বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়!

প্রকাশিত: ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০১৭

বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড়!

মাহবুব রেজা: সুপ্রিম কোর্টের সামনে ন্যায়বিচারের স্মারক হিসেবে বিশ্বব্যাপী পরিচিত গ্রিক দেবী থেমিসের অপসারণে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দেওয়া, সেই সঙ্গে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি করে আদালত ঘেরাও করার হুমকি-ধামকি সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের নীতি-নির্ধারকদেরও বেশ ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। সংগঠনটির সভাপতি মুহাম্মদ আখতার হুসাইন বুখারি ধর্মভিত্তিক মুসলিম দলগুলোকে নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে কঠোর ভাষায় সরকারকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে বলেছেন, মূর্তি যেই বসাক না কেন, এর দায়ভার পুরোটাই সরকারের ওপর বর্তায়। এটি অপসারণের জন্য সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এই মূর্তি অপসারণ না করলে হাইকোর্ট ঘেরাও করা হবে।

ওলামা লীগের এই আস্ফালন মূল দলের অনেক নেতাকে বিস্মিত করেছে। মানববন্ধন কর্মসূচিতে ওলামা লীগের বক্তারা সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে তাদের থাবাকে প্রসারিত করেছেন পয়লা বৈশাখে অনুষ্ঠিত মঙ্গল শোভাযাত্রার দিকেও। ওলামা লীগ সভাপতি বুখারি বলেছেন, আসন্ন পয়লা বৈশাখে সারা দেশে সরকারিভাবে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। তার এ সিদ্ধান্ত মুসলমানদের হিন্দুদের উৎসব পালনে বাধ্য করার শামিল। অবিলম্বে এটা বাতিল করতে হবে। কারণ ‘পয়লা বৈশাখ’ এবং ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’ বাঙালি বা মুসলমানদের সংস্কৃতি নয় বরং হিন্দুদের ধর্মীয় সংস্কৃতি।
ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক ওই মানববন্ধনে বলেন, সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে দেবী থেমিসের মূর্তি স্থাপনের প্রতিবাদে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা এবং নতুন বছরের পাঠ্যপুস্তকে বানান ভুলসহ পাঠ্যসূচি নিয়ে নানাবিধ বিতর্ক সৃষ্টির কারণে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের পদত্যাগও দাবি করেছেন তিনি।

আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা নাম প্রকাশে অপারগতা জানিয়ে বলেছেন, ওলামা লীগের সভাপতি বুখারির কথায় স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে তিনি সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে মূর্তি স্থাপনের জন্য কাকে উদ্দেশ্য করে কথা বলছেন। প্রধান বিচারপতির প্রতি তার বিদ্বেষ ফুটে উঠেছে এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। তারা প্রশ্ন তুলে বলছেন, বাংলাদেশ ওলামা লীগ কি আসলে আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন নাকি হেফাজতে ইসলামের অঙ্গসংগঠন! আর এদের খুঁটির জোরই বা কোথায়? একইসঙ্গে তারা আরও বলছেন, আওয়ামী লীগের এই অঙ্গ সংগঠনটি দেশের স্পর্শকাতর ইস্যুকে কেন্দ্র করে কোন শক্তি ও ভরসায় সরাসরি সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে? এদের পেছনে কারা ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করছে তাও খুঁজে বের করা দরকার।
দুই.
বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড় কিংবা দোকানের চেয়ে ঝাঁপ বড়- পুরান ঢাকাসহ দেশের সব অঞ্চলের মানুষের মধ্যে এ ধরনের কথার খুব চল আছে । সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশ ওলামা লীগের কর্মকাণ্ডে সেই আলামত দিন দিন সুস্পষ্ট হয়ে উঠছে।
অভিজ্ঞজনরা বলছেন, সময় ক্ষেপণ না করে এখনই ওলামা লীগের লাগাম টেনে ধরা উচিত। তা না হলে সরকারের সব অর্জন প্রশবিদ্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যায়।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের একাধিক সিনিয়র নেতা ওলামা লীগের ইতিপূর্বে বেশ কিছু নেতিবাচক কর্মসূচিসহ সাম্প্রতিককালের এই অনাকাক্সিক্ষত ইস্যুতে মাঠ গরম করার প্রয়াসকে ভালোভাবে নিতে পারছেন না। তারা বলছেন, এ ব্যাপারে দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে কঠোর থেকে কঠোরতর ব্যবস্থা নিতে হবে। দেশের মানুষের ধর্মীয় মূল্যবোধের জায়গাকে অযাচিতভাবে ব্যবহার করে তা থেকে ফায়দা লোটার অপতৎপরতা বন্ধে এর কোনো বিকল্প নেই। সরকার যদি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণে বিলম্ব করে তবে তার পরিণতি খুব যে ভালো হবে সে ব্যাপারে তারা সংশয় প্রকাশ করেছেন।

জানা যায়, বাংলাদেশ ওলামা লীগের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে প্রায় একই সুরে সরকারকে হুমকি প্রদান করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, হেফাজতে ইসলাম, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের প্রবক্তা হু. মু. এরশাদ ও তার দলের কয়েকজন সাংসদও। দিন কয়েক আগে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি মুহম্মদ রেজাউল করীম ৯২ শতাংশ মুসলমানের দেশে ভাস্কর্যের নামে সুপ্রিম কোর্টে দেবীর মূর্তি স্থাপনকে পশ্চিমা সংস্কৃতি হিসেবে উল্লেখ করে জাতিকে বয়ান দিয়ে বলেছেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ খ্রিস্টান অধ্যুষিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের সামনে সর্বোচ্চ আইনদাতা হিসেবে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর নাম স্থাপিত হলেও বিশ্বের দ্বিতীয় সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের সুপ্রিম কোর্টের সামনে গ্রিক দেবি লেডি জাস্টিসের মূর্তি স্থাপন করে মুসলিম সাংস্কৃতিক চেতনা ধ্বংসের চেষ্টা করা হয়েছে। তিনি সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে এই মূর্তি অপসারণে জেহাদি মুসলমানকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার দৃঢ় আহবান জানান।

চরমোনাইর পীর মুসলিম সংস্কৃতিতে বীর পূজার কোনো জায়গা নেই উল্লেখ করে বলেছেন, শিল্প-সাহিত্যের যে উপাদান মুসলমানের তৌহিদের বা একাত্মের পরিপন্থি মুসলমানরা তা প্রত্যাখ্যান করেছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সামনে থেকে বেঁধে দেওয়া সময়ের ভেতর মূর্তি অপসারণ না করলে ঈমান রক্ষার তাগিদে দেশের ঈমানদার জনতা কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন তিনি।

অন্যদিকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ নিজেকে সাচ্চা মুসলমান হিসেবে দাবি করে এক্ষেত্রে আরও একধাপ এগিয়ে গিয়ে তৌহিদী জনতাকে উসকে দেওয়ার কাজটি বেশ ভালোভাবেই করেছেন। দলীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তাদের ইসলামী জেহাদে উজ্জীবিত হওয়ার আহবান জানিয়ে পতিত এই স্বৈরাচার বলেছেন, সুপ্রিম কোর্টের সামনে যে গ্রিক দেবীর মূর্তি বসানো হয়েছে, মুসলমান হিসেবে আমি তা মেনে নিতে পারি না। মূর্তির বিপক্ষে অবস্থান নেওয়া প্রতিটি মুসলমানের কর্তব্য। এ সময় খেলাফত মজলিশের মাসব্যাপী গণসংযোগ ও মতবিনিময় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দলের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হকের নেতৃত্বে এরশাদের হাতে প্রকাশিত লিফলেট তুলে দেওয়া হয়। এদিকে দলীয় চেয়ারম্যানকে খুশি করতে দলের বেশ কয়েকজন সাংসদ মূর্তি ইস্যুতে সোচ্চার হয়ে উঠেছেন। এদের মধ্যে অন্যতম হলেন জাতীয় পার্টির সিলেট-৩ আসনের সাংসদ ইয়াহহিয়া চৌধুরী। এই সাংসদ তার ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে মূর্তি অপসারণ নয় সেখানে আল-কোরআনের প্রতিকৃতি বা সূরা যিলযালের ম্যুরাল স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন। শুধু তা-ই নয়, সুপ্রিম কোর্টের সামনে যে মূর্তি তৈরি করা হয়েছে তাকে সংবিধান ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলে উল্লেখ করেছেন। এই সাংসদ তার পোস্টে লেখেন, ‘…১৯৪৮ সালে সুপ্রিম কোর্ট প্রতিষ্ঠার পর থেকে যখন কোনো মূর্তি ছিল না তখন কি সুপ্রিম কোর্টে ন্যায়বিচার হয়নি?’ ইয়াহহিয়া চৌধুরী তার পোস্টে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘এ দেশ শতকরা ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশ এবং রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম। সেখানে ৯২ ভাগ মুসলমানদের ওপর অন্য ধর্ম চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা চরম ধৃষ্টতা। তাহলে সর্বোচ্চ বিচারালয়ে মূর্তি স্থাপনের খাহেশ (বানান ভুল) কাদের স্বার্থে।’

তিন.
ওলামা লীগের এ ধরনের আস্ফালন দেখেশুনে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় হেফাজতে ইসলামের দাবি অনুযায়ী প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যপুস্তক থেকে প্রগতিশীল চিন্তাধারার লেখা বাদ দিয়ে ‘ও’ তে ওড়নাসহ নানা ধরনের অযৌক্তিক পরিবর্তন আনা হয়েছে যা পুরো শিক্ষা পদ্ধতিকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন দেশের প্রথিতযশা শিক্ষাবিদরা । তারা বলছেন, ‘যে উদ্দেশ্য নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, সেই অসাম্প্রদায়িক চেতনার লেশমাত্র বর্তমান পাঠ্যপুস্তকে নেই।’
পাঠ্যপুস্তকে নিজেদের প্রাধান্য প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় হেফাজতিরা ধরে নিয়েছে সরকারকে ধর্মের ভয়ভীতি দেখিয়ে দাবি-দাওয়া আদায় করা সম্ভব। হেফাজতিদের এই মিশনে বর্তমানে তাদের ক্রীড়নক হিসেবে নাম লিখিয়েছে ওলামা লীগ ।
মানুষ সরকার ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে অধীর আগ্রহে তাকিয়ে আছেন। এখন দেখার বিষয় সরকার এ ব্যাপারে কতটুকু আন্তরিক ।

মাহবুব রেজা : কথাসাহিত্যিক ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক

এই সংবাদটি 153 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com