রবিবার, ২৪ জানু ২০১৬ ০৯:০১ ঘণ্টা

সুনামগঞ্জে অসহায় দিনমজুরের বসতভিটা দখল

Share Button

সুনামগঞ্জে অসহায় দিনমজুরের বসতভিটা দখল

jomi-620x360প্রথম বাংলা নিউজ : সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থানার বোগলাবাজারে স্থানীয় প্রভাবশালী ও ভূমি দখলবাজ একটি চক্র ঐ এলাকার চেয়ারম্যানের প্রত্য সহযোগীতায় এক হতদরিদ্র দিনমজুরের সহায়সম্বল তার বসতভিটা জবর দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় প্রশাসনে ধারস্ত হয়ে কোন প্রতিকার পান নি এ দিনমজুর বরং তাকে ঐ থানার পুলিশ থানা কম্পাউন্ডেও প্রবেশ করতে দেয়নি। কোন উপান্তর না দেখে অসহায় দিনমজুর সরনাপন্ন হয়েছেন পুলিশ প্রশাসনের সর্বোচ্ছ শিখরে। নিজের বসত ভিটা উদ্ধার ও পরিবার পরিজনের জিবনের নিরাপত্তা চেয়ে গত ৩রা জানুয়ারী ২০১৬ইং তারিখে পুলিশের আইজিপি বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। পুলিশের এআইজি (ক্রাইম-ইষ্ট) মোঃ আবু কালাম সিদ্দিক অভিযোগটি আমলে নিয়ে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারকে তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দিয়ে একটি পত্র ইস্যু করেন। এবং রির্টান তদন্তের ফলাফল হের্ডকোয়ার্টার্সকে অবহিত করার নির্দেশ প্রদান করেন। বর্তমানে অভিযোগটি সুনামগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম তদন্ত করছেন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। অভিযোগ দিয়ে এখন বাড়িঘর ছেড়ে পরিবার পরিবর্গ নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন এদিনমজুর। পুলিশ আইজিপি বরাবরে দেওয়া অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দোয়ারাবাজার থানার মৃত ফজর আলী তার ছেলে গোলজার হোসেন, চান মিয়া, মৃত আনোয়ার হোসেন কে নিয়ে দীর্ঘ ৬০ বছর থেকে দোয়ারাবাজার থানার জেল নং ১৬ খতিয়ান নং ২৫৮ আলমখালী মৌজায় ৩৪ শতাংশ ভুমির উপর বসবাস করে আসছিলেন ১৯৯৩ সালে সরকারী বিধিমোতাবেক ভূমিহীন হিসাবে ঐ ভুমি ফজর আলীগংদের বন্ধবস্ত দেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক। আজ অবদি ফজর আলীর তিন ছেলে তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে ঐ ভুমির উপরে বসতঘর নির্মান করে বসবাস করে আসছিল শান্তিতেই। কিন্তু ইদানিং ঐ ভূমির উপরে নজর পড়ে স্থানীয় প্রভাবশালী আব্দুল খালেক গং ও তাদের সহযোগী হরমুজ আলীর ছেলে বুলু মেম্বার, লতিফ খাঁর ছেলে জামিল খাঁ মিলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আপন মিয়ার প্রত্য মদদে দখলবাজ ঐ চক্রটি ফজর আলী গংদের একমাত্র বসত ভিটা জবরদখল করে তার পরিবারের সবাইকে অমানসিক নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং গ্রামের একটি বসত ঘরে ফজর আলীর ছেলে গোলজার আহমদ তার ভাতিজা সেলিম উদ্দিনকে বেধেঁ রেখে আদিম বর্বরোচিত নির্যাতন করে জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে সার নেয় তাদের কাছ থেকে। এ ঘটনার পর গ্রামের সকল মানুষের ধারে ধারে ঘুরেও কোন প্রতিকার পায় অসহায় পরিবারটি থানা পুলিশত চেয়ারম্যানের কথা উঠে বসে। এ ঘটনার পর থেকে গোলজার আহমদ ও সেলিম উদ্দিনের পরিবার গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায়। এব্যাপারে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার হারুনুর রশিদ অবিযোগটি পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন তদন্তের জন্য একজন এএসপিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তদন্তে অভিযোগ প্রমানিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই সংবাদটি 1,035 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com