পুরুষের জেলে প্রথম মহিলা সুপার শকুন্তলা

প্রকাশিত: ৫:০৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ৬, ২০১৭

পুরুষের জেলে প্রথম মহিলা সুপার শকুন্তলা

ডেস্ক রিপোর্ট:  ঘরে-বাইরে নানা ক্ষেত্রে আপন ভাগ্য জয় করার লড়াই চলেছে মেয়েদের। এ বার লৌহকপাটের অন্দরেও পুরুষদের সঙ্গে লড়াইয়ে কদম কদম এগোনোর প্রমাণ দিলেন তাঁরা। এই প্রথম রাজ্যের একটি পুরুষ জেলের সুপার-পদে নিযুক্ত হলেন এক মহিলা। শকুন্তলা সেন। গত ১ মার্চ বাঁকুড়া জেলার পুরুষ জেলের স্থায়ী সুপার নিযুক্ত হয়েছেন তিনি। দায়িত্ব নিচ্ছেন কয়েক দিনের মধ্যেই।

জানুয়ারিতে ‘হাই সিকিওরিটি’ তিহাড় পুরুষ জেলের প্রথম মহিলা সুপার হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন অঞ্জু মঙ্গলা। তার দু’মাসের মাথায় বাঁকুড়ার পুরুষ জেলের সুপার-পদে শকুন্তলার নিয়োগ মেয়েদের মুকুটে নতুন পালক। তিহাড়ে ডিজি-র পদে এর আগে বসেছেন কিরণ বেদী, বিমলা মেহরার মতো দুঁদে মহিলা অফিসার। তবে সেখানকার পুরুষ জেলে প্রথম মহিলা সুপার অঞ্জুই। এ রাজ্যেও এর আগে মহিলা জেলের সুপার হয়েছেন মহিলারা। তবে তাঁদের কাউকেই পুরুষ জেলের দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

কারা মহলের হিসেব অনুযায়ী জেলে রক্ষী ও অফিসারের পদে মহিলার সংখ্যা অনেকটাই কম। সব পুরুষ জেলেই অনেক দাগি অপরাধী থাকে। দুষ্কর্মের শাস্তি ভোগ করতে করতেও তারা নিজেদের মধ্যে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে প্রায়শই। তাদের অনেকে জেলের ভিতর থেকে সমানে হুমকি-ফোন, তোলাবাজিও চালিয়ে যায়। মহিলাদের পক্ষে এই ধরনের অপরাধীদের নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন ভেবেই এত দিন পর্যন্ত রাজ্যের পুরুষ জেলে কোনও মহিলা সুপার নিযুক্ত করা হয়নি বলে জানাচ্ছেন কারা দফতরের শীর্ষ কর্তারা। এক কর্তার কথায়, ‘‘অতীতে দু’-এক জন মহিলা কোনও কোনও মহিলা জেলের সুপার হয়েছেন। কিন্তু পুরুষ জেলের দায়িত্ব দেওয়া হয়নি তাঁদের।’’

কারা দফতর সূত্রের খবর, সারা দেশেই জেলে মহিলা কর্মী-অফিসারের সংখ্যা খুবই কম। এক কারাকর্তা বলেন, ‘‘দেশের বিভিন্ন জেলে মাত্র ২৫৩ জন মহিলা অফিসার রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে এ রাজ্যে আছেন মাত্র ১২ জন।’’ তিনিই যে এ রাজ্যের কোনও পুরুষ জেলের মহিলা সুপার, শকুন্তলাদেবী অবশ্য সেটা জানতেনই না। তবে পুরুষ জেলে কাজ করার প্রভূত অভিজ্ঞতা নিয়েই তিনি যাচ্ছেন বাঁকুড়ায়। এর আগে দমদম ও বহরমপুর পুরুষ জেলের জেলার এবং প্রেসিডেন্সি জেলের সহকারী জেলারের দায়িত্ব পালন করেছেন ওই মহিলা।

‘‘প্রথম যখন সংশোধনাগারে কাজ করতে আসি, ভয় একটু ছিলই। দীর্ঘদিন কাজ করতে করতে সেটা চলে গিয়েছে। বন্দি থাকতে বাধ্য হলেও জেলের আবাসিকেরা কিন্তু আপনার, আমার মতোই। এখন বেশ ভালই লাগে ওঁদের সঙ্গে কাজ করতে। আর পুরুষ-মহিলা বলে আমি অন্তত কোনও তফাত করি না,’’ রবিবার বললেন শকুন্তলাদেবী।
সুত্র- আনন্দবাজার

এই সংবাদটি 152 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com