শুক্রবার, ২১ জুলা ২০১৭ ০৮:০৭ ঘণ্টা

জেলার নাম ‘বাংলাদেশ’ !

Share Button

জেলার নাম ‘বাংলাদেশ’ !

ডেস্ক রিপোর্ট: ‘বাংলাদেশ নামে আর্মেনিয়ার একটি জেলা আছে’ প্রথমবারের মতো এ কথা শোনার পর নিজের কানকে বিশ্বাস করাতে পারছিলাম না। ইয়েরেভান এয়ারপোর্টে অবতরণ করে ডলার এক্সচেঞ্জ করতে গেলে একজন আর্মেনিয়ানের সঙ্গে কথা হয়।আমরা বাংলাদেশ থেকে আসছি শুনেই তিনি ভাঙা ভাঙা ইংরেজিতে যা বললেন তার অর্থ হচ্ছে, ‘ইয়েরেভানের একটি জেলার নাম বাংলাদেশ।’
আমাদের কৌতুহলি জিজ্ঞাসা, ইজ ইট ফান? আর ইউ শিওর? জবাব- নো নো, ইটস নট ফান। ইউ ক্যান ভিজিট দেয়ার।

এতে একটু বিস্ময় নিয়েই বিমানবন্দর থেকে বের হয়ে এলাম।বাইরে আমাদের রিসিভ করতে অপেক্ষা করছিলেন মূকাভিনয় উৎসব আয়োজক কমিটির সদস্যরা। বের হতেই দেখলাম ‘লিওনিড ইয়েঙবারিয়ান ইন্টারন্যাশনাল মাইম ফেস্টিভাল’ লেখা পোস্টার হাতে দাঁড়িয়ে আছেন একজন দীর্ঘদেহী তরুণ। আমাদের দেখে এগিয়ে এলেন। তার সঙ্গে আসলেন একজন তরুণী। প্রাইভেটকারে বিমানবন্দর ত্যাগ করতে করতে কথা হয় তাদের সঙ্গে। স্মার্ট তরুণ বাগরাত এবং তরুণী আর্মেনি মুহতাসিয়ান।মুহতাসিয়ান ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থী। একজন আর্টিস্ট এবং একইসঙ্গে জবও করেন।বিভিন্ন কথা প্রসঙ্গে তিনি জানালেন, ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি জেলা রয়েছে ইয়েরেভানে।আমরা এরপরও বিষয়টি নিশ্চিত হতে পারছিলাম না। আবার মনে মনে ভাবলাম থাকতেও পারে। আমাদের ঢাকায় যদি আর্মানিটোলা থাকতে পারে তবে আর্মেনিয়ায় বাংলাদেশ নামে কিছু থাকতে পারবে না কেন। তাই আমরা আর্মানিটোলার ইতিহাসটি সংক্ষেপে তাদেরকে জানালে তারাও কৌতুহলী হলেন।

আর্মেনিয়ায় বাংলাদেশ নামক জেলায় ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান নিয়েই রাতে আমাদের জন্য বুকিং করা হোটেলে উঠলাম। এরপর রাতেই ফাইনাল পরিকল্পনা করলাম, সকালে আমাদের প্রথম কাজ হবে এখানকার ‘বাংলাদেশ’ সফর করা।

সকালে উৎসব আয়োজক কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক এনার সঙ্গে সাক্ষাতেও জানতে চাইলাম বাংলাদেশ জেলা প্রসঙ্গে। কেন এই নামকরণ, বিষয়টি সম্পর্কে তিনিও স্পষ্ট নন। তবে তার ধারণা, হয়তো কোন ঐতিহাসিক কারণ রয়েছে। তার সঙ্গে আলাপ সেরেই আমরা মস্কুভিয়ান স্ট্রিট থেকে ৯৯ নাম্বার বাসে রওনা হলাম বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে।

পাহাড়-পর্বতে ঘেরা আর্মেনিয়ার রাজধানী ও বৃহত্তম শহর ইয়েরেভানের আয়তন ৮৮ বর্গমাইল। উচ্চতা ৯৮৯.৪ মিটার (৩২৪৬.১ ফুট)। মূল কেন্দ্র রিপাবলিক স্কয়ার থেকে যতো সামনে এগিয়ে যাচ্ছি ততোই নিচে নেমে যাচ্ছি। ওদিকটায় রাস্তার দুপাশে সারি সারি গাছ। কিছু সবুজ মাঠও আছে। আরেকটু সামনে গিয়ে বিশাল এক পুকুরের দেখা মিলল। পাহাড়ে সবুজ বৃক্ষও দেখতে পাচ্ছি। ৩০ মিনিট পর পৌঁছলাম। দারুণ সাজানো সুন্দর এই বাংলাদেশ। রাস্তায় বিল বোর্ডে ইংরেজি বানানের ‘বাংলাদেশ’ নাম খুঁজে পেলাম না। আর্মেনিয়ান ভাষায় সবকিছু লেখা। কিন্তু স্থানীয়রা উচ্চারণ করছেন ‘বাংলাদেশ’। গাড়ি চালক বলছেন, ‘বাংলাদেশ পৌঁছে গেছি, নেমে পড়ুন’।স্থানীয় একটি দোকানে ঢুকে আমাদের পরিচয় দিতেই ব্যাপক কৌতুহলী দোকানদার। ইংরেজি বলতে পারেন না একটুও। কিছুটা বুঝতে পারেন। সেলফি তোলার অফার দিলে রাজি হলেন। কথা প্রসঙ্গে জানতে চাইলাম বাংলাদেশ কিভাবে হলো? তিনিও বলতে পারলেন না তেমন কিছু।

ধারণা করা হয়, ঢাকায় আর্মানিটোলার একটি ঐতিহাসিক ধারা এখানে ভূমিকা রেখেছে।অষ্টাদশ শতকে যারা ব্যবসা, বাণিজ্যসহ বিভিন্ন কারণে আর্মেনিয়ায় গিয়েছিলেন তারা সম্ভবত আর্মেনিয়ায় এই নামকরণ করেন। কিন্তু তা অনুমান নির্ভর।

তবে গুগল সার্চ করে এই এলাকার নাম পাওয়া গেলো ‘মালাতিয়া সেবাস্তিয়া’।অফিসিয়াল নাম এটি হলেও স্থানীয়দের কাছে ‘বাংলাদেশ’ হিসেবেই পরিচিত। বাসযাত্রী, দোকানদার, পুলিশসহ যাকেই বলুন না কেন সবাই চেনেন বাংলাদেশ নামেই। এমনকি আমরা যখন নিজেদের পরিচয় দিয়ে বলি যে, ‘উই আর ফ্রম বাংলাদেশ’ তখন প্রথমে সবাই আর্মেনিয়ার বাংলাদেশের কথাই মনে করছেন! পরে আমাদের নিজের দেশের বর্ণনা দিলে বিষয়টি তাদের কাছে স্পষ্ট হয়।

যাই হোক, গুগলে প্রাপ্ত একটি আর্টিকেল থেকে জানা গেলো এই এলাকার নাম ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর ‘বাংলাদেশ’ হিসেবে পরিচিতি পায়। ইয়েরেভানের অন্যান্য এলাকা থেকে তুলনামূলক নিচু স্থানে অবস্থিত, তুলনামূলক অনুন্নত, বাংলাদেশের মতো কিছুটা সবুজ অরণ্য ইত্যাদি মিলিয়ে এটির নাম বাংলাদেশ। ইয়েরেভানের লেখকের সেই আর্টিকেল আরো বলা হয়, আর্মেনিয়াকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে পাকিস্তান স্বীকৃতি দিতে কার্পণ্য করার প্রতিবাদে এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতি সম্মান থেকেও এমন নামকরণ করা হতে পারে।

আর্মেনিয়া

তবে সবগুলোই মূলত অসমর্থিত সূত্র। এরপরও আর্মেনিয়াতে যে বাংলাদেশ নামের জেলা আছে এবং পুরো ইয়েরেভানে তা পরিচিত, এটাই একজন বাংলাদেশি হিসেবে আমাদের জন্য আনন্দের, গর্বের।

আমরা বেশ আনন্দ নিয়ে এই বাংলাদেশে ঘুরলাম। অনেকগুলো ছবি তুললাম। স্থানীয় দোকানদারের সঙ্গে সেলফিটাও তুললাম। এরপর এক কেজি আপেল কিনে বাংলাদেশ ছেড়ে চলে এলাম ইয়েরেভানে।ফেরার সময় বারবার মনে হচ্ছিলো বোধয় কিছু রেখে যাচ্ছি, সত্যি রেখে যাচ্ছি।

এই সংবাদটি 1,042 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com