হাওরপাড়ে দুর্নীতি এবং জনতার আর্তনাদ

প্রকাশিত: ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৪, ২০১৭

হাওরপাড়ে দুর্নীতি এবং জনতার আর্তনাদ

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: যে হাওরপাড়ে এখন ধান কাটার মহোৎসব হওয়ার কথা সেই হাওরপাড়ে এখন চলছে কৃষকের করুন আর্তনাদ,চলছে মহাদুর্যোগ!  ‘আল্লাহপাক ব্যতিত তাদের দেখার কেউ নেই।’ সত্যি বলতে কি এই রিপোর্টটি লেখতে গিয়ে বার বার অশ্রুসিক্ত হতে হলো হাওড়জনপদের লোকজনের অসহায় ভাষ্য শুনে। সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে মহাদুর্যোগ চলছে। চৈত্র মাসের মাঝামাঝি সময়ে হাওরের উঁচু-নিচু সকল এলাকার জমিতে এখন কোথাও ৫-৬ ফুট পানি, কোথাও কোথাও গলা থেকে হাটু সমান পানি। কোন কৃষকই এক মুঠো ধান ঘরে তুলতে পারেনি। বড় হাওরের প্রায় সব কয়টিই ডুবে গেছে। হাওরপাড়ের মানুষ অনেকটা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। শুধু সুনামগঞ্জ জেলাই নয়। বৃহত্তর হাওরপাড়ের একই অবস্থা। জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা,তাহিরপুর,দিরাই,শাল্লার পাশাপাশী সন্নিকটবর্তী নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ডিঙ্গাপোতা হাওরে এখন অথৈ পানি। সোমবার (৩ এপ্রিল) সুনামগঞ্জের দেখার হাওরে সরেজমিনে আমাদের প্রতিনিধি গেলে বেলা আড়াইটায় প্রচন্ড বেগে ঝড় বৃষ্টি শুরু হয়। ঝড়ের মধ্যেই হাওরের দিকে দৌঁড়াচ্ছিলেন পীরপুরের ইসলাম উদ্দিন। বজ্রপাতের গর্জন, প্রচ- বেগে ঝড় এবং ভারী বৃষ্টি শুরু হওয়ায় হাওর পাড়ে থাকা অন্যরা পেছন দিক থেকে তাকে ডাকছিলেন। কিন্তু কে শোনে কার কথা। তিনি সামনের দিকে (হাওরের দিকে) দৌঁড়াচ্ছিলেন, আর বলছিলেন ‘ইয়া আল্লাহ্ আর না, আর না, বাঁচাও আল্লা, বাঁচাও।’ এমন দৃশ্য এখন সুনামগঞ্জের অনেক হাওর পাড়েই। জেলার সবচেয়ে বড় দেখার হাওরে ৩ ঘণ্টা অবস্থানের সময় মনে হয়েছে এই হাওরপাড়ের বসতিগুলোতে মানবিক বিপর্যয় আসন্ন। হাওরে ডুবে যাওয়া ধান দেখার জন্য একটি ছোট নৌকা নিয়ে গিয়েছিলেন হাওর পাড়ের কুতুবপুরের করম আলী। আসার সময় হাওরেই এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি বলেন,‘২৫ কেয়ার জমি করার লাগি একজনের কাছ থাকি ২৫ হাজার টেকা (টাকা) আনছি। তার লগে (সাথে) কথা ২৫ হাজার  টেকা ফেরৎ দিমু, আরও ২৫ মন ধান দিমু, এখন টেকা কিলা দিমু, আর ধান কিলা দিমু, খাইয়া বাঁচতাম কিলাখান।’
ধর্মপাশা থেকে এনামুল হক এনি জানান, কয়েক দিনের ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় তলিয়ে গেছে ১৫ হাজার ১৮৫ হেক্টর বোরো জমির ফসল। এ উপজেলার ৮২ টি হাওরের মধ্যে ৪৬ টি হাওরের ফসল ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে। এ বছর এখানে ৩১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষাবাদ করা হয়। জানা যায়, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ধর্মপাশা উপজেলায় ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে হাওরের ফসল ডুবির ঘটনা শুরু হয়। গত শুক্রবার থেকে সোমবার বিকেল চারটা পর্যন্ত এ উপজেলার ছোট বড় ৮২ টি হাওরের মধ্যে ৪৬ টি হাওরের বাঁধ ভেঙে বোরো জমির ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। এ বছর ৩১ হাজার হেক্টর চাষাবাদকৃত জমির মধ্যে ১৫ হাজার ১৮৫ হাজার হেক্টর জমির ফসল বাঁধ ভেঙে তলিয়ে যায়। সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের জাড়াকোনা গ্রামের কৃষক লিপু মজুমদার বলেন, আমি বোয়ালা হাওরের ১৮ কেয়ার জমি চাষ করেছিলাম। সে জমিও রোববার রাতে তলিয়ে গেছে এবং সোনামড়ল হাওরে ৬ কেয়ার জমি এখনো আছে। পানি যে ভাবে বাড়ছে সেটিও মনে হয় তলিয়ে যাবে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শোয়েব আহমদ বলেন, অতিবৃষ্টির কারণে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে ৮২ টি হাওরের মধ্যে ৪৬ টি হাওরের ফসল ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন খন্দকার বলেন, আমি উপজেলা চেযারম্যান সাহেবকে নিয়ে হাওর পরিদর্শনে আছি। বাকি বাঁধগুলো যাতে রক্ষা করা যায় সে বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রকম চেষ্টা অব্যাহত আছে।


জামালগঞ্জ থেকে বিন্দু তালুকদার ও আকবর হোসেন জানান,
চার প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি)’র অনিয়ম-দুর্র্নীতির কারণেই জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী, জামালগঞ্জ উত্তর ও তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ৯ হাজার হেক্টর বোরো জমির হালীর হাওর ডুবেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কালীবাড়ি বাঁধের চার পিআইসির সভাপতি হলেন, বেহেলী ইউপির ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য মনু মিয়া, ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য আবু সুফিয়ান, সংরক্ষিত ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রাশিদা আক্তার ও ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য অজিত রায়। রবিবার রাতে হালীর হাওরের কালীবাড়ির বাঁধ ভেঙে হাওরে পানি ঢুকে। এদিকে হালীর হাওরের বাঁধ রক্ষায় এলাকার হাজার কৃষক আপ্রাণ চেষ্টা করলেও পিআইসি’র লোকজন এলাকা   ছেড়ে দিয়েছিল বলে কৃষকদের অভিযোগ। বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম চন্দ্র তালুকদার কালীবাড়ি বাঁধের পিআইসি সভাপতিদের তাগিদ না দিয়ে ও হাওরের বাঁধ নির্মাণের তদারকি ফেলে যুবলীগের কমিটি আনতে রাজধানী শহরে অবস্থান করছিলেন বলে অভিযোগ করছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা।
স্থানীয় ও একাধিক সূত্রে জানা যায়, হালীর হাওরের কালীবাড়ি বাঁধ নির্মাণে প্রথমে দুইটি পিআইসি গঠন করা হয়। একটির সভাপতি ইউপি সদস্য মনু মিয়া ও অন্যটির সভাপতি ইউপি সদস্য আবু সুফিয়ান। প্রথমে দুইটি প্রকল্প বরাদ্দ দেয়া হয় ২৮ লাখ টাকা। পরে এই বাঁধের বরাদ্দ আরও ২২ লাখ বৃদ্ধি করতে নতুন করে আরো দুইটি পিআইসি গঠন করা হয়। একটির সভাপতি করা হয় ইউপি সদস্যা রাশিদা আক্তার ও অন্যটির সভাপতি অজিত কুমার রায়কে। একাধিক কৃষকরে অভিযোগ প্রকল্প বরাদ্দ ২২ লাখ বৃদ্ধি করে ৪৬ লাখে উন্নীত করলেও সময়মত কাজ শুরু করা হয়নি। মার্চ মাসে বাঁধের কাজ শুরু করা হয়। শুরু থেকেই বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠে পিআইসির সভাপতিদের বিরুদ্ধে। কাগজে কলমে ইউপি সদস্যরা চারটি পিআইসির সভাপতি থাকলেও বাস্তবে সবগুলো প্রকল্পে কাজ করেছেন বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম চন্দ্র তালুকদার। তিনি ইচ্ছাখুশি ও দায়সারাভাবে বাঁধের কাজ করেছেন। ইউপি সদস্যরা শুধু কাগজে কলমেই দায়িত্ব পালন করেছেন।   হালীর হাওর পাড়ের স্থানীয় কৃষকদের অভিযোগ কালীবাড়ি বাঁধের কাজ সঠিক সময়ে শুরু হয়নি ও সঠিকভাবে হয়নি। প্রকল্পের নামে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হলেও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বার ও এসও মিলে লুটপাট করেছে। যদি বরাদ্দ অনুযায়ী কাজ হত তাহলে এত সহজে বাঁধ ভেঙে যেত না।
বেহেলী ইউনিয়নের আছানপুর গ্রামের বাসিন্দা আমিনুল হক মনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন,‘ আমাদের একমাত্র বোরো ফসলের হালীর হাওরের বাঁধ নিয়ে যখন চরম ঝুঁকি দেখা দেয় তখন চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার যুবলীগের কমিটি আনতে ঢাকায় হোটেলে বসে দিন কাটিয়েছেন। ফেইসবুকে একের পর এক ছবি দিয়েছেন। বাঁধের কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বরাদ্দ লুটপাট হয়েছে। বাঁধ যখন ঝুঁকিতে পড়েছে তখন এলাকার ধনী-গরীব সকল কৃষক দিনরাত মাটি কেটেছে। কিন্তু সময়মত মাটি না দেয়ার কারণেই দুর্বল বাঁধ অসময়ে ভেঙেছে।’
জামালগঞ্জ উত্তর ইউপির কালীপুর গ্রামের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম কলমধর বলেন,‘ নিয়ম অনুযায়ী ২৮ ফেব্রুয়ারি বাঁধের কাজ শেষ করার কথা থাকলেও সঠিক সময় ও সঠিকভাবে কাজ হয়নি। তাই দুর্বল বাঁধ সহজেই পানির তোড়ে ভেঙে গেছে। কারণ জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে হাওরের বাঁধ নির্মাণ করলে অবশ্যই এসব বাঁধ অনেক শক্ত ও মজবুত হত, খুব সহজেই এভাবে ভেঙে যেতো না।’
জামালগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বলেন,‘ ওয়াপদা (পানি উন্নয়ন বোর্ড) এর সকল কাজই হলো অনিয়ম আর দুর্নীতি। তাদের এমন কোন কাজ নেই যেখানে দুর্নীতি হয় না। বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে অকালে হাওরের ফসল ডুবির ঘটনা বার বার ঘটে। সময় এসেছে এবং সারা এলাকাবাসীর দাবি সকল অনিয়ম-দুর্নীতির গণতদন্ত হওয়া প্রয়োজন।’
এ ব্যাপারে বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম চন্দ্র তালুকদারের সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি মোবাইল ফোন রিসিভ করেননি।
হালীর হাওরের কালীবাড়ি বাঁধের চার পিআইসির পক্ষে এক পিআইসি সভাপতি ইউপি সদস্য মনু মিয়া বলেন,‘ চেয়ারম্যান ও আমাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা। কাজ বেশী বরাদ্দ কম তাই আমরা দুই পিআইসির সভাপতি বাঁধের কাজ করতে রাজী ছিলাম না। পরে বরাদ্দ বৃদ্ধি ও নতুন দুইটি পিআইসি দেয়া হয়েছে। গত মার্চ মার্সের ১৪ তারিখ আমাদের সাইট বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। শুরু থেকেই বরাদ্দ প্রদানে ছিল পাউবোর গড়িমসি। আমরা কাজ করেছি ৪০-৪৫ লাখ টাকার, আর পেয়েছি মাত্র ২৮ লাখ টাকা। বাকী টাকা এখনও পাইনি। ইউপি সদস্য রাশিদা ও অজিত রায় কাজ করতে এবং পিআইসির সভাপতি হতে রাজী ছিলেন না। পরে চেয়ারম্যান সাহস দেয়ায় ও নিজে কাজের দায়িত্ব নেয়ায় তারা রাজী হন। কাজ চলার সময়ে চেয়ারম্যান নানাভাবে আমাদের টাকা ধারে এনে দিয়েছেন। পরে আমরা বিল তুলে চেয়ারম্যানের হাতে দিয়েছি। আমরা প্রকল্পের নিয়মের বাইরে ৬০ ফুটের স্থলে ১২০ ফুট প্রস্ত করে কাজ করেছি। আমাদের কাজে কোন ধরনের গাফিলতি ছিল না। আমাদের ও এলাকার কৃষকদের কপাল খারাপ তাই রবিবার রাতে ঝড় তুফানে ঢেউ উঠলে বাঁধ উপচে পানি ঢুকে এক পর্যায়ে বাঁধ ভেঙে যায়। ’
হালীর হাওরের পাউবোর তদারককারী কর্মকর্তা উপ সহকারি প্রকৌশলী (এসও) আলী রেজার সাথে কথা বলতে চাইলে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করলেও ফোন রিসিভ করেননি তিনি। পরে এক পর্যায়ে মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেন তিনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রসূন কুমার চক্রবর্তী বলেন,‘ হালীর হাওরের কালী বাড়ি বাঁধ নির্মাণে শুরু থেকে ব্যাপক অভিযোগ ছিল, সঠিক সময়ে ও সঠিকভাবে কাজ হচ্ছে না। যেহেতু এলাকাবাসী ও কৃষকদের কাছ থেকে নানা অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে তাই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। ’ (সুত্র-দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর,৪ এপ্রিল ২০১৭)

বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে ৪ ঘণ্টা বিক্ষোভ করেছে বিক্ষুব্ধ কৃষকরা। এসময় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদকে লক্ষ্য করে পায়ের জুতাও নিক্ষেপ করে বিক্ষুব্ধরা। বিক্ষুব্ধরা এসময় পূর্ব বীরগাঁওয়ের দক্ষিণ হাওরের রাঙ্গামাটিয়া বাঁধের ভাঙন ঠেকাতে ব্যবস্থা নেওয়া এবং ঠিকাদার ও পিআইসি’র শাস্তি দাবি করেন। এক পর্যায়ে সুনামগঞ্জের আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড.শফিকুল আলমকে ধাওয়া করে বিক্ষুব্ধরা। বিক্ষুব্ধদের কবল থেকে অ্যাড. শফিকুল আলমকে রক্ষা করার সময় পুলিশ ও কৃষকদের ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
সোমবার (৩ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২ টা থেকে বিক্ষুব্ধ কৃষকরা দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সামনে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে অবস্থান নেয়। বিকাল সাড়ে ৩ টায় অ্যাড. শফিকুল আলম এই পথ দিয়ে জগন্নাথপুর যাওয়ার সময় অবরোধস্থলে গিয়ে অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে বক্তব্য দেন।
এসময় বিক্ষুব্ধ কৃষকরা ‘ঠিকাদারের দালাল দালাল’ বলে মারমুখী হয়ে অ্যাড. শফিকুল আলমকে ধাওয়া দেয়।
এই অবস্থায় বিকাল ৪ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবির এসে বিক্ষুব্ধ কৃষকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেন। তিনি কৃষকদের সকল দাবি দাওয়ার প্রতি একাত্মতা পোষণ করেন এবং রাঙামাটিয়া বাঁধের ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগ গ্রহণের আশ্বাস দেন। বিকাল ৪ টায় পরিস্থিতি শান্ত হয়।
অ্যাড. শফিকুল আলম জানান, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে কৃষকদের পক্ষেই কথা বলছিলেন তিনি। এক পর্যায়ে অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ করলে তারা ক্ষেপে যায় এবং মারমুখী হয়ে ওঠে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এদিকে, প্রকাশিত তথ্য মোতাবেক সুনামগঞ্জ জেলার হাওরগুলোতে ফসল রক্ষার জন্য বিভিন্ন বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারের জন্য নিয়োগকৃত ঠিকাদার ও পিআইসি’র অধিকাংশ কাজই ছিল চরম দুর্নীতিপূর্ণ। তারা নাম কা ওয়াস্তে কাজ করিয়ে বরাদ্দের পুরো টাকা লুপাটের খায়েশে মত্ত ছিলেন তারা। এবার বাঁধ নির্মাণে সরকারের বরাদ্দকৃত ৫৯ কোটি টাকাই নামমাত্রও কাজে না লেগে ব্যক্তি বিশেষের পকেট ভারী করার কাজে ব্যবহৃত হয়েছে বলে কৃষক ও সচেতন মহলের অভিমত। কোন বাঁধই পানির প্রাথমিক ধাক্কা সামলতে পারে নি। অভিজ্ঞতায় দেখা যায় প্রতিবছরই বাঁধ নির্মাণে অনুরূপ দুর্নীতি হয়ে থাকে। হাওরবাসীর অভিমত- রাষ্ট্র, সরকার ও সমাজের কিছু ক্ষমতাবান ব্যক্তি যারা ঠিকাদার, পিআইসি, প্রকৌশলী, আমলা, জনপ্রতিনিধি নামে পরিচিত তাঁরা প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে এই বাঁধ দুর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকেন। তাই এই হাওর দুর্নীতির কোন বিচার হয় না কখনও। ফসল হানির ব্যাপকতা পেলে এইসব ক্ষমতাধররা ভোল পালটিয়ে সাময়িক কৃষক দরদী বনে গরম গরম কথা বলে কৃষকদের ক্ষোভকে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন। আর বিস্মৃতিপ্রবণ জাতি হিসেবে খ্যাত বাঙালি সহজ-সরল কৃষক সমাজ কিছুদিন পরই ভুলে বসেন নিজেদের ক্ষতির কথা। এভাবেই চলে আসতে দেখছি আমরা বছরের পর বছর। গতবছরও বাঁধ ভেঙে ফসল হানির ব্যাপকতা ছিলো। স্থানীয় জেলা প্রশাসন লোকদেখানো একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছিলেন। কিন্তু ওই তদন্ত কমিটি কী তদন্ত করেছে আর কী রিপোর্ট দিয়েছে তা কেউ জানে নি। জনগণ জানতে পারে নি কোন দুর্নীতিবাজ ঠিকাদার-পিআইসি’র বিল আটক করা হয়েছিলো কিনা, কাউকে কোন ধরনের শাস্তি দেওয়া হয়েছিলো কিনা। সংগতকারণেই সকলেই স্থির বিশ্বাস করেন যে গতবছর কোন ঠিকাদার-পিআইসি’র বিল আটকে থাকে নি। এবারও মানুষের মুখের গ্রাস কেড়ে নেওয়া এইসব ঠিকাদার-পিআইসি’র কেশাগ্র কেউ স্পর্শ করবে না বলেই ভুক্তভোগী মহল মনে করেন। মানুষের কান্না-আহাজারিকে চাপা দিতে এবারও লোক দেখানো তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে আর কিছুদিন পরই ওই কমিটি হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে। একটি জনপদের লক্ষ লক্ষ মানুষের মুখের অন্ন লুণ্ঠনকারীরা এই ভাবে দিনের পর দিন এস্টাব্লিশম্যান্টের সহায়তায় পার পেয়ে যাবে এমনটি কাম্য নয়। তাই এবার হাওরে হাওরে গণতদন্ত কমিটি গঠনের মাধ্যমে দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশের একটি আওয়াজ উঠেছে। এতে ঠিকাদার-পিআইসি-পাউবো মিলে কী পরিমাণ দুর্নীতি করেছে তার একটি চিত্র সকলের কাছে স্পষ্ট হবে। এরকম গণতদন্তের ফলাফল সরকার এড়িয়ে যেতে পারবে না।
হাওর দুর্নীতির এই গণতদন্ত কীভাবে হতে পারে? কোন ধরনের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের বদলে স্থানীয়ভাবে গ্রহণযোগ্য নৈতিকতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের সমন্বয়ে এই কমিটি গঠন করতে হবে। কমিটির ব্যক্তিদের হতে হবে অভিজ্ঞ। তারা পাউবো থেকে প্রতিটি বাঁধের প্রাক্কলন সংগ্রহ করে বাস্তবে কতটুকু কাজ হয়েছে তার তথ্য উদঘাটন করবেন। এজন্য তাঁরা বাঁধ এলাকার কৃষকদের স্বাক্ষপ্রমাণ গ্রহণ করে লিখিত বিবরণ তৈরি করবেন। গণতদন্ত কমিশন কত টাকা বরাদ্দের বিপরীতে কত টাকার কাজ হয়েছে আর কত টাকা লুপাট হয়েছে তার হিসাব করবেন। তাঁদের পর্যবেক্ষণে প্রাপ্ত প্রতিবেদন গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করে সরকারের দায়িত্বশীলদের নিকট দাখিল করবেন। ওই গণতদন্তের ফলাফলের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নিতে সরকারের উপর সামাজিক চাপ বাড়াতে সামাজিক উদ্যোগকে সংগঠিত করতে হবে। এর বাইরে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আইনি প্রতিকার প্রার্থনার বিষয়টিও সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা উচিৎ। যতক্ষণ পর্যন্ত জনগণের ভিতর থেকে এই সামাজিক প্রতিরোধের জায়গাটি প্রবল না হবে ততদিন পর্যন্ত দুর্নীতির মহামারীকে রোধ করা সম্ভব হবে না।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) এর অনিয়ম-দুর্নীতি, দুর্নীতিবাজ ঠিকাদার-পিআইসির শাস্তি, ভারী বর্ষণ এবং অকাল বন্যায় সুনামগঞ্জের বেশিরভাগ হাওরের কাঁচা ধান তলিয়ে যাওয়ায় সুনামগঞ্জকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা ও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানানো হয়েছে।
হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের সঙ্গে জড়িত দুর্নীতিবাজ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা, পিআইসি ও ঠিকাদারদের বিচার এবং জেলাকে দুর্গত ঘোষণার দাবিতে এই মানববন্ধন আয়োজন করা হয়। সোমবার বেলা ১১ টায় শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ‘সচেতন
হাওরবাসী’র উদ্যোগ এই  মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, হাওরের বাঁধ নির্মাণে মন্ত্রী, এমপি, চেয়ারম্যান, মেম্বার থেকে শুরু করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রতিটি পর্যায়ের ব্যক্তিরা জড়িত। ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম আর দুর্নীতি হওয়ার কারণে বছরের পর বছর সুনামগঞ্জের লাখ লাখ কৃষকের বছরের একটি মাত্র বোরো ফসল পানির নিচে তলিয়ে যায়। এজন্য কোন সময়েই দায়ী ব্যক্তিদের বিচার হয় না।
সাংবাদিক বিন্দু তালুকদারের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন, কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতি চিত্তরঞ্জন তালুকদার, মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, কৃষক লীগ নেতা করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল, লেখক ডা. মুর্শেদ আলম, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান, আমরা হাওরবাসীর সমন্বয়ক রুহুল আমিন, সাংবাদিক লতিফুর রহমান রাজু, পংকজ কান্তি দে, অ্যাড. এনাম আহমদ, টিআইবি সনাক সদস্য অ্যাড. খলিল রহমান, অ্যাড. শাহীনূর রহমান শাহীন, জেলা উদীচীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সুজনের জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুম হেলাল, সাংবাদিক কুলেন্দু শেখর দাস, শামস শামীম, ছাত্র ইউনিয়নের সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ শাখার সভাপতি দিপাল ভট্টাচার্য, সুজনের সদস্য সাংবাদিক শহীদ নূর আহমেদ প্রমুখ।
এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান চৌধুরী, কবি ইকবাল কাগজী, বিশ্বম্ভরপুর দিগেন্দ্র বর্মন কলেজের প্রভাষক মোশারফ হোসেন ইমন, অ্যাড. অখিল তালুকদার, অ্যাড. সাজ্জাদ হোসেন, ব্যবসায়ী পল্টু পাল, সংবাদ পরিবেশক শ্যামল রায়, প্রথমআলো বন্ধুসভার সভাপতি রাজু আহমেদ, নাট্যকর্মী প্রদীপ পাল, স্কাউট লিডার বুরহান উদ্দিন, উন্নয়নকর্মী একে কুদরত পাশা, সাংবাদিক অভিজিৎ রায়, আব্দুর রহমান জুয়েল, জাকির হোসেন, সংস্কৃতিকর্মী ও সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ার, সাংবাদিক নজরুল ইসলাম, সংগঠক আবুল হায়াত, যুবলীগ নেতা সৈয়দ গোলাম জিলানী ইমন, মহিবুর রহমান মুহিব, নাট্যকর্মী উজ্জল তালুকদার, সুইটি রানী দাস, ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসাইন প্রমুখ। এছাড়া মানববন্ধনে ছাত্র, শিক্ষক, কৃষক, আইনজীবী, সাংবাদিক-সহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, চলতি বছর সুনামগঞ্জে বোরো ফসলের আবাদ হয়েছে ২ লাখ ২০ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে। ৪২টি হাওরের ফসল রক্ষায় ৫৮ কোটি টাকা ৭০ লাখ টাকার বাঁধের কাজ হচ্ছে। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জের বৃহৎ ৩৭টি হাওরসহ মোট ৪২টি হাওরে ১০ কোটি ৭৭ লাখ ব্যয়ে ২২৫টি পিআইসি (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) ও ৪৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৬টি প্যাকেজে ঠিকাদার দিয়ে বোরো ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করছে। পিআইসির কাজ ২৮ ফেব্রুয়ারি ও ঠিকাদারের কাজ ৩১ মার্চের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও পিআইসির ও ঠিকাদারের কাজ সময়মত শেষ হয়নি।

এব্যাপারে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বলেছেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডের হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে অনিয়মের বিষয়টি খতিয়ে দেখবে আওয়ামী লীগ। জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষক বান্ধব সরকার। সরকার বরাদ্দ প্রদানে কোন ত্রুটি করেনি। অথচ. হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে নানা অনিয়মের কথা শুনা যাচ্ছে। এটি মেনে নেওয়া যায় না।

বিশিষ্ট লেখক, আইনজীবী হোসেন তওফিক চৌধুরী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জের হিসেবেই হয়তো আষাঢ় মাস আসার আগেই চৈত্র মাসে শুরু হয়েছে আষাঢ়ী বর্ষণ। গত ক’দিন থেকে কখনো থেমে থেমে আবার কখনো মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। এতে ভাটী বাংলার সর্বত্র নদী-নালা, খাল-বিল, হাওর-বাওর পানিতে সয়লাব হতে চলেছে। ফলে সবখানেই মানুষ চলতি বোর ফসল নিয়ে আতংকিত হয়ে পড়েছেন। অজানা আশংকায় মানুষ এখন দিশেহারা। পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে মানুষের আশংকা বাড়ছে। ফসল প্রাপ্তির বুকভরা প্রত্যাশা মিলিয়ে যাচ্ছে। একদিকে নদী ভরাট হয়ে গেছে, পানি ধারন ক্ষমতা মারাত্মক ভাবে হ্রাস পেয়েছে। অপরদিকে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ ঠিকমত হয়নি। ঠিকাদার বা পিআইসির লোকেরা দায়সারা গোছের কাজ করেছে। ফলে নদীর পানি হাওরে প্রবেশ করছে সহজেই। হাওর সমূহেও পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করেছে। এতে ফসল বিনষ্টের আশংকা সর্বত্র। ইতোমধ্যেই জেলার বেশ কয়েকটি হাওরে পানিতে ফসল তলিয়ে গেছে। হাওর রক্ষা বাঁধ হুমকির সম্মুখীন। এক কথায় বলতে গেলে বলতে হয় হাওর এখন ঝুঁকিপূর্ণ। হাওরবাসী এখন ফসল রক্ষার জন্য স্বেচ্ছায় স্বপ্রণোদিত হয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে হাওর রক্ষায় প্রাণপণ প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। ঠিক এই বিপদের মুহূর্তে পিআইসি বা ঠিকাদারদের পাওয়া যাচ্ছে না। তারা লা-পাত্তা হয়ে পড়েছে, গা ঢাকা দিয়েছে। বর্তমানে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা অভূতপূর্ব।
পূর্বে কখনো চৈত্রমাসে এ ধরনের সর্বনাশা বৃষ্টিপাত হয়নি বা পাহাড়িয়া ঢল নামেনি। এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে ধরে নিয়েই কর্তৃপক্ষের সতর্ক থাকা উচিত ছিল। বাঁধের কাজ সঠিক সময়ে হলে হয়তো ফসল রক্ষা করা সম্ভব হতো। এজন্য সকল মহল থেকে দাবিও উত্থিত হয় কিন্তু কার কথা কে শুনে? সকলেই গরলভেল। অরণ্যরোদন। যা আশংকা করা হয়েছিল তাই হতে চলেছে। এক ফসল এলাকার মানুষের ফসলহানির সর্বনাশে একটি মারাত্মক বিপর্যয় নেমে আসতে পারে। এখনো সময় একেবারে বয়ে যায়নি। এখনো যদি আন্তরিকতা নিয়ে হাওর রক্ষায় এগিয়ে যাওয়া যায় তাহলে হয়তো কিছুটা হলেও সর্বনাশের মারাত্মক ছোবল থেকে রক্ষা পাওয়ার সম্ভাবনা আছে। কর্তৃপক্ষ যদি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সক্রিয় হয়ে এবং মানুষের সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসেন তাহলে হয়তো সর্বনাশের পরিধি কমতে পারে।

 

এই সংবাদটি 133 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com