‘বিদায়’নিচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত

প্রকাশিত: ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০১৭

‘বিদায়’নিচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সরকারের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি সফলতার সাথেই পালন করে যাচ্ছেন । মন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবার রাজনীতি ও সকল দায়িত্ব থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন তার স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতেই। সচিবালয়ে এক বৈঠক শেষে হাসিমুখেই মন্ত্রী বলেছেন ‘বিদায়’।তিনি আগামী বছরেই অবসরে যাচ্ছেন। এ বিষয়টি বুধবার দেশসহ গোটা সিলেটে আলোচনার শীর্ষেই ছিল। এখনো আলোচনার রেশ কাটেনি। জাতীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো বেশ ফলাও করে গুরুত্বের সাথেই বয়োজেষ্ট্য এ মন্ত্রীর ঘোষণার সংবাদটি প্রকাশ করেছে।

সিলেটেও বিষয়টি নিয়ে চলছে বেশ আলোচনা। তবে বেশিরভাগেরই মন্তব্য বয়োবৃদ্ধ এ মন্ত্রীর অবসর নেওয়ার বয়স অনেক আগেই পেরিয়েছে। এখনও তিনি যথাযথভাবে অন্য মন্ত্রীদের চেয়ে ভালোভাবেই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। নিজে নিজে অবসরের ঘোষণা নেওয়া তাঁর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের জন্য ইতিবাচক।

বুধবার বাংলাদেশ সচিবালয়ে এক বৈঠক শেষে তার মুখ থেকেই এসেছে অবসরের ঘোষণা। তিনি বলেছেন- ‘আই উইল রিটায়ার ইন টু থাউজ্যান্ড এইটটিন। আই থিংক ইট উইলবি গুড টাইম। দ্যাট টাইম আই উইল বি এইটি ফাইভ (আমি ২০১৮ সালে অবসরে যাব। আমি মনে করে এটা একটা ভাল সময়। তখন আমার বয়স হবে ৮৫), হা হা হা-এভাবেই মন্ত্রিত্ব ছেড়ে নিজের অবসরে যাওয়ার কথা জানালেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।বুধবার সচিবালয়ে এক বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। অনুষ্ঠানে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের তহবিলের উদ্বৃত্ত ১০০ কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে তুলে দেয় বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ। এটি গ্রহণ করেন অর্থমন্ত্রী।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোনো রাজনীতিবিদ ঘোষণা দিয়ে অবসরে যাননি। মুহিতের এই ঘোষণার বাস্তবায়ন হলে তিনিই হবেন প্রথম ব্যক্তি।

৮৪ বছরের মুহিত এরই মধ্যে ঘোষণা করেছেন তিনি আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবেন না। শেষ বয়সে এসে ১৮ ঘণ্টা কাজ করতে হয় বলেও জানিয়েছেন তিনি।অর্থমন্ত্রীর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার: সিলেটের বনেদী পরিবারের সন্তান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল মুহিত ছাত্রাবস্থাতেই রাজনীতিতে জড়িয়েছেন। পরে পাকিস্তান আমলেই সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণও ছিল তার। ১৯৭১ সালে তিনি পাকিস্তানে ওয়াশিংটন দূতাবাসে ফার্স্ট সেক্রেটারি ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে বাংলাদেশের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করে চাকরি ছেড়ে দেন তিনি। আর প্রবাসী বাংলাদেশি সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন।

মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর মুহিত পরিকল্পনা কমিশনের সচিব হিসেবে নিয়োগ পান মুহিত। ১৯৮১ সালে সরকারি চাকরি থেকে স্বেচ্ছায় অবসরে যান তিনি। ১৯৮২ থেকে ৮৩ সালে এরশাদ সরকারের অর্থ উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পান মুহিত। এরপর বিশ্বব্যাংক, জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থায় উচ্চপদে চাকরি করেন তিনি।

২০০১ সালে সিলেট সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচন করে হেরে যান মুহিত। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে বিএনপি নেতা এম সাইফুর রহমানকে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। এরপর থেকেই বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি।

এই সংবাদটি 71 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com