নদী এখন মরা গাং, পানি সংকটে বিশ্বনাথ

প্রকাশিত: ১২:৩৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ৩, ২০১৭

নদী এখন মরা গাং, পানি সংকটে বিশ্বনাথ

এ.এইচ.এম ফিরোজ আলী: জাতীয় ‘দৈনিক সমকাল, এবং যুক্তরাজ্যের বে-সরকারি টিভি চ্যানেল এস’ এর বিশ্বনাথ প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম খায়েরের অসুস্থতার খবর শোনে কয়েক দিন পূর্বে তাঁকে দেখতে তাঁর বাসায় যাই। সঙ্গে ছিলেন তরুণ সংবাদকর্মী আব্দুস সালাম। বাসায় গিয়ে দেখি খায়েরের মুখ, গলা ফুলা এবং কথা বলতে পারছেন না। তাঁকে গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে বারবার কুলি করার কথা বললে তিনি আমার দিকে হ্যা করে তাকিয়ে রইলেন। তারপর কোন রকম ভাঙ্গা কন্ঠস্বরে জানালেন, বাসার নলকূপে পানি আসে না, পানিতে প্রচুর আয়রন, কাপড়-চোপড় ধোয়া ও গোসল করা যায় না। পান করার পানিও নেই। বড় মুশকিলে আছি। বাজার থেকে বোতলের পানি কিনে এনে চলতে হয়। এ কথা শুধু সংবাদকর্মী খায়েরের নয়, সমগ্র বিশ্বনাথবাসীর কথা। প্রতিটি গ্রাম, হাট-বাজার, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মাদ্রাসায় তীব্র পানি সংকটের কারণে জীবন বিপর্যস্ত। কৃষি উৎপাদন হুমকির সম্মুখীন। সর্বত্র পানির অভাবে হাহাকার চলছে। পানির অভাব থাকায় অনেক প্রবাসী সপরিবারে দেশে আসেন না। যারা আসেন তাদের সন্তানরা পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়ে গেলে আর দেশে আসতে রাজী হয় না।
বিশ্বনাথ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের ৭২টি ওয়ার্ডে ৪৩৬টি গ্রাম রয়েছে। রামপাশা ইউনিয়নের আমতৈল, জমসেরপুর, লামাকাজি ইউনিয়নের মির্জার গাঁও, মাহতাবপুর, দেওকলস ইউনিয়নের সত্রিশ, সৎপুর এবং খাজাঞ্চী ইউনিয়নের বাবুনগর সহ বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ২০ হাজারের মত মৎসজীবি এবং ১০ হাজারেরও বেশি নৌকা ব্যবসায়ী দারুন অভাব অনটনে দিন-যাপন করছেন। তারা বাপ-দাদার পেশা ছাড়তেও পারছেন না, অন্য কাজও নেই, তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে জীবনও বাঁচাতে পারছেন না। শত শত প্রজাতির মাছ, পশু-পাখি জীব-বৈচিত্র বিলীন হয়ে যাচ্ছে। বৃক্ষ, বাঁশ উজাড় হচ্ছে। এদিকে ভূ-পৃষ্ঠে পানির অভাবে, অন্যদিকে প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ঘাস, লতা-পাতা কমে যাওয়ায় গোবাদি পশু পালনও একেবারে কমে গেছে। “গোয়াল ভরা গরু, গোয়ালা ভরা ধান”- এ প্রবাদ এখন কৃষকের স্বপ্ন। বলতে গেলে কৃষকরাও বেকার। উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহমান বাসিয়া ও খাজাঞ্চী নদী মরে যাওয়ায় নদীর সাথে সংযোগকারী খাল-বিল নানা জলাশয় ভরাট হওয়ায় এমন দুরবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সর্বত্র তীব্র পানি সংকট। বিশুদ্ধ পানি পাওয়া তো দূরের কথা গবাদি পশু ধোয়া-মুচা কৃষি ক্ষেত্রে দেয়ার মত পানিও নেই। এমন পরিস্থিতিতে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের মাথা ব্যথা কিংবা ভবিষ্যত পরিকল্পনা নেই বলে মনে হচ্ছে। ইতিহাস খ্যাত খরস্রোতা সুরমা নদীর উপনদী হচ্ছে বাসিয়া ও খাজাঞ্চী নদী। এ নদী ২টি প্রায় ২০ বছর ধরে ভরাট হয়ে মরা গাং নামে খ্যাতি অর্জন করেছে। দখলবাজদের অত্যাচারে নদী ২টির অস্তিত্ব হারাচ্ছে।
খাজাঞ্চী নদীটি সিলেটের সদর উপজেলার পশ্চিম সীমান্তে ধনপুর গ্রামের দক্ষিণে, দক্ষিণ দিকে বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের মুফতীর বাজার-কিশোরপুর-ঘাষিগাঁও-ফুলচন্ডী গ্রামের পাশ দিয়ে লামাকাজি ইউনিয়নের খাজাঞ্চী গাঁও গ্রামের পাশ দিয়ে দক্ষিণমুখী হয়ে খাজাঞ্চী নামধারণ করে রাজাগঞ্জ বাজার, আশুগঞ্জ বাজার, বৈরাগী বাজার, সিংগেরকাছ বাজার এবং লামা টুকেরবাজার হয়ে জগন্নাথপুরের রসুলগঞ্জ বাজার হয়ে কুশিয়ারা নদীতে গিয়ে মিলিত হয়েছে। এ নদী ভরা যৌবনের সময় দুই তীরের হাজার হাজার মানুষের কোন অভাব ছিল না। মানুষের জীবন-জীবিকার অন্যতম সম্পদ ছিল এ নদী। সুরমার ভাঙ্গন থেকে সিলেট-ছাতক রেললাইন রক্ষার জন্য ১৯৭৮ সালে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সময় তৎকালীন যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী মরহুম দেওয়ান তৈমুর রাজা চৌধুরীর প্রচেষ্টায় ধনপুর থেকে সোজা পশ্চিম দিকে চাঁনপুর পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার জায়গা খনন করে সুরমা নদীর পানির পথ সোজা করে দেয়া হয়। ফলে মুফতীর বাজার থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমমুখী সুরমা নদীটি হাজারীগাঁও পর্যন্ত ইউটান অবস্থায় ভরাট হলে খাজাঞ্চী নদীটি মৃত্যু মুখে পতিত হয়। সাথে সাথে খাজাঞ্চী নদীর সাথে সংযোগকারী অনেক ছোট বড় খাল-বিল, জলাশয় যেমন- রহিমপুর-ইসলামপুর খাল, চান্দীর খাল, পাকিচিরি ইছামারা-হামদরচক-কুমারপাড়া-দোয়ারীগাঁও কল্লারখাল (ছৈলা আফজালাবাদ ইউনিয়ন), চরারবাজার-কুমারপাড়া খাল, সোনালী বাংলা বাজার-লাকেশ্বর বাজার-বুরাইয়া বাজার খাল, বৈরাগী-নওধার-চাউলধনী হাওর খাল, পাচলা-রামধানা-লামারচক খাল সহ অসংখ্য খাল ছিল। ১৯৮০ সাল পর্যন্ত সিলেট শহরের কাজিরবাজার কালিঘাট থেকে ৪০/৫০টি লঞ্চ যাত্রী ও মালামাল নিয়ে খাজাঞ্চী নদী হয়ে জগন্নাথপুরের রসুলগঞ্জ বাজারে যাতায়াত করতো। ঢাকা-ভৈরব-নেত্রকোনা-ময়মনসিংহ সহ ভারী শিল্পের মালামাল আনা নেয়া করা হতো খাজাঞ্চী নদীর পানি পথ দিয়ে। এ নদীর তীরে আমার বাড়ী। ছোটবেলা এ নদীতে কত জাতের মাছ ধরেছি, হাওরে দেশি-বিদেশি নানা প্রজাতির ঝাকে ঝাকে পাখির দল আসতে দেখেছি।সম্প্রতি সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় ১নং লামাকাজি ইউনিয়নের তিলকপুর-হাজারীগাঁও গ্রামের উত্তর থেকে দক্ষিণ দিকে খাজাঞ্চীগাঁও পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার ‘ সুরমা’ নদী ভরাট হয়ে মরা খালের মত হয়েছে। এই দুই কিলোমিটার নদী খনন করা হলে খাজাঞ্চী নদীর প্রায় একশত কিলোমিটার নাব্রতা ফিরে আসবে এবং পরবর্তীতে জরীপ করে ভরাটকৃত স্থানগুলো খনন করলে নদীটির জীবন ফিরিয়ে আসবে।
ভাসিয়া নদীটি সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পাশে টুকেরবাজারের সোজা দক্ষিণে সুরমা নদী থেকে উৎপত্তি হয়ে কামালবাজার-মুন্সীর বাজার এবং বিশ্বনাথ থানা সদরের উপর দিয়ে কালিগঞ্জ বাজার হয়ে দেওকলস ইউনিয়নের গোদামঘাট দিয়ে কুশিয়ারা নদীতে মিলিত হয়েছে। এ নদীর সাথে সংযোগকারী অনেক খাল-বিলও রয়েছে। ভাসিয়া নদী রক্ষায় সরকার প্রকল্প গ্রহণ করলেও খাজাঞ্চী নদী বাঁচাতে কোন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়নি। কয়েক বছর পূর্বে সরকার ভাসিয়া নদী সংযোগকারী উপনদী চরচন্ডী নদী, খননের জন্য দুই দফা অর্থ বরাদ্দ করা হলে নদীটির তীরের কিছু ঘাস পরিষ্কার করে ঠিকাদার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। গত বছর ভাসিয়া সুরমা নদীর মুখ থেকে বিশ্বনাথ থানা সদর পর্যন্ত প্রায় ১৮ কিলোমিটার নদীপথ খননের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। কিন্তু নদীর সীমানা চিহ্নিত না করে কোন রকম জোড়াতালি দিয়ে নদীর তীরের ঘাস পরিষ্কার ও যথসামান্য খনন করে বরাদ্দকৃত অর্থ হরিলুট করা হয়। চলতি বছর ৭ কিলোমিটার নদী বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের সামন থেকে খননের জন্য এক কোটি আশি লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয় এবং দুই তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে নদীর কাজ খননের নির্দেশ দেয়া থাকলেও অবৈধ উচ্ছেদ না করে নদী খনন করা শুরু হয়েছে। পত্রিকান্তরে খবর বেরিয়েছে অবৈধ দখলদাররা তিন কোটি টাকার বাজেট করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করা হয়েছে। এদিকে স্থানীয় জনগণ অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ না করে নদী খননের কাজ শুরু করায় মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছেন। একজন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নদী খননের ঠিকাদার হওয়ায় ইতিমধ্যে একটি সিন্ডিকেট গঠন করে অবৈধ দখল উচ্ছেদ ছাড়াই কাজ শুরু করেছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় প্রশাসন যেন দড়ি টানাটানি শুরু করেছেন। একে অন্যের উপর ভর করে সবকিছু হজম করার চেষ্টা করছেন। বাঁচাও বাসিয়া আন্দোলনের আহ্বায়ক নাট্যকর্মী ফজল খানকে আন্দোলন থেকে বিরত রাখার জন্য হুমকি-দামকি দেয়া হয়েছে। তিনি থানায় জিডিও করেছেন।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সময়মতো বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবং নদী, খাল-বিল, পুকুর, জলাশয় মাটির উপরিভাগে পানি না থাকায় ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর-এ অঞ্চলে একেবারে নিচে নেমে গেছে। ছাতক-জগন্নাথপুর থানার শতাধিক গ্রামেও এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। মাটির উপরিভাগের পানি বা বৃষ্টির পানি ছুইয়ে ছুইয়ে মাটির নিচে গিয়ে ভূ-গর্ভস্থ পানি জমা হয়। মাটির উপরে পানি না থাকলে মাটির নিচেও পানি থাকে না। বিশ্বনাথ-জগন্নাথপুর-ছাতকের প্রতিটি ঘরে ঘরে নলকূপ না থাকলেও প্রতি বাড়ীতে বর্তমান সময়ে একটি করে নলকূপ রয়েছে। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায় ষাট দশকের আগ পর্যন্ত বেশিরভাগ মানুষ নদী, পুকুর এর পানি পান করতেন। তখন ডায়রিয়া সহ পানিবাহিত রোগে অনেক লোক মারাও যেতেন। সত্তর দশক থেকে নলকূপ বসানো শুরু হলে মাত্র ৭০ থেকে ৮০ ফুট মাটির নিচে পানি পাওয়া যেতো। ৮০ থেকে ৯০ দশকে ৪০০ থেকে ৫০০ ফুট গভীরে পাইপ দিলে পানি পাওয়া যেতো। দিন যত যাচ্ছে তত ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নামছে। বর্তমান সময়ে ১ হাজার থেকে ১২শ ফুট গভীরে নলকূপ বসানো হচ্ছে। এসব গভীর নলকূপেও অনেক সময় পানি আসে না। যারা ২টা বা ৩টা ফিল্টার দেন তাদের নলকূপে মোটামুটি পানি আসে। তারপরও অসুবিধা হচ্ছে গভীর নলকূপের আশ-পাশে অগভীর নলকূপ থাকলে সেগুলোতে একেবারে পানি আসে না। বৎসরে প্রায় ৬ মাস নলকূপে পানি আসে। বিশ্বনাথে মসজিদ, মাদ্রাসা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে কয়েক হাজার নলকূপ রয়েছে। এসব নলকূপে পানি আসে না। যারা ল্যাট্রিনের পাশে নলকূপ স্থাপন করেছেন সে সমস্ত নলকূপে পঁচা, ময়লা, দুর্গন্ধময় পানি আসে। স্বচ্ছ, পরিষ্কার পানির অভাবে লোকজন সাদা পায়জামা-পাঞ্জাবী, শাড়ী, ধূতী এখন খুব কম লোকে ব্যবহার করেন। ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠান পানির অভাবে কমে যাচ্ছে। এমনকি পানির অভাবে কৃষকের মেরুদন্ড গবাদী পশু পালন কমে গেছে। অতীতে গ্রামের মানুষ মাঘ-ফাল্গুন মাসে প্রতিযোগিতামূলক ভাবে নিজের বাড়ীর পুকুর খাল খনন করতেন। বিভিন্ন জেলার শত শত শ্রমিক এ অঞ্চলে এসে মাটির কাজ ও করতেন। এখন কোথায়ও পুকুর বা খাল খনন করতে দেখা যায় না। কিছু পুকুর থাকলেও মাছ চাষ করে পানি ব্যবহারের অযোগ্য করা হয়েছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে পুকুর, খাল, জলাশয়ও ভরাট করা হচ্ছে। ২০০৪ সালের বন্যায় নদী ও খাল-বিল ভরাটের কারণে উপজেলা সদরের উপর দিয়ে কোমর পানি পর্যন্ত বন্যার পানি প্রবাহিত হয়েছে।
চলতি বছর ২৭ জানুয়ারি ‘নৌপথে নাব্য বাড়ানো, ২২ লক্ষ কোটি টাকার মহা পরিকল্পনা শিরোনামে একটি সংবাদ জাতীয় একটি দৈনিকে প্রকাশিত হয়। সংবাদে বলা হয় সারাদেশের বড় নদী পদ্মা, মেঘনা, যমুনা সহ ৪০৫টি নদী, ৬ হাজার ৫৩৫টি খাল এবং ১৮ হাজার ৪০৩টি পুকুর খননের একটি মহা পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এতে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ২২ লক্ষ কোটি টাকা। চলতি বছরের জাতীয় বাজেটের প্রায় ৭ গুন। ১৫ বছরের মহা এ পরিকল্পনায় তিন স্তরের পরিকল্পনায় তিনটি মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। মহা পরিকল্পনার এ খসড়া প্রস্তুত করেছে ড্রেজিং সংক্রান্ত জাতীয় সমন্বয় কমিটি। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমদ খানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটিতে ৭ জন সিনিয়র সচিব, নৌবাহিনীর সহকারী প্রধান ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক, সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল এন্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস ও ইন্সটিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংয়ের নির্বাহী পরিচালক এবং বুয়েটের পানি সম্পদ প্রকৌশলীর বিভাগের একজন অধ্যাপক কমিটির সহায়ক কর্মকর্তা হিসাবে কাজ করছেন। কমিটি মাষ্টার প্ল্যান চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেবেন। প্রথম ধাপে ৫ বছর, দ্বিতীয় ধাপে ১০ বছর এ ১৫ বছরে মহা পরিকল্পনা বাস্তবায়নের টার্গেট নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের স্বাধীনতার আগে বা পরে কখনও নদী কেন্দ্রিক এ ধরনের মাষ্টার প্ল্যান তৈরি হয়নি। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে নদী খনন করা হচ্ছে এবং খনন কাজে ব্যাপক দূর্নীতির খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ ও প্রচারিত হচ্ছে। নৌবাহিনীর সাথে সেনাবাহিনী সংযুক্ত করা হলে নদী খনন কাজে দূর্নীতি কমে আসবে বলে অনেকেই ধারনা পোষন করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী সহ সরকারের উর্ধ্বতন মহলের নিকট দাবী সিলেটের সুরমা, কুশিয়ারা, কোয়াই, মনু, কালনী সহ সিলেটের সকল ভরাটকৃত ছোট বড় নদী এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত করে সিলেটবাসীকে মরুভূমির হাত থেকে রক্ষা করবেন। কারণ বাংলাদেশ বিনির্মাণে সিলেটবাসীর ভূমিকা ঐতিহাসিক। সিলেটি প্রবাসীদের রেমিট্যান্সে রিজার্ভ অর্থের পরিমাণ বাড়ছে। তাই হযরত শাহজালালের পুণ্যভূমি পানির কারণে মরুভূমি হতে পারে না। মানুষর অমূল্য সম্পদ পানি সংরক্ষণে বা পৃথিবীর ভারসাম্য রক্ষায় নদী, খাল, বিল, জলাশয় খনন জরুরী।
লেখক : কলামিস্ট।

এই সংবাদটি 124 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com