কাঁদলেন রাজ্জাক

প্রকাশিত: ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০১৬

কাঁদলেন রাজ্জাক

প্রথম বাংলা নিউজ : দুপুর থেকেই এফডিসিতে একটা উৎসব আমেজ। পরিচালক সমিতির কক্ষে তিল ধারণের জায়গা নেই। দেয়ালে রঙ বেরঙের বেলুন। অন্যদিকে গেইটের বাইরে তখন উৎসুক জনতার ভিড়। সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন মূলত নায়করাজ রাজ্জাকের জন্য। কারণ আজ তার ৭৫ তম জন্মদিন। এ উপলক্ষ্যে শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি এফডিসিকে এক মিলন মেলার আয়োজন করে। এতে নায়করাজ বলেন, ‘৭ কোটি লোকের দেশে জন্মেছি, আর এখন ১৭ কোটি মানুষের নায়ক আমি। তাই আমি তোমাদের শিল্পী, তোমাদের রাজ্জাক।’৭৫-তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে এফডিসিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বেলা ৩টায় এসে উপস্থিত হন নায়করাজ রাজ্জাক। এসময় তার হাতে ফুলে তোড়া তুলে দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠন, কলাকুশলী ও গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা।দুপুর থেকেই এফডিসিতে একটা উৎসব আমেজ। পরিচালক সমিতির কক্ষে তিল ধারণের জায়গা নেই। দেয়ালে রঙ বেরঙের বেলুন। অন্যদিকে গেইটের বাইরে তখন উৎসুক জনতার ভিড়। সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন মূলত নায়করাজ রাজ্জাকের জন্য। কারণ আজ তার ৭৫ তম জন্মদিন। এ উপলক্ষ্যে শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি এফডিসিকে এক মিলন মেলার আয়োজন করে। এতে নায়করাজ বলেন, ‘৭ কোটি লোকের দেশে জন্মেছি, আর এখন ১৭ কোটি মানুষের নায়ক আমি। তাই আমি তোমাদের শিল্পী, তোমাদের রাজ্জাক।’৭৫-তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে এফডিসিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বেলা ৩টায় এসে উপস্থিত হন নায়করাজ রাজ্জাক। এসময় তার হাতে ফুলে তোড়া তুলে দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠন, কলাকুশলী ও গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা।তার পরপরই রাজ্জাককের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সিমিতর মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার।এদিকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা গ্রহণ শেষে সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন নায়করাজ রাজ্জাক। এসময় তিনি চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সময়ের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘ঢাকা শহরে তখন থাকার মতো কোন জায়গাই আমার ছিলো না। দুটো বাচ্চা নিয়ে কমলাপুরে এক রুমের বাসায় উঠেছিলাম। অনেক সময় শুটিং শেষে বাড়ি ফিরতে পারতাম না। শুটিং ফ্লোরেই শুয়ে থাকতাম। কিন্তু আমি যুদ্ধ করেছি। সফলও হয়েছি। তখন ৭ কোটি লোকের দেশে জন্মেছি, আর এখন ১৭ কোটি মানুষের নায়ক আমি। তাই আমি তোমাদের শিল্পী, আমি তোমাদের রাজ্জাক।চলচ্চিত্রের বতর্মান অবস্থা সম্পর্কে রাজ্জাক বলেন, ‘আজকের দিনে এসব কথা বলা ঠিক নয়। তারপরও একটি কথা বলে যেতে চাই, চলচ্চিত্রকে ধ্বংস হতে দিও না। যারা এদেশের চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে গিয়েছিলেন, মৃত্যুর পর তারাও এসব দেখে কষ্ট পাচ্ছে। তাই তোমরা আবার কাজ কর।’বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন নায়করাজ। এ সময় কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘তোমরা আমাকে ডেকো, অন্তত এক কাপ চা খাওয়ার জন্য হলেও। আমি তোমাদের মধ্যে থাকতে চাই।’’নায়করাজের ৭৫-তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চিত্রনায়িকা অঞ্জনা, চিত্রনায়ক ফেরদৌস, অভিনেতা অমিত হাসান, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহানসহ আরো অনেকেতার পরপরই রাজ্জাককের জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সিমিতর মহাসচিব মুশফিকুর রহমান গুলজার এদিকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা গ্রহণ শেষে সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন নায়করাজ রাজ্জাক। এসময় তিনি চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সময়ের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘ঢাকা শহরে তখন থাকার মতো কোন জায়গাই আমার ছিলো না। দুটো বাচ্চা নিয়ে কমলাপুরে এক রুমের বাসায় উঠেছিলাম। অনেক সময় শুটিং শেষে বাড়ি ফিরতে পারতাম না। শুটিং ফ্লোরেই শুয়ে থাকতাম। কিন্তু আমি যুদ্ধ করেছি। সফলও হয়েছি। তখন ৭ কোটি লোকের দেশে জন্মেছি, আর এখন ১৭ কোটি মানুষের নায়ক আমি। তাই আমি তোমাদের শিল্পী, আমি তোমাদের রাজ্জাক।’চলচ্চিত্রের বতর্মান অবস্থা সম্পর্কে রাজ্জাক বলেন, ‘আজকের দিনে এসব কথা বলা ঠিক নয়। তারপরও একটি কথা বলে যেতে চাই, চলচ্চিত্রকে ধ্বংস হতে দিও না। যারা এদেশের চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে গিয়েছিলেন, মৃত্যুর পর তারাও এসব দেখে কষ্ট পাচ্ছে। তাই তোমরা আবার কাজ কর।’বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন নায়করাজ। এ সময় কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘তোমরা আমাকে ডেকো, অন্তত এক কাপ চা খাওয়ার জন্য হলেও। আমি তোমাদের মধ্যে থাকতে চাই।’ নায়করাজের ৭৫-তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চিত্রনায়িকা অঞ্জনা, চিত্রনায়ক ফেরদৌস, অভিনেতা অমিত হাসান, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহানসহ আরো অনেকে।

এই সংবাদটি 28 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com