সোমবার, ১৫ মে ২০১৭ ০১:০৫ ঘণ্টা

কওমী মাদরাসায় ছাত্রীদের ছবি প্রসঙ্গ

Share Button

কওমী মাদরাসায় ছাত্রীদের ছবি প্রসঙ্গ

 

মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, ভাইস প্রিন্সিপাল-জামিয়া হোসাইনিয়া আরজাবাদ,ঢাকা:: বাংলাদেশের কওমী তথা দেওবন্দী মাদরাসার ইতিহাসে নতুন অধ্যায় রচিত হতে যাচ্ছে ৷ দেওবন্দী মাদরাসাকে বাংলাদেশেই কেবল কওমী মাদরাসা বলা হয় ৷ পাক-ভারতসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশে দেওবন্দী মাদরাসা বলা হয় ৷ পাক-ভারতের ওয়াজ-মাহফিল, রাজনৈতিক সভা-সমাবেশে ‘উলামায়ে দেওবন্দ-জিন্দাবাদ, আকাবিরে দেওবন্দ-জিন্দাবাদ, সরবকাফ সরবুলন্দ-দেওবন্দ দেওবন্দ’ স্লোগান দিতে দেখা যায় ৷ পক্ষান্তরে আমরা অনেকটা অতি আধুনিক হওয়ায় বাংলাদেশের মাটিতে উলামায়ে দেওবন্দের নামের স্লোগান হারিয়ে যাচ্ছে ৷ ইতিহাসের নতুন অধ্যায় দেওবন্দী মাদরাসার জন্য ভবিষ্যত সুফল বয়ে আনবে নাকি কুফল তা নিয়ে বোদ্ধামহলে চাপা আশঙ্কা বিরাজ করছে ৷ কৃত্রিম স্রোতের বিপরীত নায়ে পাল তোলা থেকে বিরত রয়েছেন বহু গুণিজন ৷ ধৈর্য এবং রজনীর শেষভাগে দরবারে মাওলায় অশ্রু ঝরানোর নীতি অবলম্বন করছেন তারা ৷
দেওবন্দী সিলসিলার মাদরাসার অবিস্মরণীয় সফলতায় উপমহাদেশের সীমানা পেরিয়ে ইউরোপ, আমেরিকা, আফ্রিকায় প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে বহু মাদরাসা ৷ পৃথিবীর ইতিহাসে এমন দৃষ্টান্ত বিরল ৷ সরকারি হস্তক্ষেপমুক্ত কোন শিক্ষাব্যবস্থা এতো গ্রহণযোগ্যতা পাওয়ার দৃষ্টান্ত কেউ দেখাতে পারবে না ৷ এ ব্যবস্থার উদ্ভাবকগণ এমন কিছু নীতিমালা প্রনয়ণ করে গেছেন যার ফলে এ মাদরাসাগুলো আজও বিদ্যমান আপন স্বকীয়তায়, স্বীয় মহিমায় ৷ এ শিক্ষাব্যবস্থাটি কোন সরকার, যে কোন পেশী শক্তি, সব ধরণের কায়েমী স্বার্থবাদীদের নিয়ন্ত্রণমুক্ত থাকায় সাম্রাজ্যবাদী, ব্রাক্ষ্মণ্যবাদী, নাস্তিক্যবাদী, তথাকথিত সেকুলারদের কুটিল ষড়যন্ত্র থেকে আজও নিরাপদ ৷
ইউরোপ, আমেরিকা,আফ্রিকায় দেওবন্দী মাদরাসার ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা কিন্তু কোন দেশের সরকারের স্বীকৃতির কারণে হয়নি ৷ বরং এর উন্নত শিক্ষাব্যবস্থা, আকর্ষণীয় পাঠপদ্ধতি, নীতি-নৈতিকতার হাতে কলমে অনুশীলন এবং কুরআন, হাদীস, ফেকাহ ইত্যাদির শিক্ষাই মুসলিম সমাজে এর ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা সৃষ্টি করেছে ৷ ১৫ মে হাইআতুল উলিয়ার অধীনে তাকমিল জামাতের পরীক্ষা শুরু হবে ৷ এ ধরনের পরীক্ষা এ বছরই প্রথম নয় ৷ বেফাকের অধীনে বিগত বছরগুলোতে প্রায় ১৩/১৪ হাজার পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে আসছে ৷ কখনও পুলিশী সহায়তার প্রয়োজন পড়েনি ৷ কওমী মাদরাসার ১৫০ বছরের ইতিহাসে কখনও পুলিশী প্রহরার জরুরত দেখা দেয়নি ৷ এর কোন কার্যক্রম পুলিশী সহায়তায় পরিচালিত হয়নি ৷ এমন নজির পাক-ভারত, বাংলার ইতিহাসে কেউ দেখাতে পারবে না ৷ কওমী শিক্ষার্থীরা এখনও এত নিচু পর্যায়ে পৌঁছেনি যে, অপরিচিত হলনেগরানদের থেকে পথ অবরোধ করে প্রশ্নপত্র ছিনতাই করে নিয়ে যাবে ৷ কওমী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তাদের পরীক্ষার কার্যক্রম সরকারি তথা পুলিশী প্রহরায় পরিচালিত হোক তা ভাবতেও প্রস্তুত নয় ৷ কওমী কার্যক্রমে পুলিশের সহায়তার দৃশ্য অবলোকনে কোন কোন শিক্ষার্থীকে বলতে শুনেছি ‘আমরা যাচ্ছি কোথায়? আমাদের কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে?’
পরীক্ষার এক দু’দিন পুর্বে মেয়েদের ছবি বিতর্কে কওমী অঙ্গনে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে ৷ হঠাৎ ছবিকে বাধ্যতামূলক বলা আবার প্রত্যাহার করে নেওয়ার কথা চাউর হওয়ায় সমন্বয়হীনতার আশঙ্কাকেই জন্ম দিচ্ছে ৷ আজ মাওলানা আবদুল জব্বার রহ. এর প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে অনুভূত হচ্ছে ৷ পায়ে হেঁটে হাসপাতালে এলেন! আর লাশ হয়ে বের হলেন!

এই সংবাদটি 1,069 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com