সোমবার, ০৫ জুন ২০১৭ ১১:০৬ ঘণ্টা

আল্লামা কাসেমীর খোঁজ নিলেন বেগম জিয়া

Share Button

আল্লামা কাসেমীর খোঁজ নিলেন বেগম জিয়া

ডেস্ক রিপোর্ট:
রাজনীতিবিদদের সম্মানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বিভিন্ন দলের নেতাদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টার। ইফতারে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ও বাম দলগুলো ছাড়া ২০ দলের বাইরে বেশ কিছু দলের নেতারা অংশ নেন।

ইফতারে অনেকের সঙ্গে দীর্ঘদিন পর দেখা হওয়ায় সার্বিক খোঁজখবর নেন খালেদা জিয়া। সন্ধ্যা ৬টা ২৬ মিনিটের দিকে অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌঁছান তিনি।

চেয়ারে বসেই আ স ম আবদুর রবের পাশে বসে থাকা তার স্ত্রী তানিয়া রবের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন খালেদা জিয়া। তার কাছে জানতে চান তিনি রাজনীতি করেন কি না। তানিয়া রব উত্তরে রাজনীতি করেন বলে জানান। অন্যরা সুর মেলান, উনি তো তার (আসম রব) চেয়েও বেশি রাজনীতি করেন।

এরই মধ্যে টেবিলের আলাপে এসে যোগ দেন সাবেক রাষ্ট্রপতি বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দৌজা চৌধুরী। এসেই খালেদা জিয়াকে সালাম দিয়ে আ স ম রবের সঙ্গে আলাপে মগ্ন হন।

এক পর্যায়ে আ স ব রব খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে বলেন, আমি দেবর উনি ভাবী। (স্ত্রীকে নির্দেশ করে)। তার কথার শেষে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আমিও দেবর। এসময় টেবিলে বসা সব নেতাই জোরে হেসে উঠেন।

একপর্যায়ে জোটের শরিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমীর উদ্দেশে খালেদা জিয়া বলেন, ‘কাসেমী সাহেব! কেমন আছেন? আপনাকে তো দেখা যায় না।’ তখন কাসেমী বলেন, ‘জ্বি ম্যাডাম আছি।’

ইফতারের টেবিলে বসে বদরুদ্দোজা চৌধুরী রাস্তার যানজটের কথা বলতেই মির্জা ফখরুল বলেন, ‘কী জ্যাম, কারওয়ানবাজার মোড় থেকে বসুন্ধরায় আসতে তিন ঘণ্টা সময় লেগেছে।’

প্রায় দশ মিনিট এই শীর্ষ রাজনীতিকরা নিজেদের মধ্যে আলাপ করেন, হাসাহাসি করেন খানিকটা। এ সময় পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, বিএনপির মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খানসহ অনেকে।

খালেদা জিয়া ইফতার শুরুর প্রাক্কালে সমাগত সব রাজনীতিকদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘যারা আমাদের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে আজকের ইফতারে এসেছেন কষ্ট করে, তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ। রাস্তায় ব্যাপক যানজটের মধ্য দিয়ে আমাদের দলের ইফতারে শরিক হয়েছেন এজন্য কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’
সুত্র-ঢাকা টাইমস

এই সংবাদটি 1,240 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com