শুক্রবার, ১২ মে ২০১৭ ১১:০৫ ঘণ্টা

প্রধানমন্ত্রীর সাথে কওমী আলেমদের বৈঠক প্রসঙ্গ

Share Button

প্রধানমন্ত্রীর সাথে কওমী আলেমদের বৈঠক  প্রসঙ্গ

Oliullah Noman : কওমী মাদ্রাসার আলেমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে মঙ্গলবার দেখা করেছেন। তাদের কিছু দাবি দাওয়া পুরনের আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কারো দাবী দাওয়ার কথা শুনতে প্রধানমন্ত্রী ডাকলে যেতেই পারেন। কারন সরকার প্রধান যদি নিজে দাবীর কথা শোনার জন্য কাউকে ডাকেন সেটা তাঁর রাজনৈতিক কৌশলের অংশ। এখানে শেখ হাসিনা চমৎকার রাজনৈতিক পরিপক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন, তাতে কোন সন্দেহ নেই। আল্লামা শফিকে ‘তেতুল’ হুজুর বলে নানা বিশেষনে আখ্যায়িত করতেন শেখ হাসিনা। কাঁছে পেয়ে সকল আলেমের সামনে তাঁকে পা চুয়ে কদমবুছি করেছেন। আলেমদের কথা শুনেছেন। দাবী দাওয়া পুরনের আশ্বাস দিয়েছেন। এতে আলেমরাও খুশি। যারা এই আয়োজন করে দিতে পেরেছেন তাদেরও নিশ্চয়ই রাজনৈতিক পরিপক্কতা রয়েছে। দলছুট, রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ এবং জালয়োতিতে দক্ষ কারো দ্বারা এমন আয়োজন করে দেওয়া যে সম্ভব নয় তা এখানে স্পষ্ট।

কিন্তু এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কওমী আলেমদের সাথে শেখ হাসিনার মিলন নিয়ে বিতর্কের ঢেউ উঠেছে। এই বিতর্ক উঠা একেবারেই স্বাভাবিক। ২০১৩ সালের ৪ এপ্রিল এবং ৫ মে’র ঘটনা ষ্মরণ করলে বিতর্ক উঠা যৌক্তিক। তবে আমাদের স্মরণ রাখতে হবে হেফাজতে ইসলাম কিন্তু কোন রাজনৈতিক সংগঠন নয়। এটা সমায়ের তাগিদে সংগঠিত হওয়া আলেমদের একটি ফ্ল্যাটফরম। তারা তখনো ঘোষণা দিয়েছিলেন যে এটা রাজনৈতিক সংগঠন নয়। একটি সামাজিক আন্দোলন। এই সামাজিক আন্দোলন তখন মানুষ সমর্থন জানিয়েছিল। কারন মানুষের মনের কথা গুলো তখন হেফাজত বলেছিল। কিন্তু যারা মানুষের সমর্থন দেখে হেফাজতের কাঁধে বন্দুক রেখে শিকারের মতবল করেছিলেন তারা ব্যর্থ হয়েছেন তখন। এতে কোন সন্দেহ নেই। ৫ মে হেফাজতের অবস্থানের কথা আমরা সবাই জানি। জনগন সমর্থন দিলেও শিকার সন্ধানী কোন রাজনৈতিক শক্তি কি সেদিন তাদের পাশে ছিল!!!!

তবে এটাও ঠিক গত বছর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের পাঠ্য বই থেকে ইসলামি তমদ্দুনকে ঝেটিয়ে ছাটাই করা হয়েছিল। এনিয়ে কিন্তু কেউ কথা বলেননি। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত রাজনৈতিক বক্তৃতা বন্দি। পাঠ্য পুস্তুকের এই পরিবর্তন নিয়ে হেফাজত কর্মসূচি দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের দাবী পেশ করেছিল হেফাজত। কোথায় কোথায় পরিবর্তন করা হয়েছে এতে আমাদের ধর্মী সংস্কৃতির প্রতি আঘাতের বিষয়টাও তুলে ধরা হয়েছিল এতে। প্রধানমন্ত্রী তাদের দাবী মেনেছেন। চলতি বছরের পাঠ্য বইয়ে আবার সে গুলো হুবহু ফিরিয়ে আনা হয়েছে। বাদ দেয়া হয়েছে আপত্তিকর অধ্যায় গুলো। এর জন্য হেফাজতকে দায়ী করবো নাকি প্রধানমন্ত্রীকে দায়ী করবো জানিনা। নাকি যারা চুপ করে বসে ছিলেন তাদের ধন্যবাদ দিব!!!! সেটাও আমার জানা নেই।

সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গনে গ্রীক দেবীর মূর্তি বসানো হয়েছে। মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগের কথা। জুমা’র নামাজের পর বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইট থেকে আলেমদের নেতৃত্বে বিশাল প্রতিবাদ বিক্ষোভ দেখেছি। এই মূর্তি সরানোর জন্য তারা কড়া হুশিয়ারি করতে শুনেছি বক্তব্যে। এই আলেমদের অনেকেই মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাতে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী নিজেও স্বীকার করেছেন এ মূর্তি বাংলাদেশের সংস্কৃতির সাথে মানায় না। এটা এখন কি হেফাজতের দোষ, নাকী প্রধানমন্ত্রীর দোষ! নাকি যারা ইসলামি মূল্যবোধের দাবদিার, কিন্তু মূর্তি ও পাঠ্য বই থেকে ইসলাম বিতাড়ন দেখে চুপ করে ছিলেন তাদের ধন্যবাদ জানাবো?

শেখ হাসিনা বুঝতে পেরেছন হেফাজতের কাঁদে বন্দুক রেখে রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিরা ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। সুতরাং সেই বন্দুকটা সরিয়ে নেওয়া হবে নিজের রাজনৈতিক কৌশল। তিনি সেই কৌশলটাই প্রয়োগ করেছেন। সফল হয়েছেন।

আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে মনে হয় সমালোচনার পাশাপাশি আমাদের আত্মসমালোচনাও করা উচিত। কেন হেফাজতের কাঁধে উঠিয়ে দেওয়া বন্দুক শেখ হাসিনা নিয়ে যেতে পারল। কোথায় নিজেদের ব্যর্থতা।শেখ হাসিনার সফলতার পেছনেই বা কি কৌশল কাজ করেছে। সেটাও খুজে দেখা দরকার। নতুবা ভবিষ্যতে আবার নিজেরা চুপ থেকে অন্য কারো কাঁদে বন্দুক উঠিয়ে দিয়ে শিকার করতে চাইলে সেটাও বুমেরাং হতে পারে।
১৯৭১ সালের ৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত রাজনীতিকে বন্দি না রেখে সমকালিন সঙ্কট নিয়েও ভাবতে হবে। শিকারের জন্য বন্দুক অন্যের কাঁধে রাখলে সেটাকেও ঠিকমত নাসিং করা লাগবে। আসুন আত্মসমালোচনা করি। নিজেদের ব্যর্থতার জায়গা গুলো চিহ্নিত করে সেখানে অষুধ লাগাই। তাতেই বরং কাজ হবে বেশি।

লেখাটি সাংবাদিকওয়ালিউল্লা নোমানের ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

এই সংবাদটি 1,052 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com