে তারা আদালতে তাদের বক্তব্য তুলে ধরতে পারেন, এজন্য কোনোভাবে দেশের মানুষকে জিম্মি করতে পারেন না। এই ধর্মঘটকে অনৈতিক ও অন্যায্য দাবি করে তা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এই সংবাদটি 109 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com