অচলদেশ, গাবতলীতে সংঘর্ষ, শ্রমিক নিহত

প্রকাশিত: ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ১, ২০১৭

ডেস্ক রিপোর্ট:  রাজধানীর গাবতলীতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে পরিবহন শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এতে একজন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। তার নাম শাহ আলম। তিনি বৈশাখী পরিবহনের কর্মী ছিলেন। পুলিশের টিয়ারসেলে তার মৃত্যু হয় বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অনির্দিষ্টকালের ডাকা ধর্মঘট সফল করতে রাতে রাস্তায় অবস্থান নেয় শ্রমিকরা। পুলিশ তাদের সরাতে গেলে বাঁধে সংঘর্ষ। রাতভর দফায় দফায় চলে সংঘর্ষ। সকালে শ্রমিকদের সরাতে যৌথ অভিযানে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ সময় পুলিশের রাবার একটি রাবার বুলেট শাহ আলমের পেটে লাগে। তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে তাকে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়। পুলিশ তাকে বেলা ১১টার দিকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যায়। তার লাশ মর্গে রাখা আছে।

দুই চালকের দণ্ডের প্রতিবাদে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। এতে সারাদেশের সড়কপথের যোগাযোগব্যবস্থা অচল হয়ে পড়েছে। স্থবির হয়ে পড়েছে পুরো দেশ।

মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এই ধর্মঘটের কারণে জনভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে। সাধারণ যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। এক স্থান থেকে আরেক স্থানে যাওয়ার পরিবহনব্যবস্থা বন্ধ থাকায় স্থবির হয়ে পড়েছে দেশের যোগাযোগব্যবস্থা। এতে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে দেশ।

বুধবার সকালে রাজধানীতে গণপরিবহন না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে অফিসগামী যাত্রীদের। রাস্তায় কোনো পরিবহন না পেয়ে কেউ পায়ে হেঁটে, কেউ রিকশা-ভ্যানে করে অফিসের দিকে রওয়ানা করেছেন।

সম্প্রতি তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এক বাসচালকের আজীবন কারাদণ্ড দেয় মানিকগঞ্জের একটি আদালত। এর প্রতিবাদে দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় পরিবহন ধর্মঘট শুরু করে শ্রমিকরা। এরই মধ্যে সাভারে এক নারীকে বাসচাপায় নিহতের ঘটনায় আরেক চালককে মৃত্যুদণ্ড দেয় ঢাকার একটি আদালত। দুই চালকের দণ্ডকে কেন্দ্র করে সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন।

এই সংবাদটি 196 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com