সোমবার, ১৫ মে ২০১৭ ০১:০৫ ঘণ্টা

দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা !

Share Button

দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা !

সৈয়দ শামছুল হুদা:

আপনি হয়তো আমার কথা শুনে অবাক হচ্ছেন। হ্যাঁ, আমি ভেবে চিন্তেই কথাটা বললাম। বলার কারনটাও আমি আপনার সাথে শেয়ার করতে চাই। বাংলাদেশের কওমী শিক্ষা এখন থেকে নতুন যুগে প্রবেশ করেছে। কিভাবে কওমী মাদ্রাসায় পরিবর্তন আসবে তা খুব দ্রুতই লক্ষ্য করবেন।

রা্ষ্ট্রীয় মিডিয়ায় ইতিবাচক প্রচার-প্রচারণার পাশাপাশি নেতিবাচকভাবেও সেটা আসছে।স্বীকিৃতির রাষ্ট্রীয় ঘোষণার পর স্বাভাবিকভাবেই দাওরায়ে হাদীসের সর্বেোচ্চ পরীক্ষার প্রতি দৃষ্টি রয়েছে দেশের সকল মানুষের। এই পরীক্ষাটাকে বিতর্কিত করার যেমন চেষ্টা এখন চলবে, তেমনি বিতর্কিত করারও অপপ্রয়াস চালানো হবে। সেই জন্য দুর্বল ছাত্র-ছাত্রীরা যেন কোন ফাঁক-ফোকর গলে বের হয়ে না যেতে পারে সেদিকে লক্ষ্য লাখতে হবে।অযোগ্য ব্যক্তিটিও যদি দাওরায়ে হাদীসের মতো উচ্চতর পরীক্ষায় সহজে পাশ করে যায়, তাহলে লেখাপড়ার মানের ব্যাপারে প্রশ্ন আসবে। আইএম জিপিএ ফাইভ শুধু স্কুল-কলেজে নয়, তখন মাদ্রাসাতেও শুনতে হবে।

সেই জন্য আমার একটু ভিন্নপ্রস্তাব। দাওরায়ে হাদীস পাশ করাটাকে একটু কঠিন করে দিতে হবে। এর কারন হলো- এতদিন কেউ জানতো না সারাদেশে কতজন দাওরায়ে হাদীস পাশ করতো, কতজন চাকুরী পেল, কতজন চাকুরী পেল না। এটাকে কেউ কেউ বড় করে দেখাবে। হাইয়াতুল উলয়ার সনদধারীদের সামনে নিয়ে বলবে- এত পার্সেন্ট ছাত্র-ছাত্রী বেকার।

কওমী মাদ্রাসার মূল লক্ষ্য যেহেতু যোগ্য আলেম তৈরী করা, সেহেতু এমন কাউকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করতে দেওয়া উচিত না, যে কোন রকম আরবী এবারতও পড়তে পারে না। অনেকে খুব শর্টকাট পথে এতদিন দাওরা পাশ করে গিয়েছি। দাওরায়ে হাদীসের যে মান ঘোষিত হয়েছে শুধু এটাকে মুল্যায়ন করেই নয়, বরং দাওরায়ে হাদীস একটি মর্যাদাপুর্ণ স্তর, এটাও পরিস্কার হওয়া দরকার। কেউ চাইলেই দাওরায়ে হাদীস পাশ করে ফেলতে পারেনা, এটা পরিস্কার হওয়া দরকার। একটি নির্দিষ্ট মেয়াদে, নির্দিষ্ট সিলেবাস শেষ করেই তাকে দাওরার সনদ নিতে হবে। এর বাইরে নয়।

একজন ছাত্র বা ছাত্রী হাইয়াতুল উলয়ার কামিল সনদ অর্জন করবে, অথচ ইন্টারভিউ বোর্ডে একটা হাদীসও মুখস্থ শোনাতে পারবে না, একটি আয়াতেরও ভালো, শুদ্ধ অনুবাদ করতে পারবে না, এটা হবে আত্মঘাতি। যদি দাওরায়ে হাদীস পাশ করাটা খুব সহজ হয়ে যায়, তাহলে অনেকেই এ সহজ পথে পা বাড়াবে। এটা কওমী শিক্ষাকে বিতর্কিত করবে।

এ বৎসর যারা দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষা দিচ্ছে তাদের মিশকাত সনদ থাকা বাধ্যতামূলক ছিল, আগামী বৎসরও যারা দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষা দিবে তাদের অবশ্যই শরহে বেকায়া এবং মিশকাত জামাতের সনদ থাকা বাধ্যতামূলক করতে হবে। যাতে শর্টকাট পথে কেউ দাওরায়ে হাদীস পাশ করে ফেলতে না পারে। শর্টকাট পথে দাওরায়ে হাদীস পাশের পথ বন্ধ করতে হবে। কোন মাদ্রাসা যদি উচ্চতর কমিশনের বাইরে থাকে, তাহলে তার বিষয়টি ভিন্ন, কিন্তু উচ্চতর কমিশনের আওতায় কোন ছাত্র-ছাত্রী যেন ৫-৭বছরে কোন অবস্থাতেই দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষা না দিতে পারে তার ব্যবস্থা থাকতে হবে। বিগত বছরে বোর্ডের নীচের জামাতগুলোতে পরীক্ষা দিয়ে যারা নিয়মিত সনদ গ্রহন করেছে শুধু তাদেরকেই আগামী বছর দাওরায়ে হাদীসের পরীক্ষায় অংশগ্রহনের সুযোগ দিতে হবে। অন্যথায় নয়।

মাদানী নেসাব এর নামে কেউ কেউ ফুলকোর্স অনুসরণ না করে শর্টকাট নেসাবে দাওরায়ে হাদীস শেষ করতে উৎসাহিত করেন। কোন কোন মাদ্রাসা শর্টকোর্সের নামেও অল্পদিনে দাওরায়ে হাদীস পাশ করিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। এতে করে প্রকৃত ছাত্র-ছাত্রী যারা বড় বড় মাদ্রাসাগুলোতে পূর্ণ কোর্স করে তারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়, তারা প্রশ্নের মুখোমুখি হয়। মাদানী নেসাব হোক আর যে নামেই হোক, অবশ্যই নির্দিষ্ট কোর্স শেষ করার পরেই তাকে দাওরায়ে হাদীসের
পরীক্ষার উপযোগী মনে করতে হবে।

এক্ষেত্রে বেফাককে বেশি সতর্ক থাকতে হবে। সারা বাংলাদেশের একক বৃহত্তম সংগঠন হলো বেফাক। এবারের পরীক্ষায় এটা সবার কাছেই পরিস্কার হয়েছে। এতদিন অন্যান্য বোর্ডগুলো তাদের ছাত্র সংখ্যা নিয়ে লুকোচুরি করেছে। এখন পরিস্কার হয়ে গিয়েছে যে, বেফাকই সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান যার প্রতি কওমী মাদ্রাসা সমূহের আস্থা রয়েছে।যেখানে অন্যান্য বোর্ডের ৪ থেকে ৫শ ছাত্র, সেখানে একা বেফাকেরই ১৫হাজার। ঢাকা বেফাকের অধীনে প্রায় ৮০০এর উপরে দাওরায়ে হাদীস মাদ্রাসা, অন্যান্য বোর্ডের অধীনে ২০/২৫টির বেশি দাওরায়ে হাদীস মাদ্রাসা নেই। সুতরাং বেফাককে কওমী মাদ্রাসার স্বকীয়তা রক্ষার জন্য দৃঢ় থাকতে হবে। বেফাক দীর্ঘ ৪০বছর যাবত সুন্দরভাবে পরীক্ষার কাজ আঞ্জাম দিয়ে আসছে। এটা আমাদের গৌরবজনক প্রতিষ্ঠান। তাই দাওরায়ে হাদীসের পরীক্ষার ব্যাপারে বেফাকের কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকতে হবে।

পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নেও সতর্ক থাকতে হবে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সাহেবরা দেশবাসীকে পাশের হার বেশি দেখাতে চেয়েছেন। শতভাগ পাশ চেয়েছেন। ফল এখন পাচ্ছে দেশের মানুষ। আমরা পাশের হার বেশি দেখতে চাই না। আমরা চাই, যোগ্য, মেধাবী আলেমদের হাতেই দাওায়ে হাদীসের সনদ তুলে দেওয়া হোক। অযোগ্যদের পাশ করিয়ে কোন লাভ নেই।

এই সংবাদটি 1,052 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com